"প্রথম চেচেন যুদ্ধ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

(9টি উৎস উদ্ধার করা হল ও 0টি অকার্যকর হিসেবে চিহ্নিত করা হল। #IABot (v2.0beta14))
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
গ্রোজনির অভ্যন্তরে ও চতুর্দিকে মোতায়েনকৃত রুশ সৈন্যসংখ্যা ছিল প্রায় ১২,০০০। তা সত্ত্বেও ১,৫০০-এর বেশি চেচেন যোদ্ধা অতর্কিত আক্রমণ চালিয়ে কয়েক ঘণ্টার মধ্যে গ্রোজনির গুরুত্বপূর্ন জেলাগুলো দখল করে নেয়। মাসখাদভ এই অভিযানটির নাম দিয়েছিলেন '''অপারেশন জিরো''', আর বাসায়েভ এটির নাম দিয়েছিলেন '''অপারেশন জিহাদ'''। শহরটির গুরুত্বপূর্ণ অংশগুলো দখল করার পর চেচেন বিচ্ছিন্নতাবাদীরা শহরটিতে অবস্থিত রুশ ঘাঁটি, ফাঁড়ি ও সরকারি ভবনগুলো অবরোধ করে এবং রুশপন্থী চেচেনদের বন্দি ও ক্ষেত্রবিশেষে হত্যা করে<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://www.memo.ru/hr/hotpoints/chechen/checheng/fin_rep.htm|শিরোনাম=czecz|কর্ম=memo.ru}}</ref>। একই সময়ে আর্গুন ও গুন্দের্মেস শহরদ্বয়ে অবস্থানরত রুশ সৈন্যরা তাদের সেনানিবাসে অবরুদ্ধ হয়ে পড়ে। গ্রোজনির রুশ সৈন্যদের মুক্ত করার জন্য রুশ সাঁজোয়া বহরগুলোর বেশ কয়েকটি প্রচেষ্টা শোচনীয়ভাবে ব্যর্থ হয় (৯০০ সৈন্যের রুশ ২৭৬তম মোটর রেজিমেন্ট দুই দিন ধরে গ্রোজনির সিটি সেন্টারে পৌঁছানোর চেষ্টা চালিয়ে ব্যর্থ হয় এবং রেজিমেন্টটির ৫০% সৈন্য হতাহত হয়)। রুশ সামরিক কর্মকর্তাদের মতে, পাঁচ দিনব্যাপী যুদ্ধে ২০০ জনেরও বেশি রুশ সৈন্য নিহত এবং প্রায় ৮০০ সৈন্য আহত হয়, পাশাপাশি অজ্ঞাতসংখ্যক সৈন্য নিখোঁজ হয়; চেচেনরা দাবি করে যে প্রায় ১,০০০ রুশ সৈন্য এই যুদ্ধে নিহত হয়। হাজার হাজার রুশ সৈন্য চেচেনদের হাতে বন্দি হয় অথবা আত্মসমর্পণ করে এবং তাদের ভারী অস্ত্রশস্ত্র ও গোলাবারুদ বিচ্ছিন্নতাবাদীদের হস্তগত হয়।
 
১৯ আগস্ট গ্রোজনিতে ৫০,০০০ থেকে ২,০০,০০০ চেচেন জনসাধারণ এবং হাজার হাজার রুশ কেন্দ্রীয় সৈন্যের উপস্থিতি সত্ত্বেও রুশ কমান্ডারসৈন‍্যাধ‍্যক্ষ কনস্টান্টিনকনস্তান্তিন পুলিকোভস্কি চেচেন যোদ্ধাদেরকে শহর ত্যাগের জন্য ৪৮ ঘণ্টা সময় দিয়ে চরমপত্র প্রদান করেন এবং অন্যথায় প্রচণ্ড বিমান হামলা ও গোলাবর্ষণের মাধ্যমে শহরটি ধূলিসাৎ করে দেয়ার হুমকি দেন। তিনি বলেন যে এবারে কেন্দ্রীয় বাহিনী [[কৌশলগত বোমারু বিমান]] (যেটি তখন পর্যন্ত চেচনিয়ায় ব্যবহার করা হয় নি) এবং ব্যালিস্টিক ক্ষেপনাস্ত্র ব্যবহার করবে। তাঁর এই হুমকির পর আতঙ্কিত চেচেন জনসাধারণ রুশ বাহিনী তাদের হুমকি কার্যকর করার আগেই গ্রোজনি ত্যাগের চেষ্টা চালায় এবং এর ফলে একটি চরম নৈরাজ্যকর পরিস্থিতির সৃষ্টি হয়<ref>[http://www.telegraph.co.uk/htmlContent.jhtml?html=/archive/1996/08/22/wrus22.html Lebed calls off assault on Grozny]''[[The Daily Telegraph]]'' {{ওয়েব আর্কাইভ|ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20080503023200/http://www.telegraph.co.uk/htmlContent.jhtml?html=%2Farchive%2F1996%2F08%2F22%2Fwrus22.html |তারিখ=৩ মে ২০০৮ }}</ref>। অবশ্য ২২ আগস্ট ইয়েলৎসিনের জাতীয় নিরাপত্তা বিষয়ক উপদেষ্টা জেনারেল [[আলেকসান্দারআলেক্সান্দর লেবেদ]] চেচেন বিচ্ছিন্নতাবাদীদের সঙ্গে যুদ্ধবিরতি স্বাক্ষর করেন এবং বোমাবর্ষণের পরিকল্পনা স্থগিত করেন। জেনারেল পুলিকোভস্কির চরমপত্রকে তিনি একটি "খারাপ''নিম্নমানের কৌতুক"'' হিসেবে অভিহিত করেন<ref>[http://www.cnn.com/WORLD/9608/21/chechnya.final/ Lebed promises peace in Grozny and no Russian assault][[CNN]] {{ওয়েব আর্কাইভ|ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20081211122033/http://www.cnn.com/WORLD/9608/21/chechnya.final/ |তারিখ=১১ ডিসেম্বর ২০০৮ }}</ref><ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|লেখক=Lee Hockstader and David Hoffman |ইউআরএল=http://articles.sun-sentinel.com/1996-08-22/news/9608220016_1_grozny-gen-konstantin-pulikovsky-alexander-lebed |শিরোনাম=Russian Official Vows To Stop Raid|প্রকাশক=Sun Sentinel|তারিখ=1996-08-22|সংগ্রহের-তারিখ=2012-02-03}}</ref>।
 
আট ঘণ্টাব্যাপী আলোচনার পর ১৯৯৬ সালের ৩১ আগস্ট লেবেদ এবং মাসখাদভ [[খাসাভ-ইয়ুর্ত চুক্তি]]তে স্বাক্ষর করেন। চুক্তিটির শর্তগুলোর মধ্যে ছিল: [[অসামরিকীকরণ]], গ্রোজনি থেকে উভয় পক্ষের সৈন্য প্রত্যাহার, শহরটিতে লুণ্ঠন বন্ধ করার জন্য যৌথ সদরদপ্তর সৃষ্টি, ১৯৯৬ সালের ৩১ ডিসেম্বরের মধ্যে চেচনিয়া থেকে সকল কেন্দ্রীয় সৈন্য প্রত্যাহার, এবং পাঁচ বছরের মধ্যে ইচকেরিয়া চেচেন প্রজাতন্ত্র ও রুশ কেন্দ্রীয় সরকারের মধ্যে সম্পর্ক নির্ণয় বিষয়ে কোনো চুক্তি স্বাক্ষর না করা।