"প্রফুল্ল চন্দ্র রায়" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সংশোধন
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা দৃশ্যমান সম্পাদনা
(সংশোধন)
 
 
'''আচার্য স্যার প্রফুল্ল চন্দ্র রায়''' [[Order of the Indian Empire|CIE]], [[Indian National Science Academy|FNI]], [[The Asiatic Society|FRASB]], [[Indian Association for the Cultivation of Science|FIAS]], [[Chemical Society|FCS]] (''Praphulla Chandra Rāy'', যিনি '''পি সি রায়''' নামেও পরিচিত; [[আগস্ট ২]], [[১৮৬১]] - [[জুন ১৬]], [[১৯৪৪]]<ref name="JICS_Ray_Obit">{{Cite journal | last1 = | first1 = | url = | title = Obituary: Sir Prafulla Chandra Ray| journal = Journal of the Indian Chemical Society| volume = XXI | pages = 253–260 | year = 1944 | pmid = | pmc = | deadurl = | df = }}</ref>) একজন প্রখ্যাত [[বাঙালি]] রসায়নবিদ, বিজ্ঞানশিক্ষক, দার্শনিক, কবি। তিনি [[বেঙ্গল কেমিকালকেমিক্যালস এণ্ড ফার্মাসিউটিক্যালস|বেঙ্গল কেমিকালের]] প্রতিষ্ঠাতা এবং [[মার্কারি (I) নাইট্রেট]]-এর আবিষ্কারক। দেশী শিল্পায়ন উদ্যোক্তা। তাঁর জন্ম অবিভক্ত বাংলার [[যশোর জেলা]]য় (বর্তমানে বাংলাদেশের অন্তর্গত)। তিনি [[জগদীশ চন্দ্র বসু|বৈজ্ঞানিক জগদীশ চন্দ্র বসুর]] সহকর্মী ছিলেন।
 
== জন্ম ও বাল্যকাল ==
 
== কর্মজীবন ==
ইউরোপের বিভিন্ন দেশ ঘুরে [[১৮৮৮]] খ্রিস্টাব্দে প্রফুল্লচন্দ্র রায় স্বদেশে প্রত্যাবর্তন করেন। দেশে ফিরে প্রেসিডেন্সী কলেজের সহকারী অধ্যাপক হিসেবে যোগদানের মাধ্যমে তিনি কর্মজীবন শুরু করেন। প্রায় ২৪ বছর তিনি এই কলেজে অধ্যাপনা করেছিলেন। অধ্যাপনাকালে তার প্রিয় বিষয় [[রসায়ন]] নিয়ে তিনি নিত্য নতুন অনেক গবেষণাও চালিয়ে যান। তার উদ্যোগে তার নিজস্ব গবেষণাগার থেকেই [[বেঙ্গল কেমিক্যালস এণ্ড ফার্মাসিউটিক্যালস|বেঙ্গল কেমিক্যাল কারখানা]] সৃষ্টি হয় এবং পরবর্তীকালে [[১৯০১]] খ্রিস্টাব্দে তা কলকাতার মানিকতলায় ৪৫ একর জমিতে স্থানান্তরিত করা হয়। তখন এর নতুন নাম রাখা হয় [[বেঙ্গল কেমিক্যালস এণ্ড ফার্মাসিউটিক্যালস|বেঙ্গল কেমিক্যাল এন্ড ফার্মাসিউটিক্যাল ওয়ার্কস লিমিটেড]]।
 
== অবদান ==
* নিজের বাসভবনে দেশীয় [[ভেষজ]] নিয়ে গবেষণার মাধ্যমে তিনি তার গবেষণাকর্ম আরম্ভ করেন। তার এই গবেষণাস্থল থেকেই পরবর্তীকালে [[বেঙ্গল কেমিক্যালকেমিক্যালস কারখানাএণ্ড ফার্মাসিউটিক্যালস|বেঙ্গল কেমিক্যাল কারখানার]] সৃষ্টি হয় যা ভারতবর্ষের শিলপায়নে উল্লেখযোগ্য ভূমিকা পালন করে। তাই বলা যায় বিংশ শতাব্দীর গোড়ার দিকে ভারতীয় উপমহাদেশের শিল্পায়নে তার ভূমিকা অনস্বীকার্য।
* [[১৮৯৫]] খ্রিস্টাব্দে তিনি [[মার্কারি (I) নাইট্রেট|মারকিউরাস নাইট্রাইট]] (HgNO<sub>2</sub>) আবিষ্কার করেন যা বিশ্বব্যাপী আলোড়নের সৃষ্টি করে। এটি তার অন্যতম প্রধান আবিষ্কার। তিনি তার সমগ্র জীবনে মোট ১২টি যৌগিক [[লবণ]] এবং ৫টি [[থায়োএস্টার]] আবিষ্কার করেন।
* সমবায়ের পুরোধা স্যার পিসি রায় ১৯০৯ খ্রিস্টাব্দে নিজ জন্মভূমিতে একটি কো-অপারেটিভ ব্যাংক প্রতিষ্ঠা করেন। ১৯০৩ খ্রিস্টাব্দে বিজ্ঞানী পিসি রায় পিতার নামে আরকেবিকে হরিশ্চন্দ্র স্কুল প্রতিষ্ঠা করেন।
* বাগেরহাট জেলায় ১৯১৮ সালে তিনি পি, সি কলেজ নামে একটি কলেজ প্রতিষ্ঠা করেন। যা আজ বাংলাদেশের শিক্ষা বিস্তারে বিশাল ভূমিকা রাখছে।
৮৯২টি

সম্পাদনা