"ইসোয়াতিনি" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
== ইতিহাস==
দেশে দ্বৈতশাসন ব্যবস্থার সরকার রয়েছে, ১৯৮৬ সালের পর এনভেনমামা ("রাজা") মশ্বতী তৃতীয় এবং এনডলভুকতি ("রানী মা") এনফোব্বি তফওয়ালা দ্বারা দেশটি যৌথভাবে শাসিত। [11] [12] সাবেক রাষ্ট্রের প্রশাসনিক প্রধান এবং দেশের প্রধানমন্ত্রীর এবং দেশের সংসদ উভয় কক্ষের (সেনেট এবং সংসদ অধিবেশনের) প্রতিনিধি নিযুক্ত করা হয় এবং পরবর্তীতে রাষ্ট্রের জাতীয় প্রধান রাষ্ট্রপতির দায়িত্ব পালন করেন। জাতিসংঘের প্রথাগত উৎসব এবং বার্ষিক উমলংঙা অনুষ্ঠানের সময় সভাপতিত্ব করেন। সংসদ অধিবেশনে এবং সেনেট সংখ্যাগরিষ্ঠতা নির্ধারণের জন্য প্রতি পাঁচ বছরে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। বর্তমান সংবিধান ২০০৫ সালে গৃহীত হয়েছিল। আগস্ট/সেপ্টেম্বরে অনুষ্ঠিত উমলংঙ্গা [13] এবং ডিসেম্বর/জানুয়ারিতে অনুষ্ঠিত রাজপরিবার নাচ ইনভাল্লা দেশের অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ উৎসব। [14]
 
এসোয়াতিনি একটি উন্নয়নশীল ছোট অর্থনীতির দেশ। দেশটি ৯.৭১৪ ডলারের মাথাপিছু জিডিপি দিয়ে এটি নিম্ন-মধ্যম আয়ের দেশ হিসাবে শ্রেণীবদ্ধ। [3] সাউদার্ন আফ্রিকান কাস্টমস ইউনিয়ন (এসএসিইউ) এবং পূর্ব ও দক্ষিণ আফ্রিকা (সিএমএমএসএ) এর সাধারণ বাজারের সদস্য হিসাবে এসোয়াতিনির প্রধান স্থানীয় বাণিজ্যিক অংশীদার হল [[দক্ষিণ আফ্রিকা]]; অর্থনৈতিক স্থিতিশীলতা নিশ্চিত করার জন্য, এসোয়াতিনি মুদ্রা লিলাঙ্গেনে [[দক্ষিণ আফ্রিকা]]র র্যান্ডে চুড়ান্ত। এসোয়াতিনির প্রধান বিদেশী বাণিজ্যিক অংশীদার [[মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র]] [15] এবং [[ইউরোপীয় ইউনিয়ন]]। [16] দেশের অধিকাংশ কর্মসংস্থান তার কৃষি ও উৎপাদন খাত দ্বারা সরবরাহ করা হয়। এসোয়াতিনি সাউদার্ন আফ্রিকান ডেভেলপমেন্ট কমিউনিটি (এসএডিসি), [[আফ্রিকান ইউনিয়ন]], [[কমনওয়েলথ অব নেশনস| কমনওয়েলথ নেশনস]] এবং [[জাতিসংঘ|জাতিসংঘের]] সদস্য।
 
==তথ্যসূত্র==