"আসাম চুক্তি" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
 
==চুক্তি বন্দোবস্তের স্মারকলিপি==
আসামে বহিরাগত সমস্যার সমাধান করতে তৎকালীন আসাম রাজ্য সরকার ও কেন্দ্রীয় সরকার উভয়ই খুব উদ্বিগ্ন হয়ে ওঠে৷ [[সদৌ অসম ছাত্র সন্থা]] ও [[অসম গণ পরিষদ]] অসমীয়াদের এদুটি সংগঠনও সমস্যার সমাধানে আগ্রহ দেখায়৷
 
[[সদৌ অসম ছাত্র সন্থা]] বিদেশ তথা [[বাংলাদেশ]] থেকে ক্রমাগত আসতে থাকা শরণার্থীদের ফলে আসামের রাজনৈতিক, সামাজিক, সাংস্কৃৃতিক ও অর্থনৈতিক পরিস্থিতির পরিবর্তন হতে পারে বলে আশঙ্কা প্রকাশ করে ১৯৮০ খ্রিস্টাব্দে ২রা ফেব্রুয়ারি তৎকালীন প্রধানমন্ত্রী [[ইন্দিরা গান্ধী]]র কাছে একটি চিঠি লেখেন৷
 
ছাত্র সংগঠনের আশঙ্কাকে যুক্তিযুক্ত মনে করে প্রধানমন্ত্রী ইন্দিরা গান্ধী তাদের সাথে বৈঠকে বসতে সচেষ্ট হন৷ ১৯৮০-৮৩ খ্রিস্টাব্দের মধ্যে প্রধানমন্ত্রী ও গৃৃহমন্ত্রীর সঙ্গে এই আলোচনা সম্পন্ন হয়৷ ১৯৮৪ খ্রিস্টাব্দে একাধিকবার বৈঠক হয় ও পর্যাপ্ত তথ্য আদান-প্রদান হয়৷ ১৯৮৫ খ্রিস্টাব্দের মার্চ মাসে এই বিষয়ে পুণরালোচনা হয়৷
 
সংবিধান, আইনি সংস্থান, আন্তর্জাতিক সম্মতি চুক্তি, রাষ্ট্রীয় প্রতিশ্রুতি, বদান্য বিবেচনা প্রভৃৃতি সমস্যাগুলি মাথায় রেখে উক্তবিষয়ক সমস্ত আলোচনা অগ্রসর করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়৷ আলোচ্য বিষয়গুলি নিম্নরূপ:
===বিদেশী সমস্যা===
 
==স্বাক্ষরকারী==