"চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

4টি উৎস উদ্ধার করা হল ও 0টি অকার্যকর হিসেবে চিহ্নিত করা হল। #IABot (v2.0beta14)
(4টি উৎস উদ্ধার করা হল ও 0টি অকার্যকর হিসেবে চিহ্নিত করা হল। #IABot (v2.0beta14))
 
==অবস্থান==
[[চট্টগ্রাম]] শহর থেকে প্রায় ২২ কিলোমিটার উত্তরে [[হাটহাজারী|হাটহাজারী থানার]] [[ফতেহপুর ইউনিয়ন|ফতেহপুর ইউনিয়নে]] অবস্থিত চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় এলাকার শহীদ মিনারের পাশে আইটি ভবনের পশ্চিমে এই গ্রন্থাগারের অবস্থান।<ref name="LAS">{{ওয়েব উদ্ধৃতি |ইউআরএল=https://coral.uchicago.edu:8443/display/lasa/Chittagong+University+Library+%28Chittagong%2C+Bangladesh%29 |শিরোনাম=Chittagong University Library (Chittagong, Bangladesh) |প্রকাশক=Libraries & Archives in South Asia |সংগ্রহের-তারিখ=৪ মে ২০১৫}}</ref><ref name="সৌন্দর্যের আধার">{{সংবাদ উদ্ধৃতি |তারিখ=১৫ এপ্রিল ২০১৫ |শিরোনাম=চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়: প্রাকৃতিক ও স্থাপত্য সৌন্দর্যের আধার |ইউআরএল=http://www.dailyinqilab.com/details/8023/চট্টগ্রাম-বিশ্ববিদ্যালয়-:-প্রাকৃতিক-ও-স্থাপত্য-সৌন্দর্যের-আধার |সংবাদপত্র=[[দৈনিক ইনকিলাব]] |অবস্থান=[[ঢাকা]] |সংগ্রহের-তারিখ=৪ মে ২০১৫ }}{{অকার্যকর সংযোগ|তারিখ=ফেব্রুয়ারি ২০১৯ |bot=InternetArchiveBot |ঠিক করার প্রচেষ্টা=yes}}</ref> গ্রন্থাগারের সামনে কলা ও মানববিদ্যা অনুষদ এবং দক্ষিণে চাকসু ভবন।<ref name="আজাদী"/><ref name="হাবচ">{{সাময়িকী উদ্ধৃতি |সম্পাদক১-শেষাংশ=খালেদ |সম্পাদক১-প্রথমাংশ=মোহাম্মদ |সম্পাদক২-শেষাংশ=দাশগুপ্ত |সম্পাদক২-প্রথমাংশ=অরুণ |সম্পাদক৩-শেষাংশ=হক |সম্পাদক৩-প্রথমাংশ=মাহবুবুল |শিরোনাম=চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার |সংগ্রহের-তারিখ=৫ মে ২০১৯ |বিভাগ=নগর-জীবন |সাময়িকী=হাজার বছরের চট্টগ্রাম |ধরন=৩৫ বর্ষপূর্তি বিশেষ সংখ্যা |প্রকাশক=এম এ মালেক, [[দৈনিক আজাদী]] |প্রকাশনার-স্থান=চট্টগ্রাম |প্রকাশনার-তারিখ=নভেম্বর ১৯৯৫ |পাতাসমূহ=৩০৯-৩১০ }}</ref><ref name="কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার">{{সংবাদ উদ্ধৃতি |লেখক=সাহাবুদ্দীন জামিল |তারিখ=নভেম্বর ২৮, ২০১৩ |শিরোনাম=চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার |ইউআরএল=http://shampratikdeshkal.com/library/2013/11/28/949 |সংবাদপত্র=সাম্প্রতিক দেশকাল |অবস্থান= |সংগ্রহের-তারিখ=মে ৪, ২০১৫ |আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20151002172011/http://shampratikdeshkal.com/library/2013/11/28/949 |আর্কাইভের-তারিখ=২ অক্টোবর ২০১৫ |অকার্যকর-ইউআরএল=হ্যাঁ}}</ref> গ্রন্থাগার ভবনের পশ্চিম পাশে [[চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় জাদুঘর]] অবস্থিত।<ref name="জঙ্গলপট্টি">{{সংবাদ উদ্ধৃতি |শিরোনাম=চবি যেন জঙ্গলপট্টির জাদুঘর |ইউআরএল=https://www.dailyinqilab.com/article/48950/চবি-যেন-জঙ্গলপট্টির-জাদুঘর |সংগ্রহের-তারিখ=১৪ মে ২০১৯ |প্রকাশক=[[দৈনিক ইনকিলাব]] |তারিখ=২০ নভেম্বর ২০১৬ |আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20190514121714/https://www.dailyinqilab.com/article/48950/চবি%E0%A6%9A%E0%A6%AC%E0%A6%BF-যেন%E0%A6%AF%E0%A7%87%E0%A6%A8-জঙ্গলপট্টির%E0%A6%9C%E0%A6%99%E0%A7%8D%E0%A6%97%E0%A6%B2%E0%A6%AA%E0%A6%9F%E0%A7%8D%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A6%B0-জাদুঘর%E0%A6%9C%E0%A6%BE%E0%A6%A6%E0%A7%81%E0%A6%98%E0%A6%B0 |আর্কাইভের-তারিখ=১৪ মে ২০১৯ |অকার্যকর-ইউআরএল=না }}</ref>
 
==ইতিহাস==
[[চিত্র:Chittagong University Library garden (07).jpg|thumb|গ্রন্থাগারের অভ্যন্তরিণ বাগান]]
 
১৯৬৬ সালের ১৮ নভেম্বরের কয়েকজন কর্মকর্তা নিয়ে ভবনের নিচতলায় {{রূপান্তর|১২০০|ft2}} বিশিষ্ট একটি কক্ষে মাত্র ৩০০টি বইয়ের সংগ্রহ নিয়ে গ্রন্থাগারটির যাত্রা শুরু হয়।<ref name="আজাদী">{{সংবাদ উদ্ধৃতি |লেখক=গাজী মোহাম্মদ নুরউদ্দিন |শিরোনাম=প্রাচীন পুঁথি-পাণ্ডুলিপির বিশাল সংগ্রহ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার |ইউআরএল=http://www.dainikazadi.org/details2.php?news_id=1617&table=september2014&date=2014-09-14&page_id=36&view=&instant_status= |সংগ্রহের-তারিখ=জানুয়ারি ১০, ২০১৫ |কর্ম=[[দৈনিক আজাদী]] |আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20151023215055/http://www.dainikazadi.org/details2.php?news_id=1617&table=september2014&date=2014-09-14&page_id=36&view=&instant_status= |আর্কাইভের-তারিখ=২৩ অক্টোবর ২০১৫ |অকার্যকর-ইউআরএল=হ্যাঁ}}</ref><ref name="এক টুকরো গ্রাম">{{সংবাদ উদ্ধৃতি |শেষাংশ1=টিপু |প্রথমাংশ1=মহিউদ্দিন |শিরোনাম=চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় কেন্দ্রীয় লাইব্রেরি আলোকিত এক টুকরো গ্রাম |ইউআরএল=http://www.dailysangram.com/post/26215-চট্টগ্রাম-বিশ্ববিদ্যালয়-কেন্দ্রীয়-লাইব্রেরিআলোকিত-এক-টুকরো-গ্রাম |সংগ্রহের-তারিখ=১২ মে ২০১৯ |প্রকাশক=[[দৈনিক সংগ্রাম]] |তারিখ=২৪ ফেব্রুয়ারি ২০১০ |আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20190512161231/http://www.dailysangram.com/post/26215-চট্টগ্রাম%E0%A6%9A%E0%A6%9F%E0%A7%8D%E0%A6%9F%E0%A6%97%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%AE-বিশ্ববিদ্যালয়%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%B6%E0%A7%8D%E0%A6%AC%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%B2%E0%A6%AF%E0%A6%BC-কেন্দ্রীয়%E0%A6%95%E0%A7%87%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A7%80%E0%A6%AF%E0%A6%BC-লাইব্রেরিআলোকিত%E0%A6%B2%E0%A6%BE%E0%A6%87%E0%A6%AC%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A7%87%E0%A6%B0%E0%A6%BF%E0%A6%86%E0%A6%B2%E0%A7%8B%E0%A6%95%E0%A6%BF%E0%A6%A4-এক%E0%A6%8F%E0%A6%95-টুকরো%E0%A6%9F%E0%A7%81%E0%A6%95%E0%A6%B0%E0%A7%8B-গ্রাম%E0%A6%97%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%AE |আর্কাইভের-তারিখ=১২ মে ২০১৯ |অকার্যকর-ইউআরএল=না }}</ref> পরবর্তীকালে ১৯৬৮ সালে বর্তমান প্রশাসনিক ভবনের (মল্লিক ভবন) দক্ষিণ পাশে মানবিক ও সমাজ বিজ্ঞান অনুষদ (সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ) ভবনে প্রায় ১৪ হাজার বই নিয়ে ক্ষুদ্র পরিসরে গ্রন্থাগারটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। এরপর অস্থায়ী গ্রন্থাগারাটি বর্তমান ভবনে স্থানান্তরিত করা হয়। ১৯৭৩ সালের ডিসেম্বর মাসের দিকে কিছুদিনের জন্য গ্রন্থাগারটি পুনরায় বর্তমান প্রশাসনিক ভবনে স্থানান্তরিত করা হয়েছিল। বর্তমানে {{রূপান্তর|৫৬৭০০|ft2}}<ref name="এক টুকরো গ্রাম"/> পরিমিত এলাকা জুড়ে বিস্তৃত এটি চট্টগ্রামের সবচেয়ে বড় ও আধুনিক গ্রন্থাগার।<ref name="মূল্যবান">{{সংবাদ উদ্ধৃতি |শিরোনাম=মূল্যবান বইয়ের সংগ্রহশালা দুষ্প্রাপ্য ও পাণ্ডলিপি শাখা |ইউআরএল=http://oldsite.dailyjanakantha.com/news_view.php?nc=50&dd=2010-10-31&ni=37889 |সংগ্রহের-তারিখ=১৪ মে ২০১৯ |প্রকাশক=[[দৈনিক জনকণ্ঠ]] |তারিখ=৩১ অক্টোবর ২০১০}}</ref>
 
==পরিচালনা==
দ্বিতীয় তলায় রয়েছে বিজ্ঞান, ব্যবসা প্রশাসন, আইন এবং সামাজিক বিজ্ঞানের জন্য স্বতন্ত্র পাঠকক্ষ। এছাড়াও রয়েছে দুষ্প্রাপ্য ও পাণ্ডুলিপি এবং পুরাতন সযবাদপত্র শাকা, ফটোকপি শাখা, কম্পিউটার ল্যাব এবং ইন্টারনেট কক্ষ।
 
গ্রন্থাগারের মধ্যবর্তী তলায় রয়েছে রেফারেন্স বা উৎস শাখা, জার্নাল ও সাময়িকী শাখা, এবং গবেষণা কক্ষ।<ref name="এক টুকরো গ্রাম"/> ২০১৮ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডক্টর আর.আই. চৌধুরীর নামে একটি কর্ণার স্থাপন করা হয়েছে।<ref name="ক্যামেরা স্থাপন">{{সংবাদ উদ্ধৃতি |শিরোনাম=চবি গ্রন্থাগারে আধুনিকায়ন ও সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন |ইউআরএল=https://new.priyo.com/articles/চবি-গ্রন্থাগারে-আধুনিকায়ন-ও-সিসিটিভি-ক্যামেরা-স্থাপন |প্রকাশক=প্রিয়.কম |সংগ্রহের-তারিখ=১২ মে ২০১৯ |তারিখ=১৮ এপ্রিল ২০১৮ |আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20190512170120/https://new.priyo.com/articles/চবি%E0%A6%9A%E0%A6%AC%E0%A6%BF-গ্রন্থাগারে%E0%A6%97%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A5%E0%A6%BE%E0%A6%97%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%87-আধুনিকায়ন%E0%A6%86%E0%A6%A7%E0%A7%81%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A6%95%E0%A6%BE%E0%A6%AF%E0%A6%BC%E0%A6%A8-%E0%A6%93-সিসিটিভি%E0%A6%B8%E0%A6%BF%E0%A6%B8%E0%A6%BF%E0%A6%9F%E0%A6%BF%E0%A6%AD%E0%A6%BF-ক্যামেরা%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%AE%E0%A7%87%E0%A6%B0%E0%A6%BE-স্থাপন%E0%A6%B8%E0%A7%8D%E0%A6%A5%E0%A6%BE%E0%A6%AA%E0%A6%A8 |আর্কাইভের-তারিখ=১২ মে ২০১৯ |অকার্যকর-ইউআরএল=না }}</ref> একই বছর গ্রন্থাগার দপ্তরে বঙ্গবন্ধু কর্ণার স্থাপন করা হয়।<ref name="বঙ্গবন্ধু কর্ণার">{{সংবাদ উদ্ধৃতি |শিরোনাম=চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বঙ্গবন্ধু কর্ণার’ |ইউআরএল=http://dailypurbodesh.com/চট্টগ্রাম-বিশ্ববিদ্যাল-13/ |সংগ্রহের-তারিখ=১২ মে ২০১৯ |প্রকাশক=[[দৈনিক পূর্বদেশ]] |তারিখ=১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ |আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20190512181111/http://dailypurbodesh.com/%E0%A6%9A%E0%A6%9F%E0%A7%8D%E0%A6%9F%E0%A6%97%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%BE%E0%A6%AE-%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%B6%E0%A7%8D%E0%A6%AC%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%A6%E0%A7%8D%E0%A6%AF%E0%A6%BE%E0%A6%B2-13/ |আর্কাইভের-তারিখ=১২ মে ২০১৯ |অকার্যকর-ইউআরএল=না }}</ref> ২০১৯ সালে গ্রন্থাগারে একটি সাইবার সেন্টার স্থাপন করা হয়।<ref name="সাইবার সেন্টার">{{সংবাদ উদ্ধৃতি |শিরোনাম=চবির গ্রন্থাগারে এবার যুক্ত হলো সাইবার সেন্টার |ইউআরএল=https://www.thedailycampus.com/public-university/19532/চবির-গ্রন্থাগারে-এবার-যুক্ত-হলো-সাইবার-সেন্টার |সংগ্রহের-তারিখ=১২ মে ২০১৯ |প্রকাশক=thedailycampus |তারিখ=৯ মার্চ ২০১৯ |আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20190512164930/https://www.thedailycampus.com/public-university/19532/%E0%A6%9A%E0%A6%AC%E0%A6%BF%E0%A6%B0-%E0%A6%97%E0%A7%8D%E0%A6%B0%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%A5%E0%A6%BE%E0%A6%97%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A7%87-%E0%A6%8F%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%AF%E0%A7%81%E0%A6%95%E0%A7%8D%E0%A6%A4-%E0%A6%B9%E0%A6%B2%E0%A7%8B-%E0%A6%B8%E0%A6%BE%E0%A6%87%E0%A6%AC%E0%A6%BE%E0%A6%B0-%E0%A6%B8%E0%A7%87%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%9F%E0%A6%BE%E0%A6%B0 |আর্কাইভের-তারিখ=১২ মে ২০১৯ |অকার্যকর-ইউআরএল=না }}</ref>
 
===মুক্তিযুদ্ধ কর্নার===
১৯৭১ সালে সংগঠিত [[বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ|মুক্তিযুদ্ধের]] ইতিহাস চর্চার উপযোগী মুক্তিযুদ্ধ কর্নার ২০০৯ সালে চালু করা হয়। তৎকালীন উপাচার্য আবু ইউসুফ আলমের উদ্যোগে এই কর্নার স্থাপিত হয়। এখানে রয়েছে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সংবলিত বই ও জার্নালসহ দুর্লভ চিত্রের সংগ্রহ। বর্তমানে মুক্তিযুদ্ধ কর্নারে মোট বইয়ের সংখ্যা আনুমানিক ১১৩০।<ref name="চবির কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার">{{ওয়েব উদ্ধৃতি |ইউআরএল=http://binodon-sarabela.com/ইতিহাস-ঐতিহ্যের-স্মারক-চ/ |শিরোনাম=ইতিহাস-ঐতিহ্যের স্মারক চবির কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার |লেখক=সাইফ উল আলম, মুবীন কাউসার নুফা, মুমতাহিনা আলম এশা |প্রকাশক=বিনোদন সারাবেলা |সংগ্রহের-তারিখ=৪ মে ২০১৫}}</ref> এই কর্নারে রয়েছে দুইটি শাখা। দোতলা এই শাখায় উপরে রয়েছে ২০টি আসন এবং নিচে দুই সারিতে ৩০টি করে ৬০টি আসন রয়েছে। মুক্তিযুদ্ধ কর্নারের বিপরীত পাশে রয়েছে দুটি বিজ্ঞান পাঠকক্ষ শাখা।<ref name="ইন্টারনেটে সহজলভ্য">{{সংবাদ উদ্ধৃতি |শিরোনাম=ইন্টারনেটে সহজলভ্য বই, পাঠক কমছে চবি গ্রন্থাগারে |ইউআরএল=http://www.dainikshiksha.com/ইন্টারনেটে-সহজলভ্য-বই-পা/77543/ |সংগ্রহের-তারিখ=১৪ মে ২০১৯ |প্রকাশক=dainikshiksha |তারিখ=২০ মার্চ ২০১৭ |আর্কাইভের-ইউআরএল=httphttps://web.archive.org/web/20170323145507/http://www.dainikshiksha.com/ইন্টারনেটে%E0%A6%87%E0%A6%A8%E0%A7%8D%E0%A6%9F%E0%A6%BE%E0%A6%B0%E0%A6%A8%E0%A7%87%E0%A6%9F%E0%A7%87-সহজলভ্য%E0%A6%B8%E0%A6%B9%E0%A6%9C%E0%A6%B2%E0%A6%AD%E0%A7%8D%E0%A6%AF-বই%E0%A6%AC%E0%A6%87-পা%E0%A6%AA%E0%A6%BE/77543/ |আর্কাইভের-তারিখ=১৪২৩ মেমার্চ ২০১৭ |অকার্যকর-ইউআরএল=না ২০১৯}}</ref>
 
===প্রতিবন্ধী পাঠকক্ষ===
৫৩,৭৯০টি

সম্পাদনা