"চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

দ্বিতীয় তলায় রয়েছে বিজ্ঞান, ব্যবসা প্রশাসন, আইন এবং সামাজিক বিজ্ঞানের জন্য স্বতন্ত্র পাঠকক্ষ। এছাড়াও রয়েছে দুষ্প্রাপ্য ও পাণ্ডুলিপি এবং পুরাতন সযবাদপত্র শাকা, ফটোকপি শাখা, কম্পিউটার ল্যাব এবং ইন্টারনেট কক্ষ।
 
গ্রন্থাগারের মধ্যবর্তী তলায় রয়েছে রেফারেন্স বা উৎস শাখা, জার্নাল ও সাময়িকী শাখা, এবং গবেষণা কক্ষ।<ref name="এক টুকরো গ্রাম"/> ২০১৮ সালে বিশ্ববিদ্যালয়ের সাবেক উপাচার্য অধ্যাপক ডক্টর আর.আই. চৌধুরীর নামে একটি কর্ণার স্থাপন করা হয়েছে।<ref name="ক্যামেরা স্থাপন">{{সংবাদ উদ্ধৃতি |শিরোনাম=চবি গ্রন্থাগারে আধুনিকায়ন ও সিসিটিভি ক্যামেরা স্থাপন |ইউআরএল=https://new.priyo.com/articles/চবি-গ্রন্থাগারে-আধুনিকায়ন-ও-সিসিটিভি-ক্যামেরা-স্থাপন |সংগ্রহের-তারিখ=১২ মে ২০১৯ |তারিখ=১৮ এপ্রিল ২০১৮ |আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20190512170120/https://new.priyo.com/articles/চবি-গ্রন্থাগারে-আধুনিকায়ন-ও-সিসিটিভি-ক্যামেরা-স্থাপন |আর্কাইভের-তারিখ=১২ মে ২০১৯}}</ref> একই বছর গ্রন্থাগার দপ্তরে বঙ্গবন্ধু কর্ণার স্থাপন করা হয়।<ref name="বঙ্গবন্ধু কর্ণার">{{সংবাদ উদ্ধৃতি |শিরোনাম=চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে ‘বঙ্গবন্ধু কর্ণার’ |ইউআরএল=http://dailypurbodesh.com/চট্টগ্রাম-বিশ্ববিদ্যাল-13/ |সংগ্রহের-তারিখ=১২ মে ২০১৯ |প্রকাশক=[[দৈনিক পূর্বদেশ]] |তারিখ=১৫ সেপ্টেম্বর ২০১৮ |আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20190512181111/http://dailypurbodesh.com/চট্টগ্রাম-বিশ্ববিদ্যাল-13/ |আর্কাইভের-তারিখ=১২ মে ২০১৯}}</ref> ২০১৯ সালে গ্রন্থাগারে একটি সাইবার সেন্টার স্থাপন করা হয়।<ref name="সাইবার সেন্টার">{{সংবাদ উদ্ধৃতি |শিরোনাম=চবির গ্রন্থাগারে এবার যুক্ত হলো সাইবার সেন্টার |ইউআরএল=https://www.thedailycampus.com/public-university/19532/চবির-গ্রন্থাগারে-এবার-যুক্ত-হলো-সাইবার-সেন্টার |সংগ্রহের-তারিখ=১২ মে ২০১৯ |প্রকাশক=thedailycampus |তারিখ=৯ মার্চ ২০১৯ |আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20190512164930/https://www.thedailycampus.com/public-university/19532/চবির-গ্রন্থাগারে-এবার-যুক্ত-হলো-সাইবার-সেন্টার |আর্কাইভের-তারিখ=১২ মে ২০১৯}}</ref>
 
===মুক্তিযুদ্ধ কর্নার===
৫৪,০২৫টি

সম্পাদনা