"চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

রচনাশৈলী
(রচনাশৈলী)
 
==ইতিহাস==
[[চিত্র:Chittagong University Library (09).jpg|thumb|চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার ভবন]]
 
১৯৬৬ সালের ১৮ নভেম্বরের কয়েকজন কর্মকর্তা নিয়ে ভবনের নিচতলায় {{রূপান্তর|১২০০|ft2}} বিশিষ্ট একটি কক্ষে মাত্র ৩০০টি বইয়ের সংগ্রহ নিয়ে গ্রন্থাগারটির যাত্রা শুরু হয়।<ref name="আজাদী">{{সংবাদ উদ্ধৃতি |লেখক=গাজী মোহাম্মদ নুরউদ্দিন |শিরোনাম=প্রাচীন পুঁথি-পাণ্ডুলিপির বিশাল সংগ্রহ চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার |ইউআরএল=http://www.dainikazadi.org/details2.php?news_id=1617&table=september2014&date=2014-09-14&page_id=36&view=&instant_status= |সংগ্রহের-তারিখ=জানুয়ারি ১০, ২০১৫ |কর্ম=[[দৈনিক আজাদী]] |আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20151023215055/http://www.dainikazadi.org/details2.php?news_id=1617&table=september2014&date=2014-09-14&page_id=36&view=&instant_status= |আর্কাইভের-তারিখ=২৩ অক্টোবর ২০১৫ |অকার্যকর-ইউআরএল=হ্যাঁ}}</ref> পরবর্তীকালে ১৯৬৮ সালে বর্তমান প্রশাসনিক ভবনের (মল্লিক ভবন) দক্ষিণ পাশে মানবিক ও সমাজ বিজ্ঞান অনুষদ (সামাজিক বিজ্ঞান অনুষদ) ভবনে প্রায় ১৪ হাজার বই নিয়ে ক্ষুদ্র পরিসরে গ্রন্থাগারটি প্রতিষ্ঠা করা হয়। এরপর অস্থায়ী গ্রন্থাগারাটি বর্তমান ভবনে স্থানান্তরিত করা হয়। ১৯৭৩ সালের ডিসেম্বর মাসের দিকে কিছুদিনের জন্য গ্রন্থাগারটি পুনরায় বর্তমান প্রশাসনিক ভবনে স্থানান্তরিত করা হয়েছিল। বর্তমানে {{রূপান্তর|৫৬৭০০|ft2}} পরিমিত এলাকা জুড়ে গ্রন্থাগারটি বিস্তৃত।
 
== ভবন ==
[[চিত্র:Reading rooms at Chittagong University Library (0905).jpg|thumb|চট্টগ্রামদ্বিতীয় বিশ্ববিদ্যালয়তলাযর গ্রন্থাগারবিভিন্ন ভবনশাখা]]
 
গ্রন্থাগারটি একটি ত্রিতল ভবনে অবস্থিত, যেখানে অনুষদভিত্তিক পাঠকক্ষ রয়েছে। প্রতিটি পাঠকক্ষের সাথে শিক্ষকেদর জন্য পৃথক পাঠকক্ষের ব্যবস্থা রয়েছে। এছাড়াও এমফিল এবং পিএইচডি গবেষকদের জন্য রয়েছে ২৪টি গবেষণাকক্ষ।<ref name="লাইব্রেরি-৭৪">{{বই উদ্ধৃতি |সম্পাদক১=আমিরুল আলম খান |সম্পাদক২=মীর আবু সালেহ শাসসুদ্দীন শিশির |অন্যান্য=সৈয়দ মুহাম্মদ আবু তাহের |শিরোনাম=লাইব্রেরি নিয়ে যত কথা |সংগ্রহের-তারিখ=৪ মে ২০১৫ |সংস্করণ=২০১০ |প্রকাশনার-তারিখ=২৫ সেপ্টেম্বর ২০১০ |প্রকাশক=এসেলারো |অবস্থান=[[চট্টগ্রাম]] |আইএসবিএন=984-7-0185 -0004-4 |পাতা=৭৪ |অধ্যায়=চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয় গ্রন্থাগার}}</ref>
 
ভবনের প্রথম তলায় রয়েছে প্রশাসনিক শাখা, গ্রন্থাগার কার্যালয়, অধিগ্রহণসংস্থাপন শাখা, প্রক্রিয়াকরণ শাখা, বাঁধাই শাখা, প্রচার (Lending) শাখা, কলা পাঠকক্ষ, সভা-সিম্পোজিয়ামের জন্য রয়েছে একটি মিলনায়তন,<ref name="লাইব্রেরি-৭৪"/> দৈনিক সংবাদপত্র পাঠকক্ষ এবং নিরাপত্তা শাখা।
 
দ্বিতীয় তলায় রয়েছে বিজ্ঞান, ব্যবসা প্রশাসন, আইন এবং সামাজিক বিজ্ঞানের জন্য স্বতন্ত্র পাঠকক্ষ। এছাড়াও রয়েছে পাণ্ডুলিপিদুষ্প্রাপ্যদুষ্প্রাপ্যপাণ্ডুলিপি বইএবং শাখাপুরাতন সযবাদপত্র শাকা, পুনরাবৃত্তি (ফটোকপি) শাখা, কম্পিউটার পরীক্ষাগার,ল্যাব এবং ইন্টারনেট কক্ষ।
 
গ্রন্থাগারের মধ্যবর্তী তলায় রয়েছে রেফারেন্স বা উৎস শাখা, জার্নাল ও সাময়িকী শাখা, এবং গবেষণা কক্ষ।
 
=== মুক্তিযুদ্ধ কর্নার ===
বিশ্ববিদ্যালয়ের কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগারে ১৯৭১ সালে সংগঠিত [[বাংলাদেশের স্বাধীনতা যুদ্ধ|মুক্তিযুদ্ধের]] সঠিক ইতিহাস চর্চার উপযোগী মুক্তিযুদ্ধ কর্নার ২০০৯ সালে চালু করা হয়। তৎকালীন উপাচার্য আবু ইউসুফ আলমের উদ্যোগে এই কর্নার স্থাপিত হয়। এখানে মুক্তিযুদ্ধের ইতিহাস সংবলিত বই ও জার্নালসহ দুর্লভ চিত্রের সংগ্রহ রয়েছে। বর্তমানে মুক্তিযুদ্ধ কর্নারে মোট বইয়ের সংখ্যা আনুমানিক ১১৩০।<ref name="চবির কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার">{{ওয়েব উদ্ধৃতি |ইউআরএল=http://binodon-sarabela.com/ইতিহাস-ঐতিহ্যের-স্মারক-চ/ |শিরোনাম=ইতিহাস-ঐতিহ্যের স্মারক চবির কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার |লেখক=সাইফ উল আলম, মুবীন কাউসার নুফা, মুমতাহিনা আলম এশা |সম্পাদক= |তারিখ= |ওয়েবসাইট=binodon-sarabela.com |প্রকাশক=বিনোদন সারাবেলা |সংগ্রহের-তারিখ=মে ৪, ২০১৫}}</ref>
 
=== প্রতিবন্ধী পাঠকক্ষ ===
চট্টগ্রাম বিশ্ববিদ্যালয়ে বিভিন্ন বিভাগের অধ্যয়নরত প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের সুবিধার জন্য গ্রন্থাগার কর্তৃপক্ষ ২০১১ সালে একটি আলাদা পাঠকক্ষ চালু করে। শিক্ষার্থীদের জন্য এখানে ব্রেল পদ্ধতিতে পাঠগ্রহণের ব্যবস্থা রয়েছে। এই পাঠকক্ষে মোট বইয়ের সংখ্যা প্রায় ২০৫ এবং রয়েছে ইন্টারনেট ব্যবহারের সুযোগ। যদিও প্রতিবন্ধী শিক্ষার্থীদের অনুপস্থিতির কারণে বর্তমানে এটি বন্ধ রয়েছে।<ref name="চবির কেন্দ্রীয় গ্রন্থাগার"/>
 
৫৫,২৬৯টি

সম্পাদনা