"ভারতীয় বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির ইতিহাস" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

(2টি উৎস উদ্ধার করা হল ও 0টি অকার্যকর হিসেবে চিহ্নিত করা হল। #IABot (v2.0beta14))
মহীশূরের সুলতান হায়দার আলী, যুদ্ধ রকেটের একটি গুরুত্বপূর্ণ পরিবর্তন করেন: বিস্ফোরক বহনকারী পাত্র হিসাবে ধাতুর চোঙ ব্যবহার করেন। যদিও পেটানো নরম লোহার এই নলগুলির গুণগত মান অত্যন্ত সাধারণ ছিল, তবে আগের কাগজের চোঙের তুলনায় বিস্ফোরক শক্তি অনেক বেশি ছিল। ফলে এই অতিরিক্ত অভ্যন্তরীণ চাপ রকেটগুলিকে দ্রুততর গতিতে অধিক দূরত্বে নিক্ষেপ করতে সাহায্য করত। রকেটের চোঙটি চামড়ার ফিতা দিয়ে লম্বা বাঁশের লাঠিতে বাঁধা থাকত। সম্ভবত এক মাইলের তিন চতুর্থাংশ (এক কিলোমিটারেরও বেশি) পর্যন্ত রকেটের পাল্লা ছিল। যদিও পৃথকভাবে দেখলে এই রকেটগুলির লক্ষ্য খুব একটা স্থির ছিলনা, তবে অনেক সংখ্যক রকেটের যুগপত আক্রমণের সময় নিখুঁত লক্ষ্যের প্রয়োজন পড়ত না। এই রকেটগুলি বিশেষ করে ঘোড়সওয়ার বাহিনীর বিরুদ্ধে বেশি কার্যকর ছিল। ব্যবহার করার দুটি পদ্ধতি ছিল, - হাতে ধরে সলতেয় অগ্নিসংযোগ করে হাওয়ায় নিক্ষেপ করে, অথবা, শক্ত, শুকনো মাটিতে শুইয়ে সলতেয় অগ্নিসংযোগের ফলে মাটিতে ঘষটে রকেটগুলি ধাবিত হত। হায়দার আলীর ছেলে, [[টিপু সুলতান]], রকেট অস্ত্র ব্যবহারের বিকাশ ও সম্প্রসারণ অব্যাহত রেখেছিলেন ও রকেট পরিচালনকারী সেনার সংখ্যা ১,২০০ থেকে বাড়িয়ে ৫,০০০ করেন। ১৭৯২ এবং ১৭৯৯ সালের [[শ্রীরঙ্গপত্তন|শ্রীরঙ্গপত্তনে]]র যুদ্ধে এই রকেটগুলি ব্রিটিশদের বিরুদ্ধে যথেষ্ট প্রভাব বিস্তার করে।
 
১৮শ শতাব্দীর শেষে ভারতীয় ডাক ব্যবস্থা অতীব দক্ষ হয়ে ওঠে।<ref name=Peabody1/> যেমন, টমাস ব্রোটনের বক্তব্য অনুযায়ী, [[যোধপুর]] মহারাজা তাঁর রাজধানী থেকে ৩২০ কি.মি. দূরে নাথাদেওরার মন্দিরে প্রত্যেক দিন তাজা ফুলের অর্ঘ্য পাঠাতেন, যা পরের দিন সূর্য্যোদয়ের সাথে সাথে ঠিক প্রথম [[ষড়দর্শন|দর্শনে]]র সময় পৌঁছে যেত।<ref name=Peabody1>Peabody, 71</ref> পরবর্তী পর্যায়ে [[ব্রিটিশ রাজ]] আসার সঙ্গে ডাক ব্যবস্থার আধুনিকীকরণ পরিবর্তন হয়।<ref name=Lowe/> ১৮৩৭ সালের ১৭তম পোস্ট অফিস আইন (''The Post Office Act XVII of 1837'') বলে [[ভারতের গভর্নর-জেনারেল]] [[ব্রিটিশ ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি]]র এলাকার যে কোনো স্থানে ডাক মাধ্যমে সংবাদ পাঠাতে পারতেন।<ref name=Lowe/> কিছু আধিকারিকের এই বিনামূল্যে ডাক ব্যবস্থা ব্যবহার করার সুবিধা, পরের দিকে বিতর্কের সৃষ্টি করে।<ref name=Lowe/> ১লা অক্টোবর ১৮৩৭ সালে ভারতীয় পোস্ট অফিস পরিষেবার সূচনা হয়।<ref name=Lowe>Lowe, 134</ref> কৌশলগত এবং বাণিজ্যিক প্রয়োজনে ব্রিটিশেরা ভারতে এক সুবিশাল [[রেল পরিবহন]] ব্যবস্থা গড়ে তোলে।<ref>Seaman, 348</ref>
 
ভারতে ব্রিটিশ শিক্ষাব্যবস্থা মূলতঃ স্থানীয় জন সমাজ থেকে পুর ও প্রশাসনিক চাকরির যোগ্য প্রার্থী তৈরী করার উদ্দেশ্যে চালু হলেও, এর ফলে ভারতীয় ছাত্রদের কাছে বিদেশি শিক্ষাপ্রতিষ্ঠানের দরজা খুলে যায়।<ref name=Rajendran>Raja (2006)</ref> [[জগদীশ চন্দ্র বসু| স্যার জগদীশ চন্দ্র বসু]] (১৮৫৮–১৯৩৭), [[প্রফুল্ল চন্দ্র রায়|আচার্য্য প্রফুল্ল চন্দ্র রায়]] (১৮৬১-১৯৪৪), [[সত্যেন্দ্রনাথ বসু]] (১৮৯৪–১৯৭৪), [[মেঘনাদ সাহা]] (১৮৯৩–১৯৫৬), [[প্রশান্তচন্দ্র মহলানবিশ]] (১৮৯৩–১৯৭২), [[চন্দ্রশেখর ভেঙ্কট রামন|স্যার চন্দ্রশেখর ভেঙ্কট রামন]] (১৮৮৮–১৯৭০), [[সুব্রহ্মণ্যন চন্দ্রশেখর]] (১৯১০–১৯৯৫), [[হোমি জাহাঙ্গীর ভাভা]] (১৯০৯–১৯৬৬), [[শ্রীনিবাস রামানুজন]] (১৮৮৭–১৯২০), [[উপেন্দ্রনাথ ব্রহ্মচারী]] (১৮৭৩–১৯৪৬), বিক্রম সারাভাই (১৯১৯–১৯৭১), [[হর গোবিন্দ খোরানা]] (১৯২২–২০১১), হরিশ চন্দ্র (১৯২৩–১৯৮৩), এবং [[আবদুস সালাম (পদার্থবিজ্ঞানী)|আবদুস সালাম]] (১৯২৬-১৯৯৬) হলেন এই সময়ের কিছু উল্লেখযোগ্য কৃতি বিজ্ঞানী।<ref name=Rajendran/>
ঔপনিবেশিক যুগে স্থানীয় ও ঔপনিবেশিক বিজ্ঞান গবেষণার গভীর আদান-প্রদান ছিল।<ref name=Arnold211>Arnold, 211</ref> পাশ্চাত্য বিজ্ঞানের প্রভাবকে শুধুমাত্র ঔপনিবেশিক সত্তা হিসাবে দেখা হত না বরং ভারতীয় জাতি গঠনে এর উপযোগিতা,<ref name=Arnold212/> বিশেষ করে কৃষি ও বাণিজ্যে পাশ্চাত্য বিজ্ঞানের অবদান অনস্বীকার্য ছিল।<ref name=Arnold211/> ভারতীয় বিজ্ঞানীরাও সারা ইউরোপে ছড়িয়ে পড়েন।<ref name=Arnold212>Arnold, 212</ref> ভারতের স্বাধীনতার সময় ঔপনিবেশিক যুগে গড়ে ওঠা ভারতীয় বিজ্ঞান সারা বিশ্বে সমাদৃত হতে শুরু করে।
 
ফরাসি জ্যোতির্বিদ, পিয়ের জ্যানসেন ১৮ই আগস্ট ১৮৬৮ সালের সূর্যগ্রহণ নিরীক্ষা করে হিলিয়াম গ্যাস আবিষ্কার করেন ব্রিটিশ ভারতের মাদ্রাজ রাজ্যের [[গুন্টুর]] থেকে।<ref name=Arnold212/> ১৮৯৭ সালে [[রোনাল্ড রস|স্যার রোনাল্ড রস]] প্রথমে সেকেন্দ্রাবাদে ও পরে [[কলকাতা]]য় গবেষণা করে আবিষ্কার করেন ম্যালেরিয়ার সংক্রমণ মশক-বাহিত।<ref>{{en}}{{cite journal|last=Ross|first=R|title=On some Peculiar Pigmented Cells Found in Two Mosquitos Fed on Malarial Blood|journal=British Medical Journal|year=1897|volume=2|issue=1929|pages=1786–8|pmid=20757493| pmc=2408186|doi=10.1136/bmj.2.1929.1786}}</ref><ref>{{en}}{{cite web|last=Sinden|first=Robert E|title=Malaria, mosquitoes and the legacy of Ronald Ross|url=http://www.who.int/bulletin/volumes/85/11/04-020735/en/|publisher=World Health Organization|accessdate=31 January 2014}}</ref> এই কাজের জন্য তিনি নোবেল পুরষ্কার লাভ করেন।<ref>{{en}}{{cite web|title=Ronald Ross – Facts|url=https://www.nobelprize.org/nobel_prizes/medicine/laureates/1902/ross-facts.html|publisher=Nobel Media AB|accessdate=31 January 2014}}</ref>
 
{{about||[[ভারত|স্বাধীন ভারতে]] বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির|ভারতীয় প্রজাতন্ত্রে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি}}
৩,৫১২টি

সম্পাদনা