"রামজী লন্ডনওয়ালে" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
'''''রামজী লন্ডনওয়ালে''''' হচ্ছে ২০০৫ সালে মুক্তিপ্রাপ্ত একটি হিন্দি চলচ্চিত্র যেটি পরিচালনা করেছিলেন সঞ্জয় দাইমা এবং প্রযোজনা করেছিলেন সুনন্দা মুরালী মনোহর। চলচ্চিত্রটি ২০০৩ সালের তামিল চলচ্চিত্র ''[[নালা দমায়ন্তী]]'' এর পুনঃনির্মাণ ছিলো যেখানে এক সহজ-সরল গ্রাম্য ছেলে বিদেশে যেয়ে ঝামেলায় পড়ে। ''রামজী লন্ডনওয়ালে''র প্রথম নাম ''বাবুর্চি'' রাখা হবে বলে ভাবা হয়েছিলো কিন্তু পরে রামজী লন্ডনওয়ালে রাখা হয়।<ref>{{Cite news|url=http://www.sify.com/movies/ramji-londonwaley-imagegallery-1-movies-jdwmHliebjisi.html|title=Ramji Londonwaley|work=Sify|access-date=18 April 2018|language=en}}</ref> চলচ্চিত্রটিতে [[মাধবন]] ''[[নালা দমায়ন্তী]]''র রামজী নারায়ণস্বামী আইয়ার চরিত্রের মতই রামায়ণ তিওয়ারী নামের এক গ্রাম্য পাকা রাধক চরিত্রে অভিনয় করেছিলেন।<ref name="TaranAdarsh">{{Cite web |url=http://www.sify.com/movies/ramji-londonwaley-review-bollywood-pclvMchibfbih.html |title=Ramji Londonwaley |last=Adarsh |first=Taran |authorlink=Taran Adarsh |date=2 September 2005 |website=[[Sify]] |access-date=18 April 2018}}</ref> চলচ্চিত্রটির একটি বিশেষ চরিত্রে বলিউড কিংবদন্তী [[অমিতাভ বচ্চন]] ছিলেন।
==কাহিনী==
রামজী (মাধবন) হচ্ছে একজন সহজ সরল গ্রামীণ রাধক যে তার একমাত্র বোনের ভালো পরিবারে বিয়ে দেওয়ার দায়িত্ব নিয়েছে, তাদের বাবামা নেই। তার বোনের সঙ্গে বিয়ে দেওয়ার জন্য একটি ছেলেকে পেয়ে যায় রামজী এবং পরে তাকে তার বোনের বিয়ের জন্য তার বরের পরিবারকে যৌতুক প্রদান করতে হবে - এটা ভেবে সে দুশ্চিন্তায় পড়ে যায়। রামজী লন্ডন যাওয়ার পরিকল্পনা করে এবং লন্ডন চলে যায়, এবং ওখানে সে যায় রাধক হিসেবে একটি উচ্চবিত্ত ভারতীয় ব্যবসায়ী পরিবারে রান্না করার জন্য। রাধক হিসেবে আয় করার পর সে তার এই আয় দিয়ে তার বোনের বিয়ের যৌতুকের টাকা পরিশোধ করে দেবে। রামজী যেদিন লন্ডন পৌঁছায় ঐদিন তার যেই বাসায় কাজ করার কথা ছিলো ঐ বাসার মালিক অর্থাৎ তাকে যে ব্যক্তি কাজ দেবে সে মারা যায়। এরপর রামজী অবৈধভাবে কাজ করার সুযোগ পায় একটি রেস্তোরাঁয় পাচক হিসেবে, রেস্তোরাঁটির মালিক একজন ভারতীয় যার নাম বদরী, তার স্ত্রী আছে এবং একটি ছেলে আছে যারা লন্ডনেই থাকে। রামজীকে বদরীর স্ত্রীসহ বদরী নিজেও পছন্দ করা শুরু করে। রেস্তোরাঁটি ভারতীয়দের কাছে জনপ্রিয় হয়ে ওঠে, একদা এক পুলিশ রেস্তোরাঁটিতে আসে। পুলিশ রামজীর বৈধ কাগজপত্র দেখতে চায় যা রামজীর কাছে নেই।
 
বদরীর জয় কাপুর নামে একজন আইনজীবী বন্ধু আছে যে বদরীকে বুদ্ধি দেয় যে রামজীকে একটা ব্রিটিশ নাগরিককে বিয়ে করতে হবে যাতে করে পুলিশ তাকে এ দেশ থেকে তাড়িয়ে না দেয়।
==তথ্যসূত্র==
{{ সূত্র তালিকা }}
২৯টি

সম্পাদনা