"জুলিয়েত বিনোশ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

তথ্যছক যোগ
(পাতা তৈরি)
 
(তথ্যছক যোগ)
{{তথ্যছক ব্যক্তি
| name = জুলিয়েত বিনোশ
| image = Juliette Binoche Cannes 2017.jpg
| caption = ২০১৭ সালে [[কান চলচ্চিত্র উৎসব]]ে বিনোশ
| native_name = Juliette Binoche
| native_name_lang = fr
| birth_name =
| birth_date = {{জন্ম তারিখ ও বয়স|১৯৬৪|০৩|০৯}}
| birth_place = [[প্যারিস]], [[ফ্রান্স]]
| death_date =
| death_place =
| alma_mater =
| occupation = অভিনেত্রী, চিত্রশিল্পী, নৃত্যশিল্পী
| years_active = ১৯৮৩-বর্তমান
| spouse = {{বিবাহ|অঁদ্রে হাল<br />|১৯৯২|১৯৯৫|কারণ=তালাক}}<br />{{বিবাহ|বেনোয়া মাগিমেল<br />|১৯৯৮|২০০৩|কারণ=তালাক}}<br />{{বিবাহ|সান্তিয়াগো আমিগোরেনা<br />|২০০৫|২০০৮|কারণ=তালাক}}<br />{{বিবাহ|পাত্রিক মুলদুন<br />|২০০৩|২০০৫|কারণ=তালাক}}<br />২০১৪
| children = ২
}}
 
'''জুলিয়েত বিনোশ''' ({{lang-fr|Juliette Binoche}}; জন্ম: ৯ মার্চ ১৯৬৪)<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি |শিরোনাম=Juliette Binoche Biography (1964-) |ইউআরএল=http://www.filmreference.com/film/9/Juliette-Binoche.html |ওয়েবসাইট=ফিল্ম রেফারেন্স |সংগ্রহের-তারিখ=৯ মার্চ ২০১৯}}</ref> হলেন একজন ফরাসি অভিনেত্রী, চিত্রশিল্পী ও নৃত্যশিল্পী। তিনি ষাটের অধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করে অসংখ্য আন্তর্জাতিক পুরস্কার অর্জন করেছেন এবং বিশ্বের বিভিন্ন দেশের মঞ্চনাটকে ও চলচ্চিত্রে কাজ করেছেন। শিল্পী পরিবার থেকে আগত বিনোশ কৈশোর অভিনয়ের পাঠ গ্রহণ করে বিভিন্ন মঞ্চ নাটকে কাজ শুরু করেন। তিনি বেশ কয়েকজন ওতোর-পরিচালকের পরিচালনায় কাজ করেছেন, তন্মধ্যে রয়েছে [[জঁ-লুক গদার]]ের ''হেইল ম্যারি'' (১৯৮৫); [[জাক দোইলঁ]]র ''ফ্যামিলি লাইফ'' (১৯৮৫) এবং [[অঁদ্রে তেশিনে]]র ''রেন্দেজ-ভু'' (১৯৮৫), যা দিয়ে তিনি ফ্রান্সে তারকা খ্যাতি অর্জন করেন। ফিলিপ কফম্যানের পরিচালনায় ''দ্য আনবেয়ারেবল লাইটনেস অব বিয়িং'' (১৯৮৮) দিয়ে তার আন্তর্জাতিক কর্মজীবনের সূচনা হয়।
 
তিনি [[স্টিভেন স্পিলবার্গ]]ের নজরে আসেন এবং তাকে ''[[জুরাসিক পার্ক (চলচ্চিত্র)|জুরাসিক পার্ক]]'' ছবিসহ কয়েকটি ছবিতে কাজের প্রস্তাব দিলে তিনি তা ফিরিয়ে দেন এবং ক্রিস্টফ কিয়েলভ্‌স্কির ''থ্রি কালারস: ব্লু'' (১৯৯৩)-এ অভিনয় করেন। এই কাজের জন্য তিনি [[ভেনিস চলচ্চিত্র উৎসব]]ের শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর পুরস্কার ও শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রী বিভাগে সেজার পুরস্কার অর্জন করেন। তিন বছর পর তিনি [[অ্যান্টনি মিনজেলা]]র ''[[দি ইংলিশ পেশন্ট (চলচ্চিত্র)|দি ইংলিশ পেশন্ট]]'' (১৯৯৬) ছবিতে অভিনয় করেন এবং [[শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রীর জন্য একাডেমি পুরস্কার|শ্রেষ্ঠ পার্শ্ব অভিনেত্রী বিভাগে অস্কার]] ও [[শ্রেষ্ঠ পার্শ্বচরিত্রে অভিনেত্রী বিভাগে বাফটা পুরস্কার|বাফটা পুরস্কার]] অর্জনসহ ১৯৯৭ সালে [[বার্লিন আন্তর্জাতিক চলচ্চিত্র উৎসব]]ের শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর পুরস্কার অর্জন করেন। [[লাসে হালস্ত্রোম]]ের প্রণয়ধর্মী হাস্যরসাত্মক ''[[শকোলা (২০০০-এর চলচ্চিত্র)|শকোলা]]'' (২০০০) চলচ্চিত্রে তার কাজের জন্য তিনি [[শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর জন্য একাডেমি পুরস্কার]]ের মনোনয়ন লাভ করেন।
 
২০০০-এর দশকেও তিনি সফল ছিলেন এবং ফরাসি ও ইংরেজি দুই ভাষার মূলধারার ও আর্ট-হাউজ চলচ্চিত্রে কাজ করে যান। ২০১০ সালে তিনি [[আব্বাস কিয়ারোস্তামি]]র ''সার্টিফাইড কপি'' ছবিতে অভিনয় করে [[কান চলচ্চিত্র উৎসব]]ের শ্রেষ্ঠ অভিনেত্রীর পুরস্কার লাভ করেন। ফলে তিনি প্রথম অভিনেত্রী হিসেবে ইউরোপীয় "সেরা অভিনেত্রী ত্রি-মুকুট" (কান, বার্লিন ও ভেনিস চলচ্চিত্র উৎসবের সেরা অভিনেত্রীর পুরস্কার) অর্জন করেন।<ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি |শেষাংশ1=হক |প্রথমাংশ1=জনি |শিরোনাম=জুলিয়েট বিনোশকে দেখে চোখ ফেরানো দায়! |ইউআরএল=https://www.banglanews24.com/entertainment/news/bd/488475.details |সংগ্রহের-তারিখ=৯ মার্চ ২০১৯ |কর্ম=[[বাংলানিউজটোয়েন্টিফোর.কম]] |তারিখ=১৩ মে ২০১৬ |ভাষা=en}}</ref>