"নাগর নদী" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

1টি উৎস উদ্ধার করা হল ও 0টি অকার্যকর হিসেবে চিহ্নিত করা হল। #IABot (v2.0beta10ehf1)
(উদ্ধৃতি টেমপ্লেট ও অন্যান্য সংশোধন)
(1টি উৎস উদ্ধার করা হল ও 0টি অকার্যকর হিসেবে চিহ্নিত করা হল। #IABot (v2.0beta10ehf1))
==প্রবাহ==
[[File:Sluice Gate, Nagor River.JPG|thumb|হরিপুর উপজেলার কান্ধাল গ্রামে নদীর তীরে একটি স্লুইস গেট যা জলপ্রবাহ নিয়ন্ত্রণ করে বর্ষায় ফসল রক্ষা করে।]]
নাগর নদী ভারতে উৎপন্ন হয়ে পঞ্চগড় জেলা দিয়ে বাংলাদেশে প্রবেশ করেছে। পঞ্চগড় জেলার আটোয়ারী উপজেলা হয়ে বালিয়াডাঙ্গী উপজেলায় প্রবেশ করে ঠাকুরগাঁও জেলার পশ্চিম সীমান্ত দিয়ে প্রবাহিত হয়ে অবশেষে হরিপুর উপজেলা হয়ে পুনরায় ভারতে প্রবেশ করেছে।<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি |শিরোনাম=সংরক্ষণাগারভুক্ত অনুলিপি |ইউআরএল=http://www.thakurgaon.gov.bd/node/711926/নদ%E0%A6%A8%E0%A6%A6-%E0%A6%93-নদী%E0%A6%A8%E0%A6%A6%E0%A7%80 |সংগ্রহের-তারিখ=২২ ফেব্রুয়ারি ২০১৯ |আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20151027091353/http://www.thakurgaon.gov.bd/node/711926/%E0%A6%A8%E0%A6%A6-%E0%A6%93-%E0%A6%A8%E0%A6%A6%E0%A7%80 |আর্কাইভের-তারিখ=২৭ অক্টোবর ২০১৫ |অকার্যকর-ইউআরএল=হ্যাঁ }}</ref> তীরনই নদী এবং নোনাখাল, যমুনা খাল ও জালুই খাল নামে কিছু উল্লেখযোগ্য খালের সঙ্গে নাগর নদীর সংযোগ রয়েছে। নদীটির গতিপথ অধিকাংশ সময়ই ভারত-বাংলাদেশের সীমানা নির্দেশ করেছে। বাংলাদেশ অংশে এর দৈর্ঘ্য প্রায় ১২৫ কিমি। কিছুটা আকস্মিক বন্যা প্রবণতা রয়েছে, তবে তেমন একটা ক্ষয়-ক্ষতি করে না। শুষ্ক মৌসুমে পানি থাকে না, তবে কৃষকরা বর্ষা মৌসুমের পানিকে বাঁধ দিয়ে আটকে রেখে সেচের জন্য ব্যবহার করে থাকে।<ref>http://bn.banglapedia.org/index.php?title=নাগর_নদী</ref>
 
== আরও দেখুন ==
৫৮,৫৭০টি

সম্পাদনা