"অরুণা রায়" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
 
তিনি ১৯৬৮ থেকে ১৯৭৪ সাল পর্যন্ত [[ভারতীয় প্রশাসনিক সেবা]]র (আইএএস) সরকারি কর্মচারী হিসেবে কাজ করেন।
 
== মজদুর কিষাণ শক্তি সংগঠন ==
রায় রাজনৈতিক চাকরি থেকে পদত্যাগ করেন এবং দরিদ্র ও প্রান্তিকের বিষয় নিয়ে কাজ করা শুরু করেন। তিনি রাজস্থানের [[তিলোনিয়া]]তে [[সামাজিক কর্ম ও গবেষণা কেন্দ্র]]ের (এসডব্লিউসি) সাথে যুক্ত হয়ে পড়েন।<ref>''Women who dared'', by Ritu Menon. Published by National Book Trust, India, 2002. {{ISBN|81-237-3856-0}}. ''Page 169-170''.</ref><ref>[http://nrcw.nic.in/shared/sublinkimages/107.htm Aruna Roy ] National Resource Center for Women, [[Govt. of India]].</ref> ১৯৮৭ সালে, [[নিখিল দে]], শঙ্কর সিং ও অন্যান্যদের সাথে তিনি [[মজদুর কিষাণ শক্তি সংগঠন]] প্রতিষ্ঠা করেন।<ref>[http://www.civilsocietyonline.com/pages/Details.aspx?83 MKSS As a Role Model] {{webarchive|url=https://web.archive.org/web/20140222212703/http://www.civilsocietyonline.com/pages/Details.aspx?83 |date=22 February 2014 }}, ''Civil Society Online''. Jan 2012</ref>
 
প্রথমত মজদুর কিষাণ শক্তি সংগঠন লড়াই শুরু করে শ্রমিকদের ন্যায্য ও সমান মজুরি আদায়ের লক্ষ্যে কিন্তু সেই লড়াই ধীরেধীরে ভারতে তথ্যের অধিকার আইন প্রনয়ণর আন্দোলনের রূপ নেয়। অরুণা রায় এমকেএসএস ও এনসিপিআরআই সংগঠন দুটির নেতৃত্ব প্রদান করেন এবং তাঁদের আন্দোলন সফল হয়, যার ফলস্বরূপ ২০০৫ সালে ভারতে [[তথ্য জানার অধিকার আইন, ২০০৫|তথ্য জানার অধিকার আইন]] প্রণয়ন হয়।<ref>''Blacked out: government secrecy in the information age'', by Alasdair Scott Roberts. Cambridge University Press, 2006.</ref>
 
 
 
== তথ্যসূত্র ==
৩,৩৬৭টি

সম্পাদনা