"দ্রুজ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

4টি উৎস উদ্ধার করা হল ও 0টি অকার্যকর হিসেবে চিহ্নিত করা হল। #IABot (v2.0beta10ehf1)
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
(4টি উৎস উদ্ধার করা হল ও 0টি অকার্যকর হিসেবে চিহ্নিত করা হল। #IABot (v2.0beta10ehf1))
[[File:Al-Hakim bi-Amr Allah.jpg|thumb|দ্রুজ অনুসারীগণ বিশ্বাস করেন আল হাকিম বি আমর আল্লাহ হচ্ছে ঈশ্বর প্রেরিত দূত]]
 
দ্রুজ নামটি এসেছে মুহাম্মাদ বিন ইসমাইল নাশতাকিন আদ-দারাজীর নাম থেকে। দারাজী শব্দটি [[ফারসি]]। আদ-দারাজী ছিলেন প্রাক দ্রুজ যুগের একজন সাধু ও প্রচারক। দ্রুজগণ আদ-দারাজীকে ধর্মগুরু মানে এবং নিজেদেরকে দ্রুজ বলে পরিচয় দেয়।<ref name=about>{{Citation | url = http://www.druze.ca/AboutDruze.html | title = About the Faith of The Mo’wa’he’doon Druze | first = Moustafa F | last = Moukarim}}{{dead link|date সংগ্রহের-তারিখ =January 2014১৯ জুলাই ২০১৪ | আর্কাইভের-ইউআরএল = https://web.archive.org/web/20120426105258/http://www.druze.ca/AboutDruze.html | আর্কাইভের-তারিখ = ২৬ এপ্রিল ২০১২ | অকার্যকর-ইউআরএল = হ্যাঁ }}</ref>
 
প্রথম দিকে আদ-দারাজী গোপনে তার মতবাদ প্রচার করতেন। তিনি প্রচার করতেন সৃষ্টিকর্তা মানুষের মাঝে বিরাজ করেন। বিশেষ করে হযরত [[আলী]] (রাঃ) এবং তার বংশধরদের মাঝে। তৎকালীন খলিফা আল-হাকিম বি-আমর আল্লাহ’র মাঝেও সৃষ্টিকর্তা আছেন বলে প্রচার করেন। আদ দারাজী নিজেকে ‘বিশ্বাসের তরবারি’ ঘোষণা করেন।
===প্রাক ইতিহাস===
দ্রুজ বিশ্বাস ইসমাইলি মতবাদের সংস্পর্ষে এসে আন্দোলনে রূপ নেয়। ইসমাইলি মতবাদ গ্রিক দর্শন দ্বারা প্রভাবিত এবং সেই সময়ের অনেক ধর্মীয় এবং দার্শনিক মতের বিরোধিতা করতো।
ইসমাইলি মতের একজন সমর্থক হামজা ইবনে-আলী ইবনে-আহমাদ এই বিশ্বাস প্রচার শুরু করেন। তিনি ১০১৪ সালে ইউরোপে আসেন এবং আল-হাকিম মসজিদের নিকটবর্তী রিদান মসজিদে তিনি মনিষী এবং নেতাদের জমায়েত করেন।<ref>{{Citation | format = [[PDF]] | url = http://www.druze.com/education/DruzeLuminariesAlHakim-English-level3.pdf | publisher = Druze | title = Luminaries: Al Hakim | সংগ্রহের-তারিখ = ১৯ জুলাই ২০১৪ | আর্কাইভের-ইউআরএল = https://web.archive.org/web/20080820044553/http://www.druze.com/education/DruzeLuminariesAlHakim-English-level3.pdf | আর্কাইভের-তারিখ = ২০ আগস্ট ২০০৮ | অকার্যকর-ইউআরএল = হ্যাঁ }}</ref> ১০১৭ সালে হামজা আনুষ্ঠানিকভাবে দ্রুজ বিশ্বাস এবং ইউনিটারিয়ান মতবাদ প্রচারণা শুরু করেন। হামজা ফাতিমিয় খলিফা আল-হাকিমের সমর্থন লাভ করেন। তিনি ধর্ম প্রচারের স্বাধীনতা ঘোষণা করে একটি ডিক্রি জারী করেন।<ref>{{Citation | url = http://ismaili.net/drupal5/node/10766 | title = Ismaili | publisher = Islam Heritage Field}}</ref>
 
আল হাকিম দ্রুজ বিশ্বাসের কেন্দ্রীয় চরিত্রে পরিণত হন। যদিও তার নিজ ধর্মবিশ্বাস নিয়ে শিক্ষাবিদদের মাঝে মতদ্বৈততা আছে। জন এসপোসিতো বলেন, আল হাকি বিশ্বাস করতেন, তিনি শুধু মাত্র দৈবভাবে ধর্মীয়-রাজনৈতিক নেতা হিসেবে নিযুক্ত নন, তিনি মহাজাগতিক শক্তি যিনি ঈশ্বরের সাথে যুক্ত।<ref>{{Citation | url = http://books.google.com/books?id=lZXTFCN93kkC&pg=PA156&dq=druze+hakim+John+Esposito&ei=bBaDSL-ZAozaigHaxdG8DQ&sig=ACfU3U1jUwRJDGMsL3BIUbiX5DzfmMcawg#PPA156,M1 | title = Melville's Clarel and the Intersympathy of Creeds | first = William | last = Potter | page = 156}}</ref> অনেক দ্রুজ এবং অদ্রুজ স্কলার যেমন সামি সোয়াদ এবং সামি মাকারেম বলেন প্রাক ধর্ম প্রচারক আদ-দারাজীর ভূমিকা ছিলো ধোঁয়াশাপূর্ণ।<ref>{{Citation | url = http://books.google.com/books?id=H-k9oc9xsuAC&pg=PA217&dq=The+Druzes:+A+New+Study+of+Their+History,+Faith+and+Society+Al-Hakim&ei=bNeFSOnMGZzwigGj_ejbBQ&sig=ACfU3U3BPEoV7YZP4FEgBiqD7Xflt_gLZg#PPA217,M1 | title = Medieval Islamic Civilization: An Encyclopedia | first1 = Josef W | last1 = Meri | first2 = Jere L | last2 = Bacharach | publisher = Routledge | year = 2006 | ISBN = 0-415-96690-6}}</ref> আল-হাকিম আদ-দারাজীর দৈবত্বকে প্রত্যাখান করনে।<ref name= samy/><ref>{{Citation | url = http://books.google.com/books?id=kY0oedX32BwC&pg=PA128&dq=Hamza+bin+Ali+druze&ei=hxV-SLTaB4KijgHJvKXtDw&sig=ACfU3U3Joonyh4sX6X3A6xx9ngHmddJ59w#PPA127,M1 | title = The Olive and the Tree: The Secret Strength of the Druze | first1 = Dr Ruth | last1 = Westheimer | first2 = Gil | last2 = Sedan}}</ref> এবং হামজা ইবনে আলীকে সমর্থনের মাধ্যমে তিনি নিজের মত প্রকাশ করেন।<ref>{{Citation | url =http://books.google.com/books?id=rezD7rvuf9YC&pg=PA921&vq=druze&dq=druze+god+hakim&lr=&source=gbs_search_r&cad=1_1&sig=ACfU3U2oOT-YmEy4ZP0xOseugnG-PP-HQg#PPA921,M1 | contribution = M. Th. Houtsma | first = EJ Brill | title = First encyclopaedia of Islam | year = 1913–36}}</ref>
 
আলহাকিম নিখোঁজ হওয়ার পরে তার অপ্রাপ্তবয়স্ক পুত্র সন্তান আলী আজ-জহির সিংহাসনে উপবেশন করলে ফাতিমিয় খিলাফাতের সমর্থনে চলমান দ্রুজ মুভমেন্ট আজ-জহিরকে খলিফা হিসেবে মেনে নেয় কিন্তু হামজাকে ইমাম (নেতা) হিসেবে অনুসরণ করা শুরু করে।<ref name=samy/> নাবালক খলিফার অভিভাবক সিত্তাল-মুলক ১০২১ সালে সেনাবাহিনীকে এই আন্দোলনকে ধ্বংস করার নির্দেশ দেন।<ref name=about/> একই সময়ে হামজা বিন আলী বাহা আদ-দ্বীন আস-সামুকি কে ইউনিটারিয়ান মুভমেন্টের নেতৃত্ব প্রদান করেন।<ref name=samy/>
পরবর্তী সাত বছর দ্রুজ অনুসারীগণ চরম নির্যাতন, নিপীড়ন, হত্যার শিকার হন। নতুন খলিফা জহির এই বিশ্বাসকে মুছে ফেলতে চেয়েছেন।<ref name= Rebecca>{{ওয়েব উদ্ধৃতি |ইউআরএল=http://www.sacredtribesjournal.org/images/Encyclopedia/The_Druze.pdf |শিরোনাম=The Druze |লেখক=Rebecca Erickson |কর্ম=Encyclopedia of New Religious Movements}}{{dead link|dateসংগ্রহের-তারিখ=১৯ জুলাই ২০১৪ |আর্কাইভের-ইউআরএল=https://web.archive.org/web/20150518085757/http://www.sacredtribesjournal.org/images/Encyclopedia/The_Druze.pdf |আর্কাইভের-তারিখ=১৮ মে ২০১৫ |অকার্যকর-ইউআরএল=Januaryহ্যাঁ 2014}}</ref> এটা ছিলো ফাতিমিয় সাম্রাজ্যে ক্ষমতার যুদ্ধের ফলাফল। কারণ দ্রুজ অনুসারীগণ আলী আজ-জহিরকে তাদের ইমাম হিসেবে মেনে নিতে অস্বীকৃতি জানায়। অনেক গুপ্তচর বিশেষ করে আদ-দারাজীর অনুসারীগণ ইউনিটারিয়ান আন্দোলনে সম্পৃক্ত হয়। গুপ্তচরগণ মূলত বিভিন্ন ঝামেলার সৃষ্টি করে দ্রুজ মতবাদের সম্মানহানীর চেষ্টা করতো। নতুন খলিফা এরই সূত্রধরে দ্রুজ সম্প্রদায়ের উপর সেনা লেলিয়ে দেন। এন্তিওখ থেকে আলেক্সান্দ্রিয়া পর্যন্ত ফাতিমিয় সেনাবাহিনীর হাতে প্রায় দশহাজার দ্রুজ অনুসারী নিহত হয়।<ref name=about/> বৃহত্তম হত্যাযজ্ঞ সংঘটিত হয় এন্তিওখে। সেখানে ৫০০০ দ্রুজ ধর্মীয় নেতাকে হত্যা করা হয়।<ref name=about/> এর ফলে দ্রুজ অনুসারীগণ আত্মগোপন করে। যারা ধরা পড়তো তাদেরকে বলপূর্বক ধর্মত্যাগে বাধ্য করা হত অথবা হত্যা করা হত। দক্ষিণ লেবানন এবং সিরিয়াতে কিছু দ্রুজ টিকে থাকতে সমর্থ হয়। আজ-জজিহের মৃত্যুর দুই বছর পরে ১০৩৮ সালে দ্রুজ আন্দোলন আবার মাথাচাড়া দিয়ে ওঠে। <ref name=Rebecca/>
 
===ক্রুসেডের সময়কাল===
===উপাস্য===
===গ্রন্থ===
দ্রুজদের ধর্মগ্রহন্থের নাম কিতাব আল হিকমাহ বা রাসাইল হিকমাহ (আরবীঃ رسـائـل الـحـكـمـة, বাংলাঃ জ্ঞানের বই)।<ref>{{Citation | url = http://www.druze.org.au/religion/ | title = Religion | publisher = Druze | place = AU | সংগ্রহের-তারিখ = ১৯ জুলাই ২০১৪ | আর্কাইভের-ইউআরএল = https://web.archive.org/web/20160214100847/http://www.druze.org.au/religion/ | আর্কাইভের-তারিখ = ১৪ ফেব্রুয়ারি ২০১৬ | অকার্যকর-ইউআরএল = হ্যাঁ }}</ref>
 
===সময়ের কাঠগোড়ায়===
৬৭,৩৯৯টি

সম্পাদনা