"সুসমাচার" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
[[File:Sargis Pitsak.jpg|thumb|250px|
[[আর্মেনিয়ান ভাষা|আর্মেনিয়ান ভাষায়]] লেখা [[মার্কলিখিত সুসমাচার|মার্কলিখিত সুসমাচারের]] প্রথম পৃষ্ঠা। সারগিস পিটস্যাক কৃত, চতুর্দশ শতাব্দী।]]
'''সুসমাচার''' বা '''গসপেল''' ([[ইংরেজি ভাষা|ইংরেজি]]: Gospel) হল [[নাজারেথ|নাজারেথের]] [[যিশু|যিশুর]] জীবন, মৃত্যু ও পুনরুজ্জীবনের বিবরণ। সুসমাচারের বহুল প্রচলিত উদাহরণ হল [[মথিলিখিত সুসমাচার|ম্যাথিউ]], [[মার্কলিখিত সুমাচার|মার্ক]], [[লূকলিখিত সুসমাচার|লুক]] ও [[যোহনলিখিত সুসমাচার|জনের]] লেখা [[নূতন নিয়ম|নূতন নিয়মের]] চারটি শাস্ত্রীয় সুসমাচার। তবে [[অপ্রামাণিক সুসমাচার]], [[#অশাস্ত্রীয় সুসমাচার|অশাস্ত্রীয় সুসমাচার]], [[ইহুদি-খ্রিস্টান সুসমাচার]] ও [[মরমি সুসমাচার|মরমি সুসমাচারগুলিকেও]] সুসমাচার বা গসপেল নামে অভিহিত করা হয়।
 
[[খ্রিস্টধর্ম|খ্রিস্টধর্মে]] শাস্ত্রীয় সুসমাচারগুলিরই মর্যাদা বেশি। এগুলিকে [[খ্রিস্টধর্মে ঈশ্বর|ঈশ্বর]]-কর্তৃক প্রকাশিত মনে করা হয়। এগুলি খ্রিস্টধর্মের ধর্মীয় ব্যবস্থার কেন্দ্রবিন্দু।<ref>Stott, John R.W. "Basic Christianity". Inter-Varsity Press, 1971. p. 12</ref> চারটি শাস্ত্রীয় সুসমাচারে প্রকাশিত খ্রিস্টের জীবনকথাই যথাযথ ও প্রামাণ্য বলে খ্রিস্টানদের বিশ্বাস।<ref>Keller, Timothy. "The Reason for God". Dutton, 2008. p. 100</ref> তবে অনেক গবেষকের মতে, এই চারটি সুসমাচারের সবকিছু ঐতিহাসিকভাবে বিশ্বাসযোগ্য নয়।<ref name="TheMyth">The Myth about Jesus, Allvar Ellegard 1992,</ref><ref name="CraigEvans">Craig Evans, "Life-of-Jesus Research and the Eclipse of Mythology", Theological Studies 54 (1993) p. 5,</ref><ref name="Charles">Charles H. Talbert, What Is a Gospel? The Genre of Canonical Gospels pg 42 (Philadelphia: Fortress Press, 1977).</ref><ref name="TheHistorical">“The Historical Figure of Jesus", Sanders, E.P., Penguin Books: London, 1995, p., 3.</ref><ref name="Fireof">Fire of Mercy, Heart of the Word (Vol. II): Meditations on the Gospel According to St. Matthew – Dr Erasmo Leiva-Merikakis, Ignatius Press, Introduction</ref><ref name="religion-online">Grant, Robert M., "A Historical Introduction to the New Testament" (Harper and Row, 1963) http://www.religion-online.org/showchapter.asp?title=1116&C=1230</ref><ref name="church">{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://www.church.org.uk/resources/csdetail.asp?csdate=01/04/2007 |শিরোনাম=Main Body |প্রকাশক=Church.org.uk |তারিখ= |সংগ্রহের-তারিখ=2012-12-25}}</ref>
"গসপেল" কথাটি হল গ্রিক "εὐαγγέλιον" বা "ইউয়ানজেলিয়ন" ("শুভ সংবাদ") অথবা আরামাইক "ܐܘܢܓܠܝܘܢ" বা "ইউয়াংএলিয়াওন" কথাটির আক্ষরিক অনুবাদ। গ্রিক "ইউয়ানজেলিয়ন" (এর এর [[লাতিন ভাষা|লাতিন]] প্রতিরূপ ''evangelium'' বা "ইভানগেলিয়াম") শব্দটি থেকে ইংরেজিতে "এভানজেলিস্ট" বা "[[ইভানজেলিজম]]"-এর উৎপত্তি। চারটি শাস্ত্রীয় খ্রিস্টান সুসমাচারের লেখকদের বলা হয় [[চার ইভানজেলিস্ট]]।
== ব্যবহার ==
[[পল (সন্ত)|পল]] [[করিন্থ|করিন্থের]] চার্চের লোকেদের কাছে "εὐαγγέλιον" (গসপেল বা সুসমাচার) শব্দটি প্রথম ব্যবহার করে বলেছিলেন, "বন্ধুগণ, আমি যে সুসমাচার তোমাদের কাছে প্রচার করছি, যা তোমরা গ্রহণ করেছ এবং যার উপরে তোমরা প্রতিষ্ঠিত হয়েছ, তার কথাই আমি তোমাদের স্মরণ করিয়ে দিতে চাই।"<ref>{{bibleref2|1 Corinthians|15:1}}</ref> সাহিত্যের একটি বর্গ হিসেবে "গসপেল" কথাটির প্রথম প্রয়োগ ঘটেছিল দ্বিতীয় শতাব্দীতে। [[জাস্টিন মার্টায়ার]] (১৫৫ খ্রিস্টাব্দ) তাঁর ''[[ফার্স্ট অ্যাপোলজি অফ জাস্টিন মার্টায়ার|অ্যাপোলজি]]''-তে লিখেছিলেন, "...প্রেরিতেরা তাঁদের স্মৃতিকথায় যা লিখেছিলেন, তা গসপেল নামে পরিচিত।"<ref>[http://earlychristianwritings.com/text/justinmartyr-firstapology.html 1 Apology 66]</ref>
 
সাধারণত, প্রাচীন খ্রিস্টীয় সাহিত্যে "গসপেল" ছিল একটি বিশেষ বর্গের নাম।<ref>Peter Stuhlmacher, ed., ''Das Evangelium und die Evangelien'', [[Tübingen]] 1983, also in English: ''The Gospel and the Gospels''</ref> যেগুলি শাস্ত্রীয় সুসমাচারের মর্যাদা পায়নি, সেগুলিও প্রাচীন খ্রিস্টধর্মের যুগে প্রচলিত ছিল। [[টমাসলিখিত সুসমাচার]] সহ এইরকম অনেকগুলি গসপেলেই সুসমাচারের পরিচিত কাঠামোটি দেখা যায় না।<ref name="Oxford:unspecified">Cross, F. L., ed. The Oxford Dictionary of the Christian Church. New York: Oxford University Press. 2005, unspecified article</ref>
 
== বহিঃসংযোগ ==
<!-- বাংলায় বাইবেল অনুবাদ আছে। শুধু বাংলা লিঙ্ক দিন -->
{{wikiquote|Gospel|সুসমাচার}}
{{NIE Poster|year=1905}}
* [http://www-user.uni-bremen.de/~wie/TCG/index.html A detailed discussion of the textual variants in the gospels]&nbsp;— covering about 1200 variants on 2000 pages.
* [http://www-user.uni-bremen.de/~wie/GNT/books.html Greek New Testament]&nbsp;— the Greek text of the New Testament: specifically the Westcott-Hort text from 1881, combined with the NA26/27 variants.
* [http://www.westarinstitute.org/Polebridge/Title/Complete/IntroComplete/introcomplete.html Introduction to ''The Complete Gospels'']&nbsp;— an excerpt and information about this compilation of canonical and non-canonical gospels in translation.
* [http://dubitando.no.sapo.pt/tes.htm Tessarôn Euaggeliôn Sumphônia] – The Greek harmony of the Gospels
* [http://dubitando.no.sapo.pt/qevcon.htm Quattuor Evangeliorum Consonantia] – The Latin harmony of the Gospels (1)
* [http://dubitando.no.sapo.pt/qevconn.htm Quattuor Evangeliorum Consonantia] – The Latin harmony of the Gospels (2)
* [http://www.ParallelGospelsInHarmony.com Parallel Gospels in Harmony] Online version of the public domain book ''Parallel Gospels in Harmony&nbsp;— with Study Guide''
* [http://www.utoronto.ca/religion/synopsis/meta-4g.htm Synoptic Parallels] A web tool for finding corresponding passages in the Gospels
 
<!-- {{Books of the Bible}}