খালেদ মোশাররফ: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্যায় এর পরিচালককে জানান।)
| placeofburial_label =
| placeofburial =
| birth_place = {{flagiconপতাকা আইকন|India|British}} [[জামালপুর জেলা|জামালপুর]], [[পূর্ব বঙ্গ]], [[ব্রিটিশ ভারত]] (বর্তমান [[জামালপুর জেলা|জামালপুর]], [[বাংলাদেশ]])
| death_place = [[ঢাকা]], [[বাংলাদেশ]]
| placeofburial_coordinates = <!-- {{coord|LAT|LONG|display=inline,title}} -->
| nickname =
| allegiance = {{flagiconপতাকা আইকন|পাকিস্তান|army}} [[পাকিস্তান সেনাবাহিনী]] <br> {{flagiconপতাকা আইকন|বাংলাদেশ}} [[বাংলাদেশ সেনাবাহিনী]]
| branch = [[Infantry|পদাতিক বাহিনী]]
| serviceyears = ২০ বছর
 
== শিক্ষা ==
তিনি [[কক্সবাজার সরকারি উচ্চ বিদ্যালয়]] থেকে [[১৯৫৩]] সালে মেট্রিক পাশ করেন<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি |urlইউআরএল=http://gunijan.org.bd/GjProfDetails_action.php?GjProfId=157 |scriptলিপির-titleশিরোনাম=খালেদ মোশাররফ |lastশেষাংশ=Dola |firstপ্রথমাংশ=Shamima |websiteওয়েবসাইট=[[গুলজান|গুলজান ট্রাস্ট]] |accessdateসংগ্রহের-তারিখ=20 June 2015}}</ref> এবং [[১৯৫৫]] সালে [[ঢাকা কলেজ]] থেকে ইন্টারমেডিয়েট পাশ করেন। অতঃপর তিনি পাকিস্তানের [[কাকুল মিলিটারি একাডেমী]]তে যোগ দেন।
 
== সেনাবাহিনীতে মোশাররফ ==
 
[[মার্চ ২৪|২৪ মার্চ]] [[১৯৭১]] সালে খালেদ মোশাররফকে কুমিল্লাতে চতুর্থ বেঙ্গল রেজিমেন্টের দায়িত্ব প্রদান করা হয়। [[মার্চ ২৬|২৬ মার্চ]] [[মৌলভীবাজার জেলা|মৌলভীবাজারের]] শমসেরনগরে তিনি ৪র্থ ইস্ট বেঙ্গল রেজিমেন্টের দুই কোম্পানি সৈনিক নিয়ে অবস্থান করছিলেন। [[ঢাকা|ঢাকায়]] পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর গণহত্যার খবর পেয়ে তিনি বিদ্রোহ করেন এবং সেই রাতে তাঁর বাহিনী নিয়ে [[ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা|ব্রাহ্মণবাড়িয়ার]] উদ্দেশ্যে রওনা হন। পরদিন [[মার্চ ২৭|২৭ মার্চ]] সকালে ব্রাহ্মণবাড়িয়া পৌঁছালে তাঁর বাহিনী এবং সেখানে আগে থেকে অবস্থানরত মেজর শাফায়াত জামিলের বাহিনী সম্মিলিত হয়। ইতোমধ্যেই তাঁর বেতার নির্দেশ পেয়ে শাফায়াত জামিলের নেতৃত্বে বাঙালি সৈনিকরা ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় অবস্থানরত পাঞ্জাবি সৈনিকদের আটক করেন।<ref name=ali>{{বই উদ্ধৃতি
| yearবছর = ২০০৮
| titleশিরোনাম = ২নং সেক্টর এবং কে ফোর্স কমান্ডার খালেদের কথা (মেজর কামরুল হাসান ভূঁইয়া সম্পাদিত)
|publisherপ্রকাশক = দিব্যপ্রকাশ
|idআইডি = ISBN 984-7008-0001-5
}}</ref> খালেদ চতুর্থ বেঙ্গল রেজিমেন্টের কমান্ডিং অফিসারের দ্বায়িত্ব নেন। পরিস্থিতি বিবেচনা করে তিনি তাঁর বাহিনীর অফিস ব্রাহ্মণবাড়িয়া থেকে তেলিপাড়া চা বাগানে সরিয়ে নেন।
 
গেরিলা যোদ্ধা [[শফি ইমাম রুমী]] সেক্টর-২ এ খালেদ মোশাররফের অধীনে মেলাঘরে প্রশিক্ষণ গ্রহণ করেন এবং গেরিলা যুদ্ধে অংশ নেন। জুন মাসের শেষের দিকে দুই নম্বর সেক্টর কমান্ডার মেজর খালেদ মোশাররফ এর একটি চিঠি নিয়ে [[শাহাদাত চৌধুরী]] ও হাবিবুল আলম আসেন শরীফ ইমামের বাড়িতে। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর চলাচল ব্যাহত করার উদ্দেশ্যে খালেদ মোশাররফ তাঁর কাছে বাংলাদেশের সেতু ও কালভার্টের ব্যাপারে তথ্য চেয়ে পাঠান। [[শরীফ ইমাম]] ব্রিজের ঠিক কোন কোন স্থানে বিস্ফোরক বেঁধে ওড়ালে সেতু ভাঙবে অথচ কম ক্ষতি হবে অর্থাৎ দেশ স্বাধীন হওয়ার পর সহজে মেরামত করা যাবে, সেভাবে বিস্তারিত তথ্য দিতেন মুক্তিযোদ্ধাদের।<ref name=Prothom-AloKarmakar>[http://archive.prothom-alo.com/detail/news/15876 দৈনিক প্রথম আলো, "মুক্তিযুদ্ধের নিভৃত এক সহযাত্রী", প্রশান্ত কর্মকার | তারিখ: ৩০-১০-২০০৯]</ref>
 
[[পাকিস্তান|পাকিস্তানি]] সেনাবাহিনীকে সফল প্রতিরোধ করতে করতে মধ্য এপ্রিলে তিনি পাকিস্তানি সেনাবাহিনীর অবিরাম বিমান আক্রমণের শিকার হন, ফলে তিনি [[ত্রিপুরা]] রাজ্যে অবস্থান নেন। [[মুজিবনগর সরকার]] তাঁকে [[২ নং সেক্টর|২ নং সেক্টরের]] দায়িত্ব দেয়। যুদ্ধের সময় খালেদ মোশাররফ লেফটেনেন্ট কর্নেলের পদে উন্নীত হন। [[অক্টোবর ২৩|২৩ অক্টোবর]] খালেদ মোশাররফ মাথায় গুলি লেগে মারাত্মক আহত হন এবং লক্ষ্ণৌ সামরিক হাসপাতালে দীর্ঘ চিকিৎসা লাভের পর সুস্থ হন।<ref>{{বই উদ্ধৃতি |titleশিরোনাম= একাত্তরের বীরযোদ্ধা, খেতাব পাওয়া মুক্তিযোদ্ধাদের বীরত্বগাথা (দ্বিতীয় খন্ড)|lastশেষাংশ= |firstপ্রথমাংশ= |authorlinkলেখক-সংযোগ= |coauthors= |yearবছর=মার্চ ২০১৩ |publisherপ্রকাশক= প্রথমা প্রকাশন |locationঅবস্থান= |isbnআইএসবিএন= 9789849025375|pageপাতা= ৪৪|pagesপাতাসমূহ= |accessdateসংগ্রহের-তারিখ= |urlইউআরএল=}}</ref>
 
== মুক্তিযুদ্ধ পরবর্তী সময় ==
১,৯৬,০১৪টি

সম্পাদনা