প্রধান মেনু খুলুন

পরিবর্তনসমূহ

→‎বিকল্প নাম এবং উপনাম: বিষয়বস্তু যোগ
 
[[সাইয়েদ কুতুব]] [[ইসলামি খেলাফত|খেলাফত]] পুনঃপ্রতিষ্ঠা এবং মুসলমানদেরকে মুক্ত করতে আহ্বান করে বলেছিলেন, একজন সত্যিকারের মুসলমান তার নিজের জন্য মূল আদর্শ নবিজি তার সাহাবায়ে কেরামকে যেভাবে উন্নত করেছেন, সেটাকে পথিকৃৎ হিসাবে গণ্য করতে হবে।<ref>Qutb, ''Milestones'', pp. 16, 20 (pp. 17–18).</ref>
 
====''মুসলিম ব্রাদারহুডে'' যোগদান====
{{আরো দেখুন|সাইয়েদ কুতুব}}
 
১৪ বছর বয়সে আল-জাওয়াহিরি [[মুসলিম ব্রাদারহুড|মুসলিম ব্রাদারহুডে]] যোগদান করেন। ঐ বছরই [[মিসর সরকার]] সাইয়েদ কুতুবকে [[চক্রান্ত (রাজনৈতিক)|চক্রান্ত করে]] ফাঁসি দেয়। এবং আল-জাওয়াহিরি মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের চারজন ছাত্রের সাথে মিলে একটি গোপন দল তৈরি করেন। তাদের উদ্দেশ্য ছিল, সরকারকে উৎখাত এবং ইসলামি রাষ্ট্র প্রতিষ্ঠা। এটা ছিল আল-জাওয়াহিরির একদম কম বয়সে, যখন তিনি সাইয়েদ কুতুবের উদ্দেশ্যকে বাস্তবে রূপান্তর করতে একটি [[ধর্মপ্রচার|একটি মিশন]] আঞ্জাম দিচ্ছিলেন।<ref>Wright, p. 37.</ref> যাইহোক, সর্বশেষ তার দল [[মিসরীয় ইসলামি জিহাদ|মিসরীয় ইসলামি জিহাদের]] সাথে একীভূত হয়ে যায়।<ref name=wrightp42>Wright, p. 42.</ref>
 
=== বিবাহ এবং সন্তানাদি ===
আয়মান আল-জাওয়াহিরি কমপক্ষে চারটি বিয়ে করেছিলেন। স্ত্রীদের মধ্যে আযযা আহমাদ নোয়ারি এবং উমায়মা হাসান সম্পর্কেই কমবেশি জানা যায়।
 
১৯৭৮ সালে আল-জাওয়াহিরি আযযা আহমাদের সাথে প্রথম বিয়ে করেন। আযযা তখন কায়রো বিশ্ববিদ্যালয়ের [[দর্শনশাস্ত্র|দর্শনের]] ছাত্রী ছিলেন।<ref name="monty"/> অপেরা স্কয়ারে একটি আন্তর্জাতিক মানের হোটেলে বিবাহানুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হয়। <ref name="monty"/> অনুষ্ঠানটি অত্যন্ত রক্ষণশীল পরিবেশে, পুরুষ-মহিলাদের পৃথক পৃথক স্থান, এবং কোন গানবাজনা বা ফটোগ্রাফি কিংবা আলোকসজ্জা ছাড়াই অনুষ্ঠিত হয়।<ref>Wright, pp. 43–44.</ref> অনেক বছর পরে, [[টুইনটাওয়ারে আক্রমণ|টুইনটাওয়ারে আক্রমণের]] কারণে যখন অক্টোবর ২০০১-এ যুক্তরাষ্ট্র আফগানিস্তান আক্রমণ করে, তখন পর্যন্তও আযযা ধারণাও করতে পারেননি, তার স্বামী আল-জাওয়াহিরি শেষ দশকে একজন [[জিহাদ|জিহাদি]] আমির হিসেবে আবির্ভূত হয়েছেন।<ref>Wright, p. 370.</ref> ২০১২ সালে উমায়মা হাসান (আল-জাওয়াহিরির স্ত্রীদের একজন) [[আরব বসন্তে নারী|আরব বসন্তে মুসলিম নারীদের]] অগ্রসর ভূমিকায় অভিনন্দন জানিয়ে ইন্টারনেটে বিবৃতি দেন।<ref>{{cite news|last=Henderson |first=Barney |url=https://www.telegraph.co.uk/news/worldnews/al-qaeda/9320323/Al-Qaeda-statement-by-Ayman-al-Zawahiris-wife-released.html |title=Al-Qaeda statement by Ayman al-Zawahiri's wife released |publisher=Telegraph |date= June 8, 2012|accessdate=2012-12-13 |location=London}}</ref>
 
আল-জাওয়াহিরি এবং তার স্ত্রী আযযার পাঁচ কন্যা এবং এক পুত্র জন্মগ্রহণ করে। ফাতিমা (জন্ম: ১৯৮১), উমায়মা (জন্ম: ১৯৮৩), নাবিলা (জন্ম: ১৯৮৬), খাদিজা ও মুহাম্মাদ (যমজ, জন্ম: ১৯৮৭), আয়িশা (জন্ম: ১৯৯৭)। আয়িশার [[ডাউন সিন্ড্রোম]] রোগ থাকার কথা জানা যায়। ২০০৪ সালে [[আবু যুবায়দা]]কে [[জল নিপীড়ন]] করলে তিনি জবানবন্দী দেন যে, [[আবু তুরাব আল-উরদুনি]] আয়মান আল-জাওয়াহিরির কোন এক কন্যাকে বিবাহ করেছেন।<ref>Intelligence report, interrogation of [[Abu Zubaydah]], 18 February 2004.</ref>
 
২০০৫ সালের প্রথমার্ধে আল-জাওয়াহিরির জীবিত তিন স্ত্রীর একজন "নাওওয়ার" নামীয় একটি কন্যাসন্তান জন্ম দেন। <ref name="berg">Bergen, Peter. "The Osama bin Laden I Know", 2006. p. 367</ref>
 
[[টুইনটাওয়ারে আক্রমণ|টুইনটাওয়ারে আক্রমণের]] পর, ডিসেম্বর ২০০১-এর শেষদিকে আয়মান আল-জাওয়াহিরির প্রথম স্ত্রী আযযা এবং তার দুই সন্তান মুহাম্মাদ এবং আয়িশা [[আফগানিস্তান|আফগানিস্তানে]] আমেরিকান সৈন্যবাহিনীর বিমানহামলায় নিহত হন।<ref>{{cite news|url=http://www.cbsnews.com/2100-202_162-20071562.html |title=For al-Zawahiri, anti-U.S. fight is personal |publisher=CBS News |date=2011-06-16 |accessdate=2012-12-13}}</ref><ref name="cnn: Jihadist websites"/>
 
আমেরিকান বোমা বিস্ফোরণের পর [[গারদেজ, আফগানিস্তান|গারদেজে]] তালিবান নিয়ন্ত্রিত দালানের ধ্বংসাবশেষে মেহমানখানার ছাদের নিচে আটকে পড়েছিলেন। তার শালীনতার জন্য আফসোস! তিনি "খনন করে তাকে বের করে আনতে" প্রত্যাখ্যান করেন। কারণ, কোন পুরুষ তাকে দেখে ফেলতে পারে। এবং তিনি তার সেদিনের আঘাতেই মারা যান। তার সন্তান মুহাম্মাদও একই আক্রমণে নিহত হয়। ডাউন সিন্ড্রোমে আক্রান্ত তার কন্যা আয়িশা বোমা হামলায় আঘাতপ্রাপ্ত না হলেও রাতের শৈত্যাধিক্যের কারণে মারা যায়। তখন আফগান উদ্ধারকর্মীরা তার মাতা আযযাকে বাঁচাতে ব্যস্ত ছিল।<ref>Wright, p. 371.</ref>
 
==তথ্যসূত্র==
১,৯১৮টি

সম্পাদনা