"তিন গোয়েন্দা সিরিজের বইয়ের তালিকা" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
! ভলিউম নং !! বইয়ের শিরোনাম !! লেখক !! সাব সিরিজ!! প্রথম প্রকাশ
!মূল ইংরেজি সিরিজ!! মূল ইংরেজি বই
!ইংরেজি বইয়ের লেখক!! কাহিনী সংক্ষেপ
|-
| rowspan="3" |১/১
|The Secret of Terror Castle
|Robert Arthur
|
|-
|কঙ্কাল দ্বীপ
|The Secret of the Skeleton Island
|Robert Arthur
|
|-
|রূপালী মাকড়সা
|The Mystery of the Silver Spider
|Robert Arthur
|
|-
| rowspan="3" |১/২
|The Mystery of the Invisible Dog
|M. V. Carey
|
|-
|মমি
|The Mystery of the Whispering Mummy
|Robert Arthur
|
|-
|রত্নদানো
|The Mystery of the Vanishing Treasure
|Robert Arthur
|
|-
| rowspan="3" |২/১
|The Mystery of the Singing Serpent
|M. V. Carey
|
|-
|রক্তচক্ষু
|The Mystery of the Fiery Eye
|Robert Arthur
|
|-
|সাগরসৈকত
|Five On a Treasure Island
|Enid Blyton
|
|-
| rowspan="3" |২/২
| rowspan="2" |Biggles Flies West
| rowspan="2" |W. E. Johns
|
|-
|জলদস্যুর দ্বীপ ২
|তিন গোয়েন্দা ০১১
|১৯৮৭, অক্টোবর
|
|-
|সবুজ ভূত
|The Mystery of the Green Ghost
|Robert Arthur
|
|-
| rowspan="3" |৩/১
|The Mystery of the Kidnapped Whale
|Marc Brandel
|
|-
|মুক্তোশিকারী
|The Mystery of the Two-Toed Pigeon
|Marc Brandel
|
|-
|মৃত্যুখনি
|The Mystery of the Death Trap Mine
|M. V. Carey
|
|-
| rowspan="3" |৩/২
|The Mystery of the Stuttering Parrot
|Robert Arthur
|
|-
|ছুটি
|Five On a Hike Together
|Enid Blyton
|
|-
|ভূতের হাসি
|The Mystery of the Laughing Shadow
|William Arden
|
|-
| rowspan="3" |৪/১
(''Les Cinq et les pirates du ciel)''
|Claude Voilier
|
|-
|ভীষণ অরণ্য ১
| rowspan="2" |Amazon Adventure
| rowspan="2" |Willard Price
| rowspan="2" |আফ্রিকার জঙ্গলে শিকার করতে চলেছে তিন গোয়েন্দা কিশোর, রবিন এবং মুসা। কি বিপদ অপেক্ষা করছে তাদের জন্য সেখানে?
|-
|ভীষণ অরণ্য ২
|The Mystery of the Coughing Dragon
|Nick West
|
|-
|হারানো উপত্যকা
''(Les Cinq dans la cité secrète)''
|Claude Voilier
|
|-
|গুহামানব
|The Mystery of the Wandering Caveman
|M. V. Carey
|
|-
| rowspan="3" |৫
|The Mystery of the Nervous Lion
|Nick West
|
|-
|মহাকাশের আগন্তুক
|The Mystery of the Blazing Cliffs
|M. V. Carey
|
|-
|ইন্দ্রজাল
|The Mystery of the Talking Skull
|Robert Arthur
|
|-
| rowspan="3" |৬
(''Les Cinq aux rendez-vous du diable)''
|Claude Voilier
|
|-
|খেপা শয়তান
|The Mystery of the Dancing Devil
|William Arden
|
|-
|রত্নচোর
(''Les Cinq sont les plus forts)''
|Claude Voilier
|
|-
| rowspan="3" |৭
|The Mystery of the Shrinking House
|William Arden
|
|-
|বোম্বেটে
(''La fortune sourit aux Cinq)''
|Claude Voilier
|
|-
|ভূতুড়ে সুড়ঙ্গ
|The Mystery of the Moaning Cave
|William Arden
|
|-
| rowspan="3" |৮
(''Les Cinq au bal des espions)''
|Claude Voilier
|
|-
|ভয়াল গিরি
|The Mystery of the Monster Mountain
|M. V. Carey
|
|-
|কালো জাহাজ
|The Secret of the Shark Reef
|William Arden
|
|-
| rowspan="3" |৯
|Safari Adventure
|Willard Price
|
|-
|ঘড়ির গোলমাল
|The Mystery of the Screaming Clock
|Robert Arthur
|
|-
|কানা বেড়াল
|The Mystery of the Crooked Cat
|William Arden
|
|-
| rowspan="3" |১০
|The Mystery of the Phantom Lake
|William Arden
|
|-
|খোঁড়া গোয়েন্দা
|The Mystery of the Scar-Faced Beggar
|M. V. Carey
|
|-
|অথৈ সাগর ১
| rowspan="2" |South Sea Adventure
| rowspan="2" |Willard Price
|
|-
| rowspan="3" |১১
|তিন গোয়েন্দা ০৪৩
|১৯৯০, সেপ্টেম্বর
|
|-
|বুদ্ধির ঝিলিক
|The Mystery of the Dead Man’s Riddle
|William Arden
|
|-
|গোলাপী মুক্তো
(''Les Cinq se mettent en quatre)''
|Claude Voilier
|
|-
| rowspan="3" |১২
|Five Go to Billycock Hill
|Enid Blyton
|
|-
|পাগল সংঘ
|The Mystery of the Rogues’ Reunion
|Marc Brandel
|
|-
|ভাঙা ঘোড়া
|The Mystery of the Headless Horse
|William Arden
|
|-
| rowspan="3" |১৩
|The Mystery of the Smashing Glass
|William Arden
|
|-
|জলকন্যা
|The Mystery of the Missing Mermaid
|M. V. Carey
|
|-
|বেগুনী জলদস্যু
|The Mystery of the Purple Pirate
|William Arden
|
|-
| rowspan="3" |১৪
|The Mystery of the Flaming Footprints
|M. V. Carey
|
|-
|তেপান্তর
|African Adventure
|Willard Price
|
|-
|সিংহের গর্জন
|Lion Adventure
|Willard Price
|
|-
| rowspan="3" |১৫
|The Mystery of the Wrecker’s Rock
|William Arden
|
|-
|জাদুচক্র
|The Mystery of the Magic Circle
|M. V. Carey
|
|-
|গাড়ির জাদুকর
|Hot Wheels
|William Arden
|
|-
| rowspan="3" |১৬
|The Mystery of the Aztec Warrior
|Franklin W. Dixon
|
|-
|নিশাচর
|The Mystery of the Sinister Scarecrow
|M. V. Carey
|
|-
|দক্ষিণের দ্বীপ
|Biggles in the South Sea
|W. E. Johns
|
|-
| rowspan="3" |১৭
|The Mystery of the Cranky Collector
|M. V. Carey
|
|-
|নকল কিশোর
|The Mystery of the Deadly Double
|William Arden
|
|-
|তিন পিশাচ
|The Mystery of the Creepshow Crooks
|M. V. Carey
|
|-
| rowspan="3" |১৮
 
H. William Stine
|
|-
|ওয়ার্নিং বেল
|An Ear for Danger
|Marc Brandel
|
|-
|অবাক কান্ড
|Funny Business
|William MacCay
|
|-
| rowspan="3" |১৯
|Rough ''Stuff''
|G.H. Stone
|
|-
|গোরস্থানে আতঙ্ক
 
H. William Stine
|
|-
|রেসের ঘোড়া
|তিন গোয়েন্দা ০৬৯
|১৯৯৩, মে
|
|
|
|Wasp’s Nest
|Agatha Christie
|খুন, ভ্যাম্পায়ারের গুহা, জলদস্যুর খুলি, ভয়াল বন, ভূতের খেলা গল্প পাঁচটি নিয়ে এ বইটি প্রকাশিত হয়।
|-
|স্পেনের জাদুকর
|The Mystery of the Haunted Mirror
|M. V. Carey
|
|-
|বানরের মুখোশ
|The Masked Monkey
|Franklin W. Dixon
|
|-
| rowspan="3" |২১
|The Arctic Patrol Mystery
|Franklin W. Dixon
|
|-
|কালো হাত
(''Les Cinq contre le masque noir)''
|Claude Voilier
|
|-
|মূর্তির হুঙ্কার
(''Les Cinq font de la brocante)''
|Claude Voilier
|
|-
| rowspan="3" |২২
(''Les Cinq au Cap des tempêtes)''
|Claude Voilier
|
|-
|অভিনয়
(''Les Cinq à la Télévision)''
|Claude Voilier
|
|-
|আলোর সঙ্কেত
|Five on a Secret Trail
|Enid Blyton
|
|-
| rowspan="3" |২৩
|The Secret of Pirates’ Hill
|Franklin W. Dixon
|লম্বা ব্যারেলের সিক্স-পাউন্ডার কামানটার দিকে এগিয়ে গেল রবিন। বিবরণ লেখা রয়েছে একটা ব্রোঞ্জের পাতে। 'এটা স্প্যানিশ কামান', বলল সে। কিশোরও পড়ে বলল, 'প্যাসাভলেন্টি। তার মানে খুব দ্রুত গোলা ছুঁড়তে পারে। স্পেনের টলেডোতে তৈরি। সেরবাটানাও বলে অনেকে। শব্দটা এসেছে সেরিবাস থেকে। সেরিবাস কি জানো তো? ভয়ঙ্কর পৌরাণিক কুকুর।'
'এই কামানটাই খুঁজছে নাকি?'
'মনে হয় না। ও তো স্পষ্ট করেই বলল ডেমিকালভেরিন।'
'ভুল সূত্র!' আনমনে বলল রবিন।
লন ধরে পেছন দিকে এগোতে গিয়ে থমকে দাঁড়াল দুই গোয়েন্দা। পাশের গেট দিয়ে লম্বা এক লোক ঢুকছে। গিয়ে দাঁড়াল কামানটার কাছে।
'কি চায়?' ফিসফিস করে প্রশ্ন করল রবিন।
'চলো, ওকেই জিজ্ঞেস করি গিয়ে।'
|-
|গেল কোথায়
|Missing
|R. L. Stine
|একদিন রাতে বাড়ি ফিরলেন না রবিনের বাবা-মা। প্রথমে গুরুত্ব দিল না কেউ, রবিন নিজেও না। একটা অদ্ভুত বানরের খুলি পাওয়া গেলো। সতর্ক হলো রবিন। সন্দেহ দানা বাঁধল মনে- কিডন্যাপ করা হয়নি তো তাঁদের? আগ্রহ দেখাল না পুলিশ। নিজেই রহস্য ভেদের সিদ্ধান্ত নিল রবিন। সাহায্য চাইলো দুই বন্ধু মুসা আর কিশোরের। কিন্তু একি! কোন শত্রুর বিরুদ্ধে নেমেছে ওরা? মানুষ, না পিশাচ?
|-
|ওকিমুরো কর্পোরেশন
|Biggles and the Plot that Failed
|W. E. Johns
|ওমর শরীফের কথা মনে আছে? সেই বেপরোয়া দুর্ধর্ষ বেদুইন, পাইলট হিসেবে যার জুড়ি মেলা ভার? তার সঙ্গে যোগ দিল তিন গোয়েন্দা। বেরিয়ে পড়ল রোমহর্ষক অভিযানে। গন্তব্য সাহারা মরুভূমি। কোটিপতির ছেলে উধাও। রোদের তাপে নরকের আগুন। ঝড় উঠল বালির সমুদ্রে। বাদ সাধল খুনে ডাকাত। ফুঁসে উঠল বিষাক্ত ভাইপার। আরও রয়েছে প্রাচীন কবর। আর কিছুর প্রয়োজন আছে কি?
|-
| rowspan="3" |২৪
|The Knife
|R. L. Stine
|প্রচন্ড ঘূর্ণিঝড় তছনছ করে দিয়ে গেছে কক্সবাজার উপকূল। ধ্বংস হয়েছে ঘরবাড়ি, গাছপালা, ফসলের খেত; মারা গেছে অগণিত পশু-পাখি, মানুষ। দুর্গতদের সাহায্য করতে বাংলাদেশে ছুটে এলো তিন গোয়েন্দা। হাসপাতালে যন্ত্রণাকাতর আহত মানুষের আর্তনাদ। ডাক্তার আর নার্সদের সাহায্য করার জন্যে স্টুডেন্ট ভলান্টিয়ার হিসেবে যোগ দিল কিশোর পাশা। ভয়ঙ্কর, নিষ্ঠুর কিছু মানুষের শত্রুতে পরিণত হলো, যারা নিজেদের স্বার্থে মানুষ খুন করতেও দ্বিধা করে না। কিন্তু 'পরাজয়' বলে কোন শব্দ তিন গোয়েন্দার অভিধানে নেই। ধীরে ধীরে খুলতে আরম্ভ করল এক জটিল রহস্যের গিঁট।
|-
|মায়ানেকড়ে
|Shapes
|Ellen Steiber
|
|-
|প্রেতাত্মার প্রতিশোধ
|The Third Evil
|R. L. Stine
|কবর থেকে উঠে এসেছে এক ভয়ঙ্কর পিশাচ! এবার কে ওর শিকার? মুসা, না রবিন? হাজার বছর ধরে টিকে থাকা ঐ ভয়াল প্রেতকে মারতে হলে চেতনার গভীরে ডুব দিতে হবে কিশোরকে; জানতে হবে কি করলে চিরতরে ধ্বংস হবে ঐ বিভীষিকা, আর কোনদিন জ্বালাতে আসবে না মানুষকে। নিজের মন থেকে একটা জবাবই খুঁজে পেল সে - আত্মহত্যা। নিজেকে ওর শেষ করে দেয়া ছাড়া ওটাকে ধ্বংস করার আর কোনই উপায় নেই।
|-
| rowspan="3" |২৫
|Five Run Away Together
|Enid Blyton
|সুর করে বলে উঠল একটা ছেলেঃ
'জিনা, ঘিনা, জিনার মুখে ছাই;
দাঁড়কাকে ঠুকরে দিলে আর রক্ষা নাই!'
কিশোররা ভেবেছিল, ছেলেটারই রক্ষা নেই আর। প্রচন্ড চড় খেতে হবে জিনার হাতে। কিন্তু ওদেরকে অবাক করে দিয়ে কিছুই বললো না জিনা।
সাগরে একটা নৌকা থেকে রহস্যময় সঙ্কেত দিতে দেখে গোয়েন্দারা প্রথমে ভেবেছিল চোরাচালানির দল। কিন্তু যখন আর্ত-চিৎকার শোনা গেল, ধারণা পাল্টাতে বাধ্য হলো ওরা।
|-
|কুকুর খেকো ডাইনী
|The Clue of the Screeching Owl
|Franklin W. Dixon
|
|-
|গুপ্তচর শিকারী
|The Secret of the Caves
|Franklin W. Dixon
|'ঘটনাটা কি, স্যার?' সোফায় বসতে বসতে জিজ্ঞেস করল কিশোর।
রবিন জানতে চাইল, 'রহস্য?'
সামনের ডেস্কে রাখা একটা ফাইল খুললেন গোয়েন্দা ভিকটর সাইমন। 'জরুরী খবর আছে তোমাদের জন্য'।
সামনের দিকে গলা বাড়িয়ে দিল রবিন, 'কি?'
'ইনডিয়ান হিল।'
'যেখানে কোস্টাল রাডার স্টেশন বসিয়েছে আমেরিকান সরকার?' কিশোরের প্রশ্ন।
'হ্যাঁ,' জবাব দিলেন সায়মন।
'কি হচ্ছে সেখানে?' জানতে চাইলো রবিন।
'গন্ডগোল, এর বেশি কিছু আর জানি না আমি।'
'সেখানে কি কাজ?'
'গুপ্তচর শিকার!'
|-
| rowspan="3" |২৬
|The Mystery of the Burnt Cottage
|Enid Blyton
|তিন গোয়েন্দা গঠিত হয়নি তখনও, রকি বীচে থাকত না মুসা আর রবিনরা; থাকত শহর থেকে দূরের এক গ্রাম গ্রীনহিলস-এ। সেখানেই কিশোরের সঙ্গে তাদের পরিচয়। একটা কুকুর ছিলো কিশোরের, নাম টিটু। কিশোরের নেওটা ছিল কুকুরটা, সে যেখানেই যেত ওটাও যেত সঙ্গে সঙ্গে।
গ্রামটা সুন্দর, পাহাড়-জঙ্গল-নদী ছাড়াও সেখানে ছিল কিছু মজার মানুষ; তাদেরই একজন কনস্টেবল হ্যারিসন ওয়াগনার ফগর‍্যাম্পারকট ওরফে 'ঝামেলা'!
তিন গোয়েন্দা গঠিত হয়নি বলে যে রহস্যভেদী ছিল না ওরা তা নয়, পুলিশ হিমশিম খেয়ে গেছে এমন কতগুলো কেসের সমাধান করে দিয়েছিল...
|-
|বিষাক্ত অর্কিড
|Orchids for Biggles
|W. E. Johns
|এক অদ্ভুত ফুল অর্কিড - কোনটা নির্বিষ, কোনটা মারাত্মক বিষাক্ত। কোনটা সুগন্ধে ভরা, কোনটা একেবারেই গন্ধহীন। ঝলমলে অপূর্ব সুন্দর রঙ। এই অর্কিড প্রেমিকের ছদ্মবেশে পেরুর দুর্গম জঙ্গলে যেতে হলো তিন গোয়েন্দাকে। সঙ্গে দুঃসাহসী বেদুইন বৈমানিক ওমর শরীফ। ভয়াবহ প্রতিকূল পরিবেশ, সাপের রাজা অ্যানাকোন্ডা, হিংস্র জানোয়ার আর তার চেয়ে হিংস্র খুনে মানুষের তোয়াক্কা না করে কিসের সন্ধানে চলেছে ওরা?
|-
|সোনার খোঁজে
|Biggles and the Noble Lord
|W. E. Johns
|
|-
| rowspan="3" |২৭
|Five in Finniston Farm
|Enid Blyton
|নিতান্ত কৌতুহলের বশেই দুর্গটা দেখতে গিয়েছিল তিন গোয়েন্দা। মধ্যযুগীয় দুর্গ, দেখার বহু জিনিস আছে, অনেক টুরিস্ট যায়, তাই ওরাও গিয়েছে। কিন্তু শুরুতেই গন্ডগোল। টিকেট বিক্রেতার অদ্ভুত ব্যবহার অবাক করল ওদের। রহস্যের গন্ধ পেয়ে গেল কিশোর পাশা। শুরুতে কেউ তেমন গুরুত্ব দিল না, কারণ তখনও ওরা জানে না কি সাংঘাতিক অ্যাডভেঞ্চারে জড়িয়ে পড়তে যাচ্ছে!
|-
|রাতের আঁধারে
|The Monster from Earth’s End
|Murray Leinster
|
|-
|তুষার বন্দি
|Ski Weekend
|R. L. Stine
|স্কি লজ থেকে বেরোনো উচিৎ হয়নি, অনেক দেরিতে সেটা বুঝতে পারল ওরা। প্রচন্ড তুষারপাতে পিচ্ছিল হয়ে আছে পথ, পেছনে ফেরার উপায় নেই। সামনে মহাসড়কও বন্ধ কিনা জানে না। হীটার নষ্ট, গাড়ির ইঞ্জিন বিকল হলে এখন নিশ্চিত মৃত্যু। সঙ্গে প্রায় অপরিচিত একজন লোক। সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিল সে। কিন্তু শেষ রক্ষা হলো না। অসাবধানে গুলি বেরিয়ে গেল পিস্তল থেকে। খুন হয়ে গেল একজন মানুষ। ফেঁসে গেল তিন গোয়েন্দা।
|-
| rowspan="3" |২৮
|The Mystery of the Trail of Terror
|M. V. Carey
|
|-
|বিপজ্জনক খেলা
|Party Summer
|R. L. Stine
|সাগরের মাঝে ছোট্ট দ্বীপ। বেড়ানোর চমৎকার জায়গা। দ্বীপের একমাত্র হোটেলে চাকরী নিল তিন গোয়েন্দা, সঙ্গে বান্ধবী কোরি ড্রিম। দ্বীপে পা দেয়ার সঙ্গে সঙ্গে ঘটতে শুরু করল নানা রকম অদ্ভুত ঘটনা। ভূতুড়ে কান্ড মনে হয়। মুসা আর কোরি যা-ই বলুক না কেন, কিশোর পাশাকে কোনমতে বিশ্বাস করানো গেল না যে ওসব ভূতের কারসাজি। আটকা পড়ল ওরা। ভয়ঙ্কর উন্মাদের তাড়া খেয়ে হাড়ে হাড়ে টের পেল, শিকারি পিছু নিলে কেমন লাগে শিকারের।
|-
|ভ্যাম্পায়ারের দ্বীপ
|Goodnight Kiss 2
|R. L. Stine
|সাগরপারের ছোট্ট শহর স্যান্ডি হোলোতে ভ্যাম্পায়ারের আনাগোনা। বিশ্বাস করতে চাইলো না কিশোর আর রবিন। কিন্তু জোরাল প্রমাণ আছে মুসার কাছে। বন্ধু-খুনের প্রতিশোধ নিতে তৈরী হলো সে। সৈকতে পাওয়া যেতে লাগল মানুষের লাশ। গলায় থাকে দুটো দাঁতের দাগ! রাতের বেলা দ্বীপ থেকে উড়ে আসে কালো বাদুড়ের ঝাঁক। দেখে মনে হয় অতি সাধারণ ফলখেকো বাদুড়। কিন্তু মুসা জানে, ওগুলোর সৈকতে আসা বন্ধ করতে না পারলে তাকেও যোগ দিতে হবে জীবন্মৃতদের দলে।
|-
| rowspan="3" |২৯
|Voltage
|Easton Royce
|মনে আক্রোশ নিয়ে কারও দিকে ও শুধু একবার তাকালেই হয়, সঙ্গে সঙ্গে মরে যায় মানুষটা। কে ও? মানুষ, না পিশাচ? অতিমানব কিংবা ফ্রাঙ্কেনস্টাইন? আকাশের বজ্র থেকে শক্তি সঞ্চয় করে সে। এই ভয়ঙ্কর দানবের বিরুদ্ধে যুদ্ধ ঘোষণা করতে বাধ্য হলো তিন গোয়েন্দা। নইলে বাঁচানো যাবে না মিলি হাওয়ার্ডকে।
|-
|মায়াজাল
|The Ancient Enem
|Christopher Pike
|অদ্ভুত চিঠি! একসারি নাম লেখা। প্রথমটা যার নাম তাকে বলা হয়েছে এমন একটা কাজ করতে যা কেবল নরপিশাচের পক্ষেই সম্ভব। তারপর নিজের নাম কেটে চিঠিটা পাঠিয়ে দিতে হবে দ্বিতীয় নামটা যার, তার কাছে। যদি না পাঠায়? ভয়ঙ্কর পরিণতি; যন্ত্রণাদায়ক মৃত্যু ঘটবে তার। মুসা আমানও বাদ পড়লা না নামের তালিকা থেকে। মানুষ খুন করার নির্দেশ দেয়া হয়েছে ওকে। অতএব, খুন করার জন্য তৈরি হলো সে।
|-
|সৈকতে সাবধান
|Goodnight Kiss 1
|R. L. Stine
|ধীরে ধীরে বদলে যেতে শুরু করলো জিনা। 'কি হলো ওর?' অবাক হয়ে ভাবল মুসা। 'দিন দিন এমন রক্তশূন্য, ফ্যাকাসে হয়ে যাচ্ছে কেন?' জিনার গলার একপাশে দুটো দাঁতের দাগ সন্দেহ জাগালো ওর মনে। ভ্যাম্পায়ার নয় তো? 'দূর! ভূত বলে কিছু নেই!' নিজেকে ধমক লাগাল সে। কিন্তু জিনার অবস্থা শঙ্কিত করে তুলল ওকে। ভূত যদি না হবে, রক্ত খেয়ে খেয়ে জিনাকে রক্তশূন্য করে দিয়ে যাচ্ছে কিসে?
|-
| rowspan="3" |৩০
|The Outlaw’s Silver
|Franklin W. Dixon
|পুরানো মাল আনতে রকি বীচের বাইরে গিয়েছিল তিন গোয়েন্দা, সঙ্গে রোভার এবং বোরিস। ইচ্ছে করে কিশোরের পকেটে শয়তানকে ঢুকিয়ে দিয়ে গেল লোকটা - যাকে পকেটমার সন্দেহ করেছে গোয়েন্দারা। প্রায় দুশো বছর আগে মরে যাওয়া একজন মানুষ চিঠি পাঠাল ওদের কাছে; খুব গর্বের সঙ্গে নিজেকে 'রূপালী ডাকাত' বলে জাহির করে সে।
একটা ভূতুড়ে টেলিফোন পেল, সেটাও বড় রহস্যময়, কেমন অবাস্তব... জটিল রহস্য।
কিন্তু অসম্ভব বলে কোন কথা নেই তিন গোয়েন্দার অভিধানে। শয়তানের পিছু পিছু নরকে গিয়ে হাজির হলো ওরা।
|-
|ভয়ঙ্কর অসহায়
|Humbug
|Les Martin
|কুমির মানবের মৃত্যুটা স্বাভাবিক মনে হলো না কিশোর পাশার। দুই সহকারীকে নিয়ে তদন্তে নামল সে। বিকৃত, বিকলাঙ্গ আর বামন মানুষের এক বিচিত্র শহরে এসে ঢুকল। সেখানে লাশের কফিন ভেঙ্গে বেরিয়ে আসে জ্যান্ত মানুষ। আতঙ্ক-কুঠরিতে গোলকধাঁধায় ফেলে মজা পেতে চায় ও কে? উদ্ভট, রহস্যময়, রোমাঞ্চকর সব ঘটনা এসব কি? ভূতের কারসাজি? নাকি মানুষের হাত আছে? একজন বলল, মানুষও নয়, ভূতও না, আছে ভিনগ্রহবাসীর হাত।
|-
|গোপন ফর্মুলা
|Biggles in the Blue
|W. E. Johns
|দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধে হারানো এক মূল্যবান দলিল খুঁজতে চলল তিন গোয়েন্দা, সঙ্গী হলো দুর্ধর্ষ বেদুইন ওমর শরীফ। ক্যারিবিয়ানের হাজারো দ্বীপের মধ্যে থেকে খুঁজে বের করতে হবে ওটা। আগেই গিয়ে বসে আছে ওখানে পুরানো শত্রু জেনারেল ব্রন ডুগান। হাত মিলিয়েছে পটাশিয়াম সায়ানাইডের চেয়ে বিষাক্ত ফ্রিক সায়ানাইডের সঙ্গে। মারাত্মক বিষধর ফার-ডি-ল্যান্সের ভয় দেখালো সে। আকাশ ছেয়ে দিল লাল ফ্ল্যামিঙ্গোর ঝাঁক। ষোলোকলা পূর্ণ হলো এবার। দলিল খোঁজা তো দূরের কথা, প্রাণ বাঁচানোই দায়!
|-
| rowspan="3" |৩১
|Fatal Error
|G.H. Stone
|হলিউডের নামকরা এক স্পেশাল-ইফেক্ট স্টুডিওর কম্পিউটারে ভাইরাস ঢুকিয়ে দিয়েছে লোভী প্রোগ্রামার। ভীষণ বেকায়দায় পড়ে গেছে কোম্পানিটা। বন্ধ হয়ে যাওয়ার উপক্রম। একমাত্র তিন গোয়েন্দা পারে অপরাধীকে ধরে দিয়ে কোম্পানিটাকে বাঁচাতে।
রহস্য পেলে আর কিছু চায় না কিশোর পাশা, সুতরাং তাকে কাজে লাগাতে অসুবিধে হলো না। তদন্ত করতে গিয়ে বুঝল গোয়েন্দারা, কি কঠিন কাজে হাত দিয়েছে।
খেপে উঠলো রোবটরা।
প্রমাদ গুণল তিন গোয়েন্দা।
মরতে হবে নাকি এবার!
|-
|খেলার নেশা
 
H. William Stine
|স্কুলের বাস্কেটবল স্টার হয়ে উঠেছে মুসা। হঠাৎ করে উদয় হলো বিপদ। রহস্যময় এক লোক এসে হাজির। টাকার বিনিময়ে একটি টীমে মুসাকে খেলার প্রস্তাব দিল। বিপদের গন্ধ পেল তিন গোয়েন্দার নেতা কিশোর পাশা। শুরু হলো ক্যাম্পাসে গন্ডগোল। খেলোয়াড়দের ওপর আসতে আরম্ভ করল আঘাত। আড়াল থেকে কলকাটি নাড়ছে কেউ। ঠেকাতে হলে তাকে চিনতে হবে প্রথমে। কিন্তু কে সে? কিছুই বোঝার উপায় নেই। ওদিকে সময়ও ফুরিয়ে আসছে দ্রুত। সবকিছু নির্ভর করছে এখন তিন গোয়েন্দার ওপর - ওরা কিছু করতে পারলে ভাল, নয়তো...
|-
|মাকড়সা মানব
|The Shore Road Mystery
|Franklin W. Dixon
|'১৬৪৭ সালের কোন একদিন ছোট্ট এক নৌকায় করে প্লিমাউথ কলোনি থেকে রওয়ানা হলেন ক্যাকটাস ক্রলার, সঙ্গে স্ত্রী ও তিন সন্তান। দুঃসাহসী নাবিক তিনি, জ্যোতির্বিদ্যায় অগাধ জ্ঞান; ইনডিয়ানদের মুখে শোনা এক রহস্যময় অশ্বক্ষুরাকৃতি খাঁড়ির সন্ধানে চলেছেন। ওখানে গিয়ে নতুন উপনিবেশ স্থাপন করার ইচ্ছা। তার ধারণা, দেখাদেখি তাতে এসে যোগ দেবে আরো অনেক পরিবার।' ভুরু কোঁচকাল কিশোর, 'পৌঁছেছিলেন ওখানে?' উঠে দাঁড়ালো ক্রলার। পায়চারি শুরু করলেন ঘরের মধ্যে। 'সেটাই জানতে হবে আমাদের। বের করতে হবে সাড়ে তিনশো বছর আগে আসলে কি ঘটেছিল ক্রলার পরিবারের ভাগ্যে।' তদন্তে নামলো তিন গোয়েন্দা। জড়িয়ে পড়ল অদ্ভুত এক স্পাইডার-ম্যানের ভয়ঙ্কর মাকড়সা-জালে।
|-
| rowspan="3" |৩২
|Sunburn
|R. L. Stine
|বেড়াতে গিয়েছিল ওরা তিন বান্ধবী সাগরতীরে নির্জন এক পাহাড়-চূড়ার প্রাসাদে। ভেবেছিল, চমৎকার কাটিয়ে আসবে ছুটিটা। কিন্তু একের পর এক ঘটতে শুরু করলো অঘটন। ওদের খুন করতে চায় কেউ; এমনভাবে, যাতে মনে হয় খুনটা দূর্ঘটনা। বুঝতে পারল না ওরা কার সঙ্গে কি এমন শত্রুতা করল... উলফহাউন্ডের তাড়া আর হাঙরের আক্রমণ! সব কিছু ধোঁয়াটে করে দিল আরও কিশোর পাশার ভুত। প্রাসাদের গেস্ট হাউসে বাস করে ওটা।
|-
|রাত্রি ভয়ঙ্কর
|Halloween Party
|R. L. Stine
|কালো খামে করে এলো পার্টির নিমন্ত্রনপত্র। ভেতর থেকে বেরোল হলদে রঙের কার্ড। তাতে আঁকা একটা কালো কফিন। নিচে লেখাঃ তোমার জন্য সংরক্ষিত। ঠিকানাঃ ১৩, গোস্ট লেন, ব্ল্যাকফরেস্ট। সময়ঃ রাত্রি ১২টা, আগামী অমাবস্যা। পুরানো গোরস্থানের পাশের পোড়োবাড়িতে দাওয়াত খেতে গেল তিন গোয়েন্দা। রাত দুপুরে দপ করে নিভে গেল সমস্ত বাতি। অন্ধকারে চিৎকার করে উঠল কে যেন। আবার যখন আলো জ্বলল, দেখা গেল উপুড় হয়ে পড়ে আছে একটা ছেলে। পিঠে আমূলবিদ্ধ ছুরি...
|-
|খেপা কিশোর
|
|
|পাইরেট'স হিলের কাছে হঠাৎ কালো রঙের একটা বুলেট আকৃতির গাড়ি আশে মাইল বেগে পাশ দিয়ে সাঁ করে বেরিয়ে গেল দমকা হাওয়ার মত। ধাক্কা থেকে বাঁচতে গিয়ে সাইকেল সহ কাত হয়ে পথের পাশের ঝোপের উপর পড়ে গেলো কিশোর। গাড়ি চালাচ্ছে যে ছেলেটা, বয়স আঠারো-উনিশ হবে। চোখে কালো চশমা। সাদা একটা গলা-খোলা শার্ট গায়ে। কিশোরকে পড়ে যেতে দেখে দাঁত বের করে হাসল। 'বেয়াদব কোথাকার!' মেজাজ ঠিক রাখতে কষ্ট হচ্ছে কিশোরের। এই বেপরোয়া গাড়ি-চালকের বিরুদ্ধে স্কুল-ম্যাগাজিনে কড়া একটা প্রতিবেদন লিখতে হবে। মনে মনে হেডিংও ঠিক করে ফেলল। মোড় ঘুরে অন্যপাশে আসতেই আবার দেখতে পেল গাড়িটাকে। তীব্র গতিতে হারিয়ে যাচ্ছে সামনের বাঁকের আড়ালে। কয়েক সেকেন্ড পরেই কানে এল ব্রেকের তীক্ষ্ণ শব্দ। বিপদে পড়েছে গাড়িটা!
|-
| rowspan="3" |৩৩
|The Twisted Claw
|Franklin W. Dixon
|'এটাই সেই প্রতীক!' চেঁচিয়ে উঠল কিশোর। 'ফার্স্ট মেটের আংটিতে এই চিহ্নই দেখেছি!' পুরানো বইটার দিকে তাকিয়ে রয়েছে সে। নামটা অদ্ভুতঃ এম্পায়ার অভ দ্য টুইস্টেড ক্ল। মলাটে ছাপ মারা রয়েছে লাল রঙের প্রতীক-চিহ্ন। দোকানের মালিক জানতে চাইল, 'ইন্টারেস্টিং কিছু পেয়েছ?' বইটা দেখিয়ে জিজ্ঞেস করল রবিন, 'দাম কত?' নাকের উপর ঠিকমত চশমা বসাল দোকানী, আনমনে মাথা নেড়ে বলল, 'আসল দাম জানতে হলে খুলে দেখতে হবে। তবে ঐ র‍্যাকের কোন বইয়ের দামই হাজার ডলারের নিচে নয়। বেশিও আছে।' হাঁ হয়ে গেল দুই গোয়েন্দা। বলে কি! একটা বইয়ের দাম এত! হতাশ হলো খুব। ঐ বই কেনার সামর্থ্য তাদের হবে না।
|-
|পতঙ্গ ব্যবসা
|The Flickering Torch Mystery
|Franklin W. Dixon
|চশমা খুলে রুমাল দিয়ে ভাল করে কাঁচ পরিষ্কার করলেন বিজ্ঞানী। 'আরও একটা জিনিস নিয়ে কাজ করছি আমি। সেটা তোমাদের বলা যাবে না, সরি। আপাতত গোপনই রাখতে চাই। যাই হোক...' মুখ তুলে হাসলেন তিনি, 'ওটার জন্য তোমাদের কাছে আসিনি আমি। আমার সমস্যাটা গুটিপোকা, মথ আর রেশমগুটি নিয়ে - উধাও হয়ে যাচ্ছে।' অবাক হলো কিশোর, 'চুরি?' ভ্রুকুটি করলেন বিজ্ঞানী, 'জানি না। সমস্যাটা এখানেই। চুরি হচ্ছে কিনা এ ব্যাপারে শিওর হতে পারছি না আমি। গ্রীনহাউসে সব সময় তালা দিয়ে রাখি।'
'তালা খুলে চুরি করা যায়।'
'সে জন্যই বার্গলার অ্যালার্মের ব্যবস্থা করেছি।'
'হু,' নিচের ঠোঁটে চিমটি কাটল কিশোর। অনুমান করল, রেশমগুটি উধাওয়ের চেয়েও গুরুত্বপূর্ণ কোন ব্যাপার ঘটছে ভেতরে ভেতরে। 'বেশ, আসব আমরা। তদন্ত করে দেখব রহস্যটা কি।'
|-
|জাল নোট
|The Secret of the Old Mill
|Franklin W. Dixon
|
|-
| rowspan="3" |৩৪
|Shooting the Works
|William MacCay
|যুদ্ধ করতে চলল তিন গোয়েন্দা। চমকে ওঠার কিছু নেই, আসল যুদ্ধ নয়; যুদ্ধ যুদ্ধ খেলা। মার্শাল আর্ট আর জঙ্গল-যুদ্ধে কতটা পারদর্শী হয়েছে তারই পরীক্ষা দিতে হবে। মহানন্দে রওয়ানা দিলো ওরা।
শুরু হলো যুদ্ধ।
হঠাৎ আবিষ্কার করল তিনজনে, খেলাটা আর খেলা নেই, আসল যুদ্ধে রূপ নিয়েছে। খেলনা পিস্তল দিয়ে আর আত্মরক্ষা সম্ভব নয়।
আত্মপ্রকাশ করল ভয়ঙ্কর এক অপরাধী। দমল না তিন গোয়েন্দা, পরাজিত হয়ে লেজ গুটিয়ে পালাল না কাপুরুষের মত। রুখে দাঁড়াল ওরাও!
|-
|দ্বীপের মালিক
|Biggles Takes it Rough
|W. E. Johns
|দ্বীপটি দেখতে তৃতীয়ার চাঁদের মতো। চার মাইল লম্বা, এক মাইল চওড়া। নাম দিয়ে ফেললো কিশোর, চন্দ্রদীপ। দ্বীপ ঘিরে বয়ে যায় দামাল হাওয়া। পাথুরে টিলায় আছড়ে ভাঙে ঢেউ। দ্বীপে পাহার আছে, বালির সৈকত আছে, হরিণ আছে, পাখি আছে। বিষাক্ত সাপ আছে। পানিতে প্রচুর গলদা চিংড়ি আছে। বহু পুরানো দুর্গ আছে। দুর্গে ভূতের উপদ্রব আছে। জটিল রহস্য আছে। অতএব যেতেই হল তিন গোয়েন্দাকে।
সঙ্গে ওমর শরীফ।
|-
|কিশোর জাদুকর
|
|
|টম জুবের। রকি বীচে নতুন। ওর বাবা মার্ক জুবের একজন ম্যাজিশিয়ান। মা ঝাড়ফুঁক করে মানুষের রোগ সারায়। টম নিজেও খুদে ম্যাজিশিয়ান। তিন গোয়েন্দার সঙ্গে বন্ধুত্ব করতে চাইল। কিন্তু সন্দেহ জাগলো কিশোরেরঃ এত আগ্রহ কেন? চোখের সামনে ওর হাতঘড়িটা উধাও করে দিল টম।
'তিন গোয়েন্দা'কে ধরেও টান দেবে নাকি!
গায়েব করে দেয়ার ইচ্ছে?
|-
| rowspan="3" |৩৫
|Mystery of the Desert Giant
|Franklin W. Dixon
|অ্যারিজোনায় মরুভূমিতে পাওয়া গেল একটা পরিত্যক্ত বিমান। আরোহী দু-জন নিখোঁজ, যেন বাতাসে মিলিয়ে গেছে।
তিন গোয়েন্দাকে অনুরোধ করা হলো ওখানে গিয়ে রহস্যটার তদন্ত করার জন্যে। গেল ওরা। কল্পনাই করতে পারেনি এতখানি প্রতিকূল পরিবেশ। যখন তখন ওঠে ধুলোর ঝড়, অন্ধ করে দেয় চোখ মারাত্মক বিষাক্ত হিলা মনস্টার, কাঁকড়া বিছে আর হিংস্র পার্বত্য সিংহের ছড়াছড়ি। দানবীয় সব নকশা যেন হাজার বছরের রহস্য বুকে নিয়ে ওখানে ব্যঙ্গের হাসি হাসে।
নদীর ভাটি ধরে চিহ্ন ধরে ধরে এগোল গোয়েন্দারা মেকসিকের দিকে। জানে না কী সাংঘাতিক বিপদ ওত পেতে আছে ওদের জন্যে!
|-
|মৃত্যুঘড়ি
|While the Clock Ticked
|Franklin W. Dixon
|চলছে ঘড়িঃ টিক-টক টিক-টক টিক-টক! কাঁটার দিকে চেয়ে কেঁপে উঠল রবিন - তিনটা বাজতে পাঁচ! হাল ছেড়ে দিল সে। একমাত্র অলৌকিক কিছুই কেবল এখন বাঁচাতে পারে ওদের। প্রচন্ড বিস্ফোরণে কেঁপে উঠল বাড়িটা। ঘোরের মধ্যে সামনের জানালাটার দিকে তাকিয়ে রইল রবিন। নিজের চোখকে বিশ্বাস করতে পারল না। সত্যি দেখছে তো?
|-
|তিন বিঘা
|তিন গোয়েন্দা ১২৫
|১৯৯৯
|
|
|
|The Mystery of the Hidden House
|Enid Blyton
|
|-
|দক্ষিণ যাত্রা
|Biggles Breaks the Silence
|W. E. Johns
|দক্ষিন মেরু।
সবাই জানে, বরফে ঢাকা ভয়ঙ্কর জায়গা। আর্দ্রতা নেই বাতাসে। শূন্যের নিচে তাপমাত্রা। গায়ে রোদ লাগলে চামড়া পুড়ে যায়। পৃথিবীর অন্যখানে অমাবস্যার রাতে যেমন কালোর জন্য কিছু দেখা যায় না, এখানে দেখা যায়না সাদার জন্য। প্লেন নামাতে যাওয়া আত্মহত্যার শামিল। কিন্তু অ্যাডভেঞ্চারের নেশায় সেই কাজটাই করতে চলল তিন গোয়েন্দা আর দুর্ধর্ষ বেদুইন বৈমানিক ওমর শরীফ। কোনভাবে মেরুর প্রতিকূলতা থেকে যদি বেঁচেও যায় ওরা, খুন করতে আসবে গলাকাটা গুপ্তধন শিকারীর দল...
|-
|গ্রেট রবিনিয়োসো
|Lights Out
|R. L. Stine
|অদ্ভুত সব ঘটনা ঘটছে ক্যাম্প গোল্ডেন ড্রীমে। রহস্যের সমাধান করতে হবে ক্যাম্পটা ধ্বংস হয়ে যাওয়ার আগেই। হঠাৎ করে মারা গেল একজন কাউন্সেলর। পুলিশ বলছে, 'অ্যাক্সিডেন্ট!' কিন্তু রবিন জানে, এটা খুন। এরপর হয়তো আসবে ওর পালা। কাউকে বিশ্বাস করতে পারছে না সে, ঘনিষ্ঠতম বন্ধুকেও বিশ্বাস করতে পারছে না। সব কিছুকে জট পাকাচ্ছে আরও ঝামেলা বাধানোর ওস্তাদ শুঁটকি টেরি।
|-
| rowspan="3" |৩৭
|Terror Town
|Jack Kelly
|
|-
|গ্রেট কিশোরিয়োসো
|Biggles and the Little Green God
|W. E. Johns
|
|-
|নিখোঁজ সংবাদ
|তিন গোয়েন্দা ১৩০
|১৯৯৯
|
|
|
 
(English: Anthea Bell)
|
|-
|ঠকবাজি
|Reel Trouble
|G.H. Stone
|বই যেমন পছন্দ করে, গানও তেমন পছন্দ করে রবিন। কখনও লাইব্রেরীতে পার্টটাইম চাকরি করে, কখনও করে গানের কোম্পানিতে। কোনটা ছেড়ে যে কোনটা রাখবে মাঝে মাঝে নিজেও বুঝতে পারে না। সেদিন মুসাকে সঙ্গে নিয়ে কয়েকটা গানের ক্যাসেট কিনতে গিয়েই ঘটলো বিপত্তি। নকল ক্যাসেট দিয়ে ঠকানো হলো তাকে। বুঝতে পেরে সঙ্গে সঙ্গে ফেরত দিতে রওনা হলো ওরা। কিন্তু পাত্তাই দিল না ওদেরকে দোকানদার। কিসের ভয়ে যেন তাড়াহুড়ো করে পালাতে চাইছে। জেদ ধরল মুসা, হয় আসল ক্যাসেট দাও, নয়তো টাকা ফেরত দাও...
ভীষণ গন্ডগোল। কিশোরকে খবরটা জানাল ওরা। সাংঘাতিক আরেক জটিল রহস্যে জড়াল 'তিন গোয়েন্দা'।
|-
|দিঘীর দানো
|The Haunted Fort
|Franklin W. Dixon
|সাধারণ একটা চুরির ঘটনা, আপাতদৃষ্টিতে তাই মনে হয়। কিন্তু কিশোরের সন্দেহ অন্য রকম। তার ধারণা তলে তলে সাংঘাতিক কিছু ঘটছে।
পুরানো একটা দূর্গের ছবির মধ্যেই লুকিয়ে আছে যেন অমূল্য গুপ্তধনের সূত্র। ভয় দেখিয়ে কে তাড়াতে চায় ওদের? অদ্ভুত প্রতিধ্বনি ধেয়ে যায় হ্রদের এ-মাথা থেকে ও-মাথা। ভুস করে মাথা তোলে ওটা কি ভয়ঙ্কর জীব! তবে কি কিংবদন্তী যা বলে সেটাই ঠিক?
রাতের বেলা হ্রদের পাড়ে দাঁড়িয়ে এমন এক দৃশ্য দেখল গোয়েন্দারা, নিজেদের চোখকে বিশ্বাস করতে পারলো না; মেরুদন্ড বেয়ে নেমে গেল ভয়ের শীতল শিহরণ!
|-
| rowspan="3" |৩৯
|The Voodoo Plot
|Franklin W. Dixon
|কল্পনাই করতে পারেনি তিন গোয়েন্দা সাধারণ চোর পাহারা দেয়ার ঘটনা তাদেরকে টেনে নিয়ে যাবে ভয়াবহ ফ্লোরিডা এভারগ্লেডের গভীরে; যেখানে শিকারের অপেক্ষায় ওত পেতে থাকে মানুষখেকো ভয়াল অ্যালিগেটর। মারাত্মক বিষাক্ত র‍্যাটলস্নেকের ছড়াছড়ি। ওসব সাপ নিয়ে লোফালুফি করা মানুষগুলো তার চেয়েও ভয়ঙ্কর। সাপের কামড় খেলো মুসা, সাংঘাতিক জলাভূমিতে রাতের বেলা আটকা পড়ল কিশোর আর রবিন। উদ্ধারের কোন উপায় দেখতে পাচ্ছে না।
|-
|জলদস্যুর মোহর
|The Melted Coins
|Franklin W. Dixon
|'কার্স অভ দ্য ক্যারিবি!' জিজ্ঞেস করল কিশোর, 'বুঝতে পারছেন কিছু?' চমকে গেলো লোকটা। 'মানে, ক্যারিবিয় অভিশাপ!' আবার ভাবলেশহীন হয়ে গেল তার চেহারা, মিলিয়ে গেল চোখের তারায় আতঙ্কের ছায়া। আস্তে করে বলল, 'না, বুঝতে পারছি না!' রহস্যময় এই রোগীকে প্রশ্ন করে কোন ফায়দা হবে না, বুঝে গেল কিশোর। রাস্তায় বেরিয়ে রবিনকে বলল, কথাটা শুনেই কেমন আঁতকে উঠল, দেখলে! রক্তশূন্যতা তাকে দুর্বল করেছে বটে, কিন্তু ভয় ধরাতে পারেনি। ভয়টা তার অন্য কোনখানে!
|-
|চাঁদের ছায়া
|The Crisscross Shadow
|Franklin W. Dixon
|
|-
| rowspan="3" |৪০
|The Medal of Horror
|Susan L. Williams
|
|-
|গ্রেট মুসাইয়োসো
|The Dead Lifeguard
|R. L. Stine
|
|-
|অপারেশন অ্যালিগেটর
|The Search for the Snow Leopard
|Franklin W. Dixon
|
|-
| rowspan="3" |৪১
|Five Go Adventuring Again
|Enid Blyton
|
|-
|মানুষ ছিনতাই
|The Mystery of the Spiral Bridge
|Franklin W. Dixon
|
|-
|পিশাচকন্যা
|Children of Fear
|R. L. Stine
|
|-
| rowspan="3" |৪২
|The Mystery of Tally-Ho Cottage
|Enid Blyton
|
|-
|দুর্গম কারাগার
|Biggles Buries a Hatchet
|W. E. Johns
|
|-
|ডাকাত সর্দার
|The Sky Blue Frame
|Franklin W. Dixon
|অন্যের প্ররোচনায় ডাকাতি করতে রাজি হয়ে গেল তিন গোয়েন্দা। জিনাকেও সঙ্গে নেবে কিনা ভাবছে। জীবনের প্রথম ডাকাতি, চিন্তায় পড়ে গেল ডাকাত-সর্দার কিশোর পাশা; ঘটবে তো সব ঠিকঠাক? পরিকল্পনায় ভুল থাকলে চলবে না। কেউ যেন বুঝতে না পারে কিছু। কিন্তু অপরাধ কখনই সঠিক ফল দেয় না। ভুল হলোই। নিজেদের অপরাধের তদন্ত করতে নামলো নিজেরাই। সমাধান করতে না পারলে পুলিশ ওদের ছাড়বে না।
|-
| rowspan="3" |৪৩
|তিন বন্ধু ২৪
|২০০০
|
|
|
|তিন গোয়েন্দা ১৩৭
|২০০০
|
|
|
|The Mind Reader
|R. L. Stine
|আজকাল কি যেন হয়েছে রবিনের, হঠাৎ করেই উল্টাপাল্টা দেখা শুরু করে। বনের ধারে হাঁটতে গিয়ে কল্পনায় দেখতে পেলো একটা লাশ। ঢুকে পড়ল বনে। গা ছমছমে ভুতুড়ে পরিবেশ। ভয়ানক বিপদের গন্ধ পাচ্ছে মন। কিন্তু থামল না সে। খুঁজে বের করল কবরটা। খুনের তদন্তে নামল তিন গোয়েন্দা।
|-
| rowspan="3" |৪৪
|তিন গোয়েন্দা ১৩৩
|২০০০
|
|
|
|তিন গোয়েন্দা ১৩৬
|২০০০
|
|
|
|
|
|কলোরাডো রকির পার্বত্য অঞ্চলে বেড়াতে এসেছে তিন গোয়েন্দা। মনের আনন্দে প্রকৃতি দেখে আর স্কি করে কাটিয়ে যাবার ইচ্ছা কয়েকটা দিন। কিন্তু মানুষ যেখানে, অশান্তি সেখানে। র‍্যাঞ্জার, শিকারী, ইনডিয়ান, পাহাড়ী সিংহ - অদ্ভুত এক দলাদলিতে মেতেছে সবাই। জানোয়ারের পক্ষ নিলেন নিবেদিত প্রাণ এক জীববিজ্ঞানী। তাদের পক্ষে তিন গোয়েন্দা। শুরু হলো ওদের প্রাণনাশের চেষ্টা। খুঁড়তে গিয়ে বুঝল গোয়েন্দারা, গভীর এক রহস্য রয়েছে এর পেছনে। ফেরার পথ নেই, সমাধান করতে না পারলে দুঃখ আছে ওদের কপালে।
|-
| rowspan="3" |৪৫
|তিন বন্ধু ২৬
|২০০০
|
|
|
|The Mystery of the Disappearing Cat
|Enid Blyton
|
|-
|টাকার খেলা
|The Wailing Siren Mystery
|Franklin W. Dixon
|গভীর মনোযোগে টাকা চুরির গল্প শুনছে কিশোর আর রবিন। গোয়েন্দা ভিকটর সাইমন জানালেন, প্রচুর আমেরিকান নোট চুরি যাচ্ছে মধ্য আর দক্ষিণ আমেরিকার বিভিন্ন জায়গা থেকে। তার ধারণা, সাংঘাতিক কোন প্ল্যান করছে কোন দুষ্টচক্র। উত্তেজনা বোধ করছে রবিন। জিজ্ঞেস করল, 'কি কাজে ব্যবহার করা হবে এ টাকা, জানেন না নিশ্চয়?'
'না।'
'সীমান্ত পার করে নিয়ে যাওয়া হবে?' জানতে চাইলো কিশোর।
'তা-ও জানি না।'
'নিলে বোট কিংবা প্লেনে করেই নেয়া হবে, তাই না?'
'সম্ভবত।'
পরষ্পরের দিকে তাকাল দুই গোয়েন্দা। ওদের পাওয়া দুই হাজার ডলারের সঙ্গে এই কেসের সম্পর্ক নেই তো?
|-
| rowspan="3" |৪৬
|তিন বন্ধু ০১
|১৯৯৪
|
|
|
|Mystery of the Whale Tattoo
|Franklin W. Dixon
|বেশ মজার একটা খবর বেরোল কাগজেঃ 'শপিং সেন্টার তৈরির জন্যে মাটি খুঁড়তে গিয়ে বেরিয়ে পড়েছে প্রায় একশো ফুট লম্বা এক অতিকায় স্টাফ করা নীল তিমি।' খাবার টেবিলে ব্যাপারটা নিয়ে আলোচনা চলছে। রবিন বলল, 'মাটির নিচ থেকে গুপ্তধন বেরোতে শুনেছি। কিন্তু স্টাফ করা তিমি! না, বাবা!'
'ওটা ওখানে এল কি করে?' মেরিচাচীর প্রশ্ন।
কিশোর অনুমান করল, 'আটকা পড়েছিল হয়তো বরফযুগে।'
'কিন্তু ভুলে যাচ্ছ,' রবিন বলল, 'ওটা স্টাফ করা। বরফযুগের মানুষ কি স্টাফ করতে জানতো?'
তাই তো! কি করে জানা যাবে?
তদন্তে নামলো তিন গোয়েন্দা।
সাংঘাতিক বিপজ্জনক আধুনিক শত্রুরা পেছনে লাগলো ওদের।
|-
|নেকড়ের গুহা
|Hunting for Hidden Gold
|Franklin W. Dixon
|
|-
| rowspan="3" |৪৭
|The Mystery of the Secret Room
|Enid Blyton
|
|-
|সি.সি.সি
|The Secret of Sigma Seven
|Franklin W. Dixon
|
|-
|যুদ্ধযাত্রা
|Revenge of the Desert Phantom
|Franklin W. Dixon
|
|-
| rowspan="3" |৪৮
|গোয়েন্দা রাজু ১৪
|২০০১
|
|
|
|One Evil Summer
|R. L. Stine
|
|-
|পোষা ডাইনোসর
|Day of the Dinosaur
|Franklin W. Dixon
|
|-
| rowspan="3" |৪৯
|The Mystery of the Missing Man
|Enid Blyton
|
|-
|মঞ্চভীতি
|Foul Play
|Peter Lerangis
|'পাগল সংঘ'র মোটুরামকে মনে আছে? অনেকেই জানে ওই চরিত্রে অভিনয় করেছিল কিশোর। আবার অনেকে জানেও না। জানলে খেপাবে, সে-জন্য গোপন রাখার চেষ্টা করে সে। ব্যাপারটা তার কাছে একটা আতঙ্ক। কিন্তু হঠাৎ আবার ফিরে এলো পাগল সংঘের এক পাগল। বহুদিন পর দেখা, নতুন করে পরিচয় হলো আবার। জানে গেল, একটা রক মিউজিক দলে ড্রামারের কাজ করে সে। কিন্তু দুর্ভাগ্য, কার যেন কুনজরে পড়ে গেছে। স্টেজের ভেতরে-বাইরে, বার বার তার ওপর আঘাত আসতে লাগল। মেরে ফেলতে চায় নাকি তাকে কেউ? পুরানো বন্ধুকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিতেই হলো, তদন্তে নামল তিন গোয়েন্দা।
কিন্তু বাপরে-বাপ! এ কি...
|-
|ডীপ ফ্রিজ
|The Ice-Cold Case
|Franklin W. Dixon
|
|-
| rowspan="3" |৫০
|The White Phantom
|Eve Marco
|
|-
|তাসের খেলা
|Be Afraid – Be Very Afraid!
|R. L. Stine
|
|-
|খেলনা ভালুক
|গোয়েন্দা রাজু ১৫
|২০০২
|
|
|
|The Mystery of the Strange Bundles
|Enid Blyton
|
|-
|প্রেতের অভিশাপ
|তিন গোয়েন্দা ১৫২
|২০০২
|
|
|
|The Borgia Dagger
|Franklin W. Dixon
|
|-
| rowspan="3" |৫২
|The Mystery of the Spiteful Letters
|Enid Blyton
|
|-
|স্পাইডারম্যান
|Eye of the Spider
|Jack Kelly
|
|-
|মানুষখেকোর দেশে
|Cannibal Adventure
|Willard Price
|
|-
| rowspan="3" |৫৩
|Deep Trouble II
|R. L. Stine
|
|-
|সীমান্তে সংঘাত
|The End of the Trail
|Franklin W. Dixon
|
|-
|মরুভূমির আতঙ্ক
|অ্যাডভেঞ্চার ৩
|
|
|
|তিন বন্ধু ০২
|১৯৯৪
|
|
|
|Panic on Gull Island
|Franklin W. Dixon
|জিনাকে উদ্ধার করতে ফ্লোরিডার গাল আইল্যান্ডে চলল তিন গোয়েন্দা। চড়ছে তাপমাত্রা, বাড়ছে বিপদ। তেড়ে এলো কুকুর, ফুঁসে উঠলো অ্যালিগেটর, যুক্ত হলো হাঙর। মারাত্মক ষড়যন্ত্রের ঘূর্ণিপাকে পড়ে হাবুডুবু খেতে লাগল ওরা...
|-
|চাঁদের পাহাড়
|Elephant Adventure
|Willard Price
|
|-
| rowspan="3" |৫৫
|The Mystery of the Strange Messages
|Enid Blyton
|
|-
|বাংলাদেশে তিন গোয়েন্দা
|Biggles and the Penitent Thief
|W. E. Johns
|দুটো বিশেষ উদ্দেশ্য নিয়ে বাংলাদেশে এসেছে এবার তিন গোয়েন্দা। ওকিমুরো কর্পোরেশনের শাখা অফিস খোলা, আর 'প্রিয়টিভি' নামে একটা কিশোর টেলিভিশন চ্যানেল চালু করা। দুর্যোগের রাতে ওদের কাছে এসে হাজির অশোক ব্যানার্জি নামে আরেক কিশোর। সাহায্য চেয়ে বসল তিন গোয়েন্দার। ভয়ানক বিপদ মাথায় করে আন্দামানের এক দুর্গম দ্বীপে গুপ্তধন খুঁজতে চলল ওরা।
|-
|টাক রহস্য
|গোয়েন্দা রাজু ১৬
|
|
|
|The Mystery of the Invisible Thief
|Enid Blyton
|
|-
|জয়দেবপুরে তিন গোয়েন্দা
|The Strange Message in the Parchment
|Carolyn Keene
|
|-
|ইলেকট্রনিক্স আতঙ্ক
|
|২০০৪
|
|
|
|তিন বন্ধু ১৬
|১৯৯৮
|
|
|
|The Clue of the Whistling Bagpipes
|Carolyn Keene
|
|-
|ভূতের খেলা
|গোয়েন্দা রাজু ১২
|২০০২
|
|
|
|The Mystery of the Missing Necklace
|Enid Blyton
|
|-
|ছবিরহস্য
|
|
|
|Puzzle for the Secret Seven
|Enid Blyton
|
|-
| rowspan="3" |৫৯
|Secret Seven Adventure
|Enid Blyton
|
|-
|মেডেল রহস্য
|Look Out Secret Seven
|Enid Blyton
|
|-
|নিশির ডাক
|তিন গোয়েন্দা ১৮৯
|২০০৪
|
|
|
|
|
|মুসাকে ভয় দেখাতে শুঁটকি ও তার বন্ধুরা তাকে লাশের সাথে এক কফিনে থাকতে বাধ্য করল।
|-
|টাইম ট্র্যাভেল
|
|
|ডাক্তার মুনের ওষুধের প্রভাবে বোকা হয়ে গেছে তিন গোয়েন্দা। ডাক্তার মুনের দুই চামচা গাজুল-মাজুল তিন গোয়েন্দাকে বুদ্ধিমান হওয়ার ওষধ খাইয়ে কিডন্যাপ করে নিয়ে গেল।
|-
|শুঁটকি শত্রু
|
|২০০৫
|
|
|
|Full Moon Fever
|R. L. Stine
|
|-
|ইউএফও রহস্য
 
(English: Anthea Bell)
|
|-
|মুকুটের খোঁজে তিন গোয়েন্দা
|তিন গোয়েন্দা ১৭২
|২০০৩
|
|
|
|
|
|কালো হয়ে এল আকাশ। বাতাস কনকনে। কুখ্যাত কবরস্থানের পুরানো পাথরগুলোর মাঝখান দিয়ে হেঁটে চললাম। বিশাল কবরটা চোখে পড়ল। এক কবরের দুই ফলক। দুই জনের নাম। নিচে একটা পাখির ছবি আঁকা, কাকের মত দেখতে। তার নিচে লেখা: আমাদের শান্তি ভঙ্গ করতে চাইলে করো, কিন্তু তারপর যা ঘটবে তার জন্যে নিজেরাই দায়ী থাকবে।
|-
|ঝড়ের বনে
|Well Done Secret Seven
|Enid Blyton
|
|-
|মোমপিশাচের জাদুঘর
|Welcome to the Wicked Wax Museum
|R. L. Stine
|
|-
| rowspan="3" |৬৩
|তিন বন্ধু ২৩
|২০০০
|
|
|
|The Sign of the Twisted Candles
|Carolyn Keene
|
|-
|হানাবাড়িতে তিন গোয়েন্দা
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|তিন গোয়েন্দা ১৭৬
|
|
|
|The Secret Path
|Christopher Pike
|
|-
|হীরার কার্তুজ
|রকিব হাসান
|তিন গোয়েন্দা ১৬০
|
|
|
|The Hardy Boys and Nancy Drew Meet Dracula
|Glen A. Larson
|
|-
| rowspan="3" |৬৫
|The Mystery of the Pantomime Cat
|Enid Blyton
|
|-
|রহস্যভেদী তিন গোয়েন্দা
|তিন গোয়েন্দা ১৭৪
|২০০৩
|
|
|
|
|২০০৫
|
|
|
|
|
|অদ্ভুত আংটি। মাঝখানে বসানো সাদা পাথরটা কালো হয়ে যায়, ভিতরে ধোঁয়াটে কিছু নড়াচড়া করে। ভিতর থেকে ভুরু কুঁচকে তাকিয়ে থাকে কি যেন। শয়তানি হাসিতে ভরে গেল শুঁটকি টেরির মুখ। আর কলজে শুকিয়ে গেল রবিনের।
|-
|গোয়েন্দা রোবট
|All Eyes on First Prize
|Franklin W. Dixon
|বিজ্ঞান মেলা হচ্ছে স্কুলে। কিন্তু কে যেন সেরা দুটো প্রজেক্ট চুরমার করে দিল। ম্যাডাম কেসটা তুলে দিলেন তিন গোয়েন্দার হাতে।
|-
|কালো পিশাচ
|
|
|স্নুকভিলে বেড়াতে এসে এ কী ফ্যাসাদে পড়ে গেল তিন গোয়েন্দা। আকাশ থেকে নেমে এল বিজলী। জ্যান্ত হয়ে উঠল নিরীহ বিদ্যুতের তার। কালো পিশাচ ঢুকে পড়েছে বাসার ভিতরে।
|-
| rowspan="3" |৬৭
|The Haunted Car
|R. L. Stine
|
|-
|হারানো কুকুর
|Go Ahead Secret Seven
|Enid Blyton
|
|-
|গিরিগুহার আতঙ্ক
|
|
|
|You Can’t Scare Me!
|R. L. Stine
|টেরিয়ার ডয়েলের মনে শান্তি নেই। কোন ভাবেই পেরে ওঠে না তিন গোয়েন্দার সঙ্গে। মরিয়া হয়ে উঠল সে। নিতেই হবে প্রতিশোধ। ফাঁদ পাতল মাডি ক্রীকের পিচ্ছিল জঙ্গলে; চাঁদনী রাতে কাদার নিচ থেকে উঠে আসে যেখানে পঙ্কদানব।
|-
|বাবলি বাহিনী
|Secret Seven on the Trail
|Enid Blyton
|
|-
|শুঁটকি গোয়েন্দা
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|
|
|পুরানো একটা দুর্গ দেখতে গিয়ে হারানো গুপ্তধনের গল্প শুনল তিন গোয়েন্দা। সত্যি না গুজব জানতে তদন্ত শুরু করল।
|-
|দুখী মানুষ
|Three Cheers Secret Seven
|Enid Blyton
|
|-
|মমির আর্তনাদ
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|তিন গোয়েন্দা ১৯২
|
|
|
|রকিব হাসান
|তিন বন্ধু ৩২
|
|
|
|Trial and Terror
|Franklin W. Dixon
|
|-
|ছবির জাদু
|
|
|
|The Invation
|K. A. Applegate
|
|-
|রত্নের সন্ধানে
|The Treasure at Dolphin Bay
|Franklin W. Dixon
|
|-
|পিশাচের থাবা
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|তিন গোয়েন্দা ১৮০
|
|
|
|The Mystery of the Vanished Prince
|Enid Blyton
|রাত দুপুরে রহস্যজনকভাবে উধাও হয়ে গেল ভিনদেশী এক রাজকুমার। খবরটা শোনার পর আর দেরি নেই, তিন গোয়েন্দা ঝাঁপিয়ে পড়ল তদন্তে। এগিয়ে এল আরও একজন, বাগড়া দেয়ার ওস্তাদ, ফগর‍্যাম্পারকট।
|-
|সাপের বাসা
|Without a Trace
|Franklin W. Dixon
|কারসন আঙ্কেলের গরুগুলো মারা যাচ্ছে। হঠাৎ যেখানে সেখানে দেখা দিচ্ছে মারকি। জুলিকে সাথে নিয়ে তেল দস্যুদের মোকাবেলা করতে চলল তিন গোয়েন্দা।
|-
|রবিনের ডায়রি
|
|
|পার্কভিলে রবিনের আলফ্রেড চাচার বাসায় বেড়াতে এসেছে তিন গোয়েন্দা। আবিষ্কার করল, রবিনের চাচাতো ভাই ববের আশ্চর্য পরিবর্তন ঘটছে। এক ধরণের হিংস্র বানরে পরিণত হচ্ছে সে। ওকে বাঁচাতে হবে এই মহাবিপদ থেকে। পাশে এসে দাঁড়ালো নতুন বান্ধবী লিযি। যে বিজ্ঞানী এ-কাজ করেছেন তাঁকে খুঁজে বের করতে হবে তিন গোয়েন্দার... বেশি দেরি হয়ে যাওয়ার আগেই।
|-
| rowspan="3" |৭৩
|Earth Geeks Must Go!
|R. L. Stine
|
|-
|ট্রেন ডাকাতি
|Sidetracked to Danger
|Franklin W. Dixon
|
|-
|ভূতুড়ে ঘড়ি
|
|
|
|The Fish-Faced Mask Of Mystery
|Franklin W. Dixon
|
|-
|মহাকাশের কিশোর
|The Message
|K. A. Applegate
|স্বপ্নটাকে প্রথমে গুরুত্ব দিল না রবিন। বাজপাখি 'জ্যাক' জানালো আজব স্বপ্ন সেও দেখে, কাতর হয়ে কে যেন ডাকে। সাহায্য চায়। কিশোর, মুসা আর জিনাও যখন একই স্বপ্ন দেখতে আরম্ভ করল, গুরুত্ব না দিয়ে আর পারা গেল না। সাগর যাত্রায় তৈরি হল তিন গোয়েন্দা। ডলফিন রূপে।
|-
|ব্রাউন্সভিলে গন্ডগোল
|The Castle Conundrum
|Franklin W. Dixon
|
|-
| rowspan="3" |৭৫
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|তিন গোয়েন্দা ২০৫
|
|
|
 
(English: Anthea Bell)
|
|-
|ফ্যান্টাসিল্যান্ড
|
|
|
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|তিন গোয়েন্দা ১৬৬
|
|
|
|রকিব হাসান
|গোয়েন্দা রাজু ০১
|
|
|
|-
|লিলিপুট রহস্য
|
|
|
|
|
|টিভি প্রোগাম অফ বিটের চ্যাম্পিয়ানদের বিরুদ্ধে খেলতে নেমেছে কিশোর গ্রুপ । এদিকে একের পর এক দুঃসাহসিক চুরি শুরু হলো শহরে-চুরি যাচ্ছে মহা মূল্যবান রত্নালঙ্কার, দুষ্প্রাপ্য কয়েন, আর হিরে-জহরত । অনিচ্ছাসত্ত্বেও জড়িয়ে গেল কিশোর-মুসা-রবিন । টেলিফোনে হুমকি এলঃ চুরির ব্যাপারে নাক গলালে কাটা পড়বে নাক !
|-
|ছায়াসঙ্গী
|
|
|হঠাৎ একের পর এক বিপদে জড়িয়ে পড়তে শুরু করল বিখ্যাত মিউজিক ব্যান্ড রিদমের গায়ক জনি জনসন । তিন গোয়েন্দার সঙ্গে ঘটনাচক্রে পরিচয় হল তার । কিশোর তাঁকে প্রস্তাব দিল, অপরাধীকে ধরতে তদন্ত করতে চায় ওরা । কিন্তু তদন্ত শুরু করতেই হামলা শুরু হয়ে গেল ওদের উপরও । তারপর উধাও হলো জনি জনসন ।
|-
|পাতালঘরে তিন গোয়েন্দা
|
|
|বান্দরবনে হারুন মামার বাসায় বেড়াতে এসেছে তিন গোয়েন্দা । শতবর্ষের পুরানো বাড়িটার পাতালঘরে একটা গুপ্ত দরজা আবিষ্কার করল ওরা । ওটা দিয়ে নেমে গেল সুরঙ্গে । কিন্তু এ কোথায় চলে এসেছে ওরা ? গোরস্থানে কফিন নামাচ্ছে কারা ? মরা মানুষের তাড়া খেয়ে প্রাণ নিয়ে পালাল তিন গোয়েন্দা । কিন্তু পড়ল গিয়ে কিসের খপ্পরে ?
|-
| rowspan="3" |৭৮
| rowspan="3" |শামসুদ্দীন নওয়াব
|তিন গোয়েন্দা ১৬২
|
|
|
|সিলেটে তিন গোয়েন্দা
|তিন গোয়েন্দা ১৭০
|
|
|
|মায়াশহর
|তিন গোয়েন্দা ১৭৮
|
|
|
|The Secret of the Soldier’s Gold
|Franklin W. Dixon
|পর্তুগালের লিসবনে বেড়াতে চলেছে তিন গোয়েন্দা। খবরটা জেনেই ফ্রাউ তারানা ইসলাম ওদের অনুরোধ করলেন তার বাবার লুকানো সোনাগুলো উদ্ধার করে দিতে। ফাঁস হয়ে গেল, ওরা জানে লুকানো সোনা কোথায় আছে। সোনা না পেলে মৃত্যুপথযাত্রী তারানা ইসলামের ক্যান্সার রিসার্চ সেন্টার শুধু স্বপ্ন হয়েই রয়ে যাবে।
|-
|পিশাচের ঘাঁটি
|
|
|
|The Walking Snowman
|Franklin W. Dixon
|
|-
| rowspan="3" |৮০
|
|
|অন্ধকারে কারা যেন হেটে বেড়ায় ডগলাস পার্কের ইকোলজিকাল রিসার্চ সেন্টারে ! স্টাফ করা জীবজন্তু নড়েচড়ে বেড়ায় নিশুতি রাতে ! তিন গোয়েন্দাকে ডেকে নিয়ে গেল জিনা । রাত-বিরাতে আওয়াজ কীসের দেখতে গেলে কে যেন চেপে ধরে মুসার কন্ঠনালী । পনেরো মিলিয়ন ডলারের হীরাগুলোই বা কোথায় লুকালেন আধ-পাগলা ভিক্টর ডগলাস ?
|-
|অদৃশ্য রশ্মি
|
|
|আচমকা দুই চাকার ওপর খাড়া হয়ে দাঁড়িয়ে গেল মুসার সাইকেলটা । কোনমতেই নড়ানো গেল না । আটকে রইল মাটিতে । মুসার ধারণা, ভূতের কাজ । কিন্তু কিশোর বলল, অবশ্যই এর কোনও বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা আছে । তদন্তে নামল তিন গোয়েন্দা আর জিনা । ওহহো, সঙ্গে রাফিয়ানও ।
|-
|গোপন ডায়েরি
|
|
|বাষট্টি বছরের পুরানো একটা গোপন ডায়েরি বের করল কিশোর । ডায়েরির মালিক ক্যামেলিয়া লিখেছেঃ 'সাবধান ! গোপনে যে আমার ডায়েরি পড়বে, চিরদিনের জন্য সে চিলেকোঠার ভূত হয়ে যাবে, তুমি পড়েছ, অতএব...
|-
| rowspan="3" |৮১
|
|
|কিশোর, রবিন আর মুসা স্কুলের ছুটিতে চলেছে সুদূর কেনিয়ায়। জানে না একের পর এক বিপদ অপেক্ষা করছে ওখানে ওদের জন্য। শুরুতেই ছিনতাইকারী সন্দেহে ধরা হলো ওদের, রওনা হওয়ার আগেই। তারপর? বিমান দুর্ঘটনা...কুমিরের আক্রমণ, খুনীর হামলা...পিছু হটল না তিন গোয়েন্দা। কীভাবে সমস্ত রহস্য ভেদ করবে ওরা? কীভাবে ঠেকাবে অন্যায় পশুহত্যা?
|-
|ভয়াল শহর
|Breakdown in Axeblade
|Franklin W. Dixon
|ছুটি কাটাতে বেরিয়েছিল ওরা। রুক্ষ ঊষর অঞ্চলে ঢুকে খারাপ হয়ে গেল গাড়ি। অবাক হয়ে গেল কিশোর ও মুসা। যার কাছেই যায়, এক কথা: বেরিয়ে যাও এখান থেকে! বোকার মত চ্যালেঞ্জ করে বসল ওরা মহাপরাক্রমশালী, খুনী, ভয়ঙ্কর শত্রুকে।
|-
|সুমেরুর আতঙ্ক
|
|
|গোরস্থানের পাশে কুয়াশা ঘেরা প্রাচীন এক বাড়ি। সেখানে বাস করে বিচিত্র এক পরিবার। ঘটনাচক্রে সায়েন্স প্রজেক্টের কাজে ও বাড়িতে যেতে হলো রবিনকে। ঘুণাক্ষরেও জানে না, ওকে ঘিরে বোনা হচ্ছে ভয়ঙ্কর এক ষড়যন্ত্রের জাল।
|-
| rowspan="3" |৮২
|Against All Odds
|Franklin W. Dixon
|
|-
|গাড়ি চোর
|Good Work Secret Seven
|Enid Blyton
|
|-
|পুতুল-রহস্য
|
|
|
|The Mystery in the Old Mine
|Franklin W. Dixon
|
|-
|গুহা রহস্য
|Secret Seven Win Through
|Enid Blyton
|
|-
|কিশোরের নোটবুক
|
|
|
|Cave-In
|Franklin W. Dixon
|
|-
|বিষাক্ত ছোবল
|The Serpent’s Tooth Mystery
|Franklin W. Dixon
|
|-
|শুঁটকি রাজকুমার
|
|
|
|
|
|এবার ভেদ করতে হবে লেজকাটা বাঁদরের রহস্য। কিন্তু কাজটা অত সোজা নয়। শুরুতেই পেছনে লেগে গেল শত্রু। চলল গুপ্তধনের সংকেত লেখা কাঠের চাকতি নিয়ে ছিনিমিনি খেলা। প্রথমে পেরু তারপর আর্জেন্টিনায় যেতে হলো তিন গোয়েন্দাকে।
|-
|শয়তানের জলাভূমি
|The Secret of Wildcat Swamp
|Franklin W. Dixon
|জাফর চৌধুরীর 'পাগলাঘণ্টী'-র রূপান্তর। দুর্গম ওয়াইল্ডক্যাট সোয়াম্পে এসে হাজির হলো তিন গোয়েন্দা।
প্রাগৈতিহাসিক উটের ফসিল খুঁড়তে গিয়ে বেরোল ডাকাত।
|-
|সেরা গোয়েন্দা
|
|
|তিন গোয়েন্দার প্রিয় অভিনেত্রী কিশোরী রিটা হাওয়ার্থ এসেছে রকি বিচে, ছবির শুটিং করতে। সঙ্গে এনেছে ওর প্রিয় কাছিম ডিককেও। তিন গোয়েন্দার জিম্মায় ডিককে রেখে মেকআপ করতে গেল রিটা। কিন্তু দুর্ভাগ্যক্রমে, নিখোঁজ হয়ে গেল কাছিমটা।
|-
| rowspan="3" |৮৬
|The Valley of Adventure
|Enid Blyton
|
|-
|বারমুডা অভিযান
|The Number File
|Franklin W. Dixon
|
|-
|রহস্যের হাতছানি
|
|
|
|The Mummy Case
|Franklin W. Dixon
|
|-
|ভাইরাস আতঙ্ক
|Edge of Destruction
|Franklin W. Dixon
|
|-
|তালিকা-রহস্য
|
|
|
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|তিন গোয়েন্দা ১৯০
|
|
|
|Cult of Crime
|Franklin W. Dixon
|
|-
|কালো আলখেল্লা
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|তিন গোয়েন্দা ২১৪.২
|
|
|
|Pirates Ahoy!
|Franklin W. Dixon
|তিন গোয়েন্দাকে গুপ্তধনের গল্প শোনালেন ক্যাপ্টেন ব্লাড। চারশ বছর আগে সাগরে ডুবে যায় জলদস্যু ক্যাপ্টেন মর্ডকের জাহাজ। তার আগেই বোম্বেটেরা মাটির তলায় লুকিয়ে ফেলে সমস্ত ধন-রত্ন। গুপ্তধন রকি বীচের আশেপাশেই আছে।
|-
|মারাত্মক বিপদ
|
|
|তিন গোয়েন্দার কাছে চিঠি এলো, রকি বিচের উৎসব পন্ড করে দেয়া হবে পারলে ঠেকাও। বোমা তৈরির কারখানায় তদন্ত করতে গিয়ে বুঝল, লোকটাকে থামাতে না পারলে মারা যাবে রকি বিচের অধিকাংশ লোক।
|-
|হারানো তলোয়ার
|King For a Day
|Franklin W. Dixon
|
|-
| rowspan="3" |৯০
|Height of Danger
|Franklin W. Dixon
|
|-
|সাগরে শঙ্কা
|The Sea of Adventure
|Enid Blyton
|
|-
|খেপা জাদুকর
|
|২০০৭
|
|
|
|The Clue in the Camera
|Carolyn Keene
|
|-
|ভ্যাম্পায়ারের ছায়া
|
|
|
|-
|ভূতুড়ে বাড়ি
|
|
|
|Track of the Zombie
|Franklin W. Dixon
|
|-
|অগ্নিগিরি অভিযান
|Volcano Adventure
|Willard Price
|
|-
|গবলিনের কবলে
|
|
|
|
|
|অদৃশ্য জিনিসটা টক-মিষ্টি দুর্গন্ধ ছড়ায়, তাড়া করে কিশোরকে। কিন্তু একথা কে বিশ্বাস করবে? কেউ না। তবে রবিন করল। তার কারণ, ও দেখেছে জিনিসটাকে। ফিফথ অ্যান্ড অরচার্ড স্ট্রীট থেকে একে একে হারিয়ে যাচ্ছে বাচ্চারা। ফলে, হাত গুটিয়ে বসে থাকতে পারল না তিন গোয়েন্দা। নিতেই হলো জীবনের ঝুঁকি।
|-
|উড়ন্ত রবিন
|The Mountain of Adventure
|Enid Blyton
|ক্যালিফোর্নিয়ার উত্তর সীমান্তে পাহাড়ি অঞ্চলে বেড়াতে গেল তিন গোয়েন্দা ও ফারিহা আঙ্কেল ডিক কার্টারের এক আত্মীয়র খামার-বাড়িতে। ওখান থেকে ঘোড়ায় চেপে চলল ওরা বিখ্যাত প্রজাপতি-উপত্যকা দেখবে বলে। কিন্তু পথ হারিয়ে চলে গেল আরেক দিকে। তারপর? রবিনকে বন্দি করে নিয়ে গেল এক লোক পাহাড়ের অভ্যন্তরে। যে-পাহাড় থেকে লাল রঙের ধোঁয়া বেরোয়। হঠাৎ ঘিরে ধরল ওদের একপাল নেকড়ে!
|-
|অন্য ভুবনের কিশোর
|
|
|কিশোরদের পাড়ায় এসেছে বিচিত্র এক পরিবার। তাদের রয়েছে কিশোরের বয়সী এক ছেলে- রিচি। আঙুল লম্বা করতে পারে সে, পকেটে নিয়ে ঘুরে বেড়ায় আঠাল পিণ্ড, যার ভয়ে বুলির মত মারকুটে ছেলেও কাবু। অন্ধকার দেশ থেকে নাকি এসেছে রিচিরা। কারা ওরা? কেন এসেছে রকিবিচে? কোনও ক্ষতি করে দেবে না তো তিন গোয়েন্দার?
|-
| rowspan="3" |৯৪
|
|
|অস্বাভাবিক গরম সইতে না পেরে রোডার সঙ্গে ডেথ সিটির দীঘির পাড়ে হাওয়া খেতে চলল তিন গোয়েন্দা । ভিনগ্রহবাসীদের স্পেস শিপ তুলে নিয়ে গেল মুসা ও রবিনকে । পিছু নিল রোডা ও কিশোর । আবারও ঢুকে পড়ল ‘সময়সুড়ঙ্গে’ । কল্পনাও করতে পারেনি, রহস্যময় সেই মহাক্ষমতাধর বিজ্ঞানী ডক্টর মুনের সঙ্গে দেখা হয়ে যাবে ।
|-
|হিমপিশাচের কবলে
|The Cold People
|Christopher Pike
|গ্রীষ্মের মাঝামাঝি সময়ে ভীষণ ঠাণ্ডা । ব্যাপারটাকে স্বাভাবিক বলে মেনে নিতে পারল না তিন গোয়েন্দা ও রোডা । ডেথ সিটির জঙ্গলে অদ্ভুত কিছু বরফের কফিন চোখে পড়ল ওদের । জ্যান্ত হয়ে উওঠল হাজার বছরের পুরানো, ভয়ঙ্কর হিমপিশাচেরা । ওদের চোখের বিধ্বংসী নীল আলোয় এ-কোন সর্বনাশের ছায়া ! আবারও কি সেই ডক্টর মুন ?
|-
|ছায়ামানবী
|
|
|ট্যালেন্ট শো-তে অংশ নিয়ে প্রথম হলো তানিয়া । কিন্তু ও কি আসলে মানুষ, না ভূত ? কেননা, সত্তর বছর আগেকার এক অভিনেত্রীর চেহারার সঙ্গে রয়েছে ওর অবিকল মিল । তিন গোয়েন্দার বান্ধবী বেকি বলল, তানিয়া ভূত । ওকে ডিসকোয়ালিফাইড করতে পারলে বেকি আর কিশোর জিতবে প্রথম পুরস্কার । কিন্তু কিশোর বিশ্বাস করে না তানিয়া ভূত । বেকি প্রমাণ চাইল । তানিয়া ভূত নয়, প্রমাণ করতে নামল তিন গোয়েন্দা । ঢুকল গিয়ে ভূতুড়ে বাড়িতে ।
|-
| rowspan="3" |৯৫
| rowspan="3" |শামসুদ্দীন নওয়াব
|তিন গোয়েন্দা ১৭৭
|
|
|
|জলদস্যুর গুপ্তধন
|তিন গোয়েন্দা ১৮১
|
|
|
|-
|গোলমাল
|
|
|
|
|
|ছুটি কাটাতে চলল ওরা সাগরতীরের চমৎকার শহর সী ক্লিফে। আশ্চর্য! এ কেমন ব্যবহার মহিলার? সাহায্য করতে চাওয়ায় মুখ ঝামটা দিল। সাগর থেকে ডুবন্ত মানুষ উদ্ধার করল ওরা। কিশোরের বুদ্ধিতে হল মধুর মিলন। উত্তাল সাগরে ভেসে গেল তিন গোয়েন্দা।
|-
|দ্বীপরহস্য
|The Island of Adventure
|Enid Blyton
|কপারটাউনে জিনার মিলিফুপুর বাসায় বেড়াতে গেল তিন গোয়েন্দা। কাজের লোক নিকি মন্টিয়ানোর বোট চুরি করে ঘুরতে গেল পরিত্যাক্ত খনি আইল অভ ডিজাস্টারে। সিক্রেট এজেন্ট ডিক কার্টারের সাথে জাল টাকার রহস্যে জড়িয়ে পড়ল তিন গোয়েন্দা, জিনা, আর মুসার কাকাতুয়া কিকো।
|-
|দুর্গরহস্য
|The Castle of Adventure
|Enid Blyton
|কিশোরের স্কুল টিচার মিসেস রেবেকা হাডসনের বাড়ির পাশে প্রাচীন দূর্গ। ঈগলের ছবি তুলতে গিয়ে বন্দি হল স্পাইদের কাছে। ডিক, কিকো আর গ্রামের মেয়ে লরাকে সাথে নিয়ে তাদের মোকাবেলা করল তিন গোয়েন্দা।
|-
| rowspan="3" |৯৭
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|তিন গোয়েন্দা ১৮৩
|
|
|
|-
|মঙ্গলের অতিথি
|
|
|
|-
|প্রেতচক্র
|
|
|
|Typhoon Island
|Franklin W. Dixon
|
|-
|জিন্দালাশের মুখোমুখি
|
|
|
|-
|তুষারগিরি-রহস্য
|
|
|
|The Mystery of Banshee Towers
|Enid Blyton
|পাহাড়ের ওপরের টাওয়ারে বাজে বাস্তুপরীর বাঁশি। মুসা যেতে রাজি না কোনমতেই, ভূতুড়ে কাণ্ড-কারখানায় তার বেজায় ভয়। কিশোর বলে, 'পরী না ছাই, সব মানুষের শয়তানি। কোথায় কখন একটা বাঁশি বাজল, তার জন্যে এত সুন্দর রুদ্র সাগর দেখব না। প্রয়োজনে বাঁশির রহস্যও ভেদ করে ছাড়ব।' তার সঙ্গে জোট বাঁধল ফারিহা, রবিন, টিটু ও বব। হাজির হল ঝামেলা ফগর‍্য্যাম্পারকট।
|-
|মূর্তিচোর
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|তিন গোয়েন্দা ১৯৩
|
|
|
|-
|মহাকাশের দূত
|
|
|
|নিঝুমপুরের কান্ড
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|তুষারদানো
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|Doctor Who and the Unearthly Child
|Terrance Dicks
|
|-
| rowspan="3" |১০১
|প্রেত বৈমানিক
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|ছায়া কালো কালো
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|Doctor Who and the Horror of Fang Rock
|Terrance Dicks
|
|-
| rowspan="3" |১০২
|গুপ্তদূত
|
|
|
|-
|গ্রহান্তরের বন্ধু
|
|
|
|-
|জাদুঘরের দানব
|
|
|
| rowspan="3" |১০৩
|মাদক-রহস্য
|
|
|
|-
|গুপ্তধনের নকশা
|
|
|
|-
|ভয়ের মুখোশ
|
|
|
| rowspan="3" |১০৩/২
|অশুভ পাথর
|
|
|
|-
|দানবের চোখ
|
|
|
|-
|হারানো মমি
|
|
|
|নিখোঁজ মেয়ে
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|Doctor Who and the Android Invasion
|Terrance Dicks
|
|-
|বনের খাঁচায়
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|
|
|রাতের ঝড়ে উপড়ে পড়েছে গোরস্থানের প্রাচীন হেডস্টোনগুলো । তারপর গোরস্থানে উদয় হলো এক লোক । মুসাদের গ্রীনহাউসে রহস্যময় আলোটা কীসের ? ভীতিকর দুপ দুপ শব্দটা আসে কোথাকে ? এসব প্রশ্নের জবাব জানতে কোথায় গেল তিন গোয়েন্দা ?
|-
|নেকড়ের বনে
|
|
|উলফলেকে চাচা-চাচির বাড়ি বেড়াতে গিয়ে বিচিত্র রহস্যের মুখোমখি হলো রবিন । উলফদের বাড়িতে যাওয়া নিষেধ কেন ? চাঁদনি রাতে বনের ভিতর কীসের গর্জন শোনা যায় ? বুনো প্রানীগুলোকে নিষ্ঠুর
ভাবে খুন করে রেখে যায় কে ? মানুষের দিকেও হাত বাড়াবে না তো ওই জঘন্য খুনি ?
|-
|খাবার চোর
|
|
|কিশোরদের পাড়ায় হঠাৎ করেই খাবারচোরের উৎপাত শুরু হয়েছে ।
বিভিন্ন বাড়ি থেকে চুরি যাচ্ছে খাবার । কে করছে কাজটা ? কেনই বা ?
সন্দেহভাজনদের উপর গোয়েন্দাগিরি শুরু করল কিশোর ।
|-
| rowspan="3" |১০৫
|
|
|জিনা ও রাফিয়ানের সঙ্গে তেপান্তরের মাঠে ক্যাম্পিঙে এসে আজব এক ভূতুড়ে ট্রেইনের গুজব শুনল তিন গোয়েন্দা । মাটির নীচ থেকে শোনা যায় গুমগুম আওয়াজ । কিন্তু কোথা থেকে আসে, কোথায় যায়, কিছুই বোঝা যায় না । ট্রেইনটাকে খুজতে শুরু করল তিন গোয়েন্দা ।
|-
|ইয়েতি রহস্য
|Doctor Who and the Web of Fear
|Terrance Dicks
|একদল ইয়েতি ঘুরে বেড়াচ্ছে লন্ডনের কুয়াশাচ্ছন্ন রাস্তা আর পাতাল রেলের সরঙ্গে । মানুষ খুন হতে লাগল একের পর এক । অনির্বাযভাবে রহস্যে জড়িয়ে পড়ল তিন গোয়েন্দা আর হিরু চাচা ।
|-
|ক্যাপ্টেন কিডের গুপ্তধন
|Pirates Past Noon
|Mary Pope Osborne
|বনভূমির ভিতরে আজব এক ট্রী হাউস । অতীতে-ভবিষ্যতে নিয়ে যেতে পারে । ওটায় উঠে তিন গোয়েন্দা ঘটনাচক্রে পৌঁছে গেল জলদস্যুদের যুগে । ক্যাপ্টেন কিডের গুপ্তধন খুঁজে বেড়াচ্ছে বোম্বেটেরা । ওদের হাতে বন্দি হলো তিন গোয়েন্দা । নকশার লেখা পড়ে গুপ্তধন উদ্ধার করে দিতে না পারলে মুক্তি নেই । পারবে ওরা ?
|-
| rowspan="3" |১০৫/২
|লকেট রহস্য
|
|
|
|-
|শুঁটকির পেট শো
|
|
|
|-
|পান্না-রহস্য
|
|
|
|The Howling Ghost
|Christopher Pike
|গোল্ডেন ডোর সিটি। ভয়ঙ্কর এক মৃত্যুপুরী। রাত দুপুরে শোনা যায় অদ্ভুত চিৎকার। মাথার অনেক উপর থেকে ভেসে আসে বড় বড় ভ্যাম্পায়ার-বাদুড়ের ডানা ঝাপটানোর শব্দ, মাটির নীচ থেকে যেন চুইয়ে উপরে উঠে আসে প্রেতের চাপা গোঙানি। কারিনার ভাই নিকুকে ভূতে ধরে নিয়ে গেলে মুসাকে নিয়ে সাগরে ডুব দিল কিশোর। নড়ে উঠল ক্যাপ্টেনের কঙ্কাল। বন্ধ লাইটহাউসে হঠাৎ করে জ্বলে উঠে আলো।
|-
|রোবট-রহস্য
|Doctor Who and the Giant Robot
|Terrance Dicks
|ভয়াবহ মারনাস্ত্র ডিসিনটিগ্রেটর গান। ওটার প্ল্যান, মাল-মশলা চুরি গেল একে একে। কারা করছে অপকর্মটা? কী তাদের উদ্দেশ্য? জীবনবাজি রেখে এগিয়ে এল কিশোর আর হিরু চাচা।
|-
|ইচ্ছাপূরণ
|
|
|পুরানো একটা বোতল। ওটা খুলতেই ঘটতে শুরু করল অদ্ভুত সব ঘটনা। কোত্থেকে উদয় হলো দীর্ঘদেহী এক আগন্তুক। আশ্চর্যজনকভাবে সত্যি হয়ে যাচ্ছে তিন গোয়েন্দার ইচ্ছেগুলো। রবিনের ধারণা আগন্তুক জিন, বোতল থেকে বেরিয়েছে। ওর কথা হেসেই উড়িয়ে দিল কিশোর। কিন্তু ক্রমেই জটিল হয়ে উঠছে রহস্য।
|-
| rowspan="3" |১০৬/২
|
|
|আঙ্কেল ডিকের সঙ্গে ইউরোপে বেড়াতে গিয়ে ছোট্ট এক রাজ্যের প্রাসাদ-ষড়যন্ত্রের সঙ্গে জড়িয়ে পড়ল মুসা, রবিন ও জিনা পারকার। সঙ্গে ছোট্ট এক লাটসাহেব। বন্দি রয়েছে ওরা দুর্ভেদ্য বোর্কেন দুর্গের টাওয়ারে। বন্ধুদের উদ্ধার করবে বলে সার্কাস পার্টিতে যোগ দিল কিশোর পাশা। তারপর? ঘটনার পর ঘটনা!
|-
|পাজি বিড়াল
|The Wicked Cat
|Christopher Pike
|ডেথ সিটির রাস্তা থেকে একটা কালো বিড়ালকে বাড়ি নিয়ে গেল রোডা। তারপর থেকেই ঘটতে শুরু করল রহস্যময় ঘটনা। দিনে-দুপুরে হঠাৎ করে গাছ ভেঙে পড়ল, আগুন লাগল বাড়ির বারান্দায়। বিড়ালটাকে সন্দেহ করল তিন গোয়েন্দা। সমাধানের জন্য ডাইনির কাছে ছুটল কিশোর।
|-
|ভৌতিক দুর্গ
|
|
|মেইলে নেলি আণ্টির দুর্গে বেড়াতে গেল তিন গোয়েন্দা। গিয়েই জড়িয়ে পড়ল রহস্যে। রক্তহিম করা চিৎকারটা কোথা থেকে আসে? রাতের বেলা প্লেহাউসের বাইরে ভুতুড়ে আলোটা কীসের? কী ঘটছে এখানে?
|-
| rowspan="3" |১০৭
|
|
|নিউ ইয়র্কে বেড়াতে এসেছে তিন গোয়েন্দা। ওদের বন্ধুর সেলুলার ফোনে আসতে শুরু করল অদ্ভুত সব কল। যান্ত্রিক, শীতল কণ্ঠ। অদ্ভুত নির্দেশ তার। হয় মারো, নয় মরো।
|-
|বিভীষণের জাগরণ
|Doctor Who and the Power of Kroll
|Terrance Dicks
|অক্টোপাস সদৃশ অতিকায় এক প্রাণী ক্র্যাং। বাস করে গভীর জলাভূমিতে। লোকের ধারণা ক্রাং কিঙ্গবদন্তীর একজন ক্রুদ্ধ দেবতা। স্থানীয়দের হাতে ধরা পড়ল কিশোর। ক্রাঙের উদ্দেশে বলি দেওয়া হবে তাকে। উপায়?
|-
|কঙ্কাল-রহস্য
|
|
|নতুন ব্যাণ্ড টিচার সঙ্গে একটা কঙ্কাল নিয়ে যোগ দিয়েছেন গ্রীনহিলস স্কুলে। কঙ্কালটা অদ্ভুত। বাজনার তালে তালে পা ঠোকে, টোকা দেয় কিশোরের পিঠে। তবে কি ওটা জ্যান্ত? তদন্তে নামল তিন গোয়েন্দা।
|-
| rowspan="3" |১০৭/২
|
|
|ডেথ সিটি শহরের বাইরে বেড়াতে এসেছে তিন গোয়েন্দা ও রোডা। হামলা চালাল ভয়ঙ্কর এক টেরোডাকটিল। কোথা থেকে এল কোটি কোটি বছর আগে হারিয়ে যাওয়া ওই প্রাগৈতিহাসিক প্রানীটা? রবিন বলল: সময় বিকৃতি। মুসাকে তুলে নিয়ে গেল টেরোডাকটিল। কীভাবে ওকে উদ্ধার করবে এখন কিশোর-রবিন-রোডা?
|-
|পাহাড়ী দানো
|
|
|গোল্ডেন এগ স্কি লজের ইন্সট্রাক্টর মার্ভ হিউজ বিশালদেহী এক লোক। তুষারে বড় বড় পদচিহ্নগুলো কি তার? শিম গাছটা কোত্থেকে এল? ডানার ধারণা, হিউজ আসলে রূপকথার দৈত্য। ওর কথা হেসে উড়িয়ে দিল কিশোর। তারপর?
|-
|রাজকুমারের খোঁজে
|
|
|কন্ট্রা থেকে রাজকুমার র‍্যামি এসেছে গ্রীনহিলসে, উঠেছে কিশোরদের বাসায়। কিন্তু একরাতে কিডন্যাপ করা হলো ওকে। কারা করল অপকর্মটা? তদন্ত শুরু করল তিন গোয়েন্দা।
|-
| rowspan="3" |১০৮
|অভিশপ্ত হোটেল
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|Doctor Who and the Green Death
|Terrance Dicks
|
|-
|হারকিউলিস রহস্য
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|বনভূমির আতঙ্ক
| rowspan="3" |শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|-
|বামন ভূত
|
|
|
|-
|ড্রাকুলার আলখেল্লা
|
|
|
|
|
|গ্রীনহিলস স্কুলের নতুন দাড়োয়ান কিভাবে যেন জাদুবলে সব কাজ চোখের নিমিষে শেষ করে ফেলে। ডানার বিশ্বাস সে সান্তা ক্লয। রবিনের মনের আশা কি পূরণ করতে পারবে এই মিস্টার ওয়ান্ডারম্যান?
|-
|খুনে রোবট
|Doctor Who and the Robots of Death
|Terrance Dicks
|কাজী শাহনূর হোসেনের লেখা মৃত্যু-রোবট অবলম্বনে। ভিনগ্রহে নামতেই খুনের দায়ে ফেঁসে গেল কিশোর ও হিরুচাচা। একে একে মারা পড়েছে স্যান্ডারমাইনারের ক্রুরা। কীভাবে এই হত্যারহস্যের কিনারা করবে ওরা?
|-
|নেকড়ের গর্জন
|
|
|রাতের বেলা ভেসে আসে নেকড়ের গর্জন। ডনের ধারনা জো-র খালাতো ভাই উলফি মায়ানেকড়ে।
|-
| rowspan="3" |১০৯/২
|আবার মায়া নেকড়ে
| rowspan="3" |শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|-
|টি-রেক্স রহস্য
|
|
|
|-
|বনের ডায়েরি
|
|
|
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|তিন গোয়েন্দা ২১৬
|
|
|
|The Three Doctors
|Terrance Dicks
|
|-
|মৃত্যু-মমির অভিশাপ
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|অদৃশ্য হাত
| rowspan="3" |শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|-
|সার্কাসের তাবু
|
|
|
|-
|চাঁদের মানুষ
|
|
|
|ঠগবাজ
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|The Caves of Androzani
|Terrance Dicks
|
|-
|হারানো ক্যামেরা
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|
|
|গোয়েন্দাগিরির চমৎকার সুযোগ এল । ফুটবলার টেক্কা ডানহিলকে মেরে ফেলতে চাইছে কেউ । কিন্তু ছেলেটা সাহায্য চায় না কেন ? রহস্যময় আচরণ । তিন গোয়েন্দা কি জুয়াড়িদের পাশার ছক পাল্টে দিতে পারবে ?... ওদিকে পিচ্চি ববের কি সমস্যা ? ওর পিছনে কেন লেগেছে দুই চোট্টা ! কী চায় তারা ? জটিল রহস্য তো !
তিন গোয়েন্দা কি শেষে হার মানবে ?
|-
|দুঃস্বপ্নের খেলা-২
|
|
|ডানহিলকে উদ্ধার করা যাবে ? বইল তুমুল ঝড়, এল ভয়ঙ্কর বিপদ । চলল ষড়যন্ত্র । মরবে আড়াই হাজার মানুষ । তাদের বাঁচাতে পারবে তিন গোয়েন্দা ? মৃত্যুর মুখে ঝাঁপ দিল ওরা । শুরু হলো দুঃস্বপ্নের খেলা !
|-
|ডায়নোসরের উপত্যকা
|Dinosaurs Before Dark
|Mary Pope Osborne
|জাদুর ট্রী হাউসে চড়ে এ কোথায় এসে পড়েছে তিন গোয়েন্দা ? উপতাক্য জুড়ে শুধু ডাইনোসর গিজগিজ করছে । হিংস্র টি-রেক্সের কবল থেকে বেচে ফিরতে পারবে তো ?
|-
| rowspan="3" |১১২
|
|
|প্যালেস থিয়েটারে নামকরা জাদুকরের প্রতিযোগিতা , সেখানে ঘটছে নানান ধরনের অঘটন । কে ঘটাচ্ছে সেসব ? কেন ঘটাচ্ছে ? কীভাবে ঘটাচ্ছে ? প্রতিযোগিতা শেষে কে হবে আমেরিকার সেরা জাদুকর ?... ওদিকে আবার নস্টালজিয়া ল্যান্ড অপেরা হাউসে শুরু হলো জ্বলজ্বলে সবুজ ভূতের বিদ্ঘুটে উপদ্রব । তদন্ত করার এমন সুবর্ণ সুযোগ পেলে কি আর ছাড়ে তিন গোয়েন্দা ?
|-
|মিশর রহস্য
|Doctor Who and the Pyramids of Mars
|Terrance Dicks
|মিশরীয় পিরামিডের অভ্যন্তরে বন্দি খুনী লোর্কার মুক্তির ক্ষণ ঘনিয়ে আসছে । আঁতকে উঠলেন প্রফেসর জোসেফ মিলার । তার ভাইয়ের সঙ্গে ভয়ংকর মমিগুলো ঘুরে বেড়াচ্ছে কেন ? রুখে দাড়াল কিশোর আর হিরু চাচা ।
|-
|হিম মৃত্যুর ফাঁদে;
|
|
|ভারমেন্টে বন্ধু রনির বাসায় বেড়াতে গেছে তিন গোয়েন্দা আর ডন । রাতের বেলা বরফের উপর গরম কাপড় ছাড়া স্কেটিং করে কে ? কারা হাতছানি দিয়ে ডাকে ওদেরকে ? ডনকে কে টেনে নিয়ে যেতে চায় বনভূমির ভিতরে ? রহস্যর পর রহস্য । অনিবার্যভাবেই তাতে জড়িয়ে পড়ল তিন গোয়েন্দা ।
|-
| rowspan="3" |১১২/২
|
|
|ডানার দিদার বোন লুসি দাদী। তার বন্ধ চিলেকোঠায় শোনা যায় রহস্যময় পায়ের আওয়াজ। ভেসে আসে শিসের সুর। জানালায় দেখা দেয় কার ছায়ামূর্তি। রহস্যের গন্ধ পেল তিন গোয়েন্দা আর ডানা।
|-
|গ্রহান্তরের দুঃস্বপ্ন
|
|
|মহাশূন্যে ভাসছে ভয়ংকর একখন্ড মেঘ। একটা হোস্ট দরকার তার। মারাত্মক ভাইরাসে আক্রান্ত হলো হিরুচাচা। মরণাপন্ন দশা। তারপর?
|-
|ভুতূড়ে খামার
|
|
|রবিনের দাদুর খামারে বেড়াতে এসেছে তিন গোয়েন্দা। এখানে আসার পর থেকেই ঘটতে শুরু করল একের পর এক দুর্ঘটনা। অল্পের জন্য প্রাণে বেঁচে গেল ওরা। এসবের পিছনে কি রহস্যময় টার্চার পরিবারের হাত আছে? প্রশ্নটার জবাব জানতেই হবে তিন গোয়েন্দাকে।
|-
| rowspan="3" |১১৩
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|তিন গোয়েন্দা ২১৫
|
|
|
|কাজী শাহনূর হোসেন
|নীল-ছোটমামা ০৬
|
|
|
|ডাইনীর কবলে
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|
|
|সুন্দর কিছু ফুলের চারা রহস্যময়ভাবে চুরি হয়ে গেল কিশোরের বাগান থেকে । চোরের পিছনে লাগল তিন গোয়েন্দা । কেঁচো খুঁড়তে সাপ বেরনোর মত বেরিয়ে এল দশ বছর আগে নিখোঁজ হওয়া এক সুন্দরী নর্তকীর নিরুদ্দেশ-সংবাদ । কিশোরের ধারণা, পুরানো দুর্গের ভাঙা দেয়ালের ওপাশেই রয়েছে সব প্রশ্নের জবাব ।
|-
|ফুলচোর ২
|
|
|পোড়া দুর্গে ঢুকল তিন গোয়েন্দা । ঢোকার পর থেকেই আসতে শুরু করল বাধা, একের পর এক । কিন্তু দমবার পাত্র নয় কিশোর পাশা । সব বাধা অতিক্রম করে অবশেষে যখন লক্ষ্যবস্তুর কাছাকাছি পৌঁছল ও, আটকা পড়ল এমন এক জায়গায়, রহস্যভেদ তো দূরের কথা, প্রাণ বাঁচানোই কঠিন হয়ে উঠল ।
|-
|গৃহযুদ্ধ
|Civil War on Sunday
|Mary Pope Osborne
|ক্রীসদাস প্রথা বিলোপের পক্ষে-বিপক্ষে ভ্রাতৃঘাতী মরণপণ যুদ্ধে লিপ্ত হয়েছে যুক্তরাষ্ট্রের উপর ও দক্ষিণ অংশ । জাদুর ট্রী-হাউসে চেপে ঘটনাচক্রে যুদ্ধের ময়দানে উপস্থিত হয়েছে কিশোর আর জিনা ।
অনিবার্যভাবেই এতে জড়িয়ে পড়ল ওরা ।
|-
| rowspan="3" |১১৪
|Crime in the Kennel
|Franklin W. Dixon
|সাধারণ একটা কুকুর চুরির ঘটনা । কিন্তু সাধারণ থাকল না । কারণ, ওটা কোটিপতি হার্বার্ট রকফেলারের প্রিয় কুকুর । তার উপর তিন গোয়েন্দার কাছ থেকে রাফিয়ানকেও ছিনিয়ে নিয়ে গেল কুকুর-চোর । সূত্র ধরে ধরে এগিয়ে যাচ্ছে ওরা । এমনি সময়ে ওদেরকে হুমকি দিল কুকুর-চোরঃ হয় তদন্ত বন্ধ করো, নয়তো লাশ পাবে রাফিয়ানের । এখন ? কী করবে ওরা ?
|-
|অরণ্যের প্রতিশোধ
|
|
|সামনে হ্যালোউইন । কিশোরের নতুন কস্টিউম দেখে চমকে যাচ্ছে সবাই । কিন্তু কেউ বুঝতে চাইছে না এটা নকল নয়, আসল । ওদিকে ওর সারা শরীর ক্রমেই গাছ হয়ে যাচ্ছে । এখন ?
|-
|ভুতুড়ে বিমান
|
|
|অস্ট্রেলিয়া থেকে বদলি ছাত্র হিসেবে এসেছে মার্ক । কিশোরদের বাসায় উঠেছে । ও আসার পর থেকেই ঘটতে শুরু করল অদ্ভুত সব ঘটনা । কিশোরের উপর নেমে আসছে একের পর এক বিপদ । আসলে কে এই মার্ক ? ওর হাত থেকে কীভাবে নিস্তার পাবে কিশোর ?
|-
| rowspan="3" |১১৪/২
|ম্যাজিক শো
|
|
|
|-
|কালঘুম
|
|
|
|-
|মঞ্চনাটক
|
|
|
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|তিন গোয়েন্দা ২১১
|
|
|
|-
|জাদুর ঘোড়া
|
|
|
|-
|দ্বীপের দানো
|
|
|
|পাহাড়ে আতঙ্ক
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|-
|ভুতুড়ে বর্ম
|
|
|
|-
|ভুমিকম্প
|
|
|
|রকিব হাসান
|তিন বন্ধু ৩৮
|
|
|
|-
|রহস্যজাল
|
|
|
|-
|গ্রীনহিলসের গুপ্তধন
|
|
|
| rowspan="3" |১১৬/২
|আঁধারে কে
|
|
|
|-
|জলাভূমির আতঙ্ক
|
|
|
|-
|ভুতুড়ে দূর্গ
|
|
|
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|তিন গোয়েন্দা ২১৮.২
|
|
|
|-
|খুন-রহস্য
|
|
|
|-
|ছুটিতে ছোটাছুটি
|
|
|
|
|
|সকালে ঘুম থেকে উঠে নীচে নেমে এল কিশোর। কিন্তু এ কী! রাশেদ চাচা, মেরি চাচী, ডন কেউই ওকে চিনতে পারছে না কেন? বাসা থেকে বেরিয়ে যেতে বলা হল কিশোরকে। স্কুলের বন্ধু-বান্ধব, শিক্ষক, শিক্ষিকারাও ওকে চেনে না। এ কোন্‌ বিপদে পড়ল কিশোর? এ থেকে উদ্ধার পাবে কীভাবে?
|-
|আলাস্কা অভিযান
|
|
|আলাস্কার ইডিটারোড পিটসের বিখ্যাত ডগস্লেজ রেস দেখতে বরফে ঢাকা গ্লিটার টাউনে উড়ে এল কিশোর ও মুসা। ওরা শহরে ঢুকতে না ঢুকতেই শুরু হয়ে গেল বোমাবাজি। খুন করতে চায় ওদের কেউ। তেড়ে এল মানুষখেকো নেকড়ের দল। গোটা শহর হুমকির মুখে। আগুন জ্বলে ওঠার আগেই ঠেকাতে হবে খেপা উন্মাদকে। রুখে দাঁড়াল গোয়েন্দারা।
|-
|আমাজনের গহীনে
|Afternoon on the Amazon
|Mary Pope Osborne
|জাদুর ট্রী হাউজে চড়ে তিন গোয়েন্দা এবার আমাজানে। মরগ্যানের জাদুর মায়া কাটাতে একটি বিশেষ জিনিস খুঁজে বের করতে হবে। চারদিকে বিপদ। রাক্ষুসে পিরানহা, ভয়াল সাপ, ভয়ঙ্কর কুমির আর হিংস্র জাগুয়ারের কবল থেকে নিরাপদে ফিরে আসতে হবে। পারবে তো?
|-
| rowspan="3" |১১৮
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|তিন গোয়েন্দা ২১৪.১
|
|
|
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|তিন গোয়েন্দা ২১৮.১
|
|
|
|-
|চিঠির ফাঁদে
|
|
|
| rowspan="3" |১১৮/২
|বিভীষিকার প্রহর
|
|
|
|-
|আমাজনের ভয়ঙ্কর!
|
|
|
|-
|জিন্দা লাশ ভার্সেস তিন গোয়েন্দা
|
|
|
|
|
|বোমা ফাটল ফেইথফুল-এর ওয়্যারহাউজে । দোষী কে? পুলিশের কাছ থেকে পালাচ্ছে তরুণ আর্নি অ্যান্ডারসন । মুসার ধারণা সেই দোষী, কিন্তু কিশোরের ধারণা অন্যরকম । তদন্ত শুরু করল ওরা । বেচারা কিশোর-মুসা-রবিন ভেবেছিল কেঁচো খুঁড়ছে ওরা । কিন্তু খুঁড়তে গিয়ে একসময় বেরিয়ে এল ভয়ানক হিংস্র কালকেউটেরা, আর বেরিয়েই ফণা তুলে ছোবল মারল !
|-
|ফারাও রাণীর পিরামিডে
|Mummies in the Morning
|Mary Pope Osborne
|ম্যাজিক ট্রী হাউজ এবার তিন গোয়েন্দাকে নিয়ে গেল প্রাচীন মিশরে । ওখানে গিয়ে মৃত এক ফারাও রানীর সঙ্গে দেখা হলো ওদের । রানীর আত্মা মুক্তি পেতে তিন গোয়েন্দার সাহায্য চাইল । তারপর ?
|-
|বিপদে মুসা!
|
|
|আয়রন বিচে বেড়াতে এসে এসব কী করছে মুসা! একের পর এক বিপদে জড়াচ্ছে কেন? তা হলে কি আর আগের মত নেই ও? মাথা খারাপ হয়ে ওর? শেষে একেবারে মারতেই বসল যে!
|-
| rowspan="3" |১১৯/২
|Tonight on the Titanic
|Mary Pope Osborne
|জাদুর ট্রী হাউজে চড়ে কিশোর আর জিনা এবার টাইটানিকে! জাহাজটা ডুবতে বসেছে । নিজেদের প্রাণ সংশয়, এসময় অন্যান্য যাত্রীদের দিকে সাহায্যের হাত বাড়িয়ে দিল ওরা ।
তারপর?
|-
|ভুতুড়ে আয়না
|
|
|দুশো বছরের পুরানো একটা ড্রেসার কিনে আনলেন রবিনের বাবা । আনার পর থেকেই রহস্যময় কাণ্ড শুরু করল ড্রেসারে লাগানো আয়নাটা । কখনও কালো হয়ে যায়, কখনও ধোঁয়াটে । আয়নার ভিতর থেকে ভেসে আসে আটকা পড়া কারও চিৎকার! শোনা যায় কুকুরের অসহায় আর্তনাদ । রবিন, জিমি, ডোনাল্ড, সবাইকে ব্যতিব্যস্ত করে তুলল ওই আয়না । পরিস্থিতি আরও অসহায় করে তুলল রবিনের কাজিন নিনা ।
|-
|জঙ্গলে বিপদ!
|
|
|রাতের বেলা জঙ্গলে তাঁবু করল তিন গোয়েন্দা । কিন্তু ওরা কি জানত কোথায় এসেছে? উদয় হলো রহস্যময় ছায়ামূর্তি । প্রাণ নিয়ে টানাটানি পড়ে গেল তিন গোয়েন্দার!
|-
| rowspan="3" |১২০
|
|
|জাদুকরের টাইপ-রাইটার আর কলম কিনল রবিন । ওগুলো কেনা উচিত হয়নি ওর । যেচে বিপদ ডেকে আনল ও । তিন গোয়েন্দা, দানবের হাত থেকে এবার আর রক্ষা নেই তোমাদের ।
|-
|কঙ্কাল উধাও
|
|
|নার্সের অফিস থেকে চুরি গেল স্কুলের কঙ্কালটা । মেঝেতে পাওয়া গেল রহস্যময় একটি মাত্র বাঁ পায়ের ছাপ । প্রিন্সিপাল ঘোষণা কঙ্কালটা উদ্ধার করতে পারলে পুরস্কার দেবেন । কঙ্কাল উদ্ধারে কোমর বেঁধে নেমে পড়ল পুরো স্কুল । তিন গোয়েন্দাও বসে থাকল না ।
|-
|শাপমোচন
|
|
|
|
|
|নতুন স্কুলবিল্ডিঙে ক্লাস করছে তিন গোয়েন্দা । কিন্তু একের পর এক ক্ষতি করা বিল্ডিংটার । কে বা কারা করছে অপকর্মগুলো ? রবিনের ধারণা এসব ভূতের কান্ড । স্কুলটাকে রক্ষা করতে নামল তিন গোয়েন্দা ।
|-
|জ্যান্ত ভুত
|
|
|গ্রিনহিলসের বন্ধু রেমন্ডের সঙ্গে ক্যাম্প মুনলাইট-এ ঢুকেই ধাক্কা খেল রবিন । একদম নির্জন । তবে একটু পরেই একে একে হাজির হলো । রহস্যময় ওদের আচরণ । বিচিত্র ওদের চালচলন । ক্যাম্পের পরিচালক আংকেল গ্রেগ তো আরও রহস্যময় । কারা ওরা ? ধীরে ধীরে জটিল এক কর্মকান্ডে জড়িয়ে পড়ল ওরা । প্রাণ বাঁচানোই দায় ।
|-
|দেবতার শহরে
|Vacation Under The Volcano
|Mary Pope Osborne
|জাদুর ট্রী হাউসে চড়ে কিশোর আর জিনা এবার প্রাচীন পম্পেই শহরে । এখানে পৌছনোর খানিক পরেই বিস্ফোরিত হলো মাউন্ট ভিসুভিয়াস । প্রাণ নিয়ে টানাটানি পড়ে গেল ওদের । এসময় আলৌকিকভাবে সাহায্যের হাত বাড়াল - কে ?
|-
| rowspan="3" |১২১
|
|
|আমি যে স্কুলে পড়ি, তার অডিটোরিয়ামের বেযমেন্টে থাকত এক 'প্রেতাত্মা' । মিথ্যা নয়, সত্যিকারের 'প্রেতাত্মা' । যদি শুনতে চাও কিশোর আর আমার কথা, তো এসো বসে পড়ো দেরি না করে ।
|-
|ড্রাকুলার কফিন
|
|
|গ্রীনহিলস স্কুলের নতুন টিচার মিসেস হকিন্স উঠেছেন ভূতুড়ে এক বাড়িতে । ওটার বেযমেন্টে ঢোকানো হলো কালো এক কফিন ।
কী আছে ওটার ভেতর ? ড্রাকুলা নয়তো ?
রহস্যের গন্ধ পেল তিন গোয়েন্দা ।
|-
|খেলার আসর
|Hour of the Olympics
|Mary Pope Osborne
|ম্যাজিক ট্রী হাউসে চেপে কিশোর আর জিনা এবার প্রাচীন গ্রীসে । কিন্তু ওখানে গিয়ে জানতে পারল মেয়েরা স্কুলে যেতে পারে না, অভিনয় করতে পারে না, অলিম্পিকের আসরে যেতে পারে না । কিন্তু আইন ভেঙ্গে ছদ্মবেশে অলিম্পিকে ঠিকই হাজির হলো জিনা ।
এবং ধরাও পড়ে গেল । তারপর ?
|-
| rowspan="3" |১২১/২
|Viking Ships at Sunrise
|Mary Pope Osborne
|জাদুর ট্রী হাউসে চড়ে কিশোর আর জিনা এবার প্রাচীন আয়ারল্যান্ডের এক কুয়াশা দ্বীপে । জানা গেল, দ্বীপে প্রায়ই হানা দেয় ভাইকিং জলদস্যুরা । মানুষকে ধরে নিয়ে গিয়ে ক্রীতদাস বানায় । ওরা দ্বীপে রয়েছে এ সময় সাগরের বুক চিরে আসতে দেখা গেল জলদস্যুদের জাহাজ ।
তারপর...
|-
|ভূতুড়ে বনের রহস্য
|
|
|রহস্য সমাধানের জন্য গভীর বনের এক হান্টিং লজে চলল তিন গোয়েন্দা । জায়গাটা এতই দুর্গম, আকাশ পথে ছাড়া যাওয়ার রাস্তা নেই । লেকের পানিতে প্লেন নামতেই শুরু হলো আক্রমণ । মৃত্যুর হুমকি, প্রচণ্ড ঠাণ্ডা, বনের প্রতিকূলতা, গ্রিজলি ভালুক আর বিশাল মুস হরিণের সঙ্গে যুক্ত হলো রহস্যময় এক মোটরসাইকেলে চড়া ভূত...।
|-
|নেকলেস রহস্য
|
|
|বিখ্যাত রক স্টার ডেবি গিবসনের কনসার্ট দেখতে গেল তিন গোয়েন্দা । বিরতির সময় হঠাৎ হৈ-হল্লা । জানা গেল, গায়িকার হীরের নেকলেসটা ছিনতাই হয়ে গেছে । খবর শুনে কি হাত গুটিয়ে বসে থাকতে পারে তিন গোয়েন্দা ?
|-
| rowspan="3" |১২২
|
|
|গ্রীন হিলস স্কুলের নতুন সহকারী প্রিন্সিপাল কি জাদুকরী ? গ্র্যাজুয়েশন অনুষ্ঠানে সবাইকে পশু-পাখি বানিয়ে দেবেন না তো তিনি ? তার হলদে নেকলেসটা ওভাবে চেয়ে থাকে কেন তিন বন্ধুর দিকে ? এসব প্রশ্নের সমাধান জানতে তদন্ত শুরু করল তিন গোয়েন্দা ।
|-
|গুপ্তধন উদ্ধার
|
|
|রহস্যময় মেডেলের সূত্র ধরে রকি বিচ থেকে দক্ষিণ আমেরিকার দুর্গম পাহাড়ী অঞ্চলে ভয়ংকর কুলকুল ইনডিয়ানদের দেশে গিয়ে হাজির হলো তিন গোয়েন্দা । শত্রুর কাটামুন্ডু দিয়ে ঘরের দেয়াল সাজায় ওরা ।
গভীর রাতে বেজে উঠল ঢাক । ভূতল প্রাসাদের অন্ধকার রত্নকুঠুরিতে গোয়েন্দাদের কবর দিতে তৈরি হলো কুখ্যাত 'ল্যাডিনো' ডাকাত-দল ।
|-
|বাজ পাখির পালক
|
|
|জঙ্গলে একটা বাজ পাখির বাসা খুঁজে পেল মুসা । কিন্তু কিশোর আর রবিনকে দেখাতে নিয়ে গিয়ে সেখে বাসাটা ফাঁকা । পরে পায়ে ব্যান্ড লাগানো, ডানা ছাঁটা একটা ছানা আবিষ্কার করল ওরা । কোন স্বার্থান্ধ মানুষের কুটিল চক্রান্তের শিকার হয়েছে কি বাজ পরিবারটি ?
রহস্যের গন্ধ পেল তিন গোয়েন্দা ।
|-
| rowspan="3" |১২৩
|
|
|বেয়ার আইল্যান্ডে ঘটছে অদ্ভুত সব ঘটনা । গোটা দ্বীপে কে--কিংবা--কী যেন আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে । লোকজন উধাও হয়ে যাচ্ছে । এরপর কার পালা ?
|-
|কঙ্কাল শহর
|
|
|এক অন্ধ ভক্তের আমন্ত্রণে কঙ্কাল সৈকতে বেড়ালে গেল রবিন-মুসা-ফারিহা । জড়িয়ে গেল ওরা ভয়ঙ্কর প্রেতাত্মা রহস্যে । কে মানুষ আর কে ভূত, বোঝা দায় । তারপর ওরা মুখোমুখি হলো ভয়ঙ্কর এক সত্যের । বুঝে গেল, কবর যখন মরতেই হবে এবার ।
|-
|আবার রেসের ঘোড়া
|
|
|স্টারলাইট নামে এক রেসের ঘোড়া কিনেছে হিরু চাচা ও তার বন্ধু ফ্রেড । এ পর্যন্ত সব কটা রেসে জিতেছে ঘোড়াটা । কিন্তু সারাটোগা রেসে বিশ্রীভাবে হেরে গেল ওটা । ওর পিছনে কি কারও কালো হাত আছে ?
রহস্যের গন্ধ পেল তিন গোয়েন্দা ।
|-
| rowspan="3" |১২৪
|
|
|মামা পিরামিডে খুঁড়াখুড়ি করে কবরটা পেলেন । কবর উন্মোচনের আগে মিশরে পৌছে গেল মুসা । মামার কাছে শুনেছে ও, প্রাচীন একটা মন্ত্র পরপর পাঁচবার আওড়ালে মমি জীবন্ত হয়ে ওঠে । ঠাট্টার ছলে মন্ত্রটা পাঁচবার আওড়াল মুসা । ...তারপর কী হলো?
|-
|শেষ চিৎকার
|
|
|নিলাম থেকে কেনা প্রাচীন এক বাঁশি এলো কিশোরদের বাসায় । ডনকে দেয়া হলো ওটা । কিন্তু বাঁশিটা বাজালেই ঘটতে থাকে নানা ধরনের অঘটন । কী রহস্য এর পিছনে?
|-
|ভয়ের বাঁশি
|
|
|কবরটা বোধহয় ফারাও সম্রাট কুফুর । মামা আর মদিনার সঙ্গে পিরামিডে ঢুকল মুসা । ওরা জানত না, ওখানে আছে সন্ন্যাসিনী খালা আফাফের অভিশাপ । খেপে উঠল এক ভয়ঙ্কর শয়তান সাধক । জ্বলে উঠল পিরামিডের আলকাতরার পুকুর । এবং... তারপর...
|-
| rowspan="3" |১২৫
|
|
|সোনারগাঁয়ে আছে এক ঐতিহাসিক কুখ্যাত জমিদার বাড়ি। ওটা দেখতে গেল কিশোর ও দিপু। ফেঁসে গেল ওরা ভয়ঙ্কর জল্লাদের চক্রান্তে। ওদের অতীতে নিয়ে গিয়ে খুন করবে সে। পালাল ওরা, বারবার ফাঁকি দিল।
|-
|পিশাচীর হাসি
|
|
|আইসক্রিম কাউন্টারের নতুন মেয়ে কর্মচারীটিকে দেখে আঁতকে উঠল তিন গোয়েন্দা আর ডানা। ওর চেহারা মরার মত ফ্যাকাশে। ও কি মানুষ?
|-
|ভয়াল দ্বীপ
|
|
|টেন্ট সেভেনের ক্যাম্পাররা সৈকতে ঘুরে বেড়াচ্ছে এসময় এক বিস্ফোরণের শব্দ হলো। রহস্যময় বালি ছিটিয়ে সবাইকে ঘুম পাড়িয়ে দিচ্ছে ধোঁয়াটে উজ্জ্বল কি ওটা?
|-
| rowspan="3" |১২৬
|
|২০১২
|
|
|
|-
|মুন্ডুকাটা ভূত
|
|
|
|-
|গুহামানবের দেশে
|
|
|
|নিখোঁজ বিমান
| rowspan="3" |রকিব হাসান
|
|
|
|-
|শিকারী বাজপাখি
|
|
|
|-
|সময়-সুড়ঙ্গের রবিন
|
|
|
|
| rowspan="3" |২০১২
|
|
|
|জিন্দা লাশ
|টিপু কিবরিয়া
|টিপু কিবরিয়া রচিত জিন্দালাশ অবলম্বনে।
|-
|ড্রাগনরাজার দেশে
|
|
|
|Revolutionary War on Wednesday
|Mary Pope Osborne
|জাদুর ট্রী-হাউজে চড়ে কিশোর আর জিনা এবার যুদ্ধক্ষেত্রে। মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের স্বাধীনতা যুদ্ধ দেখল স্বচক্ষে।
|-
|ভুতুড়ে জাহাজ
|
|
|ছুটিতে গ্রামে মুসার চাচাতো ভাইয়ের বাড়িতে গেল তিন গোয়েন্দা, জিনা ও রেমন। এত সুন্দর জায়গায় এসে ভুলে গেল বিপদের কথা। শুনে ফেলল ডাকাতের পরিকল্পনা! ওদের দেখেও ফেলল তারা! কাজেই মরে ভূত হয়ে গেল ওরা।
|-
|লোভী শয়তান
|
|
|স্কুলের ছুটিতে স্যানফ্রান্সিসকো শহরে মার্টিন ভাইয়ের কাছে বেড়াতে গেল তিন গোয়েন্দা। কোথায় হারিয়ে যায় কঙ্কাল ও চামড়া? মানুষও কি এভাবে উধাও হয়?
|-
| rowspan="3" |১২৯
|মমির হুংকার
|
|
|
|-
|মত্স্যকুমারী
|
|
|
|-
|টাইরনের দানো
|
|
|
| rowspan="3" |১২৯/২
|ডেথসিটির দানব
|
|
|
|Monster Blood
|R. L. Stine
|
|-
|ভুতুড়ে রক্ত-২
|Monster Blood II
|R. L. Stine
|
|-
| rowspan="3" |১৩০
|রত্নগুহা
| rowspan="3" |রকিব হাসান
|
|
|
|-
|অশুভ আত্না
|
|
|
|-
|ভয়ের জগত
|
|
|
|ভুতের শহর
| rowspan="3" |শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|-
|ভিনগ্রহের ভ্যাম্পায়ার
|
|
|
|মেলায় ঝামেলা
|তিন গোয়েন্দা ২২১
|
|
|
|ভয়-ভুতুড়ে
| rowspan="3" |শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|-
|আসল-নকল
|
|
|
|-
|মরুদস্যু
|
|
|
|কুচক্রী
| rowspan="3" |রকিব হাসান
|
|
|
|-
|জলার দানব
|
|
|
|-
|মানসা মুসার গুপ্তধন
|
|
|
| rowspan="3" |১৩২
|আমি ভূত
|
|
|
|-
|মহাকাশের ভয়ঙ্কর
|
|
|
|শামসুদ্দীন নওয়াব
|তিন গোয়েন্দা ২২২
|
|
|
| rowspan="3" |১৩৩
|অদেখা ভুবনের সে
|
|
|
|-
|প্যালেস থিয়েটার-রহস্য
|
|
|
|-
|সময়ের চাবি-রহস্য
|
|
|
| rowspan="3" |১৩৪
|মমি ভয়ঙ্কর
|
|
|
|-
|রাজা আর্থারের গুপ্তধন
|
|
|
|-
|ভৌতিক ছবি
|
|
|
| rowspan="3" |১৩৫
|সূত্রের সন্ধানে
|
|
|
|-
|অমঙ্গলের পূর্বাভাস
|
|
|
|-
|ভূতুড়ে পুতুল
|
|
|
|নেকড়েমানুষ
| rowspan="3" |শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|-
|মারণাস্ত্র
|
|
|
|-
|ভ্যাম্পায়ারের পদধ্বনি
|
|
|
|নিঝুম রাতের আতঙ্ক
| rowspan="3" |শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|-
|খলিফার দরবারে
|
|
|
|-
|অতল আতঙ্ক
|
|
|
|দেবদূত
| rowspan="3" |শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|-
|হারানো গাঁয়ের রহস্য
|
|
|
|-
|জিন্দালাশের আস্তানা
|
|
|
|সার্কাস- রহস্য
| rowspan="3" |শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|-
|ভুতুড়ে জাহাজের রহস্য
|
|
|
|-
|আশ্চরজন্তু
|
|
|
|স্বর্গে বিপদ
| rowspan="3" |শামসুদ্দীন নওয়াব
|
|
|
|-
|অপারেশন ডেমন
|
|
|
|-
|রহস্য যখন জটিল
|
|
|
| rowspan="3" |১৪০
|গ্রেমলিন
|
|
|
|-
|ঘড়ি রহস্য
|
|
|
|-
|মেঘ ড্রাগন
|
|
|
| rowspan="3" |১৪০/২
|ক্যামেলটের জাদুকর
|
|
|
|-
|কয়েন রহস্য
|
|
|
|-
|মৃত্যুকূপ
|
|
|
| rowspan="3" |১৪১
|দ্বীপের রাজা
|
|
|
|-
|গুপ্তনগরী
|
|
|
|-
|ম্যাক লরেন্সের উইল
|
|
|
| rowspan="3" |১৪১/২
|ডাইনোসরের হাড়
|
|
|
|-
|কার্নিভাল
|
|
|
|-
|জলদানবী
|
|
|
| rowspan="3" |১৪২
|রেডিও স্টেশন
|
|
|
|-
|কিশোর দ্য গ্রেট
|
|
|
|-
|হাঙুরে পিশাচ!
|
|
|
|
|
|তিন গোয়েন্দার বন্ধু ম্যাক্স ও’কোনর। বড়দিনে দাদুর কাছ থেকে একটা লটারি টিকিট উপহার পেল ও। সৌভাগ্যক্রমে, লটারিতে সাত মিলিয়ন ডলার পুরস্কার জিতল ছেলেটি। কিন্তু দুর্ভাগ্যক্রমে, চুরি গেল লটারি টিকিটটা। ফলে, বন্ধুর সাহায্যের ডাকে সাড়া দিয়ে চোরের খোঁজে মাঠে নামতে হলো তিন গোয়েন্দাকে।
|-
|ইউনিকর্নের খোঁজে
|Blizzard of the Blue Moon
|Mary Pope Osborne
|জাদুকর মার্লিন কিশোর আর জিনাকে নিউ ইয়র্কে পাঠিয়েছে মিশন দিয়ে। একটা ইউনিকর্নকে উদ্ধার করতে হবে। প্রবল তুষারঝড়ের মধ্যে কাজে নামল ওরা। জানে না, কালো জাদুকরও ইউনিকর্নটার দখল পেতে তার দল পাঠিয়েছে। এক পর্যায়ে মুখোমুখি হলো দু’পক্ষ।
|-
|জলদস্যুর নকশা
|
|
|সাগরসৈকতে প্রাচীন এক বোতল খুঁজে পেল ডন। বোতলটার ভিতরে এক টুকরো কাগজে কুখ্যাত এক জলদস্যুর গুপ্তধনের নকশার চারটি টুকরো একটি। টুকরো চারটি জোড়া দিলেই মিলবে বিপুল গুপ্তধনের হদিস। নকশার টুকরোটা হাতাতে লোক লেগে গেল তিন গোয়েন্দা আর ডনের পিছনে।
|-
| rowspan="3" |১৪৩
|
|
|তিন গোয়েন্দার নতুন পিয়ানো শিক্ষক ল্যান্স আসলে কে? তাঁর বাড়িতে পাওয়া ম্যাপে যুদ্ধের পরিকল্পনা কেন? তিনি কি আসলে কিংবদন্তীর সেই নাইট ল্যান্সেলট? গ্রীন হিলস দখল করাই কি তাঁর উদ্দেশ্য? তদন্তে নামল তিন গোয়েন্দা।
|-
|সর্পমানব
|
|
|সামার ক্যাম্পে গেছে তিন গোয়েন্দা। জানতে পারল লেকের তলায় বাস করে প্রকাণ্ড এক সাপ—মানুষখেকো। জোরাল, অদ্ভুত হিসহিসানির শব্দটা কীসের? কোথায় হারিয়ে গেল নতুন বন্ধু রডি? অগত্যা তদন্তে নামতে বাধ্য হলো ছেলেরা।
|-
|মায়াবাঘ
|
|
|বিশালগড়ে নবাব শের খানের দুর্গে বেড়াতে গেছে কিশোর। নবাবপুত্র নাজিমের সঙ্গে বন্ধুত্ব গড়ে উঠল ওর। কিন্তু প্রাচীন তাবিজটা খুঁজে পেতেই শুরু হলো বাঘের উৎপাত। বাঘ নাকি মায়াবাঘ? এর সঙ্গে কি কিশোরের নাজিম ভাইয়ের কোন সম্পর্ক আছে? রয়েল বেঙ্গল রহস্যে জড়িয়ে গেল কিশোর পাশা।
|-
| rowspan="5" |১৪৪
|ভন-ভন মাছি!
|
|
|
|-
|নিষিদ্ধ নগরী
|
|
|
|-
|রেলগাড়িতে খুন
|
|
|
|-
|মূর্তি-রহস্য
|
|
|
|-
|কুয়াশা-দানব
|
|
|
|
|
|গ্রীন হিলস স্কুলের ছাত্র-ছাত্রী, শিক্ষক-শিক্ষিকারা একে-একে প্রেমে পড়ে যাচ্ছে। এর পেছনে কি নতুন রাঁধুনী মিসেস ব্লুমসবেরির হাত আছে? রবিনকে নিয়ে টানাটানি করছে ডানা আর শ্যারন।
|-
|দুঃস্বপ্নের প্রহর
|
|
|প্লাস্টিকের সবুজ ডিমটার ভিতরে কি আছে? কালো পোশাকধারী অচেনা দুটো লোক কেন মরিয়ার মত খুঁজছে ওটা? কেন বলছে ওরা জিনিসটা সাঙ্ঘাতিক বিপজ্জনক।
|-
|আতঙ্কের জগৎ
|
|
|দক্ষিন প্রশান্ত মহাসাগরে দানব স্কুইডের সন্ধানে ডুব দিয়েছে হিরু চাচা আর মুসা। কিন্তু ওদেরকে কিসে যেন টেনে নিয়ে গেল সাগরের গভীরে। ওরা উঠছে না দেখে এবার ওদের খোঁজে ডুব দিল কিশোর।
|-
| rowspan="3" |১৪৬
|
|
|ট্রাক মিটে অংশ নিতে ক্যাম্প লোন উলফে গেল তিন গোয়েন্দা আর ডানা। জানতে পারল সুন্দরী, রহস্যময়ী কোচ ওয়াটারপুল ওদেরকে ট্রেনিং দেবেন। ডানার ধারণা মহিলা মৎস্যকন্যা এবং গভীর ষড়যন্ত্র করছেন তিনি ক্যাম্প ডিরেক্টর মি. উলফারের বিরুদ্ধে।
|-
|মৃত্যুমন্দির
|
|
|কিশোর পাশার মনে কটা প্রশ্ন জেগেছে: অমূল্য সোনার আংটিটা ওর বন্ধু হানি পেল কোথায়? এক জার্মান প্রত্নতাত্ত্বিক কেন বলছেন ফেরাউনের সমাধিমন্দিরে কিছু নেই? রাজাদের ট্র্যাপদোরটার নিচে কি আছে?
|-
|দমকলবাড়ি-রহস্য
|
|
|শহরের ঐতিহ্যবাহী, প্রাচীন দমকলবাড়িটি ভেঙে ফেলার সিদ্ধান্ত নিয়েছে টাউন কাউন্সিল। প্রতিবাদ করল তিন গোয়েন্দা। দমকলবাড়ির ঐতিহাসিক ট্রফিগুলো চুরি হয়ে গেল।
|}
 
৪৬৭টি

সম্পাদনা