"আইয়ুব খান" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
১৯৬৫ সালে রাষ্ট্রপতি নির্বাচনে আইয়ুবের প্রতিদ্বন্দ্বী হিসেবে [[ফাতেমা জিন্নাহ]] দাঁড়িয়েছিলেন, যদিও আইয়ুব খান পুনরায় রাষ্ট্রপতি নির্বাচিত হন। ১৯৬৭ সালে পশ্চিম পাকিস্তানে জুলফিকার আলী ভুট্টোর নেতৃত্বে এবং পূর্ব পাকিস্তানে শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে আইয়ুব খানের বিরুদ্ধে অনেক বিক্ষোভ এবং মিছিল হয় এবং ১৯৬৯ সালে পূর্ব পাকিস্তানে এক বড় ধরণের আন্দোলন হয়েছিলো। তার নির্দেশে বহু মানুষকে গ্রেফতারও করা হয়েছিলো। ১৯৭৪ সালে আইয়ুব দীর্ঘ রোগ ভোগের পর দেহত্যাগ করেন।
 
ঐতিহাসিকভাবে আইয়ুব খানের শাসনামল অখণ্ড পাকিস্তানের শেষ এবং সবচেয়ে সফল দশক হিসেবে পরিগণিত হয়; তার শাসনামলে পাকিস্তানে নতুন শিল্প কল-কারখানা, নতুন সড়ক, বিদ্যুৎ উৎপাদন কেন্দ্র, যানবাহনসহ অনেক প্রাথমিক এবং উচ্চ বিদ্যালয় গড়ে তোলা হয়েছিলো। পূর্ব পাকিস্তানের আহসানুল্লাহ ইঞ্জিনিয়ারিং কলেজকে আইয়ুব সরকার 'ইস্ট পাকিস্তান ইউনিভার্সিটি অব ইঞ্জিনিয়ারিং এ্যান্ড কলেজটেকনোলজি'এ নতুন নামকরণ করে যেটি পরে ১৯৭২ সালে 'বাংলাদেশ ইউনিভার্সিটি অব ইঞ্জিনিয়ারিং এ্যান্ড কলেজটেকনোলজি' বা সংক্ষেপে বুয়েট নামে পরিবর্তিত হয়।<ref name="Story of Pakistan, Part-3">{{cite web|title=Martial Law Under Field Marshal Ayub Khan [1958–62]|url=http://www.storyofpakistan.com/articletext.asp?artid=A065|publisher=Story of Pakistan, Part-3}}, Retrieved 25 August 2015</ref><ref>[http://www.dawn.com/news/1293604/what-they-never-tell-us-about-ayub-khans-regime Dawn daily, Aug 2015 article and review]</ref>
 
== তথ্যসূত্র ==
২,৫৬০টি

সম্পাদনা