"রাজবাড়ী" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
}}
'''রাজবাড়ী''' শহর বাংলাদেশের [[ঢাকা বিভাগ|ঢাকা বিভাগের]] অন্তর্গত একটি জেলা শহর। [[পদ্মা নদী|পদ্মানদীর]] তীরে অবস্থিত এই শহর ঢাকা বিভাগের ক্ষুদ্রতম জেলা শহর। [[রাজবাড়ী জেলা|রাজবাড়ী]] শহরের জনসংখ্যা প্রায় ৬০,০০০। এই শহরটি [[রেলগাড়ি|রেলে]]র শহর  নামেও পরিচিত। এখানে দেশের সেরা [[মিষ্টি|মিষ্টিজাত]] দ্রব্য উৎপন্ন হয়।বাংলাদেশের ঢাকা বিভাগের অন্তর্গত ক্ষুদ্রতম জেলাশহর হলো রাজবাড়ী। রাজবাড়ী একটি রেলকেন্দ্রিক শহর। ১৯২৩ সাল থেকে রাজবাড়ী পৌরসভার কার‍্যক্রম শুরু হয়। আর ১৯৮৪ সালে রাজবাড়ী জেলাশহরের মর‍্যাদালাভ করে। বর্তমানে এটি একটি প্রথম শ্রেণির পৌরসভা। শহরের আয়তন প্রায় ১২ বর্গকিলোমিটার এবং জনসংখ্যা প্রায় ৬০০০০ জন।
রেলপথ রাজবাড়ী শহরকে দুটি ভাগে বিভক্ত করেছে। উত্তর রাজবাড়ী আর দক্ষিণ রাজবাড়ী। শহরের এই দুটি প্রধান ভাগকে সংযোগ করেছে রেলগেট। এটি খুব ব্যস্ত স্থান। উত্তর রাজবাড়ীর অংশবিশেষকেই ঐতিহ্যগতভাবে সেন্ট্রাল রাজবাড়ী বলা যেতে পারে। বিশেষত স্টেশন রোড, কলেজ রোড, মারোয়াড়ী পট্টি, বড়বাজার ইত্যাদি হলো সেন্ট্রাল রাজবাড়ীর অংশ। অন্যদিকে দক্ষিণ রাজবাড়ী একটু নতুনভাবে গড়ে উঠেছে। রেলগেট থেকে বড়পুল পর‍্যন্ত দ্বিমুখী রাজপথের সৌন্দর্য যে কাউকে মুগ্ধ করবে। শহরের নামকরা হাইস্কুলগুলো এই অংশে অবস্থিত। তাছাড়া ফার্স্ট ফুড শপ, ইলেক্ট্রনিক শোরুম, হসপিটাল, ক্লিনিক ও প্রশাসনিক দপ্তরসমূহ এ অংশে অবস্থিত। ছোট্ট এ শহরটির মানুষজন সহজ সরল এবং বন্ধুত্বসুলভ। কয়েকটি নাগরিক সমস্যা ব্যতীত রাজবাড়ী একটি শান্তির শহর। <ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|ইউআরএল=http://www.rajbari.gov.bd/site/page/37640534-2013-11e7-8f57-286ed488c766/%E0%A6%9C%E0%A7%87%E0%A6%B2%E0%A6%BE%E0%A6%B0%20%E0%A6%AA%E0%A6%9F%E0%A6%AD%E0%A7%82%E0%A6%AE%E0%A6%BF|শিরোনাম=|শেষাংশ=|প্রথমাংশ=|তারিখ=|ওয়েবসাইট=|সংগ্রহের-তারিখ=}}</ref>
ছোট্ট এ শহরটির মানুষজন সহজ সরল এবং বন্ধুত্বসুলভ। কয়েকটি নাগরিক সমস্যা ব্যতীত রাজবাড়ী একটি শান্তির শহর।
।</ref>{{cite web |url=http://www.rajbari.gov.bd/node/447208
 
== নামকরণের ইতিহাস ==
[[চিত্র:রাজবাড়ী রেলওয়ে স্টেশন .jpg|thumb|রাজবাড়ী রেলওয়ে ওভার ব্রিজ]]
 
২। গোদার বাজার ([[পদ্মা নদী|পদ্মানদী]])
 
৩। রাজবাড়ী সরকারি উচ্চ বিদ্যালয় লাল ভবন
 
=== ১। ঝালাইপট্টি ===
ঝালাইপট্টি অঞ্চলে প্রধানত শহরের বেশিরভাগ স্বর্ণ, লৌহ প্রভৃতির দোকানপাট অবস্থিত।
 
=== ২। ঘোষপট্টি ===
 
=== ৮। খলিফাপট্টি ===
খলিফাপট্টি যা কিনা 'সমরদা লেন' নামেও পরিচিত; রাজবাড়ী স্টেশন রোডের একটি গলি। এখানে আগে শহরের বেশিরভাগ টেইলার্স‌ অবস্থিত ছিল। এখানে অবস্থিত একটি উল্লেখযোগ্য সংস্থা হলো 'আঞ্জুমান-ই-কাদেরিয়া'। এই সংস্থার নিয়ন্ত্রণে প্রতিবছর রাজবাড়ী রেল স্টেশন থেকে [[ভারত|ভারতের]] [[পশ্চিমবঙ্গ]] রাজ্যের [[মেদিনীপুর|মেদিনীপুরের]] উদ্দেশ্যে ওরশ যাত্রীবাহী ট্রেন ছেড়ে যায়। <ref>{{সংবাদ উদ্ধৃতি|ইউআরএল=https://www.prothomalo.com/international/article/1081193|শিরোনাম=রাজবাড়ী থেকে ভারতের মেদিনীপুরে যাচ্ছে বিশেষ ট্রেন|কর্ম=প্রথম আলো|সংগ্রহের-তারিখ=2018-09-28|ভাষা=bn}}</ref>
 
__INDEX__
== মুক্তিযুদ্ধে রাজবাড়ী ==
১৮ই১৮ ডিসেম্বর ঐতিহাসিক রাজবাড়ী মুক্ত দিবস। রাজবাড়ীতে পাকিস্থানীদেরপাকিস্তানিদের দোসর অবাঙ্গালীঅবাঙালি বিহারীরাবিহারিরা ১৯৭১ সালের ৬ই ডিসেম্বরের পর থেকে অতিমাত্রায় তৎপর হয়ে ওঠে। তারা তখনও বুঝতে পারেনি পতন অনিবার্য। তারা সমস্ত শহর দখলে রাখে। ৯ই ডিসেম্বর শহরের লক্ষীকোল এলাকায় বিহারীদের[[বিহারি জাতি|বিহারিদের]] সাথে মুক্তিযোদ্ধাদের সংঘর্ষ হয়। বিহারীদেরবিহারিদের গুলিতে রফিক, শফিক ও সাদিক শহীদ হন। বিহারীরাবিহারিরা ১৩ই১৩ ডিসেম্বর শহরের বিনোদপুর বিদ্যুৎ সরবরাহের প্রহরীকে হত্যা করে। ১৬ই১৬ ডিসেম্বর প্রায় সারা দেশে পাক বাহিনী আতœসমর্পনআত্মসমর্পণ করলেও রাজবাড়ী শহর তখনো অবাঙ্গালীঅবাঙালি বিহারীদেরবিহারিদের আয়ত্তে থাকে। তারা ঘোষনা দেয় সারাদেশ বাংলাদেশ হলেও রাজবাড়ী পাকিস্তান হয়ে থাকবে। এ সময় জেলার সকল অঞ্চল থেকে মুক্তি বাহিনীর বিভিন্ন দল রাজবাড়ীতে যুদ্ধের উদ্দেশ্যে সংগঠিত হতে থাকে। ইতোমধ্যে শহিদুন্নবী আলম, ইলিয়াস মিয়া, সিরাজ আহম্মেদ, আবুল হাসেম বাকাউল, কামরুল হাসান লালী, রফিকুল ইসলাম তাদের কমান্ডে মুক্তিযোদ্ধারা চারিদিকে ঘিরে রাখে। এদের সাথে জেলার পাংশা থেকে জিল্লুল হাকিম, আব্দুল মতিন, নাসিরুল হক সাবু, আব্দুল মালেক, সাচ্চু, আব্দুর রব তাদের দল নিয়ে যুদ্ধে যোগদান করেন। বিহারিরা শহরের রেল লাইনের উত্তর পাশে অবস্থান নেয়। তারা রেলওয়ে লোকোসেড থেকে ড্রাই আইস ফ্যক্টরী পর্যন্ত রেলের মালগাড়ী দিয়ে ব্যূহ তৈরী করে। মুক্তিবাহিনী শহরের দক্ষিণ দিক থেকে গুলি চালাতে থাকে। তবে মালগাড়ী থাকার কারণে কোন ফল হয় না। সে সময় গোলাম মোস্তফা ও আনিসুর রহমান আবি মাগুরার শ্রীপুর থেকে মর্টার আনে। ওই মর্টার দিয়ে গুলি ছুড়লে বিহারীরা পিছু হটে। পরাজয় অনিবার্য মনে করে বিহারীরা আত্মসমর্পণ করার উদ্দেশ্যে ফরিদপুর অভিমুখে যেতে থাকে। তবে তাদের সে উদ্দেশ্য সফল হয়নি। সে সময় মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে কয়েক হাজার বিহারী নিহত হয়। ওই যুদ্ধে দিয়ানত আলী শহীদ হন এবং ইলিয়াস হোসেন হন গুরুতর আহত। যে কারনে ১৮ই ডিসেম্বর শত্রুমুক্ত হয় রাজবাড়ী।
এ সময় জেলার সকল অঞ্চল থেকে মুক্তি বাহিনীর বিভিন্ন দল রাজবাড়ীতে যুদ্ধের উদ্দেশ্যে সংগঠিত হতে থাকে। ইতোমধ্যে শহিদুন্নবী আলম, ইলিয়াস মিয়া, সিরাজ আহম্মেদ, আবুল হাসেম বাকাউল, কামরুল হাসান লালী, রফিকুল ইসলাম তাদের কমান্ডে মুক্তিযোদ্ধারা চারিদিকে ঘিরে রাখে। এদের সাথে জেলার পাংশা থেকে জিল্লুল হাকিম, আব্দুল মতিন, নাসিরুল হক সাবু, আব্দুল মালেক, সাচ্চু, আব্দুর রব তাদের দল নিয়ে যুদ্ধে যোগদান করেন।
অবাঙ্গালী বিহারীরা শহরের রেল লাইনের উত্তর পাশে অবস্থান নেয়। তারা রেলওয়ে লোকোসেড থেকে ড্রাই আইস ফ্যক্টরী পর্যন্ত রেলের মালগাড়ী দিয়ে ব্যূহ তৈরী করে। মুক্তিবাহিনী শহরের দক্ষিণ দিক থেকে গুলি চালাতে থাকে। তবে মালগাড়ী থাকার কারণে কোন ফল হয় না। সে সময় গোলাম মোস্তফা ও আনিসুর রহমান আবি মাগুরার শ্রীপুর থেকে মর্টার আনে। ওই মর্টার দিয়ে গুলি ছুড়লে বিহারীরা পিছু হটে। পরাজয় অনিবার্য মনে করে বিহারীরা আতœসমর্পন করার উদ্দেশ্যে ফরিদপুর অভিমুখে যেতে থাকে। তবে তাদের সে উদ্দেশ্য সফল হয়নি। সে সময় মুক্তিযোদ্ধাদের হাতে কয়েক হাজার বিহারী নিহত হয়। ওই যুদ্ধে দিয়ানত আলী শহীদ হন এবং ইলিয়াস হোসেন হন গুরুতর আহত। যে কারনে ১৮ই ডিসেম্বর শত্রুমুক্ত হয় রাজবাড়ী।
রাজবাড়ী মুক্ত দিবস উপলক্ষে জেলা প্রশাসনের উদ্যোগে আজ ১৮ই ডিসেম্বর সন্ধ্যা সাড়ে ৫টায় বীর মুক্তিযোদ্ধা শহীদ খুশি রেলওয়ে ময়দানে আলোচনা সভা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান অনুষ্ঠিত হবে।
৫টি

সম্পাদনা