"জাতিসংঘ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
[[দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ|দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের]] শেষে বিজয়ী মিত্রশক্তি পরবর্তীকালে যাতে যুদ্ধ ও সংঘাত প্রতিরোধ করা যায়, এই উদ্দেশ্যে জাতিসংঘ বা রাষ্ট্রসঙ্ঘ প্রতিষ্ঠা করতে উদ্যোগী হয়। তখনকার বিশ্ব রাজনীতির পরিস্থিতি জাতিসংঘের বা রাষ্ট্রসঙ্ঘের সাংগঠনিক কাঠামোতে এখনও প্রতিফলিত হচ্ছে। জাতিসংঘ বা রাষ্ট্রসঙ্ঘের নিরাপত্তা পরিষদের ৫টি স্থায়ী সদস্য (যাদের [[ভেটো]] প্রদানের ক্ষমতা আছে) [[মার্কিন যুক্তরাষ্ট্র]], [[ফ্রান্স]], [[যুক্তরাজ্য]], [[রাশিয়া]] ও [[গণচীন]] হলো দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধের বিজয়ী দেশ।{{citation needed}}
 
অক্টোবর, ২০১৬ সালের হিসাব অনুযায়ী জাতিসংঘ বা রাষ্ট্রসঙ্ঘের সদস্য রাষ্ট্রের সংখ্যা ১৯৩ সদস্য।<ref>[http://www.un.org/depts/dhl/unms/whatisms.shtml "What are Member States?". United Nations.]</ref> এর [[জাতিসংঘ সদর দপ্তর|সদর দপ্তর]] যুক্তরাষ্ট্রের [[নিউ ইয়র্ক]] শহরে অবস্থিত। সাংগঠনিকভাবে জাতিসংঘ বা রাষ্ট্রসঙ্ঘের প্রধান অঙ্গ সংস্থাগুলো হলো - [[জাতিসংঘ সাধারণ পরিষদ|সাধারণ পরিষদ]], [[জাতিসংঘ নিরাপত্তা পরিষদ|নিরাপত্তা পরিষদ]], [[জাতিসংঘ অর্থনৈতিক ও সামাজিক পরিষদ|অর্থনৈতিক ও সামাজিক পরিষদ]], [[জাতিসংঘ সচিবালয়|সচিবালয়]], ট্রাস্টিশীপ কাউন্সিল এবং [[আন্তর্জাতিক ন্যায়বিচার আদালত|আন্তর্জাতিক আদালত]]। এছাড়াও রয়েছে [[বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা]], [[ইউনিসেফ]] ইত্যাদি। জাতিসংঘ বা রাষ্ট্রসঙ্ঘের প্রধান নির্বাহী হলেন এর মহাসচিব। ২০১৭ সালের জানুয়ারি ১ তারিখ থেকে মহাসচিব পদে রয়েছেন [[পর্তুগাল |পর্তুগালের ]] নাগরিক[[অ্যান্টোনিও গুতারেস||রাজনীতিবিদ ও জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্টোনিও ম্যানুয়েল দে অলিভেইরা গুতারেস]]।
পর্তুগিজ রাজনীতিবিদ ও জাতিসংঘ মহাসচিবর্তুগিজ রাজনীতিবিদ ও জাতিসংঘ মহাসচিব অ্যান্টোনিও ম্যানুয়েল দে অলিভেইরা গুতারেস]]।
 
== সদস্যরাষ্ট্র ==
১,২১০টি

সম্পাদনা