"অতীন্দ্রিয় উপলব্ধি" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বানান সংশোধন
(প্রয়োজন নেই (আফতাব))
(বানান সংশোধন)
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
[[চিত্র:Cartas Zener.svg|thumb|জেনার কার্ড, বিংশ শতাব্দীর প্রথম দিকে অতিইন্দ্রিয় উপলব্ধি সংক্রান্ত পরীক্ষামূলক গবেষণায় ব্যবহৃত বিশেষ কার্ড।]]
'''অতীন্দ্রিয় উপলব্ধি''' বলতে বোঝায় মনের বিশেষ ক্ষমতার মাধ্যমে তথ্য সংগ্রহ। এক্ষেত্রে স্বভাবিকভাবে শারীরিক কোন উপায়ে তথ্য লাভ করা হয় না। পরিভাষাটি সর্বপ্রথম ব্যবহার করেন স্যরস্যার [[রিচার্ড বার্টন]], [[ডিউক ইউনিভার্সিটি|ডিউক ইউনিভার্সিটির]] [[মনোবিজ্ঞানী]] [[জে. বি. রাইন]] বিভিন্ন [[আধ্যাত্মিক]] ক্ষমতাকে ব্যাখ্যা করার জন্য অতিইন্দ্রিয় উপলব্ধিকে ব্যবহার করেন। অতিইন্দিয় উপলব্ধিকে অনেক সময় [[ষষ্ঠ ইন্দ্রিয়]] নামেও অভিহিত করা হয়। এই পরিভাষাটি সাধারণ উপায় ব্যতিরেকে বিশেষ উপায়ে তথ্য লাভকে নির্দেশ করে। যেমন- মনের দ্বারা অতীতকালের তথ্য লাভ।
 
[[প্যারাসাইকোলজি]] হল অতিন্দ্রিয় সংক্রান্ত বৈজ্ঞানিক বিদ্যা।<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|title=Parapsychological Association Homepage|url=http://www.parapsych.org/index.html|accessdate=2010-09-10}}</ref> বিজ্ঞানীরা সাধারণত অতিইন্দ্রিয় উপলব্ধিকে অগ্রাহ্য করেন, কারণ এক্ষেত্রে কোন সুনির্দিষ্ট সাক্ষ্য অনুপস্থিত থাকে। এছাড়া পরীক্ষামূলক পদ্ধতি না থাকায় এ পদ্ধতির কোন সুস্পষ্ট নির্ভরযোগ্যতা না থাকার কারণে বিজ্ঞানীরা একে পুরোপুরি গ্রহণ করেননি।<ref name=Gracely>{{ওয়েব উদ্ধৃতি |last=Gracely, Ph.D. |first=Ed J. |authorlink= |title=Why Extraordinary Claims Demand Extraordinary Proof |work=PhACT |year=1998 |url=http://www.quackwatch.org/01QuackeryRelatedTopics/extraproof.html
বেনামী ব্যবহারকারী