"তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

→‎শীর্ষ: বানান সংশোধন
(103.220.205.10-এর সম্পাদিত সংস্করণ হতে Debjit Mandal-এর সম্পাদিত সর্বশেষ সংস্করণে ফেরত)
ট্যাগ: পুনর্বহাল
(→‎শীর্ষ: বানান সংশোধন)
{{তথ্যছক লেখক
| নাম = তারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়
| চিত্র =BandyopadhyayTarashankarTarashankar_Bandopadhyay.jpgpng
| স্থানীয়_নাম =
| জন্ম_তারিখ = {{জন্ম তারিখ|১৮৯৮|০৭|২৪}}
| মৃত্যু_তারিখ = {{Death date|১৯৭১|০৯|১৪}}
| মৃত্যু_স্থান = [[কলকাতা]], [[পশ্চিমবঙ্গ]], [[ভারত]]
| পেশা = [[উপন্যাস|ঔপন্যাসিক]], [[ছোটোগল্পছোটগল্প|ছোটোগল্পকারছোটগল্পকার]]
| বাসস্থান =
| জাতীয়তা =
[[চিত্র:তারাশংকর বন্দ্যোপাধ্যায়ের পৈত্রিক কাছারী.jpg|থাম্ব|তারাশংকর বন্দ্যোপাধ্যায়ের পৈত্রিক কাছারী]]
 
তারাশঙ্কর লাভপুরের যাদবলাল হাই স্কুল থেকে ১৯১৬সালে১৯১৬ সালে এন্ট্রান্স (প্রবেশিকা) পরীক্ষায় প্রথম বিভাগে উত্তীর্ণ হয়ে প্রথমে সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজে এবং পরে সাউথ সুবার্বন কলেজে (এখনকার আশুতোষ কলেজ) ভর্তি হন। তিনি [[সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজ, কলকাতা|সেন্ট জেভিয়ার্স কলেজকলেজে]] ইন্টারমিডিয়েট পড়ার সময় অসহযোগ আন্দোলনে যোগ দেন। স্বাস্থ্যভঙ্গ এবং রাজনৈতিক কার্যকলাপের কারণে তাঁর পক্ষে বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঠক্রম সম্পূর্ণ করা সম্ভব হয়নি।
 
ভারতীয় স্বাধীনতা আন্দোলনের সাথে সক্রিয়ভাবে যুক্ত থাকার কারণে ১৯৩০ খ্রিস্টাব্দে গ্রেপ্তার হলেও পরে মুক্তি পেয়ে যান। এরপর নিজেকে সাহিত্যে নিয়োজিত করেন। ১৯৩২ সালে তিনি প্রথমবার শান্তিনিকেতনে [[রবীন্দ্রনাথ ঠাকুর|রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরেঠাকুরের]]<nowiki/>র সাথে দেখা করেন। এইএকই সালেইবছরে তাঁরতার প্রথম উপন্যাস "চৈতালী ঘূর্ণি" প্রকাশ পায়।
 
 
তারাশঙ্কর ১৯৪০ খ্রিস্টাব্দে বাগবাজারে একটি বাড়ি ভাড়া করে নিজের পরিবারকে কলকাতায় নিয়ে আসেন ও ১৯৪১-এ তিনি [[বরাহনগর|বরাহনগরে]] চলে যান। তারাশঙ্কর ১৯৪২-এর বীরভূম জেলা সাহিত্য সম্মেলনের সভাপতিত্ব করেন এবং ফ্যাসিবিরোধী লেখক ও শিল্পী সংগঠনের সভাপতি হন।<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি| ইউআরএল=http://bn.vikaspedia.in/education/9b69bf9b69c1-9859999cd9979a8/9ac9be9829b29be9b0-9b69cd9b09c79b79cd9a0-9b89be9b99bf9a49cd9af9bf9959a69c79b0-99c9c09ac9a89c0/9a49be9b09be9b69999cd9959b0-9ac9a89cd9a69cd9af9aa9be9a79cd9af9be9af9bc |শিরোনাম=জন্ম ও শিক্ষা }}</ref>। তিনি ১৯৭০ সালে বঙ্গীয় সাহিত্য-পরিষদের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন<ref>সংসদ বাঙালি চরিতাভিধান - প্রথম খণ্ড - সংশোধিত পঞ্চম সংস্করন - সাহিত্য সংসদ</ref>।
 
তারাশঙ্কর ১৯৪০ খ্রিস্টাব্দে বাগবাজারে একটি বাড়ি ভাড়া করে নিজের পরিবারকে কলকাতায় নিয়ে আসেন ও ১৯৪১-এ তিনি [[বরাহনগর|বরাহনগরে]] চলে যান। তারাশঙ্কর ১৯৪২-এর বীরভূম জেলা সাহিত্য সম্মেলনের সভাপতিত্ব করেন এবং ফ্যাসিবিরোধী লেখক ও শিল্পী সংগঠনের সভাপতি হন।<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি| ইউআরএল=http://bn.vikaspedia.in/education/9b69bf9b69c1-9859999cd9979a8/9ac9be9829b29be9b0-9b69cd9b09c79b79cd9a0-9b89be9b99bf9a49cd9af9bf9959a69c79b0-99c9c09ac9a89c0/9a49be9b09be9b69999cd9959b0-9ac9a89cd9a69cd9af9aa9be9a79cd9af9be9af9bc |শিরোনাম=জন্ম ও শিক্ষা }}</ref> তিনি ১৯৭০ সালে বঙ্গীয় সাহিত্য-পরিষদের সভাপতি নির্বাচিত হয়েছিলেন<ref>সংসদ বাঙালি চরিতাভিধান - প্রথম খণ্ড - সংশোধিত পঞ্চম সংস্করন - সাহিত্য সংসদ</ref>।
 
== রাজনৈতিক জীবন ==
 
== লেখার বৈশিষ্ট্য ==
তাঁর লেখায় বিশেষ ভাবে পাওয়া যায় বীরভূম-বর্ধমান অঞ্চলের [[সাঁওতাল]], [[বাগদি]], বোষ্টম, বাউরি, [[ডোম]], গ্রাম্য কবিয়াল সম্প্রদায়ের কথা। ছোট বা বড় যে ধরনের মানুষই হোক না কেন, তারাশঙ্কর তাঁর সব লেখায় মানুষের মহত্ত্ব ফুটিয়ে তুলেছেন, যা তাঁর লেখার সবচেয়ে বড় গুন।গুণ। সামাজিক পরিবর্তনের বিভিন্ন চিত্র তাঁর অনেক গল্প ও উপন্যাসের বিষয়। সেখানে আরও আছে গ্রাম জীবনের ভাঙনের কথা, নগর জীবনের বিকাশের কথা।
 
== চলচ্চিত্র ==
তারাশঙ্করের উপন্যাস, গল্প ও নাটক নিয়ে চল্লিশটিরও বেশি চলচ্চিত্র নির্মিত হয়েছে। [[সত্যজিৎ রায়|সত্যজিৎ রায়ও]] তারাশঙ্করের জলসাঘর এবং অভিযান উপন্যাসের সফল চিত্ররূপ দিয়েছেন। তাঁর যেসব রচনা চলচ্চিত্রে রূপায়িত হয়েছে সেগুলির মধ্যে আছে:
* জলসাঘর (১৯৫৮ খ্রিঃ) ও অভিযান(১৯৬২) [[সত্যজিৎ রায়]]-এর পরিচালিত, অগ্রদানী [পলাশ বন্দ্যোপাধ্যায়, ১৯৮৩], আগুন [অসিত সেন, ১৯৬২], আরোগ্য নিকেতন [বিজয় বসু, ১৯৬৯। জাতীয় পুরষ্কারপ্রাপ্ত], উত্তরায়ণ [অগ্রদূত, ১৯৬৩] কবি [দেবকী বসু, ১৯৪৯ এবং সুনীল বন্দ্যোপাধ্যায়, ১৯৭৫], কান্না [অগ্রগামী, ১৯৬২], কালিন্দী [নরেশ মিত্র, ১৯৫৫], [[গণদেবতা]] [তরুণ মজুমদার, ১৯৭৯], চাঁপাডাঙার বউ [নির্মল দে, ১৯৫৪], জয়া [চিত্ত বসু, ১৯৬৫], ডাকহরকরা [অগ্রগামী, ১৯৫৮], দুই পুরুষ [সুবোধ মিত্র, ১৯৪৫ এবং সুশীল মুখোপাধ্যায়, ১৯৭২] ধাত্রীদেবতা [কালীপ্রসাদ ঘোষ, ১৯৪৮], না [শ্রীতারাশঙ্কর বন্দ্যোপাধ্যায়, ১৯৫৪], ফরিয়াদ [বিজয় বসু, ১৯৭১], বিচারক [প্রভাত মুখোপাধ্যায়, ১৯৫৯], বিপাশা [অগ্রদূত, ১৯৬২], মঞ্জরী অপেরা [অগ্রদূত, ১৯৭০], রাইকমল [সুবোধ মিত্র, ১৯৫৫], শুকসারী [হারানো সুর গল্প অবলম্বনে,সুশীল মজুমদার পরিচালিত, ১৯৬৯], সন্দীপন পাঠশালা [অর্ধেন্দু মুখোপাধ্যায়, ১৯৪৯], সপ্তপদী [অজয় কর, ১৯৬১], হার মানা হার [মহাশ্বেতা উপন্যাস অবলম্বনে, সলিল সেন পরিচালিত, ১৯৭২], হাঁসুলীবাঁকের উপকথা [তপন সিংহ,১৯৬২],<ref>তারাশঙ্কর ও বাংলা চলচ্চিত্র : ধ্রুবগোপাল মুখোপাধ্যায়। সাহিত্য ও সংস্কৃতি:তারাশঙ্কর স্মৃতি সংখ্যা, ১৩৯৯</ref><ref>বিশ শতকের বাংলা ছবি : সম্পাদনা তপন রায়, ২০০১</ref> এবং বেদেনি (২০১০) প্রভৃতি।
 
== উল্লেখযোগ্য গ্রন্থাবলি ==
৭৮২টি

সম্পাদনা