সূরা বনী-ইসরাঈল: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

তথ্যছক
(টেমপ্লেটে সংশোধন)
(তথ্যছক)
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
|সূরার স্ক্রীনশট=
|স্ক্রীনশটের বিবরণ=
|শ্রেণী= [[মক্কী সূরা]]
|নামের অর্থ= রাত্রির যাত্রা
|অন্য নাম= [[ইহুদি-বিদ্বেষ|ইহুদী জাতি]]
}}
 
'''বনী-ইসরাঈল''' ([[আরবি|আরবি ভাষায়]]: سورة الإسراء) [[মুসলমান|মুসলমানদের]] ধর্মীয় গ্রন্থ [[কুরআন|কুরআনের]] ১৭ নম্বরতম [[সূরা]], এর আয়াত সংখ্যা ১১১ টি এবং এর রূকুর সংখ্যা ১২ টি। বনী-ইসরাঈল সূরাটি [[মক্কা|মক্কায়]] অবতীর্ণ হয়েছে। এই সূরা [[মুহাম্মাদ|হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ)]] এর [[মেরাজ|মেরাজের]] কথা, পিতা-মাতার ও আত্মীয়-স্বজনের হক, এতীমদের সম্পর্কে, ওয়াদা করার সম্পর্কে, নামায সম্পর্কে, রূহু সম্পর্কে কুরাইশদের প্রশ্ন, বলা হয়েছে।
 
[[মসজিদে হারাম]] থেকে [[মসজিদে আকসা]] পর্যন্ত সফরকে 'ইসরা' বলা হয় এবং সেখান থেকে আসমান পর্যন্ত যে সফর হয়েছে, তার নাম মে'রাজ। ইসরা অকাট্য আয়াত দ্বারা প্রমাণিত হয়েছে। আর মে'রাজ [[আন-নাজম|সূরা নাজমে]] উল্লেখিত রয়েছে এবং অনেক মুতাওয়াতির [[হাদিস|হাদীস]] দ্বারা প্রমাণিত। মে'রাজে গিয়ে হযরত মুহাম্মাদ (সাঃ) তাঁর উম্মতের জন্য প্রথমে পঞ্চাশ ওয়াক্তের [[নামাজ]] ফরয হওয়ার নির্দেশ হয়। অতঃপর তা হ্রাস করে পাঁচ ওয়াক্ত করে দেয়া হয়। এ দ্বারা সব এবাদতের মধ্যে নামাজের বিশেষ গুরুত্ব ও শ্রেষ্ঠত্ব প্রমাণিত হয়। হরবী বলেনঃ ইসরা ও মে'রাজের ঘটনা [[রবিউস সানি]] মাসের ২৭ তম রাত্রিতে [[হিজরত|হিজরতের]] এক বছর পূর্বে ঘটেছে। ইবনে কাসেম সাহাবী বলেনঃ নবুওয়ত প্রাপ্তির আঠার মাস পর এ ঘটনা ঘটেছে। মুহাদ্দেসগণ বিভিন্ন রেওয়ায়েত উল্লেখ করার পরে কোন সিদ্ধান্ত লিপিবদ্ধ করেননি। কিন্তু সাধারণভাবে খ্যাত এই যে, রজব মাসের ২৭ তম রাত্রি মে'রাজের রাত্রি।<ref>মারেফুল কোরআন, ৭৬৪ পৃষ্ঠা।</ref>