"মহারাজা নন্দকুমার" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
(নতুন পৃষ্ঠা: নন্দকুমার ছিলেন নবাবি আমলে বাংলার বিভিন্ন অঞ্চলের দেওয়ান।...)
 
 
পরবর্তীকালে ব্রিটিশ পার্লামেন্ট প্রধান বিচারপতি এলিজা ইম্পে-সহ হেস্টিংকে ‘আইনি হত্যা’-র অপরাধে অভিযুক্ত করে। বুর্ক (এবং পরে মেকলে) তাঁদের বিরুদ্ধে এই অভিযোগটি তুলেছিলেন। তবে এই মামলার তদারকিতে থাকা স্যার জেমস স্টিফেন হেস্টিংসের পক্ষেই সওয়াল করেন এবং বলেন যে ইম্পে ন্যায় ও সততার সাথেই মামলাটির নিষ্পত্তি করেছেন।
 
== প্রথম জীবন ==
মুঘল সম্রাট দ্বিতীয় শাহ আলম ১৭৬৪ সালে নন্দকুমারকে ‘মহারাজা’ উপাধি প্রদান করেছিলেন। ১৭৬৪ সালে ওয়ারেন হেস্টিংসের পর তিনি ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানি কর্তৃক বর্ধমান, নদিয়া ও হুগলির কালেক্টর নিযুক্ত হন। তিনি রাধামোহন ঠাকুরের নিকট বৈষ্ণবধর্মে দীক্ষিত হন।
 
=== হেস্টিংসের বিরুদ্ধে অভিযোগ ===
মহারাজ নন্দকুমার অভিযোগ করেন যে, হেস্টিংস তাকে দশ লক্ষ টাকার এক-তৃতীয়াংশ ঘুষ দিতে চেয়েছিলেন। তিনি এও দাবি করেন যে, হেস্টিংসের বিরুদ্ধে তার অভিযোগের প্রমাণস্বরূপ একটি চিঠি রয়েছে।
 
== ফাঁসি ==
ওয়ারেণ হেস্টিংস সেই সময় ইস্ট ইন্ডিয়া কোম্পানির সঙ্গে যুক্ত ছিলেন এবং ঘটনাচক্রে স্যার এলিজা ইম্পে ছিলেন তাঁর স্কুলের বন্ধু। তাই বহু ঐতিহাসিক এই মত পোষণ করেন যে, মহারাজ নন্দকুমারকে মিথ্যা অভিযোগে ফাঁসানো হয়েছিল।নন্দকুমারের ফাঁসিকে বহু ঐতিহাসিক ‘আইনি হত্যা’ বলে থাকেন। মেকলে হেস্টিংস ও ইম্পে উভয়কেই ‘আইনি হত্যার’ ষড়যন্ত্রকারী বলে উল্লেখ করেছেন। বাংলার গভর্নর-জেনারেল ওয়ারেন হেস্টিংসের আমলে ১৭৭৫ সালের ৫ই আগস্ট কলকাতায় বর্তমান বিদ্যাসাগর সেতুর নিকটে নন্দকুমারকে ফাঁসি দেওয়া হয়। সেই সময় ইংল্যান্ডের আইনসভায় দুর্নীতির শাস্তি হিসেবে ফাঁসির সাজা হিসেবে জালিয়াতি আইন, ১৭২৮ পাস করা হয়েছিল। তবে ইংল্যান্ডে তৎকালীন পরিস্থিতি অনুসারে দুর্নীতি সংক্রান্ত অপকর্মে অভিজুক্তদের ক্ষেত্রে এই আইনটিকে নানাভাবে ব্যাখ্যা করা হত এবং ভারতের ক্ষেত্রে এই আইন প্রযোজ্য হওয়ার কোনো ব্ধান ছিল না।
 
== পরিণাম ==
মহারাজ নন্দকুমার সমাজে একজন সম্ভ্রান্ত ব্যক্তি হিসেবে পরিচিত ছিলেন, তাই তাঁর ফাঁসি স্থানীয় জনসাধারণের আতঙ্কের সঞ্চার ঘটায়।এর ফলে বহু বাঙালি কলকাতা ছেড়ে বেনারসের মতো জায়গায় চলে যায়।
১৫৪টি

সম্পাদনা