"অক্টোপাস" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
সমুদ্রের বিভিন্ন অঞ্চলে অক্টোপাসেরা বসবাস করে, যার মধ্যে রয়েছে [[কোরাল]] শৈলশিরা, উন্মুক্ত অগভীর জল এবং সমুদ্রতল ইত্যাদি। কিছু কিছু আবার জোয়ার-ভাটা হয় এমন স্থানে আবার কিছু আছে গভীর সমুদ্রে বসবাস করে। বেশিরভাগ প্রজাতীই দ্রুত বর্ধমান, তাড়াতাড়ি পূর্ণবয়স্ক হয় আর কম বাঁচে। বংশবৃদ্ধির সময় পুরুষ অক্টোপাস বিশেষ শুঁড় দিয়ে শুক্রানু স্ত্রী অক্টোপাসে স্থানান্তর করে। এরপর সে ধীরে ধীরে মারা যায়। স্ত্রী অক্টোপাস নিষিক্ত ডিমগুলো কোন গুহা জাতীয় স্থানে রাখে এবং ফুটে বাচ্চা বেরোনো পযর্ন্ত যত্ন করে, তারপর সেও মারা যায়।
 
শিকারী প্রানীদের হাত থেকে বাচতে তারা কালি ছুড়ে মারে, ছদ্মবেশ ধরে বা রং পাল্টায় এবং ভীতি প্রদর্শন করে। এছাড়াও তারা আত্মরক্ষার জন্য দ্রুত পালানোর ক্ষমতা ও লুকিয়ে পড়ার ক্ষমতা ব্যবহার করে। সব অক্টোপাসই [[বিষাক্ত]], কিন্তু শুধুমাত্র নীল গোলক বিশিষ্ট অক্টোপাসই মানুষের জন্য মারাত্মক।
 
পৌরানিক কাহিনীতে অক্টোপাসকে সমুদ্রের দানবরূপে আখ্যায়িত করতে দেখা গেছে, যেমন নরওয়ের [[ক্রাকেন]] এবং আইনুদের [[আকোরোকামুই]] হিসেবে এবং সম্ভবত প্রাচীন গ্রীসে [[গর্গন]] রূপে। ভিক্টর হুগোর একটি বইয়ে, যার নাম [[টয়লার্স অব দ্যা সি]], অক্টোপাসের সাথে একটি যুদ্ধের বয়ান আছে। [[আয়ান ফ্লেমিং]] অনুপ্রাণিত হয়ে বানান [[অক্টোপুসি এন্ড দ্য লিভিং ডেলাইটস|অক্টোপুসি]]। অক্টোপাসেরা জাপানের উত্তেজক চিত্রতেও স্থান করে নিয়েছে যার নাম [[সুঙ্গা]]। এশিয়ার সাগর ও ভূ-মধ্য সাগরের বিভিন্ন দেশে এদের খাদ্য হিসেবে খাওয়া হয়।
১৯৯টি

সম্পাদনা