"স্থূল অভ্যন্তরীণ উৎপাদন" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

নতুন সংযোজন
(Updating to 2015 map)
(নতুন সংযোজন)
 
{{অসম্পূর্ণ}}
দেশের সামষ্টিক অর্থনৈতিক প্রবৃদ্ধির হিসাবের ক্ষেত্রে দুইভাবে করা হয়। একটি হচ্ছে জিডিপি বা মোট দেশজ উৎপাদন এবং অপরটি হচ্ছে জিএনপি বা মোট জাতীয় উৎপাদন। এ দুইটির মধ্যে মূল পার্থক্য হচ্ছে জিডিপিতে শুধু দেশের ভেতরে উৎপাদিক পণ্য ও সেবা মূল্যকে ধরা হয়। আর জিএনপিতে বাংলাদেশের যেসব নাগরিক বিদেশে কাজ করে তারা যে অর্থ উপার্জন করে দেশে পাঠায় তাসহ হিসাব করা হয়।
 
জিডিপি : একটি দেশের অভ্যন্তরে এক বছরে চূড়ান্তভাবে উৎপাদিত দ্রব্য ও সেবার বাজারে সামষ্টিক মূল্যই হচ্ছে মোট দেশজ উৎপাদন (জিডিপি বা গ্রোস ডমেস্টিক প্রডাক্ট)। আগের বছরের তুলনায় পরের বছরে এ উৎপাদন যে হারে বাড়ে সেটি হচ্ছে জিডিপির প্রবৃদ্ধি। জিডিপি একটি দেশের অর্থনৈতিক উন্নয়নের প্রধান সূচক। ১৯৮০ সাল পর্যন্ত যুক্তরাষ্ট্রে মোট জাতীয় উৎপাদন (জিএনপি) অর্থনীতি পরিমাপক হিসেবে ব্যবহৃত হতো। তবে জিডিপি ও জিএনপির মধ্যে কিছু মৌলিক পার্থক্য রয়েছে। জিডিপি একটি এলাকা নিয়ে চিন্তা করে যেখানে পণ্য বা সেবা উৎপাদিত হয়। অন্যদিকে জিএনপি একটি অঞ্চলের উদ্ভূত আয় নিয়ে চিন্তা করে।
 
মূলত তিনটি খাতের সমষ্টি জিডিপি। বাংলাদেশে খাতগুলো হল কৃষি, শিল্প ও সেবা। জিডিপিতে সবচেয়ে বেশি অবদান সেবা খাতের। গত অর্থবছরে ৫৩ দশমিক ৬২ শতাংশ। শিল্পের ৩০ দশমিক ৪২ শতাংশ এবং কৃষি খাতের অবদান ১৫ দশমিক ৯৬ শতাংশ। জিডিপি হিসাব করতে গিয়ে ১৫টি খাত ও উপখাতের বাজারমূল্য হিসাব করা হয়।
 
বাৎসরিক হিসাবে জিডিপির শতকরা হিসাবে বৃদ্ধি প্রবৃদ্ধি বলা হয়। গত ২০১৪-১৫ অর্থবছরে বাজার মূল্যে বাংলাদেশের জিডিপির আকার ১৫ লাখ ১৩ হাজার ৬০০ কোটি টাকা। ২০০৫-০৬ ভিত্তি ধরে প্রবৃদ্ধি হয়েছে ৬ দশমিক ৫১ শতাংশ। বাংলাদেশে প্রায় এক দশক ধরে জিডিপি প্রবৃদ্ধি ৬ শতাংশের ওপরে রয়েছে।
 
জিএনপি : জিডিপি ও জিএনপি প্রায় সমার্থক। তবে সামন্য পার্থক্যও আছে। কোনো নির্দিষ্ট সময়ে, সাধারণত এক বছরে কোনো দেশের জনগণ মোট যে পরিমাণ চূড়ান্ত দ্রব্য বা সেবা উৎপাদন করে তার অর্থমূল্যকে মোট জাতীয় উৎপাদন বা জিএনপি বলে। জাতীয় উৎপাদনের মধ্যে দেশের অভ্যন্তরে বসবাসকারী ও কর্মরত বিদেশি ব্যক্তি ও সংস্থার উৎপাদন বা আয় অন্তর্ভুক্ত হবে না। তবে বিদেশে বসবাসকারী ও কর্মরত দেশি নাগরিক, সংস্থা ও প্রতিষ্ঠানের উৎপাদন ও আয় অন্তর্ভুক্ত হবে।
 
জাতীয় আয়ের হিসাব থেকে একটি দেশের অর্থনৈতিক অবস্থা ও অগ্রগতি সম্পর্কে ধারণা লাভ করা যায়। যে দেশের জিএনপি যত বেশি সে দেশ অর্থনৈতিক দিক দিয়ে তত বেশি সমৃদ্ধ। অর্থনীতিবিদ স্যামুয়েলসন বলেন, জাতীয় আয়ের পরিসংখ্যান থেকে দেশের দীর্ঘমেয়াদি প্রবৃদ্ধির হার এবং উন্নয়নের সম্ভাবনা সম্পর্কে ধারণা করা যায়।
 
অধ্যাপক মার্শালের মতে, কোন দেশের শ্রম ও মূলধন তার প্রাকৃতিক সমপদকে কাজে লাগিয়ে বার্ষিক যে পরিমাণ বস্তুগত ও অবস্তুগত দ্রব্য সামগ্রী ও সেবা কর্মের সৃষ্টি করে, তার সমষ্টিকে জিএনপি বলে।
 
বিভিন্ন দেশের জাতীয় আয়ের পরিসংখ্যান থেকে বোঝা যায়, কোনো দেশের জাতীয় আয়, মাথাপিছু আয় এবং জীবনযাত্রার মান কতটুকু কম বা বেশি। যেমন বাংলাদেশ ও জাপানের জাতীয় আয় তুলনা করে বলা যায় যে, জাপান বাংলাদেশের তুলনায় কতগুণ সমৃদ্ধ, সে দেশের জনগণের জীবনযাত্রার মান কত উন্নত।
 
২০১৪-১৫ অর্থবছরে বাংলাদেশের জিএনপি ১৬ লাখ ১০ হাজার ৮৯৫ কোটি টাকা। মাথাপিছু জিএনপি ১ হাজার ৩১৪ মার্কিন ডলার। অন্যদিকে জাপানের মাথাপিছু জিএনপি ৫৫ হাজার ১৮২ মার্কিন ডলার।
[[বিষয়শ্রেণী:অর্থনীতি]]
বেনামী ব্যবহারকারী