"শিশু নির্যাতন" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

 
অন্য ধরনের চিকিৎসার মধ্যে আছে দলগত থেরাপি, খেলাধূলার থেরাপি এবং ছবি আকার থেরাপি। প্রত্যেক ধরনের চিকিৎসা ব্যবহার করা যায় শিশুটি কিভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে তা বিবেচনা করে। খেলার থেরাপি এবং ছবি আকার থেরাপি হল শিশুকে অন্য থেরাপি দেয়ার আগে প্রদত্ত থেরাপি যেখানে শিশুকে অানন্দময় অভিজ্ঞতা দেয়া হয় যেমন রং করা, আকা, ছবি আকা ইত্যাদি। শিশুটি যা আকছে তা হতে পারে শিশুটির মনের ভেতরে কি চলছে তার ছাপ যার সঙ্গে পরিবার, বন্ধু এবং আরো অনেক কিছু জড়িত থাকতে পারে। শিশুর আকা দেখে কোন বিশেষজ্ঞ শিশুটি সম্পর্কে আরো ভাল ধারনা লাভ করতে পারেন।<ref>{{cite journal |vauthors=Schechter DS, Zygmunt A, Trabka KA, Davies M, Colon E, Kolodji A, McCaw JE | title = শিশু mental representations of attachment when mothers are traumatized: The relationship of family-drawings to story-stem completion | journal = Journal of Early শিশুকাল এবং Infant Psychology | volume = 3 | pages = 119–141 | year = 2007 | pmid = 18347736 | pmc = 2268110 }}</ref>
 
== বিস্তার ==
 
গবেষনার বিষয় হিসেবে শিশু নির্যাতন একটি জটিল এবং কঠিন বিষয়। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার মতে, দেশ অনুসারে শিশু দু্র্ব্যবহারের হারে পার্থক্য রয়েছে, যেহেতু সব দেশেই শিশু দু্র্ব্যবহারের সংজ্ঞা এক নয় এবং যে ধরনের গবেষনা করা হয় তাও এক নয়, সুযোগ এবং তথ্য সংগ্রহের মান ও জরিপের তথ্য সংগ্রহ করা ক্ষেত্র বিশেষে কঠিন হয়। এছাড়া তত্ত্বাবধানকারীকে করা প্রশ্নগুলিও সঠিক হয় না। এসমস্ত সীমাবদ্ধতা থাকা সত্ত্বেও, আর্ন্তজাতিক গবেষনায় পাওয়া যায় যে তিন ভাগ বয়স্কই শিশু থাকা অবস্থায় শারীরিক নির্যাতনের অভিজ্ঞতা লাভ করেছে এবং ৫ জনের মধ্যে ১ জন নারী এবং ১৩ জনের মধ্যে ১ জন পুরুষ শিশুকালে যৌন নির্যাতনের শিকার হন। মানসিক নির্যাতন এবং অবহেলাও সাধারণ শিশুকালীন নির্যাতনের অভিজ্ঞতার মধ্যে পড়ে।<ref name=WHOFact>{{cite web |title=শিশু দু্র্ব্যবহার: Fact sheet No. 150 |date=December 2014 |publisher=World Health Organization |url=http://www.who.int/mediacentre/factsheets/fs150/en/ |deadurl=no |archiveurl=https://web.archive.org/web/20150717165627/http://www.who.int/mediacentre/factsheets/fs150/en/ |archivedate=17 July 2015 |df=dmy-all }}</ref>
 
{{as of|২০১৪}}, ১৫ বছরের নিচে ৪১০০০ শিশুই হত্যার শিকার হয় প্রতি বছর। বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা বয়ান দেয় যে এই সংখ্যা সঠিক নয় একেবারেই কম, সত্যিকারের শিশু হত্যার পরিসংখ্যান জানা যায় না। শিশু হত্যার বা মারা যাবার একটি গুরুত্বপূর্ন কারন হয় শিশুর অবহেলা এবং দুর্ব্যবহার যার ফলে পড়ে যাওয়া, পুড়ে যাওয়া এবং ডুবে যাবার মত ঘটনা ঘটে। মেয়ে শিশুরা বিশেষভাবে যৌন হিংসাত্মক আচরণের ঝুকিতে থাকে, ব্যবসায় নিযুক্ত করা এবং নির্যাতনের শিকার হয় কোন অস্ত্র যুদ্ধের সময় এবং [[সমাশ্রয়]] পরিবেশে, তা হতে পারে যোদ্ধা, নিরাপত্তা রক্ষী, কমিউনিটির কোন সদস্য, সাহায্যকারী কর্মী অথবা অন্য কেউ<ref name=WHOFact />
 
=== যুক্তরাষ্ট্র ===
 
[[ন্যাশনাল রিসার্চ কাউন্সিল (যুক্তরাষ্ট্র)|জাতীয় গবেষনা কাউন্সিল]] ১৯৯৩ সালে লিখে "...প্রাপ্ত প্রমানাদি এই রায় দেয় যে শিশু নির্যাতন এবং অবহেলা হল যুক্তরাষ্ট্রে একটি গুরুত্বপূর্ন, এবং ব্যপকহারে বিস্তার হওয়া সমস্যা[...] শিশু নির্যাতন এবং অবহেলা শিশুকালে ঘটা অন্যান্য সমস্যার মধ্যে বিশেষভাবে গুরুত্বপূর্ণ কারন তারা সরাসরি শারীরিক এবং মানসিক স্বাস্থ্যের সাথে জড়িত"।<ref name=NRC1993>{{cite book |author=Panel on Research on শিশু নির্যাতন এবং অবহেলা; Commission on Behavioral এবং সামাজিক Sciences এবং Education, National Research Council |title=Understএবংing শিশু নির্যাতন এবং অবহেলা |date=1993 |location=Washington, D.C. |publisher=National Academy Press |url=http://www.nap.edu/read/2117/chapter/1 |deadurl=no |archiveurl=https://web.archive.org/web/20160324085817/http://www.nap.edu/read/2117/chapter/1 |archivedate=24 March 2016 |df=dmy-all }}</ref>{{rp|6}}
 
২০১২ সালে, [[শিশু নিরাপত্তা সেবা]] প্রতিষ্ঠান অনুমান করে প্রায় ১০০০ শিশুর ৯ জন শিশুই যুক্তরাষ্ট্রে শিশু দু্র্ব্যবহারের শিকার। ৭৮ ভাগ অবহেলার শিকার। শারীরিক নির্যাতন, যৌন নির্যাতন, এবং অন্য ধরনের দু্র্ব্যবহারের শিকার হওয়া শিশুর পরিমান ছিল কম যথাক্রমে ১৮%, ৯%, এবং ১১% ভাগ ("অন্য ধরনের নির্যাতন" হল মানসিক নির্যাতন, ড্রাগ নির্যাতন, এবং তত্বাবধানের সল্পতা)। শিশু নিরাপত্তা সেবার রিপোর্টটি হয়ত শিশু দু্র্ব্যবহারের শিকার হওয়া শিশুর সংখ্যা সঠিক ভাবে বলতে অক্ষম। সেন্টার ফর ডিজিজ কন্ট্রোল এন্ড প্রিভেনশন একটি অন্য গবেষনায় বলে প্রতি চার জনে একজন শিশু দু্র্ব্যবহারের শিকার হয় তাদের জীবনে।<ref name=CDCFact2014>{{cite web |title=শিশু দু্র্ব্যবহার: Facts at a Glance |location=Atlanta, GA |publisher=Centers for Disease Control এবং Prevention |date=2014 |url=https://www.cdc.gov/হিংসাত্মক আচরণprevention/pdf/শিশুদু্র্ব্যবহার-facts-at-a-glance.pdf |deadurl=no |archiveurl=https://web.archive.org/web/20170829054942/https://www.cdc.gov/হিংসাত্মক আচরণprevention/pdf/শিশুদু্র্ব্যবহার-facts-at-a-glance.pdf |archivedate=29 August 2017 |df=dmy-all }}</ref>
 
 
=== শিশু পাচার ===
১,৯৮১টি

সম্পাদনা