প্রধান মেনু খুলুন

পরিবর্তনসমূহ

প্রসন্নময়ীর দ্বিতীয় কবিতার বই 'বনলতা'। ১২৮৭ বঙ্গাব্দে শ্রীযুক্ত যোগেশ চন্দ্র বন্দ্যোপাধ্যায় দ্বারা ক্যানিং লাইব্রেরি কলকাতা থেকে এটি প্রকাশিত হয়। এই বইটিতে পঁচিশটি খণ্ড কবিতা ছিল। এর মধ্যে তিনটি কবিতা ইংরেজি কবিতার অনুবাদ। বনলতা কবির তরুণ বয়সের রচনা। বনলতা কাব্যগ্রন্থটি প্রকাশিত হওয়ার পর প্রসন্নময়ী সাহিত্য সমাজে পরিচিত হন। সেই আমলের সাহিত্য সমালোচক রাজনারায়ণ বসু যেমন এর প্রশংসা করেন তেমনই 'আর্য্যদর্শন', 'ইন্ডিয়ান নেশন', 'দ্য ইন্ডিয়ান মিরর', 'ব্রাহ্ম পাবলিক ওপিনিয়ন', 'ক্যালকাটা রিভিউ' প্রভৃতি পত্রিকায় এই বইয়ের উৎসাহব্যঞ্জক সমালোচনা প্রকাশিত হয়।
 
প্রসন্নময়ীর তৃতীয় গ্রন্থ 'নীহারিকা' প্রথম ভাগ ১২৯০ বঙ্গাব্দে প্রকাশিত হয়। এটির দ্বিতীয় ভাগ প্রকাশিত হয় ১৮১৮ শকাব্দে। 'নীহারিকা' প্রথম ভাগে মোট একুশটি কবিতা আছে। এতে তাঁর কবিপ্রতিভা সম্পূর্ণ বিকশিত হয়েছিল। নীহারিকা দ্বিতীয় ভাগের কবিতার মধ্যে জীবনের নিগূঢ় রহস্য ব্যথা দেখা যায়। মোট আটত্রিশটি কবিতা নীহারিকাতে ছিল।
 
তাঁর উপন্যাসগুলির মধ্যে 'অশোকা', 'পূর্বকথা', 'আর্যাবর্ত' উল্লেখযোগ্য।
তিনি যে সময়ে লিখতে আরম্ভ করেছিলেন সেই সময় ছিল বাংলার আধুনিক সাহিত্যের প্রারম্ভকাল। তিনি সেই সময়ের অনেক মাসিক পত্রে রচনা, গল্প ও কবিতা লিখেছিলেন। তারপরে তিনি 'ভারতবর্ষ', 'মানসী ও মর্ম্মবাণী' ও 'মাতৃমন্দির' প্রভৃতি পত্রিকাতে লিখে ছিলেন।
 
তিনি যে সময়ে লিখতে আরম্ভ করেছিলেন সেই সময় ছিল বাংলার আধুনিক সাহিত্যের প্রারম্ভকাল। তিনি সেই সময়ের অনেক মাসিক পত্রে রচনা, গল্প ও কবিতা লিখেছিলেন। তারপরে তিনি 'ভারতবর্ষ', 'মানসী ও মর্ম্মবাণী' ও 'মাতৃমন্দির' প্রভৃতি পত্রিকাতে লিখেরচনা ছিলেন।প্রকাশ করেন।
 
==তথ্যসূত্র==
২,০১৬টি

সম্পাদনা