"ফুসফুসের ক্যান্সার" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
| deaths = ১৭ লক্ষ (২০১৫)<ref name=GBD2015De>{{cite journal|last1=GBD 2015 Mortality and Causes of Death|first1=Collaborators.|title=Global, regional, and national life expectancy, all-cause mortality, and cause-specific mortality for 249 causes of death, 1980–2015: a systematic analysis for the Global Burden of Disease Study 2015.|journal=Lancet|date=8 October 2016|volume=388|issue=10053|pages=1459–1544|pmid=27733281|doi=10.1016/S0140-6736(16)31012-1}}</ref>
}}
'''ফুসফুসের ক্যান্সার''' ({{lang-en|Lung cancer}}) বা '''ফুসফুস ক্যান্সার''' একটি রোগ যাতে ফুসফুসের টিস্যুগুলিতে অনিয়ন্ত্রিত কোষবৃদ্ধি ঘটে। এই বৃদ্ধির ফলে মেটাস্টেসিস[[মেটাস্ট্যাসিস]], প্রতিবেশী টিস্যু আক্রমণ এবং ফুসফুসের বাইরে [[সংক্রমণ]] ঘটতে পারে। প্রাথমিক ফুসুফুসের ক্যান্সারের অধিকাংশই ফুসফুসের কার্সিনোমা, যা ফুসফুসের এপিথেলিয়াল কোষগুলিতে ধরা পড়ে। ফুসফুসের ক্যান্সার পুরুষদের ক্যান্সার-জনিত মৃত্যুর প্রধান কারণ এবং মহিলাদের এরূপ মৃত্যুর দ্বিতীয় প্রধান কারণ। <ref name="WHO2">{{ওয়েব উদ্ধৃতি | last =WHO | authorlink =[[World Health Organization]] | title =Deaths by cause, sex and mortality stratum | publisher =[[World Health Organization]] | date =2004 | url =http://www.who.int/whr/2004/annex/topic/en/annex_2_en.pdf | format = PDF| accessdate =2007-06-01 }}</ref><ref name="NLCP">{{ওয়েব উদ্ধৃতি | authorlink = | coauthors = | title =Lung Cancer Facts (Women) | publisher = National Lung Cancer Partnership | date =2006 | url =http://www.nationallungcancerpartnership.org/page.cfm?l=factsWomen | accessdate =2007-05-26 }}</ref> ফুসফুসের ক্যান্সারের কারণে প্রতি বছর বিশ্বে ১৩ লক্ষ লোক মারা যান। <ref name="WHO">{{ওয়েব উদ্ধৃতি | last =WHO | authorlink =[[World Health Organization]] | title =Cancer | publisher =[[World Health Organization]] | date =February 2006 | url =http://www.who.int/mediacentre/factsheets/fs297/en/ | accessdate =2007-06-25 }}</ref> ফুসফুসের ক্যান্সারের সাধারণ লক্ষণ শ্বাস নিতে সমস্যা, রক্তসহ কাশি, এবং ওজন হ্রাস। <ref name="Harrison">{{বই উদ্ধৃতি | last =Minna | first =JD | title =Harrison's Principles of Internal Medicine | publisher=McGraw-Hill | date =2004 | pages =506–516 | doi =10.1036/0071402357 | isbn =0071391401 }}</ref>
 
ফুসফুস ক্যান্সারের ৮৫% এর জন্য দায়ী দীর্ঘমেয়াদি তামাক সেবন।<ref name="MurrayNadel52"/>বাকি ১০-১৫% যারা কখনো ধূমপান করেন নি,তারা আক্রান্ত হন।<ref name="Thun">{{Cite journal |vauthors=Thun MJ, Hannan LM, Adams-Campbell LL, etal | title=Lung cancer occurrence in never-smokers: an analysis of 13 cohorts and 22 cancer registry studies | journal=PLoS Medicine | volume=5 | issue=9 | pages=e185 |date=September 2008 | doi=10.1371/journal.pmed.0050185 | pmid=18788891 | pmc=2531137 }}</ref>জেনেটিক ফ্যাক্টর,বায়ু দূষণ ইত্যাদি ফুসফুস ক্যান্সারের অন্যতম প্রভাবক।.<ref name="MurrayNadel52">{{Cite book | last1=Alberg | first1=AJ | last2=Brock | first2=MV | last3=Samet | first3=JM | title=Murray & Nadel's Textbook of Respiratory Medicine | publisher=Saunders Elsevier | year=2016 | chapter=Chapter 52: Epidemiology of lung cancer | edition=6th | isbn=978-1-4557-3383-5 }}</ref><ref name="AUTOREF">{{cite web |url=https://www.ncbi.nlm.nih.gov/books/NBK44324/ |author=Carmona, RH |publisher=U.S. Department of Health and Human Services |title=The Health Consequences of Involuntary Exposure to Tobacco Smoke: A Report of the Surgeon General |date=27 June 2006 |quote=Secondhand smoke exposure causes disease and premature death in children and adults who do not smoke. |deadurl=no |archiveurl=https://web.archive.org/web/20170215064658/https://www.ncbi.nlm.nih.gov/books/NBK44324/ |archivedate=15 February 2017 |df=dmy-all }} Retrieved 2014-06-16</ref><ref name="O'Reilly">{{Cite journal | last=O'Reilly | first=KM | author2=Mclaughlin AM | author3=Beckett WS | author4=Sime PJ | title=Asbestos-related lung disease | journal=American Family Physician | volume=75 | issue=5 | pages=683–688 | date=March 2007 | url=http://www.aafp.org/afp/20070301/683.html | pmid=17375514 | deadurl=no | archiveurl=https://web.archive.org/web/20070929083111/http://www.aafp.org/afp/20070301/683.html | archivedate=29 September 2007 | df=dmy-all }}</ref><ref name="AUTOREF1">{{Cite journal |url=http://monographs.iarc.fr/ENG/Monographs/vol83/mono83.pdf |format=PDF |publisher=WHO International Agency for Research on Cancer |title=Tobacco Smoke and Involuntary Smoking |journal=IARC Monographs on the Evaluation of Carcinogenic Risks to Humans |volume=83 |year=2004 |quote=There is sufficient evidence that involuntary smoking (exposure to secondhand or 'environmental' tobacco smoke) causes lung cancer in humans.&nbsp;... Involuntary smoking (exposure to secondhand or 'environmental' tobacco smoke) is carcinogenic to humans (Group 1). |deadurl=no |archiveurl=https://web.archive.org/web/20150813204458/http://monographs.iarc.fr/ENG/Monographs/vol83/mono83.pdf |archivedate=13 August 2015 |df=dmy-all }}</ref> <ref name="Merck"/>.<ref name="Holland-Frei78">{{cite book | vauthors=Lu C, Onn A, Vaporciyan AA, etal | title=Holland-Frei Cancer Medicine | edition=8th | chapter=Chapter 78: Cancer of the Lung | publisher=People's Medical Publishing House | year=2010 |isbn=978-1-60795-014-1 }}</ref><ref name="Collins">{{Cite journal | last=Collins | first=LG | author2=Haines C | author3=Perkel R | author4=Enck RE | title=Lung cancer: diagnosis and management | journal=American Family Physician | volume=75 | issue=1 | pages=56–63 | publisher=American Academy of Family Physicians | date=January 2007 | url=http://www.aafp.org/afp/20070101/56.html | pmid=17225705 | deadurl=no | archiveurl=https://web.archive.org/web/20070929104510/http://www.aafp.org/afp/20070101/56.html | archivedate=29 September 2007 | df=dmy-all }}</ref>
বুকের এক্স-রে পরীক্ষা এবং কম্পিউটার টমোগ্রাফির মাধ্যমে ফুসফুসের ক্যান্সার ধরা যেতে পারে। পরবর্তীতে একটি বায়পসিরবায়োপসির মাধ্যমে এটি নিশ্চিত করা সম্ভব। [[শল্যচিকিৎসা|সার্জারি]], [[কেমোথেরাপি,]] এবং রেডিওথেরাপির[[রেডিওথেরাপি]]র মাধ্যমে এর চিকিৎসা করা যায়। ৫ বছর চিকিৎসার পর রোগীর বেঁচে যাওয়ার হার ১৪% <ref name="Harrison"/>
==লক্ষণ ও উপসর্গ==
*কাশিঃ দুই-তৃতীয়াংশ রোগীর ক্ষেত্রেই ফুসফুসের ক্যান্সারের প্রাথমিক লক্ষণ হিসেবে কাশি দেখা যায়। এক্ষেত্রে শুকনো কাশি অথবা ঘন ঘন কাশি হতে পারে, কাশির সাথে অতিমাত্রায় কফ যেতে পারে অথবা রাতের দিকে কাশি প্রচণ্ড বেড়ে যেতে পারে।
৭১০টি

সম্পাদনা