মোশাররফ হোসেন (রাজনীতিবিদ): সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বিষয়শ্রেণী সংশোধন
(রচনাশৈলী, পরিষ্কারকরণ, তথ্যসূত্র, হালনাগাদ)
(বিষয়শ্রেণী সংশোধন)
{{অন্য ব্যবহার|মোশাররফ হোসেন (দ্ব্যর্থতা নিরসন)}}
{{তথ্যছক ব্যক্তি
{{Infobox person
| name = মোশাররফ হোসেন
| image = Mosharraf Hossain in 2016 (01).jpg
}}
 
ইঞ্জিনিয়ার '''মোশাররফ হোসেন''' (জন্মঃ ১২ জানুয়ারি ১৯৪৩) (ইংরেজি-[[:en:Mosharraf_Hossain_Mosharraf Hossain (politician)|Mosharraf Hossain (politician)]] একজন বাংলাদেশী রাজনীতিবিদ, বীর মুক্তিযোদ্ধা ও প্রথম সারির শিল্পপতিদের অন্যতম। বর্তমানে তিনি বাংলাদেশ জাতীয় সংসদের [[সংসদ সদস্য]] ও সরকারের গৃহায়ণ ও গণপূর্ত মন্ত্রনালয়ের দায়িত্বপ্রাপ্ত মন্ত্রী। রাজনৈতিক অঙ্গনে তিনি দেশের প্রাচীনতম ও ঐতিহ্যবাহী রাজনৈতিক সংগঠন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সর্বোচ্চ নীতি-নির্ধারণী পদ প্রেসিডিয়াম সদস্য।<ref>https://www.albd.org/index.php/bn/party/organisation</ref> [http://www.parliament.gov.bd/index.php/bn/mps-bangla/members-of-parliament-bangla/current-mps-bangla/2014-03-23-11-47-07 তার নির্বাচনী আসন চট্টগ্রাম - ১ (মীরসরাই)।] তিনি ১৯৯৬ সালে আওয়ামী লীগ সরকারের বেসামরিক বিমান চলাচল ও পরিবহন এবং গৃহায়ন ও পর্যটন মন্ত্রনালয়ের দায়িক্ত পালন করেন। ১৯৭১ সালের বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা যুদ্ধে উল্লেখযোগ্য অবদান রাখেন তিনি। বর্তমানে তিনি গৃহায়ন ও গনপূর্ত মন্ত্রনালয়ের দায়িত্বে মন্ত্রী হিসেবে নিয়োজিত আছেন ৷
 
== প্রারম্ভিক জীবন ==
১৯৪৩ সালের ১২ জানুয়ারি তারিখে চট্টগ্রামের মিরসরাই উপজেলার ধুম গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তিনি চট্টগ্রাম কলেজিয়েট স্কুল থেকে মেট্রিকুলেশন পাশ করেন। ১৯৭২ সালে স্যার আশুতোশ কলেজ থেকে তিনি এইচএসসি পরীক্ষায় পাশ করেন। ১৯৬৬ সালে লাহোরের ইঞ্জিনিয়ারিং ও কারিগরী বিশ্ববিদ্যালয়ের মাইনিং ইঞ্জিনিয়ারিংয়ে বিএসসি সম্পন্ন করেন তিনি।তাঁর পিতা এস.রহমান ১৯৬০ সালের দিকে প্রাদেশিক পরিষদের সদস্য ও নামকরা ব্যবসায়ী ছিলেন। এস. রহমান ১৯৪৪ সালে কলকাতায় তার ব্যবসা শুরু করেন। ১৯৪৭ সালে দেশবিভাগের পর তিনি চট্টগ্রাম চলে আসেন। চট্টগ্রামে তিনি“ওরিয়েন্ট বিল্ডার্স কর্পোরেশন” নামক একটি অবকাঠামো উন্নয়ণ প্রতিষ্ঠান প্রতিষ্ঠা করেন যার মাধ্যমে তিনি অনেক রাস্তা, ভবন ও বাংলাদেশের অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ স্থাপনা গড়ে তুলেন। এছাড়াও তিনি শীতাতপ নিয়ন্ত্রিত
 
২০টি বিলাসবহুল মার্সিডিজ বাসের বহর চট্টগ্রাম থেকে কক্সবাজার ও অন্যান্য এলাকার সঙ্গে প্রবর্তন করেন। এস.রহমান কক্সবাজার যে কত্তবড় পর্যটন স্পট হবে তা আগে থেকে আঁচ করতে পেরেছিলেন। যারই প্রেক্ষিতে তিনিই সর্বপ্রথম কক্সবাজারে হোটেল প্রতিষ্ঠা করেন। আর সেটি হলো ১৯৬৪ সালে প্রতিষ্ঠিত ‘হোটেল সায়েমন’। বর্তমানেও এটি কক্সবাজারের হোটেলগুলোর মধ্যে অন্যতম প্রধান একটি হোটেল হিসেবে বিবেচিত। কক্সবাজারের পর্যটন শিল্প প্রসারে তার এ পদক্ষেপ এখনও চট্টগ্রাম কক্সবাজারের মানুষ শ্রদ্ধাভরে স্মরণ করে। এছাড়াও তিনি চট্টগ্রামে তৎকালীন সময়ে পর্যটকদের একমাত্র আবাসিক হোটেল ‘‘মোটেল সৈকত’’ দীর্ঘ ১০ বছর পরিচালনা এবং চট্টগ্রামে একটি রোপ ফ্যক্টরী ও হার্ডওয়ার ব্যবসা প্রতিষ্ঠা করেন। মোশাররফ হোসেনের পিতামহ ফজলুর রহমান দীর্ঘ ২০ বৎসর যাবৎ চট্টগ্রাম মীরসরাইয়ে ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান হিসেবে নিয়োজিত ছিলেন।
 
মনে প্রাণে একটি রাজনৈতিক আদর্শকে লালন করে দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজ করতে গিয়ে অর্থনৈতিক দুর্বলতা যেন জনসেবা থেকে তাকে দূরে রাখতে না পারে সে জন্য রাজনৈতিক কর্মকান্ড পরিচালনার পাশাপাশি তিনি তার পৈতৃক ব্যবসাসমূহ দেখাশুনা করেন। এক পর্যায়ে ১৯৮৩ সালে গ্যাসমিন লিমিটেড নামে একটি Engineering & Construction Firm প্রতিষ্ঠা করেন। তার প্রতিষ্ঠিত এই প্রতিষ্ঠানটি দীর্ঘদিন ধরে দেশের গুরুত্বপূর্ণ পাইপ লাইনের কাজ করে আসছে। ১৯৬৪ সালে কক্সবাজারে তার পিতার প্রতিষ্ঠিত হোটেল সায়মনকে পরবর্তীতে আরো সম্প্রসারণ করে ব্যবসার পরিধি বৃদ্ধি করেন। এছাড়া তিনি ‘পেনিনসুলা চিটাগাং’ নামক একটি আন্তর্জাতিক মানের চার তারকা হোটেলের চেয়ারম্যান।
 
দাম্পত্য জীবনে তিনি স্ত্রী আয়েশা সুলতানার সাথে সংসার করছেন। তার তিন ছেলে এবং একজন মেয়ে রয়েছে।
 
== মুক্তিযুদ্ধ ==
মহান মুক্তিযুদ্ধে তিনি সেক্টর - ১ এর সাব - সেক্টর কমান্ডার ছিলেন। পাক-হানাদারদের বাঙালি নিধন এর নীলছক এর কালোরাত্রির তান্ডবটি শুধুমাত্র ঢাকা ও অন্য জেলাগুলোতে নয়, দেশের দ্বিতীয় গুরুত্বপূর্ণ শহর ও বাণিজ্যিক রাজধানী চট্টগ্রামেও হওয়ার কথা ছিল। তারই প্রক্রিয়ায় বাঙালী জাতীয়তাবাদে উদ্ধুদ্ব ব্রিগেডিয়ার মজুমদারকে চট্টগ্রাম থেকে সরিয়ে নেয়া হয়েছিল। চট্টগ্রামে বাঙালি ও পশ্চিম পাকিস্তানী সৈন্য ছিল যথাক্রমে প্রায় ৫ হাজার ও ৬শত। বাঙালী সৈন্যদের মধ্যে ছিল ইস্ট বেঙ্গল সেন্টারে নব-গঠিত অষ্টম ইস্ট বেঙ্গল এর নতুন প্রায় ২৫০০ জন প্রশিক্ষণপ্রাপ্তরা। ছিল ইস্ট পাকিস্তান রাইফেলস এর উইং ও সেক্টর হেড কোয়ার্টার এর রাইফেলসরা এবং পুলিশ বাহিনী। পশ্চিম পাকিস্তানী সৈন্যরা ছিল মূলত ২০-বালুচ এর। ২৫ শে মার্চ এর বিধ্বংসী কালোরাত চট্টগ্রামে পুনরাবৃত্তি করার জন্য চট্টগ্রামের সিনিয়র অবাঙালী অফিসার লেফটেন্যান্ট কর্নেল ফতেমিকে আদেশ দেয়া হয়, কুমিল্লা থেকে অতিরিক্ত সৈন্য পৌছানোর মধ্যে যেন সমন্ত পরিস্থিতি নিজের অনুকূলে ধরে রাখেন।
 
চট্টগ্রামে কালোরাত্রির নৃশংসতা ঠেকাতে ইঞ্জিনিয়ার মোশাররফ হোসেনের নেতৃত্বে সাহসী বীর বাঙালী যোদ্ধারা শুভপুর ব্রীজ উড়িয়ে দিয়ে কুমিল্লা থেকে আগমনকারী সেনাদলের পথ বন্ধ করে দেন এবং চট্টগ্রাম শহর ও ক্যান্টনমেন্টের প্রধান প্রধান এলাকা নিজেদের নিয়ন্ত্রনে এনে ফেলেন।পরবর্তীতে তিনি সি.ইন.সি স্পেশাল ট্রেনিং নিয়ে দেশের অভ্যন্তরে প্রবেশ করে বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অপারেশন পরিচালনা করেন।
* [[মুক্তিযুদ্ধ]]
* [[বাংলাদেশ সেনাবাহিনী]]
* [[বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ|বাংলাদেশ আওয়ামী লীগ]]
 
== তথ্যসূত্র ==
[[বিষয়শ্রেণী:বাংলাদেশী রাজনীতিবিদ]]
[[বিষয়শ্রেণী:আওয়ামী লীগের রাজনীতিবিদ]]
[[বিষয়শ্রেণী:চট্টগ্রাম জেলার ব্যক্তিত্বব্যক্তি]]
৩,৯১,২৬৫টি

সম্পাদনা