প্রথম ওরহান: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্য থাকল এর পরিচালককে জানান।
(টেমপ্লেটে সংশোধন)
(বট নিবন্ধ পরিষ্কার করেছে। কোন সমস্য থাকল এর পরিচালককে জানান।)
| signature = Tughra of Orhan.JPG
}}
'''উসমানুগলু ওরহান গাজি''' ({{lang-ota|اورحان غازی}}, {{lang-tr|Orhan Gazi}}) (১২৮১ – মার্চ ১৩৬২) ছিলেন তৎকালে উসমানীয় বেয়লিক নামে পরিচিত উদীয়মান [[উসমানীয় সাম্রাজ্য|উসমানীয় সাম্রাজ্যের]] দ্বিতীয় [[বে]]। তিনি ১২৮১ সালে [[সোগুত|সোগুতে]] জন্মগ্রহণ করেন। তিনি [[প্রথম উসমান]] ও তার স্ত্রী মালহুন খাতুনের পুত্র।
 
শাসনের শুরুর দিকে ওরহান উত্তরপশ্চিম আনাতোলিয়া জয়ের উপর মনোযোগ দেন। এই অঞ্চলের অধিকাংশ বাইজেন্টাইন শাসনের অধীনে ছিল। বাইজেন্টাইন সম্রাট তৃতীয় আন্ড্রোনিকোস পেলেইওলোগোসের বিরুদ্ধে তিনি পেলেকেননের যুদ্ধে বিজয়ী হন। ওরহান এছাড়াও বালিকেসিরের কারাসি ও আঙ্কারার আহিস অঞ্চলও অধিকার করেন।
 
==সরকার==
কারো কারো মতে আলাউদ্দিনের পরামর্শে উসমানীয়রা সেলজুকদের অনুগত রাজ্যের অবস্থান থেকে সরে আসে, তারা সেলজুক শাসকদের মুদ্রা ব্যবহার বন্ধ করে দেয় এবং খুতবায় তার নামোল্লেখ থেকেও বিরত হয়। অন্যান্যরা এসকল পরিবর্তনকে উসমানের সাথে সম্পর্কিত করলেও অনেকে এই বিষয়ে একমত যে আলাউদ্দিন নিয়মিত বাহিনী গঠন ও এর জন্য অর্থের ব্যবস্থা করেছিলেন।
 
==রাজ্য বিস্তার==
বাইজেন্টাইন সম্রাট তৃতীয় এন্ড্রোনিকাসের সেনাবাহিনী অগ্রসর হয়ে বর্তমান দারিজা শহরের ওরহানের বাহিনীর মুখোমুখি হয়। যুদ্ধে বাইজেন্টাইনরা পরাজিত হয়। এভাবে ১৩২৯ সালের পেলেকেনোনের যুদ্ধের পর বাইজেন্টাইনরা কোচাইলির অঞ্চল পুনরুদ্ধারের ধারণা পরিত্যাগ করে।
 
নাইসিয়া শহর ১৩৩১ সালে আত্মসমর্পণ করে। ১৩৩৭ সালে ইজমিত বা নিকোমেডিয়া অধিকার করা হয়। ওরহান তার জ্যেষ্ঠ পুত্র সুলাইমান পাশাকে শহরের নিয়ন্ত্রণভার প্রদান করেন। ইতিপূর্বে সুলাইমান শহর অবরোধে নেতৃত্ব দিয়েছিলেন। ১৩৩৮ সালে উসকুদার জয়ের মাধ্যমে অধিকাংশ উত্তর আনাতোলিয়া উসমানীয়দের হাতে আসে।
 
১৩৪৫ সালে ওরহান পার্শ্ববর্তী তুর্কি রাজ্য কারেসি (বর্তমান [[বালিকেসির]] ও পার্শ্ববর্তী এলাকা) জয় করেন। কারেসির আমির মারা যাওয়ার পর সিংহাসন নিয়ে তার দুই পুত্রের মধ্যে দ্বন্দ্বের ফলে লড়াই শুরু হয়। ওরহান এসময় কারেসি আক্রমণ করে তা অধিকার করে নেন।
 
কারেসি জয়ের ফলে প্রায় সমগ্র উত্তরপশ্চিম আনাতোলিয়া উসমানীয় বেয়লিকের আওতায় চলে আসে। বুরসা, ইজমিত, ইজনিক ও বেরগামা শহরগুলো উসমানীয়দের শক্তিশালী ঘাটি হয়ে উঠে।
 
==ক্ষমতা সংহতকরণের যুগ==
কারেসি অধিকারের পর বিশ বছর শান্তিকালীন অবস্থা বজায় ছিল। এসময় বিভিন্ন বেসামরিক ও সামরিক প্রতিষ্ঠান সংগঠিত করা হয়, আভ্যন্তরীণ শৃঙ্খলা নিশ্চিত করা হয় এবং মসজিদ, মাদ্রাসাসহ বিভিন্ন স্থাপনা গড়ে তোলা হয়। আহিসদের কাছ থেকে আঙ্কারার নিয়ন্ত্রণ গ্রহণ ছাড়া ওরহান আর কোনো অভিযান চালাননি।
 
==মৃত্যু==
১,৯৬,০১৪টি

সম্পাদনা