প্রধান মেনু খুলুন

পরিবর্তনসমূহ

 
== শিক্ষাজীবন ==
মোহাম্মদ মোহর আলীর জন্ম ১৯২৯ সালের ১ জুলাই বাগেরহাট জেলাধীন ফকিরহাট থানার শুভদিয়া গ্রামে।১গ্রামে। তাঁর পিতাঁর নাম মোহাম্মদ মোয়াজ্জেম আলী ও মাতা আয়াতুন্নেসা বেগম। মাত্র ছয় বছর বয়সে তিনি পিতৃহীন হন। এ সময় তাঁর মা মোহর আলীকে নিয়ে মাতুলালয়ে চলে আসেন এবং মা ও মামার তত্বাবধানে তাঁর লেখাপড়া শুরু হয়। সপ্তম শ্রেণী পর্যন্ত স্থানীয় মাদরাসা ও স্কুলে অধ্যয়ন করার পর ৮ম শ্রেণীতে তিনি বিখ্যাত ফুরফুরা মাদরাসায় ভর্তি হন। পরবর্তীকালে তিনি হুগলী মাদরাসা ও মহসিন কলেজে ভর্তি হয়ে পড়াশোনা করেন। ছোট বেলা থেকেই অত্যন্ত মেধাবী মোহর আলী বিভিন্ন পরীক্ষায় সাফল্যের নজীর রাখেন। কৃতিত্বপূর্ণ ফলাফলের জন্য হুগলী মাদরাসা কর্তৃপক্ষ তাঁর মাদরাসার বেতন ও হোস্টেল খরচ অবৈতনিক করে দেন।২ হুগলীতে অধ্যয়ন কালেই তাঁর রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক চিন্তার স্ফুরণ ঘটে এবং তিনি মুসলিম লীগের নেতৃত্বে ভারতবর্ষব্যাপি মুসলমানদের স্বাধিকার আন্দোলন সংগ্রামে নিজেকে জড়িয়ে ফেলেন। নেতৃত্বের স্বাভাবিক গুণাবলীর কারণে কিশোর বয়সেই তিনি হুগলী মুকুল ফৌজের সম্পাদক নির্বাচিত হন এবং পরবর্তীকালে তিনি হুগলী ইসলামিক ইন্টারমিডিয়েট কলেজ ও হুগলী মাদরাসার সমন্বিত ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। পরে তিনি বঙ্গীয় মুসলিম ছাত্রলীগের একজন নেতা হিসেবে ১৯৪৬ সালের সাধারণ নির্বাচনের সময় পাকিস্তানের পক্ষে মুসলিম লীগ প্রার্থীদের পক্ষে জোর প্রচারাভিযান চালান।
 
সপ্তম শ্রেণী পর্যন্ত স্থানীয় মাদরাসা ও স্কুলে অধ্যয়ন করার পর ৮ম শ্রেণীতে তিনি বিখ্যাত ফুরফুরা মাদরাসায় ভর্তি হন। পরবর্তীকালে তিনি হুগলী মাদরাসা ও মহসিন কলেজে ভর্তি হয়ে পড়াশোনা করেন। ছোট বেলা থেকেই অত্যন্ত মেধাবী মোহর আলী বিভিন্ন পরীক্ষায় সাফল্যের নজীর রাখেন। কৃতিত্বপূর্ণ ফলাফলের জন্য হুগলী মাদরাসা কর্তৃপক্ষ তাঁর মাদরাসার বেতন ও হোস্টেল খরচ অবৈতনিক করে দেন।
হুগলীতে অধ্যয়ন কালেই তাঁর রাজনৈতিক ও সাংস্কৃতিক চিন্তার স্ফুরণ ঘটে এবং তিনি মুসলিম লীগের নেতৃত্বে ভারতবর্ষব্যাপি মুসলমানদের স্বাধিকার আন্দোলন সংগ্রামে নিজেকে জড়িয়ে ফেলেন। নেতৃত্বের স্বাভাবিক গুণাবলীর কারণে কিশোর বয়সেই তিনি হুগলী মুকুল ফৌজের সম্পাদক নির্বাচিত হন এবং পরবর্তীকালে তিনি হুগলী ইসলামিক ইন্টারমিডিয়েট কলেজ ও হুগলী মাদরাসার সমন্বিত ছাত্র ইউনিয়নের সাধারণ সম্পাদক নির্বাচিত হন। পরে তিনি বঙ্গীয় মুসলিম ছাত্রলীগের একজন নেতা হিসেবে ১৯৪৬ সালের সাধারণ নির্বাচনের সময় পাকিস্তানের পক্ষে মুসলিম লীগ প্রার্থীদের পক্ষে জোর প্রচারাভিযান চালান।
 
ভারত বিভাগের প্রাক্কালে মোহর আলীর বলীষ্ঠ ভূমিকার জন্য তখনকার বিখ্যাত রাজনীতিবিদ হোসেন শহীদ সোহ্‌রাওয়ার্দী, আবুল হাশিম ও শাহ্‌ আজিজুর রহমানের সাথে তাঁর গভীর হৃদ্যতা গড়ে ওঠে।৩ দেশবিভাগের পর মোহর আলী হুগলী থেকে ঢাকায় চলে আসেন এবং কাজী নজরুল ইসলাম কলেজে ভর্তি হন। অন্যান্য বিষয়ের সাথে তিনি আরবি ও ইতিহাস অধ্যয়ন করেন। কাজী নজরুল ইসলাম কলেজেও তিনি ছাত্র ইউনিয়নের সম্পাদক নির্বাচিত হন। এর পর তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে ইতিহাসে অনার্স ও এম এ ডিগ্রি নেন।
 
ছাত্র জীবনের এই সময়টাতেও বরাবর তিনি রাজনীতির সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন এবং মুসলিম জাতীয়তাবাদী রাজনীতিতে তাঁর স্থান কখনো ম্রিয়মান হয়নি।৪হয়নি। বিশ্ববিদ্যালয় জীবন সমাপ্তির পর মোহর আলী বেছে নেন শিক্ষকতা ও মনন চর্চার ঋদ্ধ জীবন। এই কারণেই রাজনীতিক মোহর আলীর বদলে আমরা তাঁর মধ্যে পেয়েছি এক অনন্যসাধারণ ঐতিহাসিককে। কর্মজীবনে তৎকালীন পূর্ব পাকিস্তানের বিভিন্ন কলেজে তিনি অধ্যাপনা করেন। ১৯৫৪ থেকে ১৯৫৫ পর্যন্ত যশোর মাইকেল মধুসূদন কলেজ (১৯৫৪-৫৫), ঢাকা সরকারী কলেজ (১৯৫৫-৫৬), চট্রগ্রাম সরকারী কলেজ (১৯৫৬-৫৭) এবং রাজশাহী সরকারী কলেজ (১৯৫৭) ইতিহাসের শিক্ষক হিসেবে কাজ করেন। ১৯৫৮ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ইতিহাস বিভাগে যোগ দেন। ১৯৬০ সালে লন্ডন বিশ্ববিদ্যালয়ের অধীন School of Oriental and African Studies (SOAS)-এ পিএইচডিতে ভর্তি হন। তাঁর পিএইচডি অভিসন্দর্ভের শিরোনাম ছিল The Bengali Reaction to Christian Missionary Activities (1833-1857)। ১৯৬০ সালে এটি গৃহিত হয়। SOAS এ অবস্থানকালে মোহর আলী তাঁর সুপারভাইজার অধ্যাপক কেন বল হ্যাচেটের (Professor Ken Ballhatchet) বিশেষ অনুমোদন নিয়ে লিংকনস্‌ ইনে আইন অধ্যয়ন করেন এবং ১৯৬৪ সালে বারএট’ল ডিগ্রী অর্জন করেন। দেশে বিভিন্ন কলেজে শিক্ষকতাকালীন তিনি কয়েকটি বই লেখেন।
 
== কর্মজীবন ==
১৪৮টি

সম্পাদনা