আহোম রাজ্য: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বানান সংশোধন
(টেমপ্লেটে সংশোধন)
(বানান সংশোধন)
==আহোম অর্থনৈতিক ব্যবস্থা==
আহোম সাম্রাজ্যের অর্থনৈতিক ব্যবস্থার মূল ভিত্তি ছিল [[পাইক প্রথা]]। পাইক প্রথা একধরনের বাধ্যতামূলক শ্রম আদায় ব্যবস্থা। আহোমেরা উন্নত প্রযুক্তির সঙ্গে খাল কেটে ও বাঁধ নির্মাননির্মাণ ও জলসিঞ্চন করে চাষের উপযুক্ত ব্যবস্থা করেছিল। ফলে আহোম সাম্রাজ্যে অর্থনৈতিক উন্নতি সাধন হয়েছিল। ষোড়শ শতিকায় আহোম স্বর্গদেউ চুক্লেনমুংয়ের রাজত্বকালে মুদ্রার প্রচলন হয়। সতেরো শতিকায় আহোম সাম্রাজ্য পশ্চিমে কোচ রাজ্য ও মোগল সাম্রাজ্যের কিছু অংশ নিজের অধীনে করতে সক্ষম হন। তারপর আহোম সাম্রাজ্যে রাজস্ব বা কর আদায় ব্যবস্থা চালু করা হয় ও প্রয়োজন অণুসারে কিছু পরিবর্তন করে নতুন রাজস্ব প্রবর্তন করা হয়েছিল।
 
==আহোম প্রশাসন==
 
==পাইক প্রথা==
আহোম সাম্রাজ্যে জনসাধারনকে জোরপূর্বক রাজ্যের কার্যে নিয়োগ করার প্রথাকে পাইক প্রথা বলা হত। প্রথাটি প্রাচীনকালে দক্ষিণ-পূর্ব এশিয়ায় প্রচলিত ছিল বলে বিশ্বাস করা হয়। ১২২৮ সনে আহোমেরা অসম আসার পর প্রথাটির প্রচলন করেন। ১৬০৬ সনে পাইক প্রথার কিছু পরিবর্তন করে [[মোমাই তামুলী বরবরুয়া]] পুনরায় প্রচলন করেন। বিজ্ঞ ব্যক্তিরা মত প্রকাশ করেছেন যে, পাইক প্রথা ছিল আহোমের পতনের মূল কারণ। আহোম রাজ্যের রাজবংশের লোক, পুরোহিত, উচ্চ শ্রেনীর লোক ও দাসদের বাদ দিয়ে সকল ১৫ থেকে ৫০ বৎসরের পুরুষকে পাইক বলা হত। স্বর্গদেউ রুদ্র সিংহের রাজত্বকালে রাজ্যের প্রায় ৯০% লোক এই শ্রেনীর অন্তর্গত ছিল।এই প্রথা অণুযায়ী অসমের প্রাপ্তবয়স্ক ব্যক্তিদের রাজ্যের বিভিন্ন কাজে নিয়োগ করা হয়েছিল। এই শ্রেনীর অন্তর্গত ব্যক্তিদের দিয়ে নৌকা তৈরী করা, গৃহ নির্মাননির্মাণ করা, পথ-ঘাট নির্মাননির্মাণ করা, রাজস্ব আদায় করা, হাতি ধরা, বন-জঙ্গল পরিদর্শন করা ইত্যাদি কাজ করানো হত।
 
==মাটির মাপ==
 
===যুদ্ধের সামগ্রী===
প্রথম অবস্থায় আহোমেরা হেংদা,দা ও যাঠি ইত্যাদি অস্ত্র রুপে ব্যবহার করতেন। পরবর্তী সময়ে তাঁরা কামানের ব্যবহার করেন। অসমের কয়েকটি নির্দিষ্ট স্থানে যুদ্ধ সামগ্রী নির্মাননির্মাণ করা হত। বারুদ প্রস্তুতে আহোমেরা নিপুন ছিল। বারুদ পর্যবেক্ষনকারী ব্যক্তিকে খারঘরীয়াফুকন বলা হত।
 
==তথ্যসূত্র==
৩,৯১,২৬৫টি

সম্পাদনা