"মরিস টেট" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

টেমপ্লেটে সংশোধন
(বট বানান ঠিক করছে, কোনো সমস্যায় তানভিরের আলাপ পাতায় বার্তা রাখুন)
(টেমপ্লেটে সংশোধন)
 
== খেলোয়াড়ী জীবন ==
সাসেক্সের প্রথম ক্রিকেটার হিসেবে [[আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে প্রথম বলেই উইকেটলাভকারী বোলারদের তালিকা|টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম বলেই উইকেট লাভ]] করেন তিনি।<ref>[http://stats.cricinfo.com/ci/content/records/283520.html Cricinfo page on bowlers who got a wicket with their first ball in test]</ref> ১৬ জুন, ১৯২৪ তারিখে সফরকারী [[দক্ষিণ আফ্রিকা জাতীয় ক্রিকেট দল|দক্ষিণ আফ্রিকার]] বিপক্ষে তাঁর টেস্ট অভিষেক ঘটে। [[Fred Susskind|ফ্রেড সাসকিন্ডকে]] সরাসরি বোল্ড করে তিনি এ কৃতিত্ব অর্জন করেন।<ref>{{citeওয়েব webউদ্ধৃতি|url=http://www.cricinfo.com/ci/engine/match/62539.html|title=South Africa in England (1924): Scorecard of first Test|publisher=Cricinfo|accessdate=February 9, 2010}}</ref> বার্মিংহামের [[এজবাস্টন ক্রিকেট গ্রাউন্ড|এজবাস্টনে]] অনুষ্ঠিত ঐ খেলায় জিলিগান ও তিনি একত্রে ১২.৩ ওভারেই মাত্র ৩০ রানে দক্ষিণ আফ্রিকার ইনিংস সমাপ্তিতে সহায়তা করেন। জিলিগানের ৬/৭ এর সাথে তাঁর বোলিং পরিসংখ্যান দাঁড়ায় ৪/১২। ১৯২৪-২৫ মৌসুমে [[অস্ট্রেলিয়া জাতীয় ক্রিকেট দল|অস্ট্রেলিয়া]] সফরেও তিনি সাফল্য পান। ঐ সিরিজে তিনি ২৩.১৮ গড়ে ৩৮ উইকেট লাভ করেন। পাঁচ টেস্টের তিনটিতেই তিনি ছয় শতাধিক বল করলেও অন্য বোলারদের তেমন কার্যকারিতা দেখা যায়নি। {{As of|2016}} অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত [[দি অ্যাশেজ|অ্যাশেজ সিরিজে]] যে-কোন ইংরেজ বোলারের রেকর্ড হিসেবে চিহ্নিত হয়ে রয়েছে।
 
পরবর্তী ছয় বছরেও টেটের অল-রাউন্ড নৈপুণ্য বজায় থাকে। ১৯২৯ সালে টেট তাঁর একমাত্র [[সেঞ্চুরি (ক্রিকেট)|শতক]] লাভ করেন দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে। কিন্তু ১৯৩০ সাল থেকে তিনি মূলতঃ বোলার হিসেবে পরিচিতি লাভ করতে থাকেন। ফলশ্রুতিতে তাঁকে শেষদিকে ব্যাটিং করতে হয়েছে। ঐ সময়ে [[হ্যারল্ড লারউড]] ও [[Bill Voce|বিল ভসের]] ন্যায় বোলারের আবির্ভাব ঘটায় ইংল্যান্ড দলে তাঁর ভূমিকা ধীরে ধীরে কমতে থাকে। ১৯৩৪ সালে অস্ট্রেলিয়ায় তাঁর তৃতীয় সফরে দলের সদস্য থাকা স্বত্ত্বেও এবং লারউডের অনুপস্থিতিজনিত কারণেও কোন টেস্টে অংশ নিতে পারেননি।
 
== সম্মাননা ==
সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে তিনি তিনবার [[হ্যাট্রিক]] করেন। ১৯২৪ সালে নিজ দেশে ১,৪১৯ রান ও ২০৫ উইকেট লাভ ও পরবর্তীকালে অস্ট্রেলিয়ায় অনুষ্ঠিত প্রথম টেস্টে ১১ উইকেট লাভ করায় [[উইজডেন ক্রিকেটার্স অ্যালমেনাক|উইজডেনের]] বিবেচনায় তাঁকে [[উইজডেন বিশ্বের শীর্ষস্থানীয় ক্রিকেটার]] ঘোষণা করে। একই বছর তাঁকে অন্যতম [[উইজডেন বর্ষসেরা ক্রিকেটার|বর্ষসেরা ক্রিকেটার]] হিসেবে মনোনীত করে।<ref name="Wisden"/><ref>{{citeওয়েব webউদ্ধৃতি|url=http://www.espncricinfo.com/wisden/content/story/350988.html|title=WISDEN'S LEADING CRICKETER IN THE WORLD|publisher="Wisden"|accessdate=July 9, 2015}}</ref>
 
== তথ্যসূত্র ==
{{সূত্র তালিকা}}
{{reflist}}
 
== আরও দেখুন ==
৩,৩৭,৮২৩টি

সম্পাদনা