"এয়ারবাস" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

টেমপ্লেটে সংশোধন
(বট বানান ঠিক করছে, কোনো সমস্যায় তানভিরের আলাপ পাতায় বার্তা রাখুন)
(টেমপ্লেটে সংশোধন)
|products = বাণিজ্যিক ও সামরিক বিমান
|services =
|revenue = {{profit}} €৩৩.১০&nbsp;বিলিয়ন (২০১১)<ref name="financials">{{citeওয়েব webউদ্ধৃতি |url =http://www.eads.com/dms/eads/int/en/investor-relations/documents/2012/events-reports/FY-2011/EADS-Annual-Results-2011/FY-2011%20final%20presentation.pdf |format=PDF |title =Annual Results 2011 |accessdate =11 June 2012 |year = 2011 |publisher=[[EADS]]}}</ref>
|operating_income =
|net_income = {{profit}} €১.৫৯৭&nbsp;বিলিয়ন (২০০৮)
|equity =
|owner =
|num_employees = ৬৩,০০১০<ref>{{citeওয়েব webউদ্ধৃতি |url = http://www.airbus.com/company/people-culture/ |title = Airbus – Company – People & Culture |publisher=Airbus |accessdate =22 November 2011}}</ref>
|parent = এয়ারবাস গ্রুপ
|divisions =
 
==ইতিহাস==
এয়ারবাসের সূচনা হয় কয়েকটি ইউরোপীয় বিমান নির্মাণ সংস্থার একত্রীকরণের ফলে। এর উদ্দেশ্য ছিল মার্কিন বিমান নির্মাণকারী [[বোয়িং]], [[ম্যাকডোনেল ডগলাস]] এবং [[লকহিড]]-এর সাথে প্রতিযোগিতা করা।<ref name="USAirbushisite">{{citeওয়েব webউদ্ধৃতি |title=Airbus Industrie |url = http://www.centennialofflight.gov/essay/Aerospace/Airbus/Aero52.htm |accessdate=5 October 2009 |author=T. A. Heppenheimer |publisher=US Centennial of Flight Commission| archiveurl= http://web.archive.org/web/20090825124308/http://centennialofflight.gov/essay/Aerospace/Airbus/Aero52.htm| archivedate= 25 August 2009 <!--DASHBot-->| deadurl= no}}</ref> যদিও অনেক ইউরোপীয় বিমান কৌশলের দিক থেকে সৃজনশীল ও উন্নত ছিল, কিন্তু তাদের উৎপাদন ছিল কম।<ref name="airlinerworldspec">{{citeবই bookউদ্ধৃতি |first= |editor=Mark Nicholls |title=Airbus Jetliners: The European Solution|accessdate=22 August 2007|series=Classic Aircraft Series No.6 |year=2001 |publisher=Key Publishing |location=Stamford |isbn=0-946219-53-2}}</ref> ১৯৯১ সালে জিয়ান পিয়ারসন, এয়ারবাসের তৎকালীন প্রধান নির্বাহী এবং ব্যবস্থাপনা পরিচালক মার্কিন বিমান নির্মাণ কোম্পানিগুলোর অতিরিক্ত প্রভাবের কারণ ব্যাখ্যা করেন। তিনি বলেন যে, যুক্তরাষ্ট্র্বের বিশাল ভূ-খন্ডের কারণে সেদেশে বিমান পরিবহন অনেক বেশি এবং ফলে বিমান উৎপাদনও বেশি। এছাড়া দ্বিতীয় বিশ্বযুদ্ধ পরবর্তি সময়ে যুক্তরাষ্ট্রে একটি লাভজনক, শক্তিশালী এবং কাঠামোগত বিমান নির্মাণ শিল্প গড়ে উঠে।<ref name="airlinerworldspec"/>
 
১৯৬০ সালের মাঝামাঝি সময়ে ইউরোপীয় বিমান কোম্পানিগুলোর পরস্পরের সমন্বেয়ের ক্ষেত্রে তারা একটি মীমাংশে উপনিত হয়। কোম্পানিগুলো এধরণের একটি অবস্থার ধারণা আগেই পেয়েছিল। ১৯৫৯ সালে হওকার সিডলি আর্মস্ট্রং হুইটওয়ার্থ বিমানটির একটি এয়ারবাস সংস্করণ প্রদর্শণ করে। এই সংস্করণটি একত্রে ১২৬ জন যাত্রী পরিবহণে সক্ষম। ইউরোপীয় বিমান নির্মাতারা এধরণের একটি চ্যালাঞ্জের ব্যাপারে আগে থেকে সচেতন ছিল এবং তারা অনুধাবন করেছিল যে মার্কিন শক্তিশালী বিমান নির্মাতাগুলির সাথে প্রতিযোগিতায় নামার জন্য পারস্পারিক সহযোগিতার বিকল্প নেই।
 
==তথ্যসূত্র==
{{সূত্র তালিকা}}
{{Reflist}}
 
==বহিঃসংযোগ==
৩,৪২,৩১৯টি

সম্পাদনা