"অ্যালবাম" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
== ইতিহাস ==
১৯৪৮ এ কলাম্বিয়া রেকর্ডস দীর্ঘ সময়ের লিপি বা ৩৩<sup>১</sup>⁄<sub>৩</sub> ঘুর্ননের মাইক্রগ্রোভ ভিনাইল লিপি চালু করে। যা লিপি শিল্পে আদর্শ ধরন হয় অ্যালবামের জন্য।  এছাড়াও স্টেরিও সুবিধার জন্য  এটা ভিনাইল অ্যালবামের জন্য আদর্শ ধরনই থাকে। সঙ্গীতে ব্যবহারের ক্ষেত্রে অ্যালবাম শব্দটি ১৯ শতকের শুরুর দিকে স্বরলিপির ছোট ছোট অংশের সংগ্রহকে বোঝাত। পরবর্তিতে বই আকারে বান্ডিল করা গ্রামোফোনের রেকর্ডকে বোঝাত (গ্রামোফোন রেকর্ড এর এক পাশে ৩.৫ মিনিটের শব্দ ধরতে পারত)। যখন দীর্ঘ সময় বাজানো গ্রামোফোন রেকর্ড আসল,এর একটি রেকর্ডে কতগুল অংশের সংগ্রহকে বুঝাত।যা এখন প্রচলিত মাধ্যম গুলোর ক্ষেত্রেও প্রযোজ্য।  অনেকে মনে করে কৌশলী বিক্রয়ের রীতির কারণে ২১ শতকে অ্যালবামের মৃত্যু হয়েছে।   
 
== দৈর্ঘ্য ==
যুক্তরাজ্য অ্যালবাম তালিকা অনুসারে ৪টি গান বা ২৫ মিনিটের বেশি চললে তাকে অ্যালবাম বলা যাবে। কখন ছোট অ্যালবামকে “ক্ষুদ্র অ্যালবাম” বা  EP বলে। Mike Oldfield এর ''Tubular Bells'', ''Amarok'', ''Hergest Ridge  এবং'' Yes's ''Close to the Edge অ্যালবামগুলো তে ৪টি গানেরও কম ছিল। অইভাবে শিল্পির প্রতি কোন নিয়ম নেই যেমন'' Pinhead Gunpowder  তাদের ৩০ মিনিটের নিচের প্রকাশকে অ্যালবাম হিসেবে মনে করে।
 
যদি একটি গ্রামোফোনের রেকর্ডে না ধরে তবে দুটি রেকর্ডে দ্বি অ্যালবাম হিসেবে প্রকাশ করা যেতে পারে। লিপির শিল্পির যদি ব্যাপক পিছনের তালিকা থাকে তবে সুন্দর নকশার একটি বক্সে অনেকগুলো CD তে প্রকাশ করতে পারে। অথবা পুর্বের অপ্রকাশিত লিপির সংকলনও একসাথে প্রকাশ করতে পারে। অনেকে ৩টির বেশি CD তেও প্রকাশ করে যা অ্যালবাম হিসেবেই গন্য হবে। 
২২৭টি

সম্পাদনা