"মহেঞ্জোদাড়ো" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

১৯২৭ সালে, চিত্র অসাধারণভাবে অলঙ্কারসমৃদ্ধ ইঁট এবং একটি প্রাচীর-কুলুঙ্গির উপবিষ্ট পুরুষ মূর্তি পাওয়া যায়। যদিও রাজা বা রানী শাসিত মহেঞ্জোদাড়ো বলে কোন প্রমাণ পাওয়া যায়নি। আছে, তথাপি প্রত্নতাত্ত্বিকরা একটি মহৎ চিত্রকে "যাজক-রাজা" বলে ধারনা করেন। ভাস্কর্যটি ১৭.৫ সেন্টিমিটার (৬.৯ ইঞ্চি) লম্বা এবং তার মাথা, একটি বাহুবন্ধনি, এবং মূলত লাল রঙ্গক ভরা ত্রিপত্র নকশার সঙ্গে সজ্জিত একজন শ্মশ্রুধারী মানুষ। ঠোটের উপরে শেভ করা এবং ছোট দাঁড়িওয়ালা মুখ।<ref>{{cite web |url=http://www.harappa.com/indus/41.html |title=Priest King, Mohenjo-daro |website=Glimpses of South Asia before 1947 |accessdate=6 January 2015}}</ref>
===মহাস্নানাগার===
{{main|মহাস্নানাগার, মহেঞ্জোদারোমহেঞ্জোদাড়ো}}
মহেঞ্জোদারোয় আবিষ্কৃত সর্বাপেক্ষা প্রসিদ্ধ স্থাপনা হল [[মহাস্নানাগার, মহেঞ্জোদারো|মহাস্নানাগার]]। <ref name="ancientindia_uk">[http://www.ancientindia.co.uk/indus/explore/sd_intro_b1.html SD Area]. Ancient Museum. British India.</ref><ref name="britannica">"[http://www.britannica.com/EBchecked/topic/242946/Great-Bath Great Bath]." Encyclopædia Britannica. 2010. Encyclopædia Britannica Online. 09 Jun. 2010.</ref> মহেঞ্জোদারোর সুরক্ষিত উত্তরাংশের পশ্চিমভাগের স্তুপের মধ্যে এটি পাওয়া গিয়েছে। উল্লেখ্য, এই স্তুপটি "মৃতের স্তুপ" বা "দুর্গ" নামেও পরিচিত।<ref>{{cite book
| title = A History of Ancient and Early Medieval India: From the Stone Age to the 12th Century | author = Upinder Singh
১,২৪৭টি

সম্পাদনা