"মহিউদ্দীন জাহাঙ্গীর" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

(→‎জন্ম ও শিক্ষাজীবন: তথ্যসূত্র সংশোধন)
মহিউদ্দীন জাহাঙ্গীর [[১৯৪৯]] সালের ৭ মার্চ বরিশালের বাবুগঞ্জ থানার রহিমগঞ্জ গ্রামে জন্মগ্রহণ করেন। তাঁর পিতা আবদুল মোতালেব হাওলাদার ছিলেন কৃষক এবং মা সাফিয়া বেগম ছিলেন গৃহিণী। মহিউদ্দীনরা তিন বোন তিন ভাই।<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|url=http://www.amaderbarisal.com/news/124757.aspx|title=আমাদের 'বীরশ্রেষ্ঠ' মহিউদ্দীন জাহাঙ্গীর|last=|first=|date=14/12/2016|website=Amader Barisal|publisher=|access-date=24/12/2016}}</ref> দাদা আবদুর রহিম হাওলাদার ছিলেন প্রতাপশালী ব্যক্তি। পিতার আর্থিক দৈন্যতার কারণে মাত্র সাড়ে তিন বছর বয়সে মামার বাড়ি মুলাদি উপজেলার পাতারচর গ্রামে যান জাহাঙ্গীর। পাতারচর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ে [[১৯৫৩]] সালে তার শিক্ষাজীবনের সূচনা হয়। মুলাদি মাহমুদ জান পাইলট হাইস্কুল থেকে [[১৯৬৪]] সালে বিজ্ঞান বিভাগে ম্যাট্রিকুলেশন পাস করেন। [[১৯৬৬]] তে তিনি বরিশাল বি.এম (ব্রজমোহন) কলেজ থেকে উচ্চ মাধ্যমিক পাশ করেন।<ref name=":0">{{Cite web|url=http://en.banglapedia.org/index.php?title=Jahangir,_Birsrestha_Mahiuddin|title=Jahangir, Birsrestha Mahiuddin - Banglapedia|website=en.banglapedia.org|access-date=2016-11-17}}</ref>
 
মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর ছাত্র হিসেবে ছিলেনমহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর বেশ মেধাবী ছিলেন৷ খেলাধুলার পাশাপাশি তিনি ছিলেন রাজনীতি সচেতন৷ কলেজজীবনেইকলেজ জীবনেই তিনি পাঠ করেন লেনিন, মাও-সেতুং, চে গুয়েভারা মতো ব্যক্তির সংগ্রামী জীবনের গল্প ও রাজনৈতিক দর্শন৷ তিনি মাষ্টার দা সূর্যসেনের জীবনীগ্রন্থ, ক্ষুদীরামের ফাঁসী, তিতুমীরের বাঁশের কেল্লা, চট্টগ্রামের অস্ত্রাগার লুণ্ঠন এবং প্রীতিলতা ওয়াদ্দেদারের জীবনীসহ বহু গ্রন্থ নিয়মিত পড়তেন ।
 
উচ্চ মাধ্যমিক পাশের পর মহিউদ্দিন জাহাঙ্গীর বিমান বাহিনীতে যোগদানের চেষ্টা করেন, কিন্তু চোখের অসুবিধা থাকায় ব্যর্থ হন। ১৯৬৭ সালে তিনি ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ে পরিসংখ্যান বিভাগে অধ্যয়নরত অবস্থায়ই পাকিস্তান মিলিটারি একাডেমীতে ক্যাডেট হিসেবে যোগদান করেন। [[১৯৬৮]]’র ২ জুন তিনি ইঞ্জিনিয়ার্স কোরে কমিশন লাভ করেন। সেনাবাহিনীতে তার নম্বর ছিল PSS-১০৪৩৯। তিনি মিলিটারি কলেজ অব ইঞ্জিনিয়ারিং, রিসালপুর থেকে অফিসার বেসিক কোর্স-২৯ এবং ইনফেন্ট্রি স্কুল অব ট্যাকটিস থেকে অফিসার উইপন কোর্স সম্পন্ন করেন। সর্বশেষ ১৯৬৯ সালে আগস্ট মাসের শেষের দিকে এক মাসের ছুটিতে দেশে ফেরেন।