"প্রেমানন্দ দত্ত" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

হটক্যাট
(বানান)
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা দৃশ্যমান সম্পাদনা
(হটক্যাট)
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা দৃশ্যমান সম্পাদনা
 
== প্রারম্ভিক জীবন। ==
পিতা হরিশ চন্দ্র দত্ত ছিলেন ব্রাহ্মসমাজের[[ব্রাহ্মসমাজ|ব্রাহ্মসমাজে]]<nowiki/>র আচার্য। প্রেমানন্দ চট্টগ্রাম বন্দরের প্রিভেনটিভ অফিসারের কাজ করতেন। দেশবন্ধু চিত্তরঞ্জনের[[চিত্তরঞ্জন দাশ|চিত্তরঞ্জনে]]<nowiki/>র আহবানে সাড়া দিয়ে চাকরি ছেড়ে অসহযোগ আন্দোলনে যোগ দেন এবং কারাবরণ করেন। চা বাগানে শ্রমিকদের ওপর অত্যাচারের প্রতিবাদে আসাম-বেঙ্গল রেলওয়ে কর্মচারীদের ঘোষিত ধর্মঘটে অংশ নিয়ে আবার জেলে যান।
 
== বিপ্লবী দলে ==
মাস্টারদা [[সূর্য সেনেরসেন|সূর্য সেনে]]<nowiki/>র অনুগামী ও বিপ্লবী [[অনন্ত সিংহসিং]]<nowiki/>হ তার বন্ধু ছিলেন। চট্টগামের একই পাড়ায় তাদের বাড়ি ছিল। ১৯২৩ সালে তারা শারীরশিক্ষা ক্লাব গড়ে তোলেন যা ছিল গোপনে বিপ্লবী রাজনীতির চর্চাকেন্দ্র। মুলত অনন্ত সিংহের অনুপ্রেরণাতেই প্রেমানন্দ বিপ্লবী দলের বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ কাজে অংশ নেন। অস্ত্রশস্ত্র প্রস্তুত ও নিরাপদ স্থানে রাখার ব্যবস্থা করতেন।
 
== প্রফুল্ল রায় হত্যা ==
চট্টগ্রামে বিপ্লবীদের ওপর নজর রাখার জন্যে ব্রিটিশ পুলিশের গোয়েন্দা সাব-ইন্সপেক্টর প্রফুল্ল রায় কুখ্যাত ছিল। এই ব্যক্তি অনন্ত সিংহকে গ্রেপ্তার করলে প্রেমানন্দ দত্ত ১৯২৪ এর ২৪শে মে তাকে গুলি করে হত্যা করেন ও গ্রেপ্তার হন।<ref>{{বই উদ্ধৃতি|title=Chittagong Summer 1930|last=Manasi Bhattacharya|first=|publisher=HarperCollins publishers|year=|isbn=|location=|pages=Timeline}}</ref> ব্যারিস্টার [[যতীন্দ্রনাথ সেনগুপ্ত]] তার হয়ে মামলা লড়েছিলেন।
 
== মৃত্যু ==
জেলে থাকার সময় তার মানসিক অবস্থার অবনতি ঘটে। তাকে রাঁচির[[রাঁচি]]<nowiki/>র মানসিক হসপিটালে পাঠানো হয়। সেখানেই এই বিপ্লবীর মৃত্যু হয়।<ref>{{বই উদ্ধৃতি|title=সংসদ বাঙালি চরিতাভিধান|last=প্রমথ খন্ড|first=সুবোধচন্দ্র সেনগুপ্ত ও অঞ্জলি বসু সম্পাদিত|publisher=সাহিত্য সংসদ|year=২০০২|isbn=81-85626-65-0|location=কলকাতা|pages=৩২০}}</ref>
 
== তথ্যসূত্র ==