"আরব ফেডারেশন" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

বট বানান ঠিক করছে, কোনো সমস্যায় তানভিরের আলাপ পাতায় বার্তা রাখুন
(বট বানান ঠিক করছে, কোনো সমস্যায় তানভিরের আলাপ পাতায় বার্তা রাখুন)
{{Life in the Arab League}}
 
'''আরব ফেডারেশন অব ইরাক এন্ড জর্ডান''' ছিল [[ইরাক]] ও [[জর্ডান|জর্ডানের]] সমন্বয়ে গঠিত একটি ইউনিয়ন। স্বল্পকালীন স্থায়ী এই ইউনিয়নটি ১৯৫৮ সালে স্থাপিত হয়। নাম অনুযায়ীঅণুযায়ী এটি ফেডারেল কাঠামোর হলেও কার্যত এই ইউনিয়নটি একটি [[কনফেডারেশন]] ছিল।
 
ফেডারেশনটি ১৯৫৮ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি গঠিত হয়। ইরাকের রাজা [[দ্বিতীয় ফয়সাল, ইরাক|দ্বিতীয় ফয়সাল]] ও তার চাচাত ভাই জর্ডানের রাজা [[হোসেন (জর্ডান)|হোসেনের]] দুটি হাশেমি রাজ্যকে একত্রিত করার ইচ্ছা থেকে এর সূত্রপাত ঘটে। [[ইউনাইটেড আরব রিপাবলিক]] নামক আরেকটি ইউনিয়নের সৃষ্টিও এর পেছনে ভূমিকা পালন করে। আরব ফেডারেশন মাত্র ছয় মাস স্থায়ী ছিল। ১৯৫৮ সালের [[১৪ জুলাই বিপ্লব|১৪ জুলাই সামরিক অভ্যুত্থানে]] ফয়সাল ক্ষমতাচ্যুত হওয়ার পর ২ আগস্ট ফেডারেশন বিলুপ্ত হয়।
আরব বিশ্বে ঔপনিবেশিক সময়ের পর অনেকেই একটি একক আরব রাষ্ট্র গঠনের ব্যাপারে মত প্রকাশ করে। আরব জাতীয়তাবাদের অধীনে এই আরব রাষ্ট্রের ধারণা মধ্যপ্রাচ্যের তরুণ বুদ্ধিজীবীদের মধ্যে জনপ্রিয় হয়ে উঠে। আরব জাতীয়তাবাদের নানারূপ মতবাদের ফলে [[আরব স্নায়ুযুদ্ধ|আরব স্নায়ুযুদ্ধের]] জন্ম হয়। এসময় বেশ কয়েকজন নেতার অধীনে আন্দোলন পরিচালিত হয়। সবচেয়ে বিখ্যাত ছিলেন মিশরের রাষ্ট্রপতি [[জামাল আবদেল নাসের]]। নাসেরের ধারণা ছিল, একটি প্যান আরব রাষ্ট্র যাতে বিদেশী বিশেষত ইউরোপীয় হস্তক্ষেপ থাকবে না, ভূমি সংস্কার, সমাজতান্ত্রিক মনোভাব ও শাসক রাজাদের উৎখাত। এর ফলে রাজকীয় ভাবধারার ও ইউরোপপন্থি ইরাক ও জর্ডানের জন্য নাসেরের চিন্তা ক্ষতির কারণ বলে বিবেচিত হয়। ব্রিটিশরা চলে যাওয়ার পর থেকে ইরাক ও জর্ডানে হাশেমি রাজতন্ত্র কায়েম ছিল। ১৯৫২ সালে মিশরের রাজা ফারুককে উৎখাতকারী নাসেরের চিন্তার সাথে ইরাকের শাসনতান্ত্রিক ভিত্তি ছিল বিপরীতমুখী। পশ্চিমা দেশসমূহ ও সোভিয়েত বিরোধী মনোভাবের কারণে প্যান আরব মতবাদের সাথে সম্পর্ক জটিল হয়ে উঠে। ১৯৫৫ সালে ইরাক [[বাগদাদ চুক্তি|বাগদাদ চুক্তিতে]] সম্মত হয়। এর মাধ্যমে সোভিয়েত ইউনিয়নকে মধ্যপ্রাচ্যের তেলসম্পদে প্রবেশ থেকে দূরে রাখতে উদ্যেগ নেয়া হয়। বাগদাদ চুক্তির মাধ্যমে তুরস্ক, পাকিস্তান, ইরান ও যুক্তরাজ্য জোটবদ্ধ হয়। ইরাকের প্রধানমন্ত্রী নুরি আস সাইদ একে ইরাকের নিরাপত্তার নিশ্চয়তা হিসেবে দখলেও নাসের বিদেশী শক্তির কাছে আত্মসমর্পণ বলে এর বিরোধিতা করেন।
 
১৯৫৮ সালের প্রথমদিকে সিরিয়া ও মিশরের সমন্বয়ে [[ইউনাইটেড আরব রিপাবলিক]] গঠিত হওয়ার পর নাসেরের প্যান আরব আদর্শগুলো উভয় হাশেমি শাসনের জন্য হুমকি হয়ে উঠে। নাসেরের মতবাদের বিপরিতে নুরি আস সাইদ জর্ডান ও ইরাকের মধ্যে ইউনিয়ন গঠনের জন্য অগ্রসর হন। ১৯৫৮ সালের ১৪ ফেব্রুয়ারি সরকারি প্রতিষ্ঠিত হওয়ার পর আরব ফেডারেশন বৈদেশিক নীতি ও প্রতিরক্ষা কর্মকাণ্ড একীভূত করে। তবে অনেক আভ্যন্তরীন কর্মকাণ্ড জাতীয়জাতিয় সরকারের আওতায় থেকে যায়। নুরি আস সাইদ নবগঠিত আরব ইউনিয়নের প্রধানমন্ত্রী হন। তার ধারণা ছিল সেনাবাহিনী রাজার প্রতি অনুগতঅণুগত থাকবে এবং তার সরকার ক্ষমতায় বহাল থাকবে। কিন্তু সেনাবাহিনীর সুন্নি অফিসারদের ক্ষমতা বৃদ্ধি পেতে থাকে। তারা তাকে ক্ষমতাচ্যুত করে। এরপর ১৯৫৮ সালের গ্রীষ্মে আরব ফেডারেশনের সমাপ্তি ঘটে।<ref name="Tripp, Charles 2007. Pages 135-145">Tripp, Charles. A History of Iraq. Cambridge University Press. Cambridge, 2007. (Pages 135-145)</ref>
 
==পতন==
৬৫,৭৬৮টি

সম্পাদনা