"প্লাসমিড" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

(গুরুত্বপূর্ণ তথ্য লুকানো)
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
==Properties and characteristics==
[[File:Plasmid replication (english).svg|400px|thumb|right|There are two types of plasmid integration into a host bacteria: Non-integrating plasmids replicate as with the top instance, whereas [[episomes]], the lower example, can integrate into the host [[chromosome]].]]
যুক্তরাষ্ট্রের [[আণবিক জীববিজ্ঞানী]] [[Joshuaজোসুয়া Lederbergলেডারবার্গ]] ১৯৫২ সালে প্রথম প্লাসমিড শনাক্ত করেন।<ref>{{cite journal |author= Lederberg J |title= Cell genetics and hereditary symbiosis |journal=Physiol. Rev. |volume=32 |issue= 4 |pages= 403–430 |year= 1952 |pmid= 13003535 |doi=}}</ref> ১৯৬৮ সালে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হল যে প্লাসমিডকে অতিরিক্ত জেনেটিক উপাদান হিসেবে আলাদা বাহকে সংযুক্ত করা যায়। <ref>{{cite web |url=http://mgen.microbiologyresearch.org/about/content/journal/mgen/standing-on-the-shoulders-of-giants/falkow3 |title=Microbial Genomics: Standing on the Shoulders of Giants |author=Stanley Falkow |work=Microbiology Society}}</ref> এবং এটাই তাকে ভাইরাস থেকে পৃথক করেছে এবং এর সংজ্ঞায় পরিবর্তন আসল, বুঝা গেল প্লাসমিড ক্রোমোজোমের বাইরেও টিকে থাকতে পারে ও স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিজের প্রতিলিপি গঠন ক্রতে পারে।<ref name=finbarr />
==তথ্যসূত্র ==
[[ল্যাডারবার্গ]] ১৯৫২ সালে ''E. coli'' ব্যাক্টেরিয়া [[কোষ (জীববিজ্ঞান)|কোষে]] সর্বপ্রথম প্লাসমিড আবিস্কার করেন।
 
[[বিষয়শ্রেণী:আণবিক জীববিজ্ঞান]]