"প্লাসমিড" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

গুরুত্বপূর্ণ তথ্য লুকানো
(তথ্য)
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
(গুরুত্বপূর্ণ তথ্য লুকানো)
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
প্লাসমিড হচ্ছে ছোট [[ডিএনএ]] অণু, যা একটি কোষে থাকে কিন্তু [[জি ডিএনএ|ক্রোমোজোমের ডিএনএ]] থেকে আলাদা থাকে। এটি নিজে নিজেকে প্রতিলিপন করতে পারে। এগুলোকে সাধারণত পাওয়া যায় [[ব্যাকটেরিয়া]]তে। ছোট বৃত্তাকার,দুইটা ছাচ বিশিষ্ট ডিএনএ অণুরূপে। কখনো কখনো একে [[archaea]] এবং [[eukaryote|ইউক্যারিওটিক জীবেও]] পাওয়া যায়। সাধারণত প্লাসমিড যেসব জীন ধারণ করে সেগুলো জীবকে টিকে থাকতে সহায়তা করে। যখন ক্রোমোজোম বড় হয় তখন সে যে সকল প্রয়োজনীয় জীন ধারণ করে তার মাধ্যমে জীব সাধারণ পরিস্থিতিতে বেচে থাকে। কিন্তু প্লাসমিড ছোট হলেও যেসব অতিরিক্ত জীন ধারণ করে সেগুলো জীবকে প্রতিকূল পরিস্থিতি মোকাবেলা করতে সহায়তা করে।প্লাসমিডকে ব্যাপকভাবে [[Vector (molecular biology)|vectors]] হিসেবে [[molecular cloning]] এ ব্যবহার করা হয়।
 
প্লাসমিডকে ''[[replicon (genetics)|replicon]]s'' হিসেবে বিবেচনা করা হয়। ডিএনএ-এর ইউনিট,যার মাধ্যমে ডিএনএ বাহকের অভ্যন্তরে স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিজের প্রতিলিপি গঠন করতে সক্ষম হয়। যাইহোক, প্লাসমিডকে ভাইরাসের মতই জীব হিসেবে গণ্য করা হয় না।<ref>{{cite journal|last=Sinkovics|first=J|author2=Harvath J |author3=Horak A. |year=1998|title=The Origin and evolution of viruses (a review)|journal=Acta Microbiologica et Immunologica Hungarica |volume=45 | issue = 3–4|pages=349–90 |pmid=9873943}}</ref> প্লাসমিডকে এক ব্যাকটেরিয়াম থেকে আরেক ব্যাকটেরিয়ামে প্রতিস্থাপন করা যায়(এমনকি অন্য প্রজাতিতেও) এই প্রতিস্থাপন করা যায় তিনটি গঠন প্রকৃয়ার উপর নির্ভর করে। সেগুলো হল: [[transformation (genetics)|transformation]], [[Transduction (genetics)|transduction]], and [[Bacterial conjugation|conjugation]]।এই যে বাহক থেকে বাহকে জেনেটিক উপাদানের এই প্রতিস্থাপন, একে বলা হয় [[horizontal gene transfer]], এবং প্লাসমিডকে [[mobilome]] এর অংশ হিসেবে বিবেচনা করা হয়।ভাইরাস(যারা তাদের জেনেটিক উপাদানসমূহকে রক্ষাদায়ী প্রোটিন; (যাকে [[capsid]] বলা হয়) দিয়ে আবদ্ধ করে রাখে)। কিন্তু প্লাসমিডের ডিএনএ অনাবৃতই থাকে।কিছু কিছু শ্রেণির প্লাসমিড [[pilus#Conjugative pili|conjugative "sex" pilus]] কে এনকোড করে, যা তার প্রয়োজন। প্লাসমিডের আকার ১ থেকে ২০০ k [[base pair|bp]](বেস পেয়ার) এর বেশি হতে পারে। <ref name="ThomasSummers2008">{{cite journal|last1=Thomas|first1=Christopher M|last2=Summers|first2=David|title=Bacterial Plasmids|year=2008|doi=10.1002/9780470015902.a0000468.pub2|journal=Encyclopedia of Life Sciences|isbn=0470016175}}</ref><!--অনুবাদ??? and the number of identical plasmids in a single [[cell (biology)|cell]] can range anywhere from one to thousands under some circumstances.
 
The relationship between microbes and plasmid DNA is neither parasitic nor mutualistic, because each implies the presence of an independent species living in a detrimental or commensal state with the host organism. Rather, plasmids provide a mechanism for horizontal gene transfer within a population of microbes and typically provide a selective advantage under a given environmental state. Plasmids may carry genes that provide [[antibiotic resistance|resistance]] to naturally occurring [[antibiotics]] in a competitive [[environmental niche]], or the proteins produced may act as [[toxin]]s under similar circumstances, or allow the organism to utilize particular organic compounds that would be advantageous when nutrients are scarce.<ref name="Schumann2008">{{cite book | title = Plasmids: Current Research and Future Trends | editors=Georg Lipps | publisher=Caister Academic Press | year = 2008 | author=Wolfgang Schumann |chapter=Chapter 1 - ''Escherichia coli'' Cloning and Expression Vectors | pages=1–2 | isbn = 978-1-904455-35-6 }}</ref> [[ল্যাডারবার্গ]] ১৯৫২ সালে ''E. coli'' ব্যাক্টেরিয়া [[কোষ (জীববিজ্ঞান)|কোষে]] সর্বপ্রথম প্লাসমিড আবিস্কার করেন।-->
 
==Properties and characteristics==
[[File:Plasmid replication (english).svg|400px|thumb|right|There are two types of plasmid integration into a host bacteria: Non-integrating plasmids replicate as with the top instance, whereas [[episomes]], the lower example, can integrate into the host [[chromosome]].]]
যুক্তরাষ্ট্রের [[আণবিক জীববিজ্ঞানী]] [[Joshua Lederberg]] ১৯৫২ সালে প্রথম প্লাসমিড শনাক্ত করেন।<ref>{{cite journal |author= Lederberg J |title= Cell genetics and hereditary symbiosis |journal=Physiol. Rev. |volume=32 |issue= 4 |pages= 403–430 |year= 1952 |pmid= 13003535 |doi=}}</ref> ১৯৬৮ সালে এই সিদ্ধান্ত নেওয়া হল যে প্লাসমিডকে অতিরিক্ত জেনেটিক উপাদান হিসেবে সংযুক্ত করা যায়। <ref>{{cite web |url=http://mgen.microbiologyresearch.org/about/content/journal/mgen/standing-on-the-shoulders-of-giants/falkow3 |title=Microbial Genomics: Standing on the Shoulders of Giants |author=Stanley Falkow |work=Microbiology Society}}</ref> এবং এটাই তাকে ভাইরাস থেকে পৃথক করেছে এবং এর সংজ্ঞায় পরিবর্তন আসল, বুঝা গেল প্লাসমিড ক্রোমোজোমের বাইরেও টিকে থাকতে পারে ও স্বয়ংক্রিয়ভাবে নিজের প্রতিলিপি গঠন ক্রতে পারে।<ref name=finbarr />
[[ল্যাডারবার্গ]] ১৯৫২ সালে ''E. coli'' ব্যাক্টেরিয়া [[কোষ (জীববিজ্ঞান)|কোষে]] সর্বপ্রথম প্লাসমিড আবিস্কার করেন।
 
[[বিষয়শ্রেণী:আণবিক জীববিজ্ঞান]]