কানন দেবী: সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সংশোধন
(সংশোধন)
| website = <!-- {{URL|Example.com}} -->
}}
''' কানন দেবী''' (এপ্রিল ২২, ১৯১৬ – জুলাই ১৭, ১৯৯২), যিনি '''কানন বালা''' নামেও পরিচিত;<ref name="হার্টথ্রব">{{cite news |author=কোবিদ |title=হার্টথ্রব নায়িকা-গায়িকা কানন দেবীর প্রতি শ্রদ্ধাঞ্জলি |url=http://www.bengalinews24.com/good-news-everday/2013/07/18/11137 |date=জুলাই ১৮, ২০১৩ |accessdate=অক্টোবর ৩০, ২০১৪ |work=বাংলানিউজ২৪.কম }}</ref> ছিলেন একজন [[ভারত|ভারতীয়]] বাঙালি অভিনেত্রী এবং গায়িকা। যিনি ভারতীয় চলচ্চিত্রে নাকিয়াদেরনায়িকাদের মধ্যে প্রথম গায়িকা এবং বাংলা চলচ্চিত্রের প্রথম তারকা হিসেবে স্বীকৃত।<ref name="হার্টথ্রব"/><ref name="CW">{{cite web |author= |title=বাংলা চলচ্চিত্র |url=http://www.calcuttaweb.com/cinema/ |date= |accessdate=অক্টোবর ৩০, ২০১৪ |publisher=কলকাতা ওয়েব}}</ref> সাধারণত দ্রুত লয়ে তার গান গাওয়ার ধরণ [[নিউ থিয়েটার]], কলকাতার ব্যপবব্যাপক জনপ্রিয়তা অর্জন করে।
 
বহু প্রতিভার কানন দেবী অভিনয়ের পাশাপাশি নৃত্য এবং সঙ্গীতেও ছিলেন পারদর্শী। প্রায় ৭০-এর অধিক চলচ্চিত্রে অভিনয় করেছেন তিনি। এছাড়াও বিজ্ঞাপন চিত্রেও দেখা যায় তাকে। কানন দেবীর আত্মজীবনী ''সবারে আমি নমি''। শিল্প মাধ্যমে অসাধারণ অবদানের জন্যে [[ভারত সরকার]] তাঁকে ১৯৬৪ সালে [[পদ্মশ্রী]] উপাধীতেউপাধিতে ভূষিত করেন। ১৯৭৬ সালে তিনি [[দাদাসাহেব ফালকে পুরস্কার]] লাভ করেন।
 
== প্রাথমিক জীবন ==
 
== অভিনয় কর্মজীবন ==
১৯২৬ সালে [[জয়তিশ বন্দোপাধ্যায়|জয়তিশ বন্দোপাধ্যায়ের]] ''[[জয়দেব (১৯২৬-এর চলচ্চিত্র)|জয়দেবে]]'' চলচ্চিত্রে অভিনয়ের মাধ্যমে কানন দেবীর অভিনয়ের শুরু হলেও তার সত্যিকারের অভিনয় জীবন শুরু হয় ১৯৩০ সালে। মূলত দারিদ্রতার কারণে কিশোর বয়স থেকেই তাঁকে পর্দায় নগ্নতার দৃশ্যে অভিনয় করতে হয়েছে। ১৯৩১ সালে জয়তিশ বন্দোপাধ্যায়ের ''[[জোর বরাত]]'' পূর্ণাঙ্গ সবাক চলচ্চিত্রের একটি দৃশ্যে নায়ক তাঁকে জড়িয়ে ধরে ঠোটে চুমু খাওয়ায় তিনি অপমানিত ও ব্যাথিত বোধ করেন। যদিও পরিচালকের নির্দেশেই নায়ক তাকে না জানিয়েই এই কাজ করেছিলেন। অভিভাবকহীন নিম্মবিত্তেরনিম্নবিত্তের মেয়ে হওয়ায় নানাভাবে তাঁকে অর্থের লোভ দেখিয়ে নগ্ন দৃশ্যে অভিনেয়ের জন্যে বাধ্য করা হতো। ১৯৩৫ সালে সতীশ দাশগুপ্তের ''[[বাসব দত্তা]]'' চলচ্চিত্রে তাঁর অনিচ্ছায় নগ্নতার প্রদর্শন ছিলো। এছাড়াও তাঁর অসহায়ত্বের সুযোগ নিয়ে পরিচালকেরা অর্থিকভাবেও তাঁকে ঠকাতেন। ১৯৩৫ সালে মুক্তি পায় তার জয়তিশ বন্দোপাধ্যায়ের ''[[মানময়ী গার্লস স্কুল]]'' এবং এর মাধ্যমেই তিনি নিজেকে চলচ্চিত্র জগতে প্রতিষ্ঠিত করেছেন। এরপর ১৯৩৭ সালে ''[[মুক্তি]]'' চলচ্চিত্র তাঁকে সর্বপ্রথম অভিনেত্রী হিসেবে সফলতা এনে দেয়।<ref name="হার্টথ্রব"/><ref name="kananbala "/>
 
== শ্রীমতি পিকচারস ==
 
== পুরস্কার এবং সম্মাননা ==
২০১১ সালের ১৩ ফেব্রুয়ারি ভারতের ডাক বিভাগ কানন দেবীর একটি মারকস্মারক ডাকটিকিট প্রকাশ করেছে।<ref name="স্মারক ডাকটিকিট">{{cite news |author= |title=মীনা কুমারী, কানন দেবী নূতন ও দেবিকা রানীর নামে স্মারক ডাকটিকিট |url=http://archive.prothom-alo.com/detail/date/2011-02-09/news/130065 |date=ফেব্রুয়ারি ০৯, ২০১১ |accessdate=অক্টোবর ৩০, ২০১৪ |work=[[দৈনিক প্রথম আলো]]}}</ref>
 
== তথ্যসূত্র ==
৪,২২৫টি

সম্পাদনা