"বার্ট ওল্ডফিল্ড" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্মাননা - অনুচ্ছেদ
(খেলোয়াড়ী জীবন - অনুচ্ছেদ সৃষ্টি)
(সম্মাননা - অনুচ্ছেদ)
| year1 = ১৯১৯-১৯৩৮
| columns = 2
| column1 = [[Testটেস্ট cricketক্রিকেট|টেস্ট]]
| matches1 = 54
| runs1 = 1,427
| best bowling1 = –
| catches/stumpings1 = 78/52
| column2 = [[Firstপ্রথম-classশ্রেণীর cricketক্রিকেট|এফসি]]
| matches2 = 245
| runs2 = 6,135
| source = http://www.cricinfo.com/ci/content/player/7003.html ক্রিকইনফো
}}
'''উইলিয়াম আলবার্ট স্ট্যানলি বার্ট ওল্ডফিল্ড''' ({{lang-en|Bert Oldfield}}; [[জন্ম]]: [[৯ সেপ্টেম্বর]], [[১৮৯৪]] - [[মৃত্যু]]: [[১০ আগস্ট]], [[১৯৭৬]]) নিউ সাউথ ওয়েলসের সিডনিতে জন্মগ্রহণকারী বিশিষ্ট অস্ট্রেলীয় ক্রিকেটার ছিলেন।<ref name="Cricinfoprofile">{{cite news|first= |last=|title = Niamur Rashid's Cricinfo Profile| url=http://www.espncricinfo.com/ci/content/player/7003.html|date =|accessdate = 2016-7-9|publisher= [[Cricinfo]]}}</ref> [[অস্ট্রেলিয়া জাতীয় ক্রিকেট দল|অস্ট্রেলিয়া ক্রিকেট দলের]] অন্যতম সদস্য ছিলেন '''বার্ট ওল্ডফিল্ড'''। ঘরোয়া প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে নিউ সাউথ ওয়েলসের প্রতিনিধিত্ব করেন তিনি। দলে তিনি মূলতঃ [[উইকেট-কিপার]] হিসেবে খেলতেন। পাশাপাশি ডানহাতে ব্যাটিংয়ে অভ্যস্ত ছিলেন।
 
== খেলোয়াড়ী জীবন ==
১৫শ ফিল্ড অ্যাম্বুলেন্সে কর্পোরাল হিসেবে [[first Australian Imperial Force|প্রথম অস্ট্রেলীয় রাজকীয় কাহিনীতেবাহিনীতে]] চাকুরী করেন। ১৯১৭ সালে পায়ে গুলি লাগলে আহত হন তিনি। যুদ্ধ শেষ হলে [[Australian Imperial Forces cricket team|অস্ট্রেলিয়ান ইম্পেরিয়াল ফোর্সেস ক্রিকেট দলের]] সদস্য মনোনীত হন। দলটি ব্রিটেন, দক্ষিণ আফ্রিকা ও অস্ট্রেলিয়ায় ২৮টি [[প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেট|প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে]] অংশ নেয়।
 
১৯১৯ সালে ইংল্যান্ডের বিপক্ষে প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে অভিষেক ঘটে তাঁর। ১৯২০-২১ মৌসুমে নিজ শহর সিডনিতে সফরকারী [[ইংল্যান্ড ক্রিকেট দল|ইংল্যান্ডের]] বিপক্ষে তিনি তাঁর প্রথম টেস্টে অংশ নেন। পরবর্তী বেশ কয়েকবছর দল থেকে বাদ পড়েন। কিন্তু উইকেট-কিপার হিসেবে স্বয়ংক্রিয়ভাবে [[English cricket team in Australia in 1924–25|১৯২৪-২৫]] মৌসুমের [[দি অ্যাশেজ|অ্যাশেজ সিরিজে]] ইংল্যান্ডের বিপক্ষে খেলার জন্য মনোনীত হন।
 
== বডিলাইন সিরিজ ==
এরপর তাঁর খেলোয়াড়ী জীবনে আরও একটি টেস্টে অংশগ্রহণ করতে পারেননি। [[English cricket team in Australia in 1932–33|১৯৩২-৩৩]] মৌসুমের কুখ্যাত [[বডিলাইন]] সিরিজের চতুর্থ টেস্টে অনুপস্থিত ছিলেন তিনি। অ্যাডিলেডের প্রসিদ্ধ তৃতীয় টেস্টে ইংরেজদের বডিলাইন কৌশলের প্রয়োগ ঘটে। ইংরেজ বোলাররা অস্ট্রেলীয় ব্যাটসম্যানদের শরীর লক্ষ্য করে বোলিং করার নির্দেশনা ছিল। কিন্তু ফাস্ট বোলার [[হ্যারল্ড লারউড|হ্যারল্ড লারউডের]] ছোঁড়া বল অপ্রত্যাশিতভাবে তাঁর মাথায় আঘাত করলে সর্বাপেক্ষা নাটকীয় পরিস্থিতির উদ্ভব ঘটে।<ref>Haigh and Frith, p. 73.</ref> ফলশ্রুতিতে তাঁকে[[বিল অপ্রত্যাশিতভাবেউডফুল|উডফুলের]] সহায়তায় তাঁকে মাঠ ত্যাগ করতেকরে ড্রেসিং রুমে পাঠানো হয়।<ref>Frith, pp. 216–18.</ref><ref>Piesse, p. 128.</ref> এরফলে দ্বিতীয় ইনিংসে তিনি ব্যাটিংয়ে নামতে পারেননি ও অস্ট্রেলিয়া ১৯৩ রানে অল আউট হয়।<ref>[http://www.cricketarchive.com/cgi-bin/player_oracle_reveals_results2.cgi?playernumber=452&opponentmatch=exact&playername=Meckiff&resulttype=All&matchtype=All&teammatch=exact&startwicket=&homeawaytype=All&opponent=&endwicket=&wicketkeeper=&searchtype=InningsList&endscore=&playermatch=contains&branding=cricketarchive&captain=&endseason=&startscore=&team=&startseason= Player Oracle WM Woodfull". CricketArchive. Retrieved 14 May 2009.]</ref><ref>Perry, pp. 144–146.</ref> পরবর্তীতে বডিলাইন ক্রীড়ার বিষয়ে অস্ট্রেলীয় বোর্ড আনুষ্ঠানিকভাবে [[মেরিলেবোন ক্রিকেট ক্লাব|ইংরেজ প্রশাসনের]] কাছে অভিযোগ প্রেরণ করে।<ref name=o>{{cite web| title=Player Oracle WM Woodfull|url=http://www.cricketarchive.com/cgi-bin/player_oracle_reveals_results2.cgi?playernumber=452&opponentmatch=exact&playername=Meckiff&resulttype=All&matchtype=All&teammatch=exact&startwicket=&homeawaytype=All&opponent=&endwicket=&wicketkeeper=&searchtype=InningsList&endscore=&playermatch=contains&branding=cricketarchive&captain=&endseason=&startscore=&team=&startseason= |accessdate=14 May 2009 |publisher=[[CricketArchive]]}}</ref><ref name="pbody">Perry, pp. 144–146.</ref> ১৯৩৭ সালে টেস্ট ক্রিকেটে সর্বশেষবারের মতো অংশ নেন।
 
== সম্মাননা ==
সমগ্র খেলোয়াড়ী জীবনে অস্ট্রেলিয়ার পক্ষে ৫৪ টেস্টে অংশ নিয়ে ২২৬৫ গড়ে ১,৪২৭ রান তুলেছেন। এছাড়াও ৭৮ ক্যাচ ও ৫২ স্ট্যাম্পিংয়ের সাথে নিজেকে জড়িয়ে রেখেছেন তিনি। টেস্টে ৫২ স্ট্যাম্পিং অদ্যাবধি বিশ্বরেকর্ড হিসেবে স্বীকৃত। প্রথম-শ্রেণীর ক্রিকেটে ২৪৫ খেলায় ৬,১৩৫ রান করেছেন ২৩৭৭ গড়ে। পাশাপাশি ৩৯৯ ক্যাচ ও ২৬৩ স্ট্যাম্পিং করেছেন তিনি।
 
৭৭,২৬৯টি

সম্পাদনা