"মইনুদ্দিন চিশতী" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

পরিমার্জন
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
(পরিমার্জন)
 
== ধর্ম প্রচার ==
খাজা মঈনুদ্দীন চিশতী ছিলেন পাক-ভারত উপমহাদেশে ইসলাম প্রচারে কিংবদন্তিতুল্য একজন ঐতিহাসিক ছুফি ব্যক্তিত্ব। তিনি স্বীয় পীর [[উসমান হারুনী]]র নির্দেশে ভারতে আগমন করে মানুষকে ইসলামের দাওয়াত দেন এবং তারই মাধ্যমে বহু লোক ইসলাম গ্রহণ করেন। <ref name="ittefaq.com.bd"/><ref name="আল ইহসান"/> তার বিখ্যাত একটি গ্রন্থ হল "আনিসুল আরওয়াহ"।
 
== খেলাফত প্রদান ==
 
== মৃত্যু ==
খাজা মঈনুদ্দীন চিশতী ৬৩৩ হিজরীর ৫ রজব দিবাগত রাত অর্থাৎ ৬ রজব সূর্যোদয়ের সময় ইন্তেকাল করেন। তখন তার বয়স হয়েছিল ৯৭ বছর। তাঁর কপালে সোনালী অক্ষরে লিখা ছিল হা-যা হাবিবুল্লাহ। ,মা-তা ফী হুব্বিল্লাহ( অর্থ তিনি আল্লাহর বন্ধু। আল্লাহর ভালবাসায় তাঁর মৃত্যু) । বড় ছেলে খাজা ফখরুদ্দীন চিশতী তাঁরতার নামাজে জানাজায় ইমামতি করেন। প্রতিবছর ১লা রজব হতে ৬ রজব পর্যন্ত আজমির শরীফে তাঁরতার সমাধিস্থলে ওরছ অনুষ্ঠিত হয়।তাঁর বিখ্যাত একটি গ্রন্থ হল "আনিসুল আরওয়াহ"।হয়। নানা ধর্ম, বর্ণ ও গোত্রের মানুষ পৃথিবীর বিভিন্ন দেশ হতে সমবেত হয়।<ref name="বেঙ্গলীনিউজ">{{cite web|url=http://www.bengalinews24.com/enviroment-tourism-fuel-energy/2013/08/30/17234 |title=সংবাদ মাধ্যম: বেঙ্গলীনিউজ টুয়েন্টিফোর ডট কম, শিরোনাম: আজমির শরীফ দর্শন, লেখক: মাওলানা সাইয়্যিদ আব্দুল্লাহ উফিয়াআনহু, তারিখ: 30 আগষ্ট, 2013}}</ref>
 
== তথ্যসূত্র ==
{{reflist|2}}
আনিসুল আরওয়াহ
লেখক খাজা মঈনুদ্দীন চিশতী রহমাতুল্লাহ
 
== বহিঃসংযোগ ==
২৮,০১৪টি

সম্পাদনা