"আল-কিন্দি" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

→‎শীর্ষ: ছবি লুকানো -> আলাপ পাতা দেখুন
(কর্তৃপক্ষ নিয়ন্ত্রণ উইকিউপাত্তে সরানো হয়েছে)
(→‎শীর্ষ: ছবি লুকানো -> আলাপ পাতা দেখুন)
{{তথ্যছক দার্শনিক
{{Infobox_Philosopher
| region = [[আরব বিজ্ঞানী ও পণ্ডিতদের তালিকা|আরব পণ্ডিত]]
| era = [[ইসলামের স্বর্ণযুগ]]
| color = #B0C4DE
| image_name = <!-- Al-kindi.jpeg সম্ভবত আল-কিন্দির ছবি না -->
| image_caption = আল-কিন্দির পোর্ট্রেটপ্রতিচ্ছবি
 
| name = আল-কিন্দি |
<!-- Image and Caption -->
| image_name = Al-kindi.jpeg
| image_caption = আল-কিন্দির পোর্ট্রেট
 
<!-- Information -->
| name = আল-কিন্দি |
| birth = ৮০১
| death = ৮৭৩
| main_interests = [[ইসলামী জ্যোতির্বিজ্ঞান|জ্যোতির্বিজ্ঞান]] [[ইসলামী গণিত|গণিত]], [[ইসলামী চিকিৎসাবিজ্ঞান|চিকিৎসাবিজ্ঞান]], [[ইসলামী দর্শন|দর্শন]], [[ইসলামী মনোবিজ্ঞান|মনোবিজ্ঞান]], [[ইসলামী বিজ্ঞান|বিজ্ঞান]], [[কালাম|ধর্মতত্ত্ব]]
| influences = <small>[[এরিস্টটল]], [[প্লোতিনুস]], [[প্রোক্লুস]], [[জন ফিলোপোনুস|ফিলোপোনুস]], [[মুহাম্মাদ]], [[ওয়াসিল ইবন আতা]], [[মুতাজিলা]], [[জাবির ইবন হাইয়ান]]</small>
| influenced = <small>[[আল-বালখি]], [[আল-ফারাবি]], [[ইখওয়ান আল-সাফা]], [[ইবন আল-হাইসাম]], [[ইবন সিনা]], [[আল-গাজ্জালি]], [[আবু-রুশ্‌দ]], জেরার্ড, [[টমাস একুইনাস]], Gerolamoজেরোলামো Cardanoকারদানো</small>
| notable_ideas =
}}
আল-কিন্দিই প্রথম ভারতীয় সংখ্যা পদ্ধতিকে মুসলিম ও খ্রিস্টান বিশ্বে পরিচিত করে তোলেন। ক্রিপ্টোলজি ও ক্রিপ্ট্যানালাইসিসে তার বিশেষ আগ্রহ ছিল, গুপ্ত সংকেতের মর্ম উদ্ধারের জন্য কয়েকটি নতুন গাণিতিক পদ্ধতিও আবিষ্কার করেছিলেন যার মধ্যে [[কম্পাঙ্ক বিশ্লেষণ]] পদ্ধতি উল্লেখয়োগ্য। গণিত ও চিকিৎসাবিজ্ঞানের জ্ঞানকে ব্যবহার করে ডাক্তারদের জন্য একটি স্কেল নির্ধারণ করেছিলেন। এই স্কেল দিয়ে ডাক্তাররা তাদের প্রস্তাবিত ঔষুধের কার্যকারিতা পরিমাপ করতে পারতো। এছাড়া তিনিই প্রথম [[সঙ্গীত থেরাপি]] পরীক্ষা করে দেখেছিলেন।
 
আল-কিন্দির দর্শনের প্রধান বিষয় চিল মূলধারার ইসলামী ধর্মতত্ত্বের সাথে সার সংযোগ। অনেক ইসলামী চিন্তাবিদের মত তিনিও ধর্মতত্ত্বের সাথে দর্শনের সম্পর্ক নির্ণয়ের চেষ্টা করেছিলেন। কিন্দির অনেক রচনাতেই ধর্মতত্ত্বের মৌলিক বিষয়ের দেখা মিলে। যেমন, আল্লাহ্‌র প্রকৃতি, আত্মা এবং ভবিষ্যদ্বাণী। মুসলিম বুদ্ধিজীবীদের কাছে দর্শনের গুরুত্ব তুলে ধরার ক্ষেত্রে তার কাজ যথেষ্ট গুরুত্বপূর্ণ হলেও তার নিজস্ব দার্শনিক চিন্তায় মৌলিকত্ব খুব বেশি ছিল না। [[আল-ফারাবি]] নামক আরেকজন মুসলিম দার্শনিকের মতবাদ তার দার্শনিক ধারাকে অনেকটাই ম্লান করে দিয়েছে। তার উপর বর্তমান যুগে পরীক্ষা করার মত তার খুব কম লেখাই অবশিষ্ট আছে। তার পরও কিন্দিকে আরব ইতিহাসের অন্যতম সেরা দার্শনিকের মর্যাদা দেয়া হয়। আর এ কারণেই তাকে অনেকে সরাসরি "দ্যআরবদের আরব ফিলোসফারদার্শনিক" নামে ডাকেন।<ref>Al-Kindi - ইংরেজি উইকিপিডিয়া; ২রা আগস্ট, ২০০৮; ভূমিকা অংশ থেকে সরাসরি অনুবাদ করা হয়েছে। এই ভূমিকায় তথ্যসূত্র ছাড়া কোন অংশ ছিল না।</ref>
 
== দার্শনিক চিন্তাধারা ==