"শৈবধর্ম" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
(ধ্বংসপ্রবণতা হিসাবে চিহ্নিত রুদ্রনীল দেবনাথ ([[User talk:রুদ্রনীল দেব...)
ট্যাগ: মোবাইল সম্পাদনা মোবাইল ওয়েব সম্পাদনা
[[চিত্র:Shiva-nataraja.jpg|thumb|শৈবধর্মের একমাত্র ঈশ্বর পরম আরাধ্য জগদ্বীশ্বর ভগবান শিব।]]
'''শৈবধর্ম''' বা '''শৈবপন্থ''' ([[সংস্কৃত]]: शैव पंथ) [[হিন্দুধর্ম|হিন্দুধর্মের]] চারটি প্রধান সম্প্রদায়ের অন্যতম (অন্য সম্প্রদায়গুলি হল [[বৈষ্ণবধর্ম]], [[শাক্তধর্ম]] ও [[স্মার্তধর্ম]])। এই[["শৈব"]] ধর্মেরকথাটির অনুগামীদেরঅর্থ হলো "শৈবশিব সংক্রান্ত" নামে[[হিন্দুধর্ম|হিন্দুধর্মের]] অভিহিতযে করাসম্প্রদায় হয়।একমাত্র শৈবধর্মেপরমেশ্বর ভগবান [[শিব|শিবকে]] একমাত্রকেই [[সর্বোচ্চ ঈশ্বর]] বলেঅর্থাৎ মনে[[Supreme করাGod]] হয়;মান্য এইকরে ধর্মেরতারা অনুগামীরা[[শৈব]] ভগবাননামে শিবপরিচিত। কেই[[শৈবধর্ম]] স্রষ্টা,হলো পালনকর্তা,[[হিন্দুধর্ম|হিন্দুধর্মের]] ধ্বংসকর্তা,সম্প্রদায় সকলগুলোর বস্তুরমধ্যে প্রকাশসবচেয়ে প্রাচীন ব্রহ্মস্বরূপধর্মীয় হিসেবেসম্প্রদায়। পুজার্চ্চনাধারনা করেন।করা হয় [[ভারতবৈদিক]],যুগ বা তার পরবর্তী সময় থেকেই শৈবধর্মের সূচনা হয়। [[নেপালশৈব]] সম্প্রদায়ের তাদের প্রধান আরাধ্য ভগবান [[শ্রীলঙ্কা|শ্রীলঙ্কায়শিব]] শৈবধর্মকেই সুপ্রচলিত।সৃষ্টির দক্ষিণপূর্বমূল এশিয়ারকারন বলে মনে করেন। ধারনা করা হয় বিশ্বব্রহ্মান্ড সৃষ্টির সময় ভগবান [[মালয়েশিয়াশিব|শিবের]], অগ্নিময় [[সিঙ্গাপুরশিবলিঙ্গ]] থেকে [[ইন্দোনেশিয়াবিষ্ণু|ইন্দোনেশিয়াতেওবিষ্ণুর]] শৈবধর্মেরসৃষ্টির প্রসারহয়। লক্ষিতআর হয়।[[বিষ্ণু|বিষ্ণুর]] নাভিকমল থেকে সৃষ্টি হয় [[ব্রহ্মা|ব্রহ্মার]]।
[[শৈবধর্ম]] অনুসারে ভগবান শিব [[পরমব্রহ্ম]], [[পরমেশ্বর]] বা [[স্বয়ং ভগবান]]। [[শৈবধর্ম]] কে [[হিন্দুধর্ম|হিন্দুধর্মের প্রবেশদ্বার বলা হয়।<ref>'{{Harvnb|Tattwananda|1984|p=45}}.</ref> ''[[শ্বেতাশ্বেতর উপনিষদ]]'' (৪০০-২০০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দ) <ref name="Flood 1996 p. 86">For dating to 400-200 BCE see: Flood (1996), p. 86.</ref> শৈবধর্মের প্রথম সুসংহত দর্শনগ্রন্থ।<ref name="Chakravarti 1994 9">For {{IAST|Śvetāśvatara}} Upanishad as a systematic philosophy of Shaivism see: {{Harvnb|Chakravarti|1994|p=9}}.</ref> গেভিন ফ্লাডের মতে:
 
শৈবধর্মের প্রাচীন ইতিহাস নিরুপণের কাজটি দুঃসাধ্য। হিন্দুধর্মের মহান গ্রন্থ [[মহাভারত|মহাভারতের]] বর্ণণা অনুযায়ী কুরু বংশের [[কুল দেবতা]] ছিলেন [[ভগবান শিব]]। আর একারনেই কুরু বংশের [[একশত কৌরব]] ও [[পঞ্চ পান্ডব]] এবং তাদের পিতৃপুরুষ সকলেই শৈবধর্মের উপাসক ছিলেন। বিগত [[২০১৩]] সালে [[ভারতীয়]] টিভি চ্যানেল [[Star plus]] নির্মিত [[মহাভারত]] নামক টিভি সিরিয়ালটিতে বিষয়টি লক্ষ্য করা যায়। প্রাচীন যুগে বাংলার গৌড়েশ্বর [[মহারাজ শশাংক]] ছিলেন শৈবধর্মের উপাসক। তিনি তার নামের প্রথমে [[পরম শৈব]] উপাধি ব্যবহার করতেন। আর্যাবর্তে [[পাশুপত সম্প্রদায়]] সবচেয়ে প্রাচীন শৈব ধর্মাবলম্বী। এছাড়া প্রাচীন বাংলার সেন বংশীয় রাজারা ছিলেন শৈবধর্মের উপাসক। সেন রাজারা তাদের রাজকার্যের শুরুতে ভগবান শিবের স্তবের প্রচলন করেছিলেন। কিন্তু সেন বংশের শেষ রাজা [[লক্ষন সেন]] পিতামহ ও পিতৃদেবের শৈবধর্মের প্রতি অনুরাগ ত্যাগ করে [[বৈষ্ণব ধর্ম]] গ্রহন করেন। এর ফলে রাজা লক্ষনকে অনেক দূর্গতি পোহাতে হয়েছিল। শৈবধর্মের সুন্দর নিয়ম নীতি ত্যাগ করে তিনি বৈষ্ণবীয় নিয়ম নীতিতে ব্যস্ত হয়ে পড়েন। ফলে রাজকার্যে অমনোযোগী হয়ে পড়েন। তারপর একজন মুসলিম তুর্কি সেনাপতি মাত্র ১৮ জন অশ্বারোহী সৈন্যদলের দ্বারা আক্রমনের শিকার হয়ে রাজপ্রাসাদের পিছনের দরজা দিয়ে পলায়ন করে সপরিবারে প্রথম রাজধানী নবদ্বীপ / নদীয়া নৌকাযোগে থেকে দ্বিতীয় রাজধানী পূর্ববঙ্গের মুন্সীগঞ্জের বিক্রমপুরে চলে আসেন। ধারণা করা হয় পিতামহ ও পিতৃদেবের শৈবধর্ম ত্যাগ করার কারনেই লক্ষন সেনের এরকম দূর্গতির কারন ছিল। সংগ্রহিত -[[বাংলাদেশের ইতিহাস ও বিশ্বসভ্যতা ]]<ref>'{{Harvnb|Tattwananda|1984|p=45}}.</ref> ''[[শ্বেতাশ্বেতর উপনিষদ]]'' (৪০০-২০০ খ্রিষ্টপূর্বাব্দ) <ref name="Flood 1996 p. 86">For dating to 400-200 BCE see: Flood (1996), p. 86.</ref> শৈবধর্মের প্রথম সুসংহত দর্শনগ্রন্থ।<ref name="Chakravarti 1994 9">For {{IAST|Śvetāśvatara}} Upanishad as a systematic philosophy of Shaivism see: {{Harvnb|Chakravarti|1994|p=9}}.</ref> গেভিন ফ্লাডের মতে:
<blockquote class="toccolours" style="float:none; padding: 10px 15px 10px 15px; display:table;">... A theology which elevates Rudra to the status of supreme being, the Lord (Sanskrit: {{IAST|Īśa}}) who is transcendent yet also has cosmological functions, as does Shiva in later traditions.<ref>Flood (1996), p. 153.</ref></blockquote>
[[গুপ্ত সাম্রাজ্য|গুপ্তযুগে]] (৩২০ – ৫০০ খ্রিষ্টাব্দ) পৌরাণিক হিন্দুধর্ম বিকাশলাভ করে। এই সময়ই শৈবধর্মের ব্যাপক প্রসার ঘটেছিল। ক্রমে পৌরাণিক উপাখ্যানের কথক ও গায়কদের মাধ্যমে এই ধর্ম সমগ্র উপমহাদেশে ছড়িয়ে পড়ে।<ref>For Gupta Dynasty (c. 320 - 500 CE) and Puranic religion as important to the spread across the subcontinent, see: Flood (1996), p. 154.</ref>
১১৩টি

সম্পাদনা