"উইকিপিডিয়া:খেলাঘর ২" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

সম্পাদনা সারাংশ নেই
আহসান ১৯৫৫ থেকে ১৯৬৩ সালের মধ্যে পাকিস্তান, করাচি, পাকিস্তান ইন্টারন্যাশনাল এয়ারলাইন্স (পি আই এ), রাওয়ালপিন্ডি, পেশোয়ার এবং অন্যান্য দলের হয়ে ৪৯ টি প্রথম শ্রেনির ম্যাচ খেলেছেন। প্রথম শ্রেনির ক্রিকেটে তিনি এক ইনিংসে ৫ কিংবা তার বেশি উইকেট ১৩ বার এবং ওক ম্যাচে ১০ কিংবা তার বেশি উইকেট ২ বার নেয়ার কৃতিত্ব অর্জন করেন।
 
আহসান নর্থ ওয়েস্ট ফ্রন্টিয়ার প্রদেশ ও ভাওয়ালপুর এর হয়ে প্রথম শ্রেনির ক্রিকেটে অভিষেক করেন। ১৯৫৫-৫৬ মৌসুমে মেরিলিবোর্ন ক্রিকেট ক্লাবের বিপক্ষে খেলা তার অভিষেক ম্যাচটি ঐ মৌসুমে তার একমাত্র ম্যাচ ছিল। ১৯৫৬-৫৭ মৌসুমে তিনি পেশোয়ারের হয়ে ৩ টি ম্যাচ খেলেন এবং পাঞ্জাব বি দলের সাথে ৭৬ রানে ৮ উইকেট নেয়া বোলিং ফিগার মৌসুম সেরা ছিল। পরের মৌসুমে ৯ ম্যাচে ৪৩ উইকেট নিয়ে তিনি বল হাতে আরো কার্যকর হয়ে ওঠেন। ঐ একই মৌসুমে পাঞ্জাব বি দলের সাথে তিনি ২৩ রান খরচে ৮ উইকেট পান; প্রথম শ্রেনির ক্রিকেটে এটি তার ব্যক্তিগত সেরা অর্জন। ঐ মৌসুম চলাকালীন সময়ে কেনসিংটন ওভালে ওয়েস্টইন্ডিজ এর বিপক্ষে তার টেস্ট ম্যাচ অভিষেক হয়। ঐ ম্যাচে হানিফ মোহাম্মদ ৩৩৭ রান করেন। ১৯৫৮ সালে অনুষ্ঠিত হওয়া ঐ সিরিজের প্রথম ম্যাচে তিনি উইকেটশূন্য থেকে ২১ ওভার বল করে ৮৪ রান দেন। সিরিজের ৩ টি ম্যাচ খেলে তিনি ৫ টি উইকেট সংগ্রহ করেন।
 
আহসান পরের ২ মৌসুমে মাত্র ১৪ টি উইকেট শিকার করেন এবং ৫১ রানে ৫ উইকেট ছিল এই ২ মৌসুমের তার সেরা অর্জন। ১৯৬০-৬১ সালে ভারত সফরে যাওয়া পাকিস্তান দলের সাথে তিনি সম্পৃক্ত ছিলেন। সেখানে তিনি ৫ টি টেস্ট ম্যাচ সহ মোট ৯ টি ম্যাচ খেলেন এবং ২৮.৭৫ গড়ে ২৪ টি উইকেট শিকার করেন। ১৯৬০-৬১ মৌসুমে তিনি ২৬ টি উইকেট শিকার করেন যার মধ্যে ওয়েস্ট জোনের সাথে খেলা ম্যাচে তিনি ৮০ রানে ৬ উইকেট শিকার করেন। টেস্টে ৩২.৬৬ গড়ে ১৫ উইকেট নিয়ে তিনি ভারতের বিপক্ষে সবচেয়ে সফল বোলার ছিলেন। নেহেরু স্টেডিয়ামে ভারতের বিপক্ষে তিনি ২০২ রানে ৬ উইকেট নেন; যা তার ব্যক্তিগত সেরা অর্জন। [[File:Jawaharlal Nehru Stadium Chennai panorama.jpg|center|thumb|এই নেহেরু স্টেডিয়াম মাঠে আহসান ব্যক্তিগত সেরা অর্জন পান]] ১৯৬১-৬২ ও ১৯৬২ মৌসুমে আহসান ১০ ম্যাচে ২৮ উইকেট নেন, যার মধ্যে ওরসেস্টারশায়ার এর বিপক্ষে তিনি ৫ উইকেটে শিকার করেন। পরের ২ ঘরোয়া মৌসুমে তিনি ৮ টি ম্যাচ খেলে ১২ টি উইকেট নেন, যার মধ্যে আইয়ুব ট্রফিতে পিআইএ এর হয়ে সারগোদা ক্রিকেট টিমের বিপক্ষে খেলা ম্যাচে তিনি ৪৩ রানে ৫ উইকেট নেন। করাচিতে অবস্থিত জাতীয় স্টেডিয়ামে তিনি তার বিদায়ী টেস্ট খেলেন; যেখানে তিনি ৬৪ রান দিয়ে ২ উইকেট পান।
৫৫টি

সম্পাদনা