"সাক্ষরতা" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

তারকা (আলাপ)-এর সম্পাদিত 1903936 নম্বর সংশোধনটি বাতিল করা হয়েছে
(সাক্ষরতা দিবসের ব্যাপারে)
(তারকা (আলাপ)-এর সম্পাদিত 1903936 নম্বর সংশোধনটি বাতিল করা হয়েছে)
{{উৎসহীন}}{{refimprove|date = সেপ্টেম্বর ২<ref name=undefined />০১৩২০১৩}}{{cleanup|reason=মানসম্মত অবস্থায় আনতে একে পরিচ্ছন্ন করা প্রযোজন|date=সেপ্টেম্বর ২০১৩}}
'''সাক্ষরতা''' বলতে সাধারণত অক্ষর জ্ঞানসম্পন্নতাকেই বোঝায়। দিন দিন বৃদ্ধি পাচ্ছে এর পরিধি। এখন শুধু স্বাক্ষর জ্ঞান থাকলেই সাক্ষরতা বলা চলে না।
 
 
সাক্ষরতা একটি দেশের জন্য অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। শিক্ষার সঙ্গে সাক্ষরতার আর সাক্ষরতার সঙ্গে উন্নয়নের সম্পর্ক ওতপ্রোতভাবে জড়িত। যে দেশের সাক্ষরতার হার যত বেশি সে দেশ তত উন্নত। স্বাক্ষর জাতি সচেতন জাতি। শিক্ষা সাধারণত তিনটি উপায়ে অর্জিত হয়।। আনুষ্ঠানিক, উপানুষ্ঠানিক এবং অনানুষ্ঠানিক। যারা আনুষ্ঠানিক শিক্ষা থেকে বঞ্চিত বা যারা আনুষ্ঠানিক শিক্ষা পায়নি তাদের স্বাক্ষরতার জন্য উপানুষ্ঠানিকভাবে শিক্ষা দেয়া হয়। বাংলাদেশে সরকারি প্রচেষ্টার বাইরে বিভিন্ন এনজিও সংস্থা সাক্ষরতা বৃদ্ধির জন্য কাজ করে যাচ্ছে। বাংলাদেশের হারকে বৃদ্ধি করতে এগিয়ে আসতে হবে সবাইকে। আসুন আমরা সচেতন হই।
 
উল্লেখ্য, প্রতি বছর ৮ সেপ্টেম্বর সারাবিশ্বে ইউনেস্কোর আহবানে আন্তর্জাতিক সাক্ষরতা দিবস পালিত হয়। ২০১৫ সালে এ দিবসের উপপাদ্য হিসাবে নির্ধারণ করা হয়েছে "সাক্ষরতা এবং টেকসই সমাজ"।<ref>{{ওয়েব উদ্ধৃতি|last1=ইউনেস্কো|url=http://www.unesco.org/new/en/unesco/events/prizes-and-celebrations/celebrations/international-days/literacy-day|website=ইউনেস্কো|accessdate=৫ সেপ্টেম্বর ২০১৫}}</ref>