"কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ" পাতাটির দুইটি সংশোধিত সংস্করণের মধ্যে পার্থক্য

 
=== বর্তমান পরিস্থিতি ===
একটি মাত্র দোতলা ভবন নিয়ে পথচলা শুরু করা কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ নিজস্ব জমিতে বর্তমানে রয়েছে বিভিন্ন স্থাপনা- কলেজ ভবন, অডিটোরিয়াম, পরমাণু চিকিৎসা কেন্দ্র, ছাত্র ও ছাত্রী হোস্টেল ইত্যাদি। শুরুতে দোতলা ভবনেই বিভিন্ন বর্ষের ক্লাস হলেও স্থান সংকুলান না হওয়ার কারনে ভবনটি পাঁচতলা পর্যন্ত সম্প্রসারিত করা হয়।২০০৬ সালে কলেজটি নতুন করে সম্প্রসারিত করা হয়। ৫০০২০০৫-২০০৬ শয্যারসাল এই হাসপাতালে প্রতিদিন প্রায় ১০০০ জনকে চিকিৎসা প্রদান করা হয়। কুমিল্লা এবং বৃৃহত্তর নোয়াখালী অঞ্চলের লোকজনথেকে এই হাসপাতালেরকলেজে বহির্বিভাগ এবং অন্তর্বিভাগ থেকে সকল ধরনের চিকিৎসাসেবা পেয়ে থাকেন। একই সাথে চলতে থাকে ৩য় থেকে ৫ম বর্ষেরবিদেশি ছাত্রছাত্রীদের হাতে কলমে শিক্ষাদান। প্রতিবছর ১১০ জন ছাত্রছাত্রী ভর্তি হয় এমবিবিএস কোর্সে। তিনটি পেশাগত পরীক্ষার বাধা পেরিয়ে একজন শিক্ষার্থী ডাক্তার হবার যোগ্যতা অর্জন করে এবং এরপর একবছর ইণ্টার্নশিপ করতে হয় কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। ২০১১সাল থেকে স্নাতকোত্তর কোর্স (ডিপ্লোমা) চালু করা হয়েছে। ২০১২ সালের মে মাস পর্যন্ত এই কলেজ থেকে ষোলটি ব্যাচ পাশভর্তির করেছে।জন্য
নির্বাচন করা হয়। সাতজন পাকিস্তানি
ছাত্র, পাঁচজন নেপালি শিক্ষার্থী, মালদ্বীপের দুইজন শিক্ষার্থী ও
এক ভারতীয় শিক্ষার্থী এখন
এই মেডিকেল কলেজে পড়াশোনা করছে। এখানে শিক্ষণের মাধ্যম
ইংরেজি।
৫০০ শয্যার কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে প্রতিদিন প্রায় ১০০০ জনকে চিকিৎসা প্রদান করা হয়। কুমিল্লা এবং বৃৃহত্তর নোয়াখালী অঞ্চলের লোকজন এই হাসপাতালের বহির্বিভাগ এবং অন্তর্বিভাগ থেকে সকল ধরনের চিকিৎসাসেবা পেয়ে থাকেন। একই সাথে চলতে থাকে ৩য় থেকে ৫ম বর্ষের ছাত্রছাত্রীদের হাতে কলমে শিক্ষাদান। প্রতিবছর ১১০ জন ছাত্রছাত্রী ভর্তি হয় এমবিবিএস কোর্সে। তিনটি পেশাগত পরীক্ষার বাধা পেরিয়ে একজন শিক্ষার্থী ডাক্তার হবার যোগ্যতা অর্জন করে এবং এরপর একবছর ইণ্টার্নশিপ করতে হয় কুমিল্লা মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে। ২০১১সাল থেকে স্নাতকোত্তর কোর্স (ডিপ্লোমা) চালু করা হয়েছে। ২০১৫ সালের মে মাস পর্যন্ত এই কলেজ থেকে আঠারোটি ব্যাচ পাশ করেছে।
 
== ছাত্রাবাস ==
৪টি

সম্পাদনা